কিউই ফল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Kiwifruit by species
A = A. arguta, C = A. chinensis, D = A. deliciosa, E = A. eriantha, I = A. indochinensis, P = A. polygama, S = A. setosa.
Kiwifruit cross section

কিউই ফল (উত্তর আমেরিকা এবং মহাদেশীয় ইউরোপে প্রায়ই সংক্ষিপে কিউই বলা হয়) অথবা চাইনিজ গুজবেরি হল অ্যাক্টিনিডিয়া প্রজাতির বিভিন্ন প্রজাতির কাঠের লতাগুলির ভোজ্য বেরি।[১][২] কিউই ফলের সবচেয়ে সাধারণ চাষযোগ্য শ্রেণী (অ্যাক্টিনিডিয়া ডেলিসিওসা 'হেওয়ার্ড')[৩] এটি ডিম্বাকৃতি, প্রায় একটি বড় মুরগির ডিমের আকার: দৈর্ঘ্য ৫–৮ সেন্টিমিটার (২–৩ ইঞ্চি) এবং ব্যাস ৪.৫–৫.৫ সেমি (   ইঞ্চি)। এটি একটি পাতলা, অস্পষ্ট, তন্তুযুক্ত, টার্ট কিন্তু ভোজ্য হালকা বাদামী চামড়া এবং ছোট, কালো, ভোজ্য বীজের সারি সহ হালকা সবুজ বা সোনালী মাংস রয়েছে। ফলের একটি মিষ্টি এবং অনন্য গন্ধ সহ একটি নরম টেক্সচার রয়েছে।

কিউই ফলের আদি নিবাস মধ্য ও পূর্ব চীনে[১] ১২ শতকে সং রাজবংশের সময় কিউই ফলের প্রথম নথিভুক্ত বর্ণনা রয়েছে।[৪] বিংশ শতকের গোড়ার দিকে, কিউই ফলের চাষ চীন থেকে নিউজিল্যান্ডে ছড়িয়ে পড়ে যেখানে প্রথম বাণিজ্যিক এ গাছ লাগানো হয়েছিল।[১] ফলটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় নিউজিল্যান্ডে নিযুক্ত ব্রিটিশ এবং আমেরিকান সেনাদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে এবং পরে সাধারণত রপ্তানি হয়। প্রথমে গ্রেট ব্রিটেনে এবং তারপরে ১৯৬০-এর দশকে ক্যালিফোর্নিয়ায়।[১][৫]

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

কিউই ফল
Kiwifruit (Chinese characters).svg
চীনা অক্ষরে "কিউই ফল" প্রথাগত (শীর্ষ) এবং সরলীকৃত (নীচে)
ঐতিহ্যবাহী চীনা 獼猴桃
সরলীকৃত চীনা 猕猴桃
আক্ষরিক অর্থ"macaque peach"

কিউই ফলের আদি নিবাস মধ্য ও পূর্ব চীন।[১]দ্বাদশ শতকের সময় চীনের সং রাজবংশের কিউই ফলের প্রথম নথিভুক্ত বর্ণনা পাওয়া যায়।[৪] যেহেতু এটি সাধারণত বন্য থেকে সংগ্রহ করা হত এবং ঔষধি উদ্দেশ্যে খাওয়া হত তাই গাছটি খুব কমই চাষ বা বংশবৃদ্ধি করা হত।[৬] বিংশ শতকের গোড়ার দিকে চীন থেকে নিউজিল্যান্ডে কিউই ফলের চাষ ছড়িয়ে পড়ে। যেখানে প্রথম বাণিজ্যিক এ গাছ লাগানো হয়েছিল।[১] ফলটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় নিউজিল্যান্ডে নিযুক্ত ব্রিটিশ এবং আমেরিকান সেনাদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে এবং পরে ১৯৬০-এর দশকে প্রথমে গ্রেট ব্রিটেন এবং তারপর ক্যালিফোর্নিয়ায় রপ্তানি করা হয়।[১][৫]

নিউজিল্যান্ডে ১৯৪০ এবং ১৯৫০ এর দশকে বাণিজ্যিকভাবে কার্যকর জাত, কৃষি পদ্ধতি, শিপিং, স্টোরেজ এবং বিপণনের মাধ্যমে ফলটি একটি কৃষি পণ্যে পরিণত হয়েছিল।[৭]

প্রজাতি এবং জাত[সম্পাদনা]

একটি লাল-রিং সহ সোনালি কিউই ফল[৮][৯]

