ইসলামিয়া কলেজ (লাহোর)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Islamia College Lahore 1.jpg

ইসলামিয়া কলেজ ( উর্দু: اسلامیہ کالج‎‎) পেশোয়ারের পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত তিনটি কলেজের একটি সংস্থা। এগুলোকে ১৯৭২ সালে জুলফিকার আলী ভুট্টো শাসনামলে জাতীয়করণ করা হয়। কলেজটি পাকিস্তানের পাঞ্জাব সরকার শিক্ষা মন্ত্রণালয় (উচ্চ শাখা) হতে পরিচালিত হয়।[১] এটি পাকিস্তানের প্রাচীন কলেজগুলোর একটি।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

আঞ্জুমান-ই-হিমায়াত-ই-ইসলাম ১৮৯২ সালে প্রতিষ্ঠা করেন, তিনটি কলেজের মধ্যে প্রাচীনতম (ইসলামিয়া কলেজ, রেলওয়ে রোড) পাকিস্তান আন্দোলনের অন্যতম কেন্দ্রবিন্দু ছিল। পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ এই কলেজটি তার ছাত্রদের সাথে সম্বোধন এবং সম্মানের জন্য পরিদর্শন করেছিলেন। এই কলেজের স্নাতক এবং শিক্ষার্থীদের কলেজের প্রাচীনতম এবং কেন্দ্রীয় ভবনের নাম অনুসারে "হাবিবীয়রা" বলা হয়।

পাকিস্তানের লাহোরের কুপার রোডে অবস্থিত ইসলামিয়া কলেজ একটি সর্ব-মহিলা কলেজ এবং ১৯৩৯ সালে আঞ্জুমান-ই-হিমায়াত-ই-ইসলাম প্রতিষ্ঠা করেছিল।

পাকিস্তানের লাহোরে অবস্থিত 'ইসলামিয়া কলেজ, সিভিল লাইন্স' প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ১৯৪৭ সালে বিখ্যাত ডিএভি (দয়ানন্দ অ্যাংলো বৈদিক) কলেজের প্রাঙ্গনে। যা বিভাগের পরে ভারতের হরিয়ানার আম্বালায় স্থানান্তরিত হয়। এই কলেজের স্নাতক এবং শিক্ষার্থীদের "ফারানিয়ান" হিসাবে উল্লেখ করা হয়। মুক্তিযোদ্ধা ভগৎ সিং এখানেই ব্রিটিশ এসএসপি জেপি সান্ডার্সকে হত্যা করেছিলেন।

সরকারের ইতিহাস ইসলামিয়া কলেজ সিভিল লাইনস, লাহোর উনিশ শতকের শেষ বছরে শুরু হয়, যখন আর্য সমাজবাদীরা ১৮ জুন ১৮৮৬ সালে দয়ানন্দ আয়ুর বৈদিক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন। দয়ানন্দ বৈদিক কলেজের (ডিএভি কলেজ) বিশাল ভবনটি বহু বিপ্লবী পরিবর্তন করেছিল। গত দুই শতাব্দী স্কুলটি ১৮৮৮ সালে ইন্টারমিডিয়েট ক্লাস শুরু করে এবং ১৮৯২ সালে স্নাতক শ্রেণি এবং শেষ অবধি ১৮৯৯ সালে এম.এ. চালু হয়।[২] কলেজটির নামটি হিন্দু নেতা সওমী দয়ানন্দ সরস্বতীর নিকটে আরোপিত করা হয়েছিল, যিনি আর্য সমাজের মুহুর্তের প্রতিষ্ঠাতা।[২] ১৯৪৭ সালে, পূর্ব পাঞ্জাবের মুসলিম মুহাজরিনকে এই কলেজের ভবনে স্থান দেওয়া হয়েছিল। পরবর্তীতে এই বিল্ডিংটি তালেম-উল-ইসলাম (১৯৫৪ সালে রাব্বায় স্থানান্তরিত হয়েছিল) এবং এলএসএনএফ স্কুল (লাইসেন্স স্টেট মেডিকেল অনুষদ)-সহ দুটি প্রতিষ্ঠানে বিভক্ত হয়েছিল। ১৯৫৫ সালে, কলেজ ভবনটি আঞ্জুমান-ই-হিমায়াত-ই-ইসলাম দ্বারা অধিগ্রহণ করা হয়েছিল। আঞ্জুমান পূর্বের এই ডিএভি কলেজকে ইসলামিয়া কলেজের একটি নতুন নাম দিয়েছিল। প্রাথমিকভাবে ইসলামিয়া কলেজ রেলওয়ে রোড এবং ইসলামিয়া কলেজ সিভিল লাইনের উভয়ের প্রশাসন আঞ্জুমান-ই-হিমায়াত-ই-ইসলামের কাছে থেকে যায়। ১৯৫৮ সালে আঞ্জুমান ইসলামিয়া কলেজ সিভিল লাইন্স লাহোরকে আলাদা পরিচয় দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

