ভারতীয় শতাব্দী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ভারতীয় প্রজাতন্ত্র
Flag of India.svg
India (orthographic projection).svg

ভারতীয় শতাব্দী[১][২] বা (ভারতের শতাব্দী[৩]) একটি এমন একটি ধারণা যার মাধ্যমে বোঝানো হয় যে একবিংশ শতাব্দীতে সম্ভবত ভারতের প্রাধান্য সর্বাধিক হবে। উল্লেখ্য, বিংশ শতাব্দীকে প্রায়শই আমেরিকান শতাব্দী [৪] এবং ঊনবিংশ শতাব্দীকে ব্রিটিশ শতাব্দী বলে চিহ্নিত করা হয়।[৫]

প্রেক্ষাপট[সম্পাদনা]

১ খ্রিস্টাব্দ থেকে ২০০৩ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বিশ্বের জিডিপিতে প্রধান প্রধান অর্থনৈতিক শক্তিগুলির সামগ্রিক অবদান (অ্যাঙ্গাস ম্যাডিসনের অনুমান অনুযায়ী)।[৬] অষ্টাদশ শতাব্দীর আগে পর্যন্ত চীন ও ভারত ছিল দুটি বৃহত্তম জিডিপি শক্তি।

বিশেষজ্ঞদের মত,[৭][৮][৯] গণমাধ্যমের সূত্র[১০][১১][১২] ও অর্থনীতি ঐতিহাসিক অ্যাঙ্গাস ম্যাডিসনের গ্রন্থ দ্য ওয়ার্ল্ড ইকোনমি: আ মিলেনিয়াল পারসপেক্টিভ অনুসারে, ১ খ্রিস্টাব্দ থেকে ১০০০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত ভারত ছিল বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনৈতিক শক্তি।[১৩][১৪] এছাড়াও, যেসময় চীন বিশ্বের প্রধান অর্থনৈতিক শক্তিতে পরিণত হয়, সেই সময়ও ভারত ছিল বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনৈতিক শক্তি।[১৩] বিশ্বের আয়ে ভারতের অংশ ১৭০০ সালে ২৭% (এই সময় ইউরোপের অংশ ছিল ২৩%) থেকে ১৯৫০ সালে নেমে হয় ৩%।[১৫]

সপ্তদশ শতাব্দীতে বিশ্বের জিডিপির ৬০-৭০ শতাংশ ছিল ভারত ও চীনের।[১৬][১৭]

একাধিক অর্থনৈতিক ঐতিহাসিক অভিযোগ করে থাকেন, বিদেশি শাসন ভারতের অর্থনৈতিক অবক্ষয়ের মূল কারণ। কারণ, এই সময় ভারতীয় শিল্পগুলিতে বিনিয়োগের পরিমাণ সীমিত হয়ে পড়েছিল।[১৮][১৯]

ভারতের পুনরুত্থানের কারণ[সম্পাদনা]

২০০৯-২০৫০ সালের মধ্যে আমেরিকার অর্থনীতির তুলনায় ভারত ও চীনের অর্থনীতির সাম্ভব্য অবস্থা।

ভারতকে একটি ‘সাম্ভব্য সুপারপাওয়ার’ হিসেবে গণ্য করা হয়।[২০][২১] এর কারণ হিসেবে দক্ষিণ এশিয়ার রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামরিক, সাংস্কৃতিক ও জনপরিসংখ্যান-সংক্রান্ত সব ক্ষেত্রে ভারতের স্বাভাবিক আধিপত্যকে দর্শানো হয়। দক্ষিণ এশিয়ার জংসংখ্যার ৭৭% ভারতের অধিবাসী, জিডিপির ৭৫% ভারতের, অঞ্চলের ৭৭% ভারতের অন্তর্ভুক্ত, ৮০% সামরিক বাজেট ভারতে ব্যয়িত হয় এবং সামরিক বাহিনীর ৮২% ভারতের। জনসংখ্যাবহুল গণতন্ত্র এই দেশের প্রাধান্যের একটি অন্যতম প্রধান কারণ।[২২][২৩] ভারত দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম অর্থনৈতিক শক্তি। এদেশের জিডিপি বৃদ্ধির হার ৯.২%, যা যথেষ্ট ভাল হার বলে বিবেচিত হয়।[২৪] রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ সি. রাজা মোহনের মতে: "India's omnidirectional engagement with the great powers has paid off handsomely. Never before has India had such expansive relations with all the major powers at the same time—a result not only of India's increasing weight in the global economy and its growing power potential, but also of New Delhi's savvy and persistent diplomacy." [২৫]