অ্যাকটিনিডিয়া প্রজাতির প্রায় ৬০টি প্রজাতি রয়েছে। তাদের ফলগুলি বেশ পরিবর্তনশীল, যদিও বেশিরভাগই তাদের চেহারা এবং আকৃতির কারণে সহজেই কিউই ফল হিসাবে স্বীকৃত। ফলের চামড়া আকার, লোমশ এবং রঙে পরিবর্তিত হয়। মাংস রঙ, রসালোতা, গঠন এবং স্বাদে পরিবর্তিত হয়। কিছু ফল অস্বস্তিকর, অন্যদের স্বাদ বেশিরভাগ বাণিজ্যিক চাষের তুলনায় যথেষ্ট ভালো।[১][১০]

চাষ[সম্পাদনা]

গ্রীষ্মের পর্যাপ্ত তাপ সহ বেশিরভাগ নাতিশীতোষ্ণ জলবায়ুতে কিউই ফল চাষ করা যায়। যেখানে শক্ত নয় এমন মিহি কিউই ফল (এ. ডেলিসিওসা) অন্য প্রজাতিগুলি বিকল্প হিসাবে জন্মাতে পারে।

বীজ রোপন[সম্পাদনা]

লতা উপর কিউই ফলগুলো বেড়ে উঠছে

প্রায়শই বাণিজ্যিক চাষে, মূলস্টক, ফল বহনকারী উদ্ভিদ এবং পরাগবাহক এর জন্য বিভিন্ন জাত ব্যবহার করা হয়।[১]

উৎপাদন[সম্পাদনা]

শীর্ষ কিউই ফল উৎপাদনকারী দেশ
ক্রম দেশ উৎপাদন (টন)
চীন ২,০৩৫,১৫৮
ইতালি ৫৬২,১৮৮
নিউজিল্যান্ড ৪১৪,২৬১
নিউজিল্যান্ড ২৬৬,৩১৯
গ্রীস ২৬৫,২৮০
চিলি ২৩০,২৬৬
তুরস্ক ৬১,৯২০
ফ্রান্স ৫৩,২০১
যুক্তরাষ্ট্র ৩৪,২৯০
১০ পর্তুগাল ৩৪,০৫৭
বিশ্বব্যাপী ৪,০২২,৬৫০
উৎস: জাতিসংঘের ফসটাস (২০১৮)[১১]

মানুষের দৈহিক চাহিদা[সম্পাদনা]

স্ট্রবেরি, প্যাশন ফল, কিউই ফল এবং ক্রিম সহ একটি পাভলোভা
Kiwifruit, Zespri SunGold, raw
প্রতি ১০০ গ্রাম (৩.৫ আউন্স)-এ পুষ্টিমান
শক্তি২৬২ কিজু (৬৩ kcal)
১৫.৮ g
চিনি১২.৩ g
খাদ্য আঁশ১.৪ g
০.২৮ g
১.০২ g
ভিটামিনপরিমাণ দৈপ%
ভিটামিন এ সমতুল্য
২৪ μg
থায়ামিন (বি)
০%
০ মিগ্রা
রিবোফ্লাভিন (বি)
৬%
০.০৭৪ মিগ্রা
নায়াসিন (বি)
২%
০.২৩১ মিগ্রা
প্যানটোথেনিক
অ্যাসিড (বি)
২%
০.১২ মিগ্রা
ভিটামিন বি
৬%
০.০৭৯ মিগ্রা
ফোলেট (বি)
৮%
৩১ μg
ভিটামিন বি১২
৩%
০.০৮ μg
কোলিন
০%
১.৯ মিগ্রা
ভিটামিন সি
১৯৪%
১৬১.৩ মিগ্রা
ভিটামিন ই
৯%
১.৪ মিগ্রা
ভিটামিন কে
৬%
৬.১ μg
খনিজপরিমাণ দৈপ%
ক্যালসিয়াম
২%
১৭ মিগ্রা
কপার
৮%
০.১৫১ মিগ্রা
লৌহ
২%
০.২১ মিগ্রা
ম্যাগনেসিয়াম
৩%
১২ মিগ্রা
ম্যাঙ্গানিজ
২%
০.০৪৮ মিগ্রা
ফসফরাস
৪%
২৫ মিগ্রা
পটাসিয়াম
৭%
৩১৫ মিগ্রা
সেলেনিয়াম
১%
০.৪ μg
সোডিয়াম
০%
৩ মিগ্রা
জিংক
১%
০.০৮ মিগ্রা
অন্যান্য উপাদানপরিমাণ
পানি৮২ g