রেলওয়ে রোডের ইসলামিয়া কলেজের প্রথম অধ্যক্ষ ছিলেন সৈয়দ মোহাম্মদ আলী জাফরি, তিনি চার বছর দায়িত্ব পালন করেছিলেন। একই সময়ে, কলেজটি অস্ট্রেলিয়া বিল্ডিং, রেলওয়ে রোড থেকে স্থানান্তরিত হয়েছিল। মিঃ জাফরি ভারতের এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ছয়টি বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন। তিনি আঞ্জুমান-ই-হিমায়াত-ই-ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা সদস্যও ছিলেন। "ইসলামিয়া কলেজ, রেলওয়ে রোড" এর বর্তমান অধ্যক্ষ হলেন অধ্যাপক তাহির জাভেদ যিনি ৩ রা জুন ২০১৪ থেকে দায়িত্বে রয়েছেন।

উল্লেখযোগ্য প্রাক্তন ছাত্র[সম্পাদনা]

ধর্মীয় পণ্ডিতগণ
  • হাজী আবদুলওয়াহাব, আমির-ই-পাকিস্তান
রাজনীতিবিদরা
  • সারতাজ আজিজ, পাকিস্তানের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী[৩]
  • চৌদ্দারি রহমত আলী, যে ব্যক্তি "পাকিস্তান" নামটি রচনা করেছিলেন
  • সরদার মুহাম্মদ ইব্রাহিম খান, দ্য আজাদ কাশ্মীরের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রথম রাষ্ট্রপতি
  • চৌধুরী চৌধুরী মুহাম্মদ আলী, পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ড
  • মালিক মেরাজ খালিদ, পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এবং পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের প্রাক্তন স্পিকার
  • মইন কুরেশি, পাকিস্তানের সাবেক অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী
  • শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, কাশ্মীরের সাবেক প্রধানমন্ত্রী (ভারত)
  • মাওলানা আবদুল সাত্তার খান নিয়াজী, ধর্মবিদ ও রাজনীতিবিদ[৪]
  • মিয়া মনজুর আহমদ ওয়াটু, ফেডারেল মন্ত্রী এবং পাঞ্জাবের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী
  • রাজা জুলকারনাইন, সাধারণ সম্পাদক সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি (এসসিবিএপি) ২০০৯-২০১০
  • মিয়া মাহমুদ আলী কাসুরি, পাকিস্তানের সাবেক আইনমন্ত্রী
  • জামিল আহমদ গন্ডল, প্রতিষ্ঠাতা পাকিস্তান সমাজতান্ত্রিক গণতান্ত্রিক পার্টি (পিএসডিপি)
বিচার বিভাগ এবং সরকারী কর্মকর্তারা
  • এস এ রহমান, পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি
  • মুহাম্মদ ইয়াকুব আলী, পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি
  • আমির আলম খান, লাহোর হাইকোর্টের প্রাক্তন বিচারক
  • চৌধুরী চৌধুরী ইজাজ আহমেদ, পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি
  • প্রাক্তন আইনমন্ত্রী মিয়া মাহমুদ আলী কাসুরি
  • মনজুর হুসেন সিয়াল, প্রাক্তন বিচারপতি লাহোর হাইকোর্ট।
  • তারিক মজিদ, প্রাক্তন চেয়ারম্যান, জয়েন্ট চিফস অফ স্টাফ কমিটি, পাকিস্তান সশস্ত্র বাহিনী
  • শেখ রিয়াজ আহমদ, প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি
  • রশিদ আজিজ, লাহোর হাইকোর্টের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি
ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব
  • ফজল মাহমুদ, পাকিস্তান ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক[৫]
  • আবদুল হাফিজ করদার, পাকিস্তান ক্রিকেট দলের প্রথম অধিনায়ক
  • খান মোহাম্মদ, প্রাক্তন টেস্ট ক্রিকেটার; পাকিস্তানের হয়ে প্রথম টেস্ট উইকেট নিয়েছিলেন
