এরিক ফন দানিকেন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এরিক ফন দানিকেন
Erich von Daniken.jpg
২০১৭ সালে দানিকেন
জন্ম
এরিক আন্তন পল ভন ডেনিকেন

(1935-04-14) ১৪ এপ্রিল ১৯৩৫ (বয়স ৮৭)
জোফিনজেন, আরগাউ, সুইজারল্যান্ড
পেশালেখক
পরিচিতির কারণপ্রাচীন মহাকাশচারী
চ্যারিয়ট্‌স অব দ্য গড্‌স?
অপরাধের অভিযোগআত্মসাৎ, প্রতারণা এবং জালিয়াতি
অপরাধের শাস্তি৩.৫ বছর, ~$১,০০০ জরিমানা

এরিক আন্তন পল ভন দানিকেন (/ˈɛrɪk fɒn ˈdɛnɪkɪn/; জার্মান: [ˈeːrɪç fɔn ˈdɛːnɪkən]; জন্ম ১৪ এপ্রিল ১৯৩৫) একজন সুইস লেখক। তার লেখা আদি মানব সংস্কৃতির উপর বহির্জাগতিকদের প্রভাব সম্পর্কে আলোকপাত করে, সার মধ্যে ১৯৬৮ সালে প্রকাশিত সর্বাধিক বিক্রিত চ্যারিয়ট্‌স অব দ্য গড্‌স অন্যতম। তার বইগুলোর মাধ্যমেই বর্তমান যুগে নব যুগ আন্দোলনের গতিময়তা বৃদ্ধি পেয়েছে। আধুনিক যুগে প্যালিওকনটাক্ট এবং প্রাচীন মহাকাশচারী অনুকল্পকে জনপ্রিয় করতে মুখ্য ভূমিকা পালনকারীদের মধ্যে তিনি অন্যতম।

তার বইগুলিতে যে ধারণাগুলি উত্থাপন করা হয়েছে তা কার্যত সমস্ত বিজ্ঞানী এবং শিক্ষাবিদরা প্রত্যাখ্যান করেছেন, যারা তার কাজকে ছদ্মইতিহাস, ছদ্মপ্রত্নতত্ত্ব এবং ছদ্মবিজ্ঞান হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করেছেন।[১][২][৩] কর্মজীবনের শুরুর দিকে, তিনি দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন এবং বিভিন্ন প্রতারণা বা আত্মসাতের অভিযোগে কারাবাস করেন[৪] এবং কারাগারে তিনি একটি বই লিখেছিলেন।

ভন দানিকেন পরে আরকিওলজি, অ্যাস্ট্রোনটিক্‌স অ্যান্ড সেটি রিসার্চ এসোসিয়েশনের (AAS RA) সহ-প্রতিষ্ঠাতা হন। তিনি সুইজারল্যান্ডের ইন্টারলেকেনে মিস্ত্রি পার্ক নামে (বর্তমানে জাংফ্রাউ পার্ক নামে পরিচিত) একটি থিম পার্কের নকশা করেন, যেটি ২০০৩ সালের মে মাসে চালু হয়েছিল,[৫] এবং ২০০৬ সালের ১৯ নভেম্বর আবার বন্ধ হয়ে যায়।

জীবনী[সম্পাদনা]