প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য মার্কিন সুপারিশ ব্যবহার করে শতাংশ অনুমান করা হয়েছে।
উৎস: ইউএসডিএ ফুডডাটা সেন্ট্রাল
Kiwifruit, green, raw
প্রতি ১০০ গ্রাম (৩.৫ আউন্স)-এ পুষ্টিমান
শক্তি২৫৫ কিজু (৬১ kcal)
১৪.৬৬ g
চিনি৮.৯৯ g
খাদ্য আঁশ৩ g
০.৫২ g
১.১৪ g
ভিটামিনপরিমাণ দৈপ%
ভিটামিন এ সমতুল্য
১২২ μg
থায়ামিন (বি)
২%
০.০২৭ মিগ্রা
রিবোফ্লাভিন (বি)
২%
০.০২৫ মিগ্রা
নায়াসিন (বি)
২%
০.৩৪১ মিগ্রা
প্যানটোথেনিক
অ্যাসিড (বি)
৪%
০.১৮৩ মিগ্রা
ভিটামিন বি
৫%
০.০৬৩ মিগ্রা
ফোলেট (বি)
৬%
২৫ μg
ভিটামিন বি১২
০%
০ μg
কোলিন
২%
৭.৮ মিগ্রা
ভিটামিন সি
১১২%
৯২.৭ মিগ্রা
ভিটামিন ই
১০%
১.৪৬ মিগ্রা
ভিটামিন কে
৩৮%
৪০.৩ μg
খনিজপরিমাণ দৈপ%
ক্যালসিয়াম
৩%
৩৪ মিগ্রা
কপার
৭%
০.১৩ মিগ্রা
লৌহ
২%
০.৩১ মিগ্রা
ম্যাগনেসিয়াম
৫%
১৭ মিগ্রা
ম্যাঙ্গানিজ
৫%
০.০৯৮ মিগ্রা
ফসফরাস
৫%
৩৪ মিগ্রা
পটাসিয়াম
৭%
৩১২ মিগ্রা
সেলেনিয়াম
০%
০.২ μg
সোডিয়াম
০%
৩ মিগ্রা
জিংক
১%
০.১৪ মিগ্রা
অন্যান্য উপাদানপরিমাণ
পানি৮৩ g

প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য মার্কিন সুপারিশ ব্যবহার করে শতাংশ অনুমান করা হয়েছে।
উৎস: ইউএসডিএ ফুডডাটা সেন্ট্রাল

কিউই ফল কাঁচা খাওয়া যেতে পারে,জুস তৈরি করা যেতে পারে, বেকড পণ্যে ব্যবহার করা যেতে পারে, মাংসের সাথে প্রস্তুত বা গার্নিশ হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে।[১] চামড়া সহ পুরো ফল মানুষের খাওয়ার উপযোগী; যাইহোক, খসখসে জাতের চামড়া প্রায়শই এর স্বাদের কারণে বাতিল করা হয়।[১২] স্লাইস করা কিউই ফল দীর্ঘদিন ধরে একটি মেরিঙ্গু-ভিত্তিক খাবার পাভলোভার উপরে হুইপড ক্রিমের গার্নিশ হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। ঐতিহ্যগতভাবে চীনে,আনন্দের সাথে কিউই ফল খাওয়া হত না। কিন্তু বাচ্চাদের বেড়ে ওঠার জন্য এবং যে মহিলারা তাদের জন্ম দিয়েছে তাদের পুনরুদ্ধার করতে সাহায্য করার জন্য ওষুধ হিসাবে দেওয়া হত।[১]

কাঁচা কিউই ফলের মধ্যে অ্যাক্টিনিডাইন (এছাড়াও অ্যাক্টিনিডিন বলা হয়) থাকে যা বাণিজ্যিকভাবে মাংসের টেন্ডারাইজার হিসেবে উপযোগী[১৩] এবং সম্ভবত হজম সহায়ক হিসেবে।[১৪] অ্যাক্টিনিডেন কাঁচা কিউই ফলকে দুধ বা অন্য কোনো দুগ্ধজাত খাবারে ব্যবহারের জন্য অনুপযুক্ত করে তোলে কারণ এনজাইম দুধের প্রোটিন হজম করে। এটি জেলটিন-ভিত্তিক মিষ্টান্নের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য, কারণ অ্যাক্টিনিডেইন জেলটিনের প্রোটিনগুলিকে দ্রবীভূত করবে, যার ফলে মিষ্টি হয় তরল হতে পারে বা এটিকে শক্ত হতে বাধা দেয়।

পুষ্টিমান[সম্পাদনা]

প্রতি ১০০-গ্রাম (৩.৫ আউন্স) পরিমাণ, সবুজ কিউই ফল প্রদান করে ২৫৫ কিলোজুল (৬১ kilocalorie) খাদ্য শক্তি, ৮৩% পানি এবং ১৫% শর্করা, নগণ্য প্রোটিনসহ এবং স্নেহ পদার্থ (টেবিল চামচ)। এটি বিশেষ করে ভিটামিন সি (১১২% ডিভি) এবং ভিটামিন কে (৩৮% ডিভি) সমৃদ্ধ, এতে ভিটামিন ই (১০% ডিভি) এর মাঝারি পরিমাণ রয়েছে, উল্লেখযোগ্য উপাদানে অন্য কোনো মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট নেই। সোনার কিউই ফলের একই রকম পুষ্টিগুণ রয়েছে, তবে ভিটামিন সি-এর পরিমাণ বেশি, (১৯৪% ডিভি, টেবিল)।

