জন কটাম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জন কটাম
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামজন টমাস কটাম
জন্ম(১৮৬৭-০৯-০৫)৫ সেপ্টেম্বর ১৮৬৭
সিডনি, নিউ সাউথ ওয়েলস, অস্ট্রেলিয়া
মৃত্যু৩০ জানুয়ারি ১৮৯৭(1897-01-30) (বয়স ২৯)
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনলেগ ব্রেক
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ৪৯)
২৫ ফেব্রুয়ারি ১৮৮৭ বনাম ইংল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা
রানের সংখ্যা ২৭৩
ব্যাটিং গড় ২.০০ ২২.৭৫
১০০/৫০ ০/০ ০/৩
সর্বোচ্চ রান ৬২
বল করেছে
উইকেট
বোলিং গড় ৩২.৬৬
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ২/৪৮
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/০ ৪/০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ৩০ আগস্ট ২০১৯

জন টমাস কটাম (ইংরেজি: John Cottam; জন্ম: ৫ সেপ্টেম্বর, ১৮৬৭ - মৃত্যু: ৩০ জানুয়ারি, ১৮৯৭) নিউ সাউথ ওয়েলসের সিডনি এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন।[১] অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৮৮৭ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটে নিউ সাউথ ওয়েলস দলের প্রতিনিধিত্ব করেন।[২] দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, লেগ ব্রেক বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন জন কটাম

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৮৮৬-৮৭ মৌসুম থেকে ১৮৮৯-৯০ মৌসুম পর্যন্ত জন কটামের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। টেস্টে অভিষেকের পূর্বে সফররত ইংরেজ দলের বিপক্ষে নিউ সাউথ ওয়েলসের সদস্যরূপে একটিমাত্র প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নেন।

শেফিল্ড শিল্ড প্রতিযোগিতায় অংশ নেননি তিনি। তাসত্ত্বেও, ১৮৮৯-৯০ মৌসুমে রাজ্য দলের সদস্যরূপে নিউজিল্যান্ড গমন করেন। ব্যাটিং অনুপযোগী পিচেও বেশ রুখে দাঁড়িয়েছিলেন। মৃত্যুর আট বছর পূর্বে ক্রিকেট থেকে আকস্মিক অনুপস্থিতির বিষয়টি রহস্যপূর্ণ অবস্থায়ই থেকে যায়।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন জন কটাম। ২৫ ফেব্রুয়ারি, ১৮৮৭ তারিখে সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার আরসি অ্যালেন, এফজে বার্টন, জেটি কটাম, ডব্লিউএফ গিফেনজেজে লিওন্সের এবং ইংল্যান্ডের আর উডের একযোগে টেস্ট অভিষেক ঘটেছিল।[৩] সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠিত সিরিজের ঐ দ্বিতীয় টেস্টে তিনি মাত্র চার রান তুলতে সক্ষম হয়েছিলেন। ঐ খেলায় তার দল ৭১ রানে পরাভূত হয়। এরপর আর তাকে কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়নি। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল।

১৮৮৬-৮৭ মৌসুমে বেশ কয়েকজন প্রতিষ্ঠিত খেলোয়াড় তাদের চাকুরীর বেতন থেকে কর্তনের আশঙ্কায় অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে খেলতে অস্বীকৃতি জানান। ফলশ্রুতিতে পাঁচজন খসড়া খেলোয়াড়ের অন্যতম হিসেবে শেষ মুহুর্তে খেলার সুযোগ লাভ করেন। ১ ও ৩ রান তুলেন। এরপর আর তাকে অস্ট্রেলিয়া দলে খেলতে দেখা যায়নি।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

টেস্ট অভিষেকের পরপরই ক্রিকেট জগৎকে বিদায় জানান তিনি। পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার কালগুর্লাই এলাকার কাছাকাছি কুলগার্দাইয়ে স্বর্ণখনি অনুসন্ধানে নিজেকে নিয়োজিত রাখেন। সেখানেই টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত হন।

৩০ জানুয়ারি, ১৮৯৭ তারিখে মাত্র ২৯ বছর বয়সে পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ায় জন কটামের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Australia – Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০১৯ 
  2. "List of Players who have played for New South Wales"। www.cricketarchive.com। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০১৯ 
  3. "England in Australia (1886 – 1887): Scorecard of second Test"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৩১, ২০১৯ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]