নতুন শিল্পোন্নত দেশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

সদ্য শিল্পোন্নত দেশের বিভাগ (এনআইসি), সদ্য শিল্পায়িত অর্থনীতি (এনআইই) বা মধ্যম আয়ের দেশ[১] হল একটি আর্থ-সামাজিক শ্রেণীবিভাগ, যা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রাষ্ট্রবিজ্ঞানীঅর্থনীতিবিদদের দ্বারা প্রয়োগ করা হয়। এই দেশসমূহ উন্নয়নশীল দেশসমূহের একটি উপ-এককের প্রতিনিধিত্ব করে, যাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশের তুলনায় অনেক বেশি; এবং যেখানে শিল্পায়নের সামাজিক পরিণতি, যেমন নগরায়ন, সমাজকে পুনর্গঠিত করছে।

সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

নতুন শিল্পোন্নত দেশ হল এমন দেশ যাদের অর্থনীতি এখনও একটি উন্নত দেশের মর্যাদায় পৌঁছেনি কিন্তু সামষ্টিক অর্থনৈতিক অর্থে তাদের উন্নয়নশীল প্রতিপক্ষকে ছাড়িয়ে গেছে। এই জাতীয় দেশগুলিকে এখনও উন্নয়নশীল দেশ হিসাবে বিবেচনা করা হয় এবং একটি নতুন শিল্পোন্নত দেশের বৃদ্ধির হার একটি স্বল্প বরাদ্দ সময়ের মধ্যে অনেক বেশি হয়, যা অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশগুলির থেকে সদ্য শিল্পোন্নত দেশসমূহকে আলাদা করে।[২] নতুন শিল্পোন্নত দেশের আরেকটি বৈশিষ্ট্য হল দেশগুলো দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি (সাধারণত রপ্তানিমুখী) মধ্য দিয়ে যাচ্ছে।[৩] প্রারম্ভিক বা চলমান শিল্পায়ন হল একটি নতুন শিল্পোন্নত দেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ সূচক।

নতুন শিল্পোন্নত দেশগুলির বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

নতুন শিল্পোন্নত দেশগুলি একটি দেশের সামাজিক ও অর্থনৈতিক অবস্থার স্থিতিশীলতা বৃদ্ধি করতে পারে, যা এই দেশগুলিতে বসবাসকারী জনগণকে উন্নত জীবনযাত্রার অবস্থা ও উন্নত জীবনধারা অনুভব প্রদান করতে শুরু করে। নতুন শিল্পোন্নত দেশগুলিতে আরেকটি বৈশিষ্ট্য দেখা যায়, তা হল গণতন্ত্র, আইনের শাসন ও কম দুর্নীতির মতো সরকারী কাঠামোর আরও উন্নয়ন। এই ধরনের দেশগুলিতে বসবাসকারীরা উন্নত জীবনধারার অন্যান্য উদাহরণগুলি হল অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশের তুলনায় উন্নত পরিবহন, বিদ্যুৎ, ও জলে আরও ভাল প্রাপ্যতা এবং কম শিশুমৃত্যুর হার।

বর্তমান[সম্পাদনা]

নীচের ছবটী বিভিন্ন লেখক ও বিশেষজ্ঞদের দ্বারা ধারাবাহিকভাবে নতুন শিল্পোন্নত দেশ হিসাবে বিবেচিত দেশগুলির তালিকা উপস্থাপন করে।[৪][৫][৬][৭] তুরস্ক ও দক্ষিণ আফ্রিকাকে সিআইএ দ্বারা উন্নত দেশ হিসেবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে।[৮] তুরস্ক ১৯৬১ সালে ওইসিডি-এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিল এবং মেক্সিকো ১৯৯৪ সালে যোগদান করে। জি৮+৫ দলটি চীন, ভারত, মেক্সিকো, দক্ষিণ আফ্রিকাব্রাজিল ছাড়াও মূল জি৮ সদস্যদের নিয়ে গঠিত।

দ্রষ্টব্য: সবুজ রঙের কোষগুলি সূচকে সর্বোচ্চ মান বা সর্বোত্তম কার্যক্ষমতা নির্দেশ করে, যখন হলুদ রঙের কোষগুলি বিপরীত নির্দেশ করে।

