বিষয়বস্তুতে চলুন

খুর্দা রোড রেলওয়ে বিভাগ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
খুর্দা রোড রেলওয়ে বিভাগ
উপর থেকে, বাম থেকে ডান:
ভুবনেশ্বর স্টেশনের প্রবেশপথ, রাতে কটক রেলওয়ে স্টেশন, খুর্দা রোড স্টেশন, একটি বৃষ্টির রাতে ফুট ওভার ব্রিজ থেকে ব্রহ্মপুর স্টেশন, পুরীর রেলওয়ে স্টেশন
রাজ্যওড়িশা, অন্ধ্রপ্রদেশ
কার্যকাল১৯৬২–
ট্র্যাক গেজব্রডগেজ
পূর্বতন গেজন্যারো গেজ
প্রধান কার্যালয়খুর্দা, ওড়িশা, ভারত
ওয়েবসাইটপূর্ব উপকূলীয় রেলের ওয়েবসাইট

খুরদা রোড রেল বিভাগ ভারতীয় রেলের পূর্ব উপকূলীয় রেল অঞ্চলের আওতাধীন তিনটি রেল বিভাগের একটি। অবিভক্ত দক্ষিণ পূর্ব রেলের অংশ হিসাবে খুর্দা রোড রেল বিভাগটি ১৯৬২ সালে গঠিত হয়। এবং এর সদর দফতরটি ভারতের ওড়িশা রাজ্যের খুুুরদায়ে অবস্থিত।

সম্বলপুর রেলওয়ে বিভাগ এবং ওয়াল্টেয়ার রেলওয়ে বিভাগ হ'ল পূর্ব উপকূলীয় রেলের অধীনে ভুবনেশ্বরের সদর দফতরের অন্যান্য দুটি রেল বিভাগ।[১] [২]

রেলপথ

[সম্পাদনা]

হাওড়া-চেন্নাই মূল রেলপথে অবস্থিত খুর্দা রোড রেলওয়ে বিভাগে ৯১২.৫৩ কিলোমিটার রেলপথ এবং ২২৪৩.১৭ কিলোমিটার রেল ট্র্যাক রয়েছে। এটি উপকূলীয় ওডিশার ছয় জেলা এবং উত্তর উপকূলীয় অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীকাকুলাম জেলার গ্রাহকদের সেবা করে ১০৫ টি স্টেশনের মাধ্যমে, ৩৪ টি যাত্রী থামার স্টেশনগুলির মাধ্যমে। এটি রেলপথটি উত্তরের রানিটাল জংশন কেবিন (ভদ্রকের নিকটবর্তী) থেকে দক্ষিণে পালাসা (৩৮৫ কিলোমিটার) সমুদ্র উপকূলের সমান্তরালভাবে কটক, রাজ্য রাজধানী ভুবনেশ্বর, খুর্দা রোড এবং ব্রহ্মপুরের গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনগুলির মধ্য দিয়ে যায়। খুর্দা রোড-পুরি রেলপথ (৪৩ কিলোমিটার ডাবল লাইন) জগন্নাথের বিখ্যাত মন্দিরের পবিত্র শহর পুরীর সাথে সংযুক্ত। একইভাবে, কটক-পারাদ্বীপ রেলপথ (৮৩ কিলোমিটার ডাবল লাইন) পারাদ্বীপের প্রধান সমুদ্র বন্দরটিকে সংযুক্ত করে।[৩]

এই বিভাগের কপিলাস রোড/নেরগুন্দি-বড়ং-রাজাথগড়-তালচের-আঙ্গুল রেলপথ তালচের অঞ্চলের (মহানদী কোলফিল্ডস লিমিটেডের) কয়লা খনিগুলিকে বন্দর, বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও শিল্পে ক্ষেত্রে কয়লার যোগানের জন্য মূল রেলপথের সাথে সংযুক্ত করে। একইভাবে, জাখাপুরা-নয়াগড়-বাঁশপানি রেলপথ (মোট ১৭৯ কিলোমিটার, যার মধ্যে ১৬৩ কিলোমিটার খুর্দা রোড বিভাগে অবস্থিত) ওড়িশার লৌহ আকরিক বেল্টকে কলিঙ্গনগরের ইস্পাত কেন্দ্র এবং পূর্ব উপকূলের বন্দরগুলির সাথে সংযুক্ত করে।[৩]

ট্রেন পরিষেবা

[সম্পাদনা]

পুরী এবং ভুবনেশ্বর এই বিভাগের দুটি গুরুত্বপূর্ণ যাত্রীবাহী ট্রেন প্রান্তিক (টার্মিনাল), প্রতিদিন এই দুটি স্টেশন থেকে ৩৩ জোড়া মেল/এক্সপ্রেস এবং ১০ জোড়া যাত্রী ট্রেন যাত্রা শুরু/সমাপ্ত করে। এই কোচিং ডিপোগুলির বেস হোল্ডিং রয়েছে যথাক্রমে ১০৬৩ টি এবং ৫৭০ টি কোচ। প্রতিদিন গড়ে ১৫০ টি কোচিং ট্রেন এই বিভাগ দ্বারা পরিচালিত হয়।[৩]

যাত্রী সুযোগ-সুবিধা

[সম্পাদনা]