ফন দানিকেন ১৯৩৫ সালের ১৪ এপ্রিল সুইজারল্যান্ডের আরগাউয়ের জোফিনজেনে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি রোমান ক্যাথলিক হিসাবে বেড়ে ওঠেন। দানিকেন সুইজারল্যান্ডের ফ্রাইবার্গের সেন্ট-মিশেল ইন্টারন্যাশনাল ক্যাথলিক স্কুলে পড়াশোনা করেছেন। বিদ্যালয়ে থাকাকালীন, কলেজ জীবনেই তিনি প্রাচীন পবিত্র গ্রন্থ ও পুঁথি অধ্যয়ন শুরু করেছিলেন। তিনি বাইবেলের চার্চের ব্যাখ্যা প্রত্যাখ্যান করেছিলেন এবং জ্যোতির্বিজ্ঞানউড়ন্ত সসারের প্রতি আগ্রহ তৈরি করেছিলেন।[৬] ১৯ বছর বয়সে, তাকে চৌর্যবৃত্তির আভিযোগে চার মাসের বহিষ্কার সাজা দেওয়া হয়েছিল।[৬] তিনি বিদ্যালয় ত্যাগ করে কিছু সময়ের জন্য একজন সুইস হোটেল মালিকের কাছে শিক্ষানবিশ ছিলেন।[৭] এরপর তিনি মিশরে যান। ১৯৬৭ সালের ডিসেম্বরে, ডেনিকেন জার্মান-কানাডিয়ান সাময়িকী ডের নর্ডওয়েস্টেনের জন্য "হ্যাটেন উনযাহার ফোরফাহরেন বেযুখ আউস ইম ভেলট্রাউম?" ("আমাদের পূর্বপুরুষরা কি মহাকাশে গিয়েছিলেন?") লিখেছেন।[৮] মিশরে থাকাকালীন, তিনি একটি গহনা ব্যবসায় জড়িত ছিলেন যার ফলস্বরূপ সুইজারল্যান্ডে ফিরে আসার পরে জালিয়াতি এবং আত্মসাতের জন্য নয় তার মাসের শাস্তি হয়েছিল।[৬]

মুক্তির পর, ডেনিকেন সুইজারল্যান্ডের দাভোসে হোটেল রোজেনহেগেলের একজন ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব পান। সেই সময়ে তিনি এইনাহোমেন আন ডি সুকুনফট, ("ভবিষ্যতের স্মৃতি") লিখেছিলেন।[৯] বইটির খসড়া বেশকয়েকজন প্রকাশক প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। পরবর্তিতে উটজ উটারম্যান নামে একজন পেশাদার লেখক যিনি যিনি উইলহেম রগার্সডর্ফের ছদ্মনাম ব্যবহার করেছিলেন, দ্বারা সম্পূর্ণ পুনর্গঠনের পর ইকন ফেরর্লাগ (বর্তমানে উলস্টাইন ফেরর্লাগের অংশ) বইটি প্রকাশ করতে ইচ্ছা প্রকাশ করে। উটারম্যান নাৎসি পার্টির সংবাদপত্র ভলকিশার বিওবাখটার-এর প্রাক্তন সম্পাদক এবং একজন নাৎসি বেস্ট সেলিং লেখক ছিলেন।[১০] চ্যারিয়ট্‌স অব দ্য গড্‌স ("দেবতাদের রথ")-এর পুনঃলিখন ১৯৬৭ সালের প্রথম দিকে প্রকাশের জন্য গৃহীত হয়েছিল, কিন্তু ১৯৬৮ সালের মার্চে মুদ্রিত হয়।[৯] সমস্ত প্রত্যাশার বিপরীতে, বইটি ব্যাপক আগ্রহ অর্জন করে এবং বেস্টসেলার হয়ে ওঠে। বইটির টার্নওভারের ৭ শতাংশ ভন ডেনিকেনকে, আর ৩ শতাংশ ইউটারম্যানকে দেওয়া হয়েছিল।[১১] এই বইটি অল্প সময়ের মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি এবং এর পরও আরও ৩৮টি দেশে সর্বোচ্চ বিক্রিত বইয়ের তালিকায় স্থান পেয়ে যায়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তার এই বইয়ের উপর একটি টিভি অনুষ্ঠান সম্প্রচারিত হয় যার নাম ছিল ইন সার্চ অব এনসিয়েন্ট অ্যাস্ট্রোনাটস। এর ফলে তার সুখ্যাতি খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে।[১২] ১৯৭০ সালে, ডের স্পিগেল দানিকেনকে নিয়ে হাইপকে ডেনিকাইটিস হিসাবে উল্লেখ করেছিলেন।[১৩]