কিউই ফলের বীজের তেলে গড়ে ৬২% আলফা-লিনোলিক অ্যাসিড, একটি ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে।[১৫] কিউই ফলের সজ্জাতে ক্যারোটিনয়েড থাকে, যেমন প্রোভিটামিন এ বিটা-ক্যারোটিন,[১৬] লুটেইন এবং জেক্সানথিন।[১৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; Morton নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  2. Stirk, Bernadine (২০০৫)। "Growing Kiwifruit" (PDF)। Pacific Northwest Extension Publishing। সংগ্রহের তারিখ ৪ জানুয়ারি ২০১৩ 
  3. Beutel, James A. (১৯৯০)। "Kiwifruit"। Janick, J.; Simon, J.E.। Advances in new crops। Timber Press। পৃষ্ঠা 309–316। সংগ্রহের তারিখ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ – Center for New Crops & Plant Products at Purdue University-এর মাধ্যমে। 
  4. Ward, C; Courtney, D (২০১৩)। Kiwifruit: taking its place in the global fruit bowlAdvances in Food and Nutrition Research68। পৃষ্ঠা 1–14। আইএসবিএন 9780123942944ডিওআই:10.1016/B978-0-12-394294-4.00001-8পিএমআইডি 23394979 
  5. Green, Emily (৮ মে ২০০২)। "Kiwi, Act II"Los Angeles Times। সংগ্রহের তারিখ ৪ জানুয়ারি ২০১৩ 
  6. Huang, H.; Ferguson, A. R. (২০০৩)। "Kiwifruit (Actinidia chinesis and A. deliciosa) plantings and production in China, 2002"। New Zealand Journal of Crop and Horticultural Science31 (3): 197–202। এসটুসিআইডি 86106541ডিওআই:10.1080/01140671.2003.9514253 
  7. Mike Knowles (২৫ এপ্রিল ২০১৭)। "NZ kiwifruit: how a major brand emerged"। Eurofruit, Market Intelligence Ltd - Fruitnet.com। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  8. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; HYChin নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  9. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; NBR_Enza_red নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  10. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; PONC1999 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  11. "Kiwifruit production in 2018, Crops/Regions/World list/Production Quantity (pick lists)"। UN Food and Agriculture Organization, Corporate Statistical Database (FAOSTAT)। ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০২০ 
  12. কিউই ফল: বিজ্ঞান এবং ব্যবস্থাপনা আইএসবিএন ৯৭৮-০-৯০৮-৫৯৬২৮-৭ p. 467
  13. Bekhit, A. A.; Hopkins, D. L.; Geesink, G; Bekhit, A. A.; Franks, P (২০১৪)। "Exogenous proteases for meat tenderization"। Critical Reviews in Food Science and Nutrition54 (8): 1012–31। এসটুসিআইডি 57554ডিওআই:10.1080/10408398.2011.623247পিএমআইডি 24499119 
  14. Boland, M (২০১৩)। Kiwifruit proteins and enzymes: Actinidin and other significant proteinsAdvances in Food and Nutrition Research68। পৃষ্ঠা 59–80। আইএসবিএন 9780123942944ডিওআই:10.1016/B978-0-12-394294-4.00004-3পিএমআইডি 23394982 
  15. Piombo, Georges; Barouh, Nathalie; Barea, Bruno; Renaud, Boulanger; Brat, Pierre; Pina, Michel; Villeneuve, Pierre (২০০৬)। "Characterization of the seed oils from kiwi (Actinidia chinensis), passion fruit (Passiflora edulis) and guava (Psidium guajava)" (PDF)OCL - Oilseeds and Fats, Crops and Lipids13 (2): 195–199। ডিওআই:10.1051/ocl.2006.0026 
  16. Kim M, Kim SC, Song KJ, Kim HB, Kim IJ, Song EY, Chun SJ (সেপ্টে ২০১০)। "Transformation of carotenoid biosynthetic genes using a micro-cross section method in kiwifruit (Actinidia deliciosa cv. Hayward)"। Plant Cell Reports29 (12): 1339–1349। এসটুসিআইডি 23341156ডিওআই:10.1007/s00299-010-0920-yপিএমআইডি 20842364 
  17. Sommerburg O, Keunen JE, Bird AC, van Kuijk FJ (আগস্ট ১৯৯৮)। "Fruits and vegetables that are sources for lutein and zeaxanthin: the macular pigment in human eyes"British Journal of Ophthalmology82 (8): 907–910। ডিওআই:10.1136/bjo.82.8.907পিএমআইডি 9828775পিএমসি 1722697অবাধে প্রবেশযোগ্য 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]