বিভাগ সব স্টেশনে ন্যূনতম মাপকাঠি চেয়ে বেশি যাত্রী সুযোগ-সুবিধা প্রদান করে। সমস্ত স্টেশনে অনারভড টিকিট সিস্টেম (ইউটিএস) চালু রয়েছে। এর মধ্যে ৪৮ টি স্টেশনকে পিওএস মেশিন সুবিধা রয়েছে। বিভাগের ৯টি স্টেশন পিআরএস এবং ইউটিএস উভয়ই বিএইচআইএম অ্যাপের সাথে সংহত। নগদহীন লেনদেনকে উৎসাহিত করার জন্য ভুবনেশ্বর স্টেশনটির সমস্ত স্টল পেটিএম এবং ভিএইচআইএম এর সাথে সংযুক্ত রয়েছে। ট্রেন ও স্টেশনগুলিতে যাত্রীবাহী সুবিধামত বিভিন্ন বিষয়ের রক্ষণাবেক্ষণের পাশাপাশি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার উপর জোর দেওয়া হয় এই বিভাগের।[৩]

পণ্য পরিবহন

[সম্পাদনা]

বিভাগের বৃহত্তম কয়লা লোডিং হল তালচর; এক স্টেশন থেকে লোডিং এর পরিমাণের হিসাবে এটি এশিয়ার বৃহত্তম কয়লা লোডিং কেন্দ্র। এই কয়লা লোডিং এম/এস মহানদী কয়লফিল্ডস লিমিটেড নিয়ে গঠিত। কয়লা লোডিং ক্ষেত্রে থেকে খুর্দা রোড রেলওয়ে বিভাগের রেলপথের মাধ্যমে কয়লা এনটিপিসির তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র তালচের ও কানিহা, এবং দক্ষিণ ভারতপশ্চিম ভারতের অন্যান্য তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ও সমুদ্র বন্দরে (পারাদ্বীপধামরা বন্দরের মাধ্যমে) পরিবহন করা হয়। এছাড়া তালচেরের কয়লা পরিবহন পরিষেবাটি সরকারী ও বেসরকারী খাতের ইস্পাত কেন্দ্রে এবং অন্যান্য কারখানায় কয়লা সরবরাহ করে।[৩]

পারাদ্বীপ রেলওয়ে স্টেশন পারাদ্বীপের প্রধান বন্দরটি এবং বন্দর কমপ্লেক্স চারপাশে শিল্প কেন্দ্রে পরিষেবা পরিবেশন করে। এটি আমদানিকৃত কয়লা, কোক, লোহার শাঁস, সার, পিওএল, জিপসাম, ম্যাঙ্গানিজ আকরিক, ক্লিঙ্কার এবং চুনাপাথর পরিবহন করে। বিভাগের রেলপথগুলি ব্যবহার করে পণ্য পরিবহনকারী প্রধান ইস্পাত শিল্প সংস্থা হল- টাটা স্টিল, কলিঙ্গ নগর, জিন্দাল স্টেইনলেস লিমিটেড, সুকিন্ডা, নীলাচল ইস্পাত নিগম লিমিটেড, সুকিন্ডা, ভূষণ স্টিল লিমিটেড, মীরামন্ডালী এবং আরতি স্টিল লিমিটেড, ঘান্টিকাল নিধিপুর ইত্যাদি।[৩]

খুর্দা রোড বিভাগের মালবাহী যানবাহন কয়েক বছর ধরে বহুগুণ বেড়েছে। ২০১০-১১ সালে পণ্য পরিবহনের পরিমাণ ছিল ৫৫.৮৩ মিলিয়ন মেট্রিক টন, এটি অনেক বেশি প্রবৃদ্ধি নিয়ে ২০১৬-১৭ সালে ১১৭.৭৭ মিলিয়ন মেট্রিক টনে দাঁড়ায়। ২০১৭-২০১৮ সালে বিভাগটি ১১৭.৮৮ মিলিয়ন টন পণ্য পরিবহন করে।[৩]

রেল স্টেশন এবং শহরগুলির তালিকা

[সম্পাদনা]

খুর্দা রোড রেল বিভাগের অন্তর্ভুক্ত স্টেশন এবং শ্রেণির অন্তর্ভুক্তী অনুযায়ী স্টেশনগুলির তালিকা[৪][৫]

স্টেশনের শ্রেণী স্টেশন সংখ্যা স্টেশনের নাম
এ-১ শ্রেণী
শ্রেণী
বি শ্রেণী
সি শ্রেণী
(শহরতলী রেল স্টেশন)
- -
ডি শ্রেণী - -
শ্রেণী - -
এফ শ্রেণি
হল্ট স্টেশন
- -
মোট - -

তথ্যসূত্র

[সম্পাদনা]
  1. "Zones and their Divisions in Indian Railways" (পিডিএফ)Indian Railways। ১৯ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০১৬ 
  2. "Katihar Railway Division"Railway BoardNorth Eastern Railway zone। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০১৬ 
  3. "খুরদা রোড বিভাজন" (পিডিএফ)eastcoastrail.indianrailways.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ৭ মার্চ ২০২০ 
  4. "Statement showing Category-wise No.of stations in IR based on Pass. earning of 2011" (পিডিএফ)। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০১৬ 
  5. "PASSENGER AMENITIES - CRITERIA= For Categorisation Of Stations" (পিডিএফ)। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ

[সম্পাদনা]