১৯৬৮ সালের নভেম্বরে, ভন ডেনিকেনকে বারো বছর ধরে $১৩০,০০০-এর জন্য ঋণ নেওয়ার জন্য হোটেলের রেকর্ড এবং ক্রেডিট রেফারেন্সগুলিকে জাল করার পরে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।[৯] বিদেশ ভ্রমণের অর্থ তিনি তার বই গবেষণার জন্য ব্যবহার করেছিলেন।[৬] দুই বছর পরে,[৯] ভন ডেনিকেনকে "পুনরাবৃত্তি এবং টেকসই" আত্মসাৎ, জালিয়াতি এবং জালিয়াতির জন্য দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছিল, আদালতের রায়ে যে লেখক একটি "প্লেবয়" জীবনযাপন করছিলেন।[১৪] তিনি অসফলভাবে শূন্যতার আবেদনে প্রবেশ করেন, এই কারণে যে তার উদ্দেশ্য দূষিত ছিল না এবং ক্রেডিট প্রতিষ্ঠানগুলি তার রেফারেন্সগুলি গবেষণা করতে পর্যাপ্তভাবে ব্যর্থ হওয়ার জন্য দোষী ছিল।[৬][৯][১৪] ১৯৭০ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি তাকে সাড়ে তিন বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়েছিল, উপরন্তু তাকে ৩,০০০ ফ্রাঙ্ক জরিমানা করে হয়েছিল।[৯][১৫] মুক্তি পাওয়ার আগে তিনি এক বছর এই সাজা ভোগ করেন।[৬][১৬]

তার প্রথম বই, এইনাহোমেন আন ডি সুকুনফট তার বিচারের সময় প্রকাশিত হয়েছিল, এবং এর বিক্রয় তাকে তার ঋণ পরিশোধ করতে এবং হোটেল ব্যবসা ছেড়ে সাহায্য করে। দানিকেন কারাগারে থাকাকালীন তার দ্বিতীয় বই, গডস ফ্রম আউটার স্পেস লিখেছিলেন।[৬][১৪]

১৯৯৩ সালে জার্মানির টিভি স্টেশন স্যাট-১ ২৫ পর্বের একটি টিভি ধারাবাহিক সম্প্রচার শুরু করে যার মূল চরিত্র ছিলেন দানিকেন এবং পরিচালনার ভারও ছিল তার উপর। এই ধারাবাহিকের নাম ছিল Auf den Spuren der All-Mächtigen (ঈশ্বরের চলাচলের পথসমূহ)। ১৯৯৬সালে আমেরিকার টিভি চ্যানেল এবিসি/কেইন এক ঘণ্টার একটি বিশেষ চলচ্চিত্র নির্মাণ করে যার নাম ছিল Chariots of the Gods - The Mysteries Continue, সমগ্র বিশ্বব্যাপী এটি প্রচার করা হয়েছিল। ১৯৯৬ সালের ২৬শে সেপ্টেম্বর এটি সম্প্রচার করা হয়েছিল। ১৯৯৬-৯৭ সালে এবিসি/কেইন ফন দানিকেনকে নিয়ে আরেকটি ডকুমেন্টারি ফিল্ম তৈরি করে যা ডিসকাভারি চ্যানেলেও দেখানো হয়েছিল। জার্মানির বৃহত্তম টিভি নেটওয়ার্ক আরটিএল ১৯৯৬ সালের ২৬ নভেম্বর তারিখে এই চলচ্চিত্রটি সম্প্রচার করে। শুধু জার্মানিতেই প্রায় ৭.৭ মিলিয়ন লোক এটি দেখেছিল। ফন দানিকেন বর্তমানে এবিসিআরটিএল-এর সাথে বিভিন্ন চলচ্চিত্র নির্মাণ করে থাকে।

দানিকেন অদ্যাবধি পৃথিবীর ২৫টি দেশে সর্বমোট ৩,০০০টি বক্তৃতা দিয়েছেন যার মধ্যে ৫০০ টি বক্তৃতা বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে দেয়া। এছাড়া তিনি প্রতি বছর গড়ে প্রায় ১০০,০০০ মাইল ভ্রমণ করেন যা তার গবেষণার প্রমাণ সংগ্রহে বিশেষ ভূমিকা রাখে। তিনি সুইস রাইটার্স এসোসিয়েশন, জার্মান রাইটার্স এসোসিয়েশন এবং আন্তর্জাতিক পেন-ক্লাব-এর সদস্য। তিনি বর্তমানে সুইজারল্যান্ডের ছোট্ট পর্বতসংকুল গ্রাম Beatenberg-এ থাকেন। এই গ্রামটি বার্ন থেকে ৪০ মাইল দূরে এবং আন্টারলাকেন শহরের উপর অবস্থিত। ২০০৩ সালে এই ইন্টারলাকেন শহরেই ফন দানিকেনের উদ্যোগে Mysteries of the World Theme Park-এর যাত্রা শুরু হয়। এটি স্থাপিত হয়েছিল মূলত পৃথিবীর রহস্য নিয়ে গবেষণা করার একটি উপযুক্ত ক্ষেত্র হিসেবে। এখানে প্যালিও-সেটি এবং প্রাচীন মহাকাশচারী তত্ত্ব নিয়েও গবেষণা হতো। কিন্তু ২০০৬ সালের ১৯শে নভেম্বর এই থিম পার্কটি বন্ধ হয়ে যায়।