  • ইমতিয়াজ আহমেদ, পাকিস্তান ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক
  • পাকিস্তানের হয়ে টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম সেঞ্চুরি করেছিলেন প্রাক্তন টেস্ট ক্রিকেটার নজর মোহাম্মদ
  • জমির হায়দার, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আম্পায়ার
  • সাবেক টেস্ট ক্রিকেটার গুল মোহাম্মদ, যিনি টেস্ট ক্রিকেটে ভারত ও পাকিস্তানের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন
  • মকসুদ আহমেদ, সাবেক টেস্ট ক্রিকেটার মেরি ম্যাক্স নামেও পরিচিত
  • সাঈদ আহমেদ, পাকিস্তান ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক
  • আসিফ মাসউদ, প্রাক্তন টেস্ট ক্রিকেটার
  • জাহাঙ্গীর খান, প্রাক্তন স্কোয়াশ খেলোয়াড়
  • পাকিস্তান ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ওয়াসিম আকরাম
  • আলেম দার, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আম্পায়ার
  • আকিব জাভেদ, সাবেক টেস্ট ক্রিকেটার এবং পাকিস্তান দলের কোচ
  • খালিদ মাহমুদ, পাকিস্তান হকি দলের সাবেক অধিনায়ক
  • সামিউল্লাহ খান, পাকিস্তান হকি দলের সাবেক অধিনায়ক
  • সেলিম শেরওয়ানি, পাকিস্তান হকি দলের সাবেক অধিনায়ক
  • খাজা জাকাউদ্দিন, প্রাক্তন অলিম্পিয়ান (হকি)
  • আশরাফ আলী, প্রাক্তন টেস্ট ক্রিকেটার
  • আসাদ রউফ, পরীক্ষা আম্পায়ার
  • খাজা আবদুর রব, ক্রিকেট কোচ
  • জয়ন আলী হুঞ্জরা, বিখ্যাত উর্দু স্পিকার, বিজয়ী লাহোর বিভাগ ২০১৯। বিজয়ী নাজারিয়া পাকিস্তান বিশ্বাস উর্দু ভাষণ প্রতিযোগিতা ২০১৯।
সাংবাদিক
  • হামেদ নিজামী, উর্দু পত্রিকা নওয়া-ই-ওয়াকটের প্রতিষ্ঠাতা
  • মজিদ নিজামী, পাকিস্তানের নওয়া-ই-ওয়াক্ট গ্রুপ অফ পাবলিকেশন-এর সম্পাদক-প্রধান এবং কলামিস্ট [৬]
লেখক, কবি এবং শিল্পী
  • মাজেদ আমজাদ, উর্দু কবি
  • নাসির কাজমী, উর্দু কবি
  • ওয়াসিফ আলী ওয়াসিফ, বিশিষ্ট সুফি লেখক ও কবি
  • কবি ও নাট্যকার আমজাদ ইসলাম আমজাদ
  • পিটিভি ও চলচ্চিত্র জগতের কৌতুক অভিনেতা রফি খয়ার নান্না
  • রিয়াজ শহীদ, লেখক ও চলচ্চিত্র পরিচালক
  • ফিরোজ নিজাম, বিখ্যাত চলচ্চিত্র সংগীত পরিচালক (১৯৫০)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. 22 promoted as professors The Nation (newspaper), published 14 June 2008, retrieved 21 November 2017
  2. "WELCOME TO GOVT. ISLAMIA COLLEGE, CIVIL LINES, LAHORE."www.giccl.edu.pk। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-১৮ 
  3. When history was being made The Nation (newspaper), Published 14 August 2016, Retrieved 21 November 2017
  4. Profile of Maulana Abdul Sattar Khan Niazi (alumnus of Islamia College, Lahore) Senate of Pakistan website (archived), Retrieved 25 November 2017
  5. Obituary of Fazal Mahmood (alumnus of Islamia College, Lahore The Guardian (UK newspaper), Published 1 June 2005, Retrieved 25 November 2017
  6. Majid Nizami laid to rest - Obituary of Majid Nizami (alumnus of Islamia College, Lahore) Dawn (newspaper), Published 27 July 2014, Retrieved 25 November 2017

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]