ভারতের জনসংখ্যার বিশালতা ও সুস্থায়িত্ব এবং আর্থিক ও সামরিক ক্ষেত্রগুলির দ্রুত বর্ধনশীলতার জন্য এই দেশকে একটি উঠতি শক্তি হিসেবে গণ্য করা হয়।[২৬][২৭] ভারতের নিরাপত্তা বাজেট দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলে বৃহত্তম। সেই জন্য ভারত সামরিক অস্ত্র ও আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নির্মাণ এবং দুটি এয়ারক্র্যাফট ক্যারিয়ার পরিচালনায় সক্ষম। ভারত সফলভাবে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচিও গ্রহণ করতে সক্ষম হয়েছে এবং ভারত চতুর্থ দেশ যারা এই কর্মসূচি সফলভাবে গ্রহণ করতে পেরেছে। ২০০৭ সালে ভারত চতুর্থ রাষ্ট্র হিসেবে মানবচালিত মহাকাশ যাত্রার উদ্দেশ্যে অ্যাটমোস্পেরিক রেন্ট্রি সম্পূর্ণ করেছে, যা এই দেশের বৈজ্ঞানিক অগ্রগতির একটি সূচক।[২৮] এছাড়াও ভারত সফলভাবে চাঁদেমঙ্গল গ্রহে মহাকাশযান পাঠিয়েছে।

প্রযুক্তির ক্ষেত্রে বিনিয়োগ ও শিক্ষাব্যবস্থার উন্নতির ফলে ভারতে অনেক শিল্পও স্থাপিত হয়েছে।[২৯] তবে বিশেষজ্ঞদের মতে সুপারপাওয়ার হয়ে উঠতে গেলে ভারতকে এখনও বেশ কিছু অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক সমস্যার সমাধান করতে হবে।[৩০]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. Nayan Chanda; Clyde Prestowitz। A World Connected। Yale University Press। 
  2. Martin Halliwell; Catherine Morley। American Thought and Culture in the 21st Century। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 10। 
  3. D. Arora, N.। Political Science for Civil Services Main Examination। Tata McGraw-Hill Education। পৃষ্ঠা 35–7। )
  4. "21st century is going to be Indian century: Alagappan." December 1, 2007. OneIndia News/(UNI).
  5. Halliwell, Martin; Catherine Morley (২০০৮)। American Thought and Culture in the 21st Century। Edinburgh University Press। পৃষ্ঠা 9–10। আইএসবিএন 978-0748626021 
  6. Data table in Maddison A (2007), Contours of the World Economy I-2030AD, Oxford University Press, আইএসবিএন ৯৭৮-০১৯৯২২৭২০৪
  7. "Cover Story: India, the Silicon Jewel of the East"Digital Journal। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুন ২০১৪ 
  8. "All the riches of the east restored"Le Monde diplomatique। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুন ২০১৪ 
  9. "India and China Will Catch Up with the United States"Alexander von Humboldt Foundation। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১৪ 
  10. "Ruin of India by British Rule"। Marxist Writers’ Archive। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০১৪ 
  11. "The Gems of Pre-British India"। Infinity Foundation। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০১৪ 
  12. "When – not if – China overtakes the US, normality will have returned"The Independent। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০১৪ 
  13. "The World Economy (GDP) : Historical Statistics by Professor Angus Maddison" (PDF)। World Economy। সংগ্রহের তারিখ ২১ মে ২০১৩ 
  14. Maddison, Angus (২০০৬)। The World Economy - Volume 1: A Millennial Perspective and Volume 2: Historical Statistics। OECD Publishing by Organisation for Economic Co-operation and Development। পৃষ্ঠা 656। আইএসবিএন 9789264022621 
  15. Madison, Angus (২০০৬)। The world economy, Volumes 1–2। OECD Publishing। পৃষ্ঠা 638। doi:10.1787/456125276116আইএসবিএন 92-64-02261-9। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মে ২০১৩ 
  16. "Will China really dominate?"। World Finance - The Voice of the Market। সংগ্রহের তারিখ ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৪ 
  17. "Asia: A Profile of Economy and Finance" (PDF)। Future Of Financial Markets (FOFM)। ২২ জুলাই ২০১৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৪ 
  18. Booker, M. Keith (১৯৯৭)। Colonial Power, Colonial Texts: India in the Modern British Novel। University of Michigan। পৃষ্ঠা 153–154। আইএসবিএন 9780472107803 
  19. T.R. Jain; V.K. Ohri। Statistics for Economics and indian economic development। VK publications। পৃষ্ঠা 15। আইএসবিএন 9788190986496 
  20. Perkovich, George (২০০৩)। "Is India a Major Power?" (PDF)The Washington Quarterly (27.1)। ২০০৮-০২-২৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১২-১৩ 
  21. Dilip Mohite (Spring 1993). "Swords and Ploughshares- India: The Fourth Great Power?". Vol. 7, No. 3. Arms Control, Disarmament, and International Security (ACDIS). Retrieved on 2007-12-13.
  22. "‘India’s decade could pave way for an Indian century’." Hindustan Times.
  23. "Next century will be India's, says WSJ - Oman Tribune"omantribune। ১৯ জানুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০১৫ 
  24. "India's Economic Growth Unexpectedly Quickens to 9.2% (Update7)"bloomberg.com। ১৩ জুন ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০১৫ 
  25. "RealClearPolitics - Articles - India and the Balance of Power"realclearpolitics.com 
  26. A Índia como economia emergente: a importância das energias renováveis na estratégia de sustentabilidade energética - Universidade Tecnológica de Lisboa
  27. Lydon, Christopher। "Real India: A Historian's Cautions on "The Indian Century" (AUDIO)" 
  28. Hindustan Times Giant step in space as capsule returns
  29. O outro Vale do Silício - Veja Online
  30. A Índia e a nova ordem mundial Universidade Federal do Rio Grande do Sul

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:International power