দানিকেন ওয়ার্ল্ড মিস্টারিস ফোরামে যোগ দিয়েছিলেন। ১৯৯৮ সালে তিনি সহকর্মীদের সাথে মিলে আরকিওলজি, অ্যাস্ট্রোনটিক্‌স অ্যান্ড সেটি রিসার্চ এসোসিয়েশন (এএএস আরএ) নামক একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। এই সংগঠন থেকে নিয়মিত লিজেন্ডারি টাইম্‌স নামে একটি ইংরেজি সাময়িকী প্রকাশিত হয়। এতে প্যালিও-সেটির উপর সর্বশেষ গবেষণার সংবাদ পরিবেশন করা হয়।

দানিকেন ১৯৬০ সালে এলিজাবেথ স্কাজাকে বিয়ে করেছিলেন। তার এক মেয়ে রয়েছে যে ১৯৬৩ সালে জন্মগ্রহণ করেছিল। তার মেয়ের ঘরের দুই নাতিও রয়েছে।

পৃথিবীতে ভিনগ্রহের প্রাণীর প্রভাবের দাবি[সম্পাদনা]

চ্যারিয়ট্‌স অব দ্য গড্‌স দিয়ে শুরু হওয়া বেশকয়েকটি প্রকাশিত বইয়ের উপর দানিকেনের সাধারণ দাবি ১৯৬৮ সালে, বহির্জাগতিক বা "প্রাচীন নভোচারীরা" পৃথিবী পরিদর্শন করেছিল এবং প্রাথমিক মানব সংস্কৃতিকে প্রভাবিত করেছিল। দানিকেন তার বিশ্বাস সম্পর্কে লিখেছেন যে মিশরীয় পিরামিড, স্টোনহেঞ্জ এবং ইস্টার দ্বীপের মোয়াইয়ের মতো কাঠামো এবং সেই সময়ের কিছু প্রত্নবস্তু উচ্চতর প্রযুক্তিগত জ্ঞানের পণ্য যা তাদের তৈরি করার সময়ে বিদ্যমান ছিল বলে ধারণা করা হয়। তিনি মহাকাশচারী, আকাশ ও মহাকাশ যান, বহির্জাগতিক প্রাণী এবং জটিল প্রযুক্তির চিত্র ধারণ করে এমন প্রাচীন শিল্পকর্মকে বর্ণনা করেন। দানিকেন ধর্মের উৎপত্তি ব্যাখ্যা করেছেন একটি ভিনগ্রহী জাতি সংস্পর্শে প্রতিক্রিয়া হিসাবে, এবং বাইবেলের পুরাতন নিয়মের অংশগুলির ব্যাখ্যা প্রদান করেন।

সমালোচনা[সম্পাদনা]