দেশ অঞ্চল জিডিপি (মিলিয়ন মার্কিন ডলারে, ২০২১ আইএমএফ)[৯] মাথাপিছু জিডিপি
(ইউএসডি, ২০২১ আইএমএফ)[১০]
জিডিপি (পিপিপি) (বর্তমান ডলারে মিলিয়ন, ২০২১ আইএমএফ)[১১] মাথাপিছু জিডিপি (পিপিপি)
(বর্তমান ডলার, ২০২১ আইএমএফ)[১২]
আয় বৈষম্য (জিনি) ২০১১–১৯[১৩][১৪] মানব উন্নয়ন সূচক (এইচডিআই, ২০১৯)[১৫] ২০২১ সালের হিসাবে প্রকৃত জিডিপি বৃদ্ধির হার[১৬]
 দক্ষিণ আফ্রিকা আফ্রিকা ৩২৯,৫২৯ ৫,৪৪৪ ৭৫৩,১১৩ ১২,৪৪২ ৬৩ (২০১৪) ০.৭০৯ (উচ্চ) ৪.৯
 ব্রাজিল লাতিন আমেরিকা ১৬,৪৫,৮৩৭ ৭,৭৪১ ৩৩,২৮,৪৫৯ ১৫,৬৪৩ ৫৩.৪ (২০১৯) ০.৭৬৫ (উচ্চ) ৪.৬
 মেক্সিকো ১২,৮৫,৫১৮ ৯,৯৬৭ ২৬,১৩,৭৯৭ ২০,২৬৬ ৪৫.৪ (২০১৮) ০.৭৯৯ (উচ্চ) ৪.৮
 চীন এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগর ১,৬৮,৬২,৯৭৯ ১১,৮৯১ ২,৬৬,৫৬,৭৬৬ ৮১,৯৩১ ৩৮.৫ (২০১৬) ০.৭৬১ (উচ্চ) ৮.১
 ভারত ২৯,৪৬,০৬১ ২,১১৬ ১,০২,০৭,২৯০ ৭,৩৩৩ ৩৫.৭ (২০১১) ০.৬৪৫ (মধ্যম) ৮.২
 ইন্দোনেশিয়া ১,১৫০,২৪৫ ৪,২২৫ ৩,৫০৭,২৩৯ ১২,৮৮২ ৩৮.২ (২০১৯) ০.৭১৮ (উচ্চ) ৩.৭
 মালয়েশিয়া ৩,৭১,১১৪ ১১,৬০৪ ৯৭৮,৭৮১ ২৯,৩৪০ ৪১.১ (২০১৫) ০.৮১০ (অতি উচ্চ) ৩.১
 ফিলিপাইন ৩,৯৩,৭৩৭ ৩,৪৯২ ১,০০০,৬১৭ ৯,০৬১ ৪২.৩ (২০১৮) ০.৭১৮ (উচ্চ) ৫.৬
 থাইল্যান্ড ৫৪৬,২২৩ ৭,৮০৯ ১,৩২৯,৩২৪ ১৯,০০৪ ৩৪.৯ (২০১৯) ০.৭৭৭ (উচ্চ) ১.৬
 তুরস্ক ইউরেশিয়া ৭,৯৫,৯৫২ ৯,৪০৭ ২৭,৪৯,৫৭০ ৩২,২৭৮ ৪১.৯ (২০১৯) ০.৮২০ (অতি উচ্চ) ১১.০

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Patrick H. O’Neil (২০১৮)। "Glossary"। Essentials of Comparative Politics (6th সংস্করণ)। W. W. Norton & Company। পৃষ্ঠা A-19। আইএসবিএন 978-0-393-62458-8 
  2. Patrick H. O’Neil (২০১৮)। "Chapter 10: Developing Countries"। Essentials of Comparative Politics (6th সংস্করণ)। W. W. Norton & Company। পৃষ্ঠা 304–337। আইএসবিএন 978-0-393-62458-8 
  3. Dominik Boddin (অক্টোবর ২০১৬)। "The Role of Newly Industrialized Economies in Global Value Chains" (PDF)IMF Working Paper। International Monetary Fund। সংগ্রহের তারিখ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  4. Paweł Bożyk (২০০৬)। "Newly Industrialized Countries"। Globalization and the Transformation of Foreign Economic Policy। Ashgate Publishing, Ltd। পৃষ্ঠা 164। আইএসবিএন 0-7546-4638-6 
  5. Mauro F. Guillén (২০০৩)। "Multinationals, Ideology, and Organized Labor"। The Limits of Convergence। Princeton University Press। পৃষ্ঠা 126 (Table 5.1)। আইএসবিএন 0-691-11633-4 
  6. David Waugh (২০০০)। "Manufacturing industries (chapter 19), World development (chapter 22)"। Geography, An Integrated Approach (3rd সংস্করণ)। Nelson Thornes Ltd.। পৃষ্ঠা 563, 576–579, 633, and 640। আইএসবিএন 0-17-444706-X 
  7. N. Gregory Mankiw (২০০৭)। Principles of Economics (4th সংস্করণ)। আইএসবিএন 978-0-324-22472-6 
  8. "Appendix B :: International Organizations and Groups"The World Factbook। Central Intelligence Agency। ৯ এপ্রিল ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  9. "World Economic Outlook Database, April 2021"IMF.orgInternational Monetary Fund। এপ্রিল ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ৮ মে ২০২১ 
  10. "World Economic Outlook Database, April 2021"World Economic OutlookInternational Monetary Fund। এপ্রিল ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০২১ 
  11. "Report for Selected Countries and Subjects"IMF (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৬-২৬ 
  12. "World Economic Outlook - GDP per capita"International Monetary Fund। এপ্রিল ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-০৭ 
  13. "GINI Index Data Table"। World Bank। সংগ্রহের তারিখ ৪ এপ্রিল ২০১২ 
  14. Note: The higher the figure, the higher the inequality.
  15. "Human Development Report 2019" (PDF)United Nations Development Programme। সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০২০ 
  16. "World Economic Outlook Database, October 2021"। IMF। সংগ্রহের তারিখ ১৬ অক্টোবর ২০২১