১৯৬৬ সালে, যখন দানিকেন তার প্রথম বই লিখছিলেন, বিজ্ঞানী কার্ল সাগান এবং ইওসিফ শক্লোভস্কি তাদের ইন্টেলিজেন্ট লাইফ ইন দ্য ইউনিভার্স বইয়ের একটি অধ্যায়ে প্যালিওকন্টাক্ট এবং বহির্জাগতিক পরিদর্শনের দাবির সম্ভাবনা সম্পর্কে লিখেছেন। এ বিষয়ে লেখক রোনাল্ড স্টোরি তার দ্য স্পেস-গডস রিভিলড বইয়ে অনুমান করেছেন যে দানিকেনের ধারণা হতে এ ধারণার উৎপত্তি হতে পারে।[১৭] এই বইয়ের অনেক ধারণা দানিকেনের বইগুলিতে বিভিন্ন আকারে হাজির হয়েছে। জ্যোতিঃপদার্থবিজ্ঞানী কার্ল সেগান এবং ইওসিফ শক্লোভস্কি প্রাগৈতিহাসিক কালে এলিয়েনদের পৃথিবী ভ্রমণ এবং তার বিভিন্ন নিদর্শন নিয়ে দানিকেনের রচনার সমালোচনা করেছেন। সেগান এলিয়েনদের ভ্রমণের বিষয়টিকে একেবারে উড়িয়ে দেননি, তার মতে এমন কিছু অতীতে ঘটে থাকতেই পারে, কিন্তু তার কোন প্রমাণ নেই। দানিকেন যেসব প্রমাণ সরবরাহ করেছেন সেগুলোকে সেগান অপ্রতুল বলে আখ্যায়িত করেছেন। তার বিখ্যাত উক্তি, "Extraordinary claim needs extraordinary evidence" এর আওতায় দানিকেনের লেখাগুলোও পড়ে। দানিকেনের দাবিগুলো সাধারণ বৈজ্ঞানিক চিন্তার বাইরে, অর্থাৎ প্রায় অতিলৌকিক কিছু, কিন্তু সেটা প্রমাণ করার জন্য যে ধরনের অনন্যসাধারণ নমুনা প্রয়োজন তা দানিকেন সরবরাহ করতে পারেননি।[১৮]

দানিকেনের পূর্বেও অন্যান্য লেখকরা বহির্জাগতিক যোগাযোগের ধারণা উপস্থাপন করেছিলেন। একই ধরনের বা অভিন্ন প্রমাণ ব্যবহার করে একই দাবি করার সময়ও তিনি এই লেখকদের যথাযথভাবে বা মোটেও কৃতিত্ব দিতে ব্যর্থ হয়েছেন।[১৯] দানিকেনের এরিনারঞ্জন আন দি সুকুনফ্ট-এর প্রথম সংস্করণটি একই রকম দাবি করা সত্ত্বেও রবার্ট চাররক্সের ওয়ান হান্ড্রেড থাউসেন্ট ইয়ার্স অব ম্যান'স উনকন্যেন হিস্ট্রি-এর উদ্ধৃতি দিতে ব্যর্থ হয়। পরে সম্ভাব্য কুম্ভীলকবৃত্তি মামলা এড়াতে পরবর্তী সংস্করণের গ্রন্থপঞ্জিতে চারুক্স যোগ করার জন্য প্রকাশক ইকোন-ভারলাগ বাধ্য হইয়েছিলেন।[২০]

দিল্লির লৌহস্তম্ভ[সম্পাদনা]

দানিকেন তার চ্যারিয়ট্‌স অব দ্য গড্‌স বইয়ে দাবী করেছিলেন ভারতের দিল্লির ঐতিহাসিক কুতুন মিনারের পাশে অবস্থিত প্রাচীন কালের দিল্লির লৌহস্তম্ভটি মনুষ্য নির্মিত নয়। আনুমানিক ৪০২ সালে নির্মিত স্তম্ভটির "অজানা উত্স" এবং দেড় হাজার বছর পরও এতে মরিচা না ধরার কারণে একে বহির্জাগতিক প্রভাবের একটি প্রধান উদাহরণ হিসাবে উথাপন করেছেন।[২১][২২] কিন্তু ১৯৭৪ সালে এক সাময়িকীতে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি নিজেই স্বীকার করেন যে, লৌহস্তম্ভটি আসলে জং ধরা, এবং এর উত্স, নির্মাণের পদ্ধতি এবং ক্ষয়ের বিরুদ্ধে আপেক্ষিক প্রতিরোধ সবই ভালভাবে বোঝা যায়, এবং তা মানুষের পক্ষেই বানানো সম্ভব ছিল।[২৩]

কুয়েভা দে লস তাইয়োস[সম্পাদনা]

দ্য গোল্ড অব দ্য গড্‌স বইয়ে দানিকেন একটি অভিযানের বর্ণনা দিয়েছেন যেটি তিনি ইকুয়েডরের একটি প্রাকৃতিক গুহা ব্যবস্থা কুয়েভা দে লস তাইয়োসের মধ্যে মানবসৃষ্ট সুড়ঙ্গের মধ্য দিয়ে করেছিলেন, যা জুয়ান মরিকজ নামের স্থানীয় একজন ব্যক্তির দ্বারা পরিচালিত হয়েছিল। তিনি সোনার ঢিবি, অদ্ভুত মূর্তি এবং ধাতব ট্যাবলেট ধারণকারী একটি গ্রন্থাগার দেখেছেন বলে জানিয়েছেন, যেগুলোকে তিনি প্রাচীন বহির্জাগতিক পরিদর্শনের প্রমাণ বলে মনে করেন।

মরিকজ ডের স্পিগেলকে বলেছিলেন যে সেখানে কোন অভিযান হয়নি; দানিকেনের বর্ণনাগুলি "একটি দীর্ঘ কথোপকথন" থেকে এসেছে, এবং বইয়ের ছবিগুলি "ভূয়া" ছিল।[২৪] ১৯৭৪ সালের সাক্ষাত্কারের সময়, দানিকেন জোর দিয়েছিলেন যে তিনি সত্যই গ্রন্থাগার এবং সুড়ঙ্গের প্রত্নবস্তু দেখেছেন, তবে তিনি গল্পের কিছু দিককে আরও আকর্ষণীয় করে তুলেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, "জার্মান ভাষায়, আমরা বলি একজন লেখক, যদি তিনি বিশুদ্ধ বিজ্ঞান না লেখেন, তাহলে তাকে কিছু নাটকীয়তা এফেক্টে - কিছু নাট্য প্রভাব ব্যবহার করার অনুমতি দেওয়া হয়, এবং আমি তাই করেছি।"[১৪][২৫][২৬] একজন ভূতাত্ত্বিক ওই এলাকায় কৃত্রিম টানেলের কোনো প্রমাণ পাননি।[২৪] ডের স্পিগেল-এর পরামর্শে একজন প্রত্নতাত্ত্বিকের মতে, ফাদার ক্রেসপির সোনার প্রত্নবস্তুগুলি বেশিরভাগই পিতলের অনুকরণ ছিল যা স্থানীয়ভাবে পর্যটকদের স্মৃতিচিহ্ন হিসাবে বিক্রি হয়েছিল।[২৪]

জায়ানের বই এবং "টুলি প্যাপিরাস"[সম্পাদনা]

চিন্তাধারা ও রচনাসমূহ[সম্পাদনা]

এরিক ভন দানিকেনের সর্বশেষ যে বইটি প্রকাশিত হয়েছে তার নাম The Gods Were Astronauts: Evidence of the True Identities of the Old 'Gods"। এই বইটিতে ফন দারিকেন একটি বিশেষ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন যা তিনি বিভিন্ন প্রমাণাদির সাপেক্ষে ব্যাখ্যা করেছেন। প্রশ্নটি ছিল, প্রাচীন ও আধুনিক সভ্যতা ও সংস্কৃতিতে যে ঈশ্বরের কথা বলা হয়, তিনি আসলে কে? ফন দানিকেনের উত্তর হচ্ছে ঈশ্বর এমন কোন অসীম সত্তা নয় যিনি মানব অনুভূতি ও কার্যাবলীকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন (সাধারণ পুরাণ ও ধর্মে যেভাবে বলা হয়), বরং ঈশ্বর হল সেইসব বহির্জাগিতকেরা যারা পৃথিবীতে তাদের ভ্রমণের প্রমাণ রেখে গেছ বিভিন্ন স্থানে বিভিন্নভাবে। অর্থাৎ অনেক আগে তারা অন্য কোন গ্রহ থেকে পৃথিবীতে এসেছিল। এই সিদ্ধান্ত উপনীত হওয়ার আগে দানিকেন পৃথিবীর প্রায় সকল পুরাণ ও ধর্ম নিয়ে গবেষণা করেছেন, এর পাশাপাশি পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে ছড়ানো ছিটানো প্রমাণাদি সংগ্রহেও প্রভূত সময় ব্যয় করেছেন।

দানিকেনের বিভিন্ন গ্রন্থ পৃথিবীর ৩২ টি ভাষায় অনূদিত হয়েছে এবং পৃথিবীব্যাপী প্রায় ৬৩ মিলিয়ন কপি বিক্রি হয়েছে। তার বইগুলোর উপর ভিত্তি করে দুইটি পূর্ণদৈর্ঘ ডকুমেন্টারি চলচ্চিত্র নির্মীত হয়েছে: চ্যারিয়ট্‌স অফ দ্য গড্‌স এবং ম্যাসেজ অফ দ্য গড্‌স

এরিক ফন দানিকেনের অধিকাংশ বই বাংলা ভাষায় অনুবাদ করেছেন শ্রী অজিত দত্ত। যার মধ্যে "দেবতা কি গ্রহান্তরের মানুষ", "নক্ষত্রলোকে প্রত্যাবর্তন", "বীজ ও মহাবিশ্ব", "আমার পৃথিবী", "আবির্ভাব", "প্রমাণ", "প্রাগিতিহাসের ঋষি", "দেবতার গোধূলিবেলা", "দেবতার চাতুর্য" ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। শ্রী অজিত দত্তের সহজবোধ্য অনুবাদের ফলে বাংলা ভাষাভাষীদের কাছে এরিক ফন দানিকেনের তত্ত্ব খুব জনপ্রিয়তা লাভ করে।

জনপ্রিয়তা[সম্পাদনা]

জংফ্রাউ পার্ক

দানিকেনের মতে, তার বইগুলি মোট ৩২টি ভাষায় অনূদিত হয়েছে এবং ৬৩ মিলিয়নেরও বেশি কপি বিক্রি হয়েছে।[২৭]

দানিকেবের বইয়ের উপর ভিত্তি করে বোগাসলাও পোলচ একটি কমিক বই ডাই গোটার আউস ডেম অল তৈরি করেছেন, যেটি রচনা করেছেন আর্নল্ড মোস্টোভিজ এবং আলফ্রেড গোর্নি। ১৯৭৮-১৯৮২ সালে আটটি কমিক বই ১২টি ভাষায় অনূদিত হয়েছে[২৮] এবং ৫ মিলিয়নেরও বেশি কপি বিক্রি হয়েছে।

দানিকেনের নকশা করে মিস্ট্রি পার্ক নামে একটি থিম পার্ক সুইজারল্যান্ডের ইন্টারলেকেনের কাছে ২০০৩ সালে হিসাবে চালু হয়েছিল। পরে এটি জংফ্রাউ পার্ক নামে পরিচিতি পায়। এটি বিশ্বের বেশকয়েকটি মহান "রহস্য" অন্বেষণ করেছে।[২৯]

রিডলি স্কট বলেছিলেন যে তার চলচ্চিত্র প্রমেথিয়াস আদি মানব সভ্যতা সম্পর্কিত দানিকেনের কিছু ধারণার সাথে সম্পর্কিত।[৩০] রোলান্ড এমেরিখের স্টারগেট চলচ্চিত্রের দুটি-ডিস্ক ডিভিডি পর্যালোচনা করে, ডিন ডেভলিন দানিকেনের "Is There a Stargate?" বইয়ের উল্লেখ করেন, যেখানে "দানিকেন পৃথিবীতে এলিয়েন পরিদর্শনের প্রমাণ নিয়ে আলোচনা করেছেন।"[৩১]

দানিকেন হিস্ট্রি এবং এইচ টু চ্যানেলের "এনসিয়েন্ট এলিয়েন্স শোয়ের একজন অনিয়মিত উপস্থাপক, যেখানে তিনি প্রতিটি পর্বের সাথে সম্পর্কিত তার তত্ত্বের দিকগুলি সম্পর্কে কথা বলেন।[৩২]

গ্রন্থ তালিকা[সম্পাদনা]

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Fagan, Brian M. (২০০০)। In the beginning: an introduction to archaeology (10th সংস্করণ)। Prentice-Hall। পৃষ্ঠা 17–18। আইএসবিএন 978-0130307316… Flamboyant pseudoarchaeology of the type espoused by von Däniken and Hancock will always appeal to people who are impatient … 
  2. Orser, Charles E. (২০০৩)। Race and practice in archaeological interpretation। University of Pennsylvania Press। পৃষ্ঠা 73। আইএসবিএন 978-0812237504 
  3. Fritze 2009, পৃ. 13, 200, 201।
  4. Lingman, Richard (৩১ মার্চ ১৯৭৪)। "Erich von Daniken's Genesis"। The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  5. "Mystery Park, Interlaken"। Switzerland Flexitours। ৮ এপ্রিল ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১০ 
  6. "Playboy Interview: Erich von Däniken"Playboy। আগস্ট ১৯৭৪। পৃষ্ঠা 64। ২০১২-০৮-০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  7. Story(1976), p1
  8. Peter Krassa, Disciple of the Gods: A Biography of Erich von Däniken (W. H. Allen & Co., Ltd, 1976, আইএসবিএন ০৩৫২৩০২৬২৩), p. 74
  9. Story, Ronald (১৯৭৬)। The space-gods revealed: a close look at the theories of Erich von Dänikenবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। New York: Harper & Row। আইএসবিএন 0060141417 
  10. "Wilhelm Utermann" (in German), Lexikon westfälischer Autorinnen und Autoren.
  11. Gerhard Mauz (9 February 1970), "Wie es unser Explorand sehr schön zeigt", Der Spiegel 5202660, no. 7, p. 98
  12. http://www.daniken.com/e/index.html ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৮ এপ্রিল ২০০৭ তারিখে, এরিক ফন দানিকেনের ব্যক্তিগত ওয়েবসাইটে তার জীবনী অংশ থেকে। সেখান থেকে তথ্য নিয়ে বাংলা ভাষায় লেখা হয়েছে।
  13. "Gläubige Gemeinde", Der Spiegel 44418148, no. 40, 28 September 1970, p. 214
  14. Lingeman, Richard R. (৩১ মার্চ ১৯৭৪)। "Erich von Daniken's Genesis"The New York Times। পৃষ্ঠা 6। 
  15. Von Däniken's side of the story is given in Krassa, pp. 96–107.
  16. Transcripts of Däniken's letters to his wife Elizabeth (whom he married in 1959), during this period are provided in Krassa, pp. 130–135.
  17. Story 1980, পৃ. 3–5
  18. Carl Sagan, Cosmos, অধ্যায় - Encyclopedia Galactica.
  19. Story 1980, পৃ. 5–6
  20. Story 1980, পৃ. 5
  21. Epstein, Stephen M.। "Scholars Will Call It Nonsense: The Structure of Erich von Däniken's Argument" (PDF)University of Pennsylvania Museum of Archaeology and Anthropology। পৃষ্ঠা 12–18। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১, ২০২১ 
  22. Däniken, Erich von: Chariots of the Gods?, p. 94.
  23. Playboy magazine, p. 64, Volume 21 Number 8, 1974
  24. Story 1980, পৃ. 78–82
  25. von Däniken continued to maintain that he had been inside the caves, " ... but not at the place where the photographs in the book were taken, not at the main entrance. I was at a side entrance." He said Moricz's expedition crew had been forced by some unknown entity to sign a "pledge of silence", which explained Moricz's refusal to corroborate his account. Later, he said, a "leading German archaeologist", dispatched to Ecuador to verify his claims, could not locate Moricz. (Playboy, p. 58)
  26. "The Case of the Ancient Astronauts"। Horizon। ৩ আগস্ট ১৯৭৮। event occurs at 41:15–42:20। BBC 
  27. Kenneth Feder, Encyclopedia of Dubious Archaeology: From Atlantis to the Walam Olum, p. 267 (Greenwood Publishing Group, 2010). আইএসবিএন ৯৭৮-০৩১৩৩৭৯১৮৫
  28. "Boguslaw Polch"lambiek.net (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  29. Sue Atwood, "Switzerland: Journey into the unknown" The Daily Telegraph, 29 December 2003.
  30. McClellan, Jason (২৫ নভেম্বর ২০১১)। "Ridley Scott's alien movie 'Prometheus' inspired by Erich von Däniken"। OpenMinds। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১১ 
  31. Billboard, 22 February 2003, p. 31.
  32. Black, Riley (মে ১১, ২০১২)। "The Idiocy, Fabrications and Lies of Ancient Aliens"Smithsonian Magazine। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ২, ২০২২ 
উদ্ধৃতি ত্রুটি: <references>-এ সংজ্ঞায়িত <ref> ট্যাগে কোন নাম আরোপ করা হয়নি।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]