আমির নাজির

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আমির নাজির
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামআমির নাজির
জন্ম২ জানুয়ারি, ১৯৭১
লাহোর, পাঞ্জাব, পাকিস্তান
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১২৭)
২৩ এপ্রিল ১৯৯৩ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ টেস্ট২২ সেপ্টেম্বর ১৯৯৫ বনাম শ্রীলঙ্কা
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ৯০)
২৬ মার্চ ১৯৯৩ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ ওডিআই১১ এপ্রিল ১৯৯৫ বনাম শ্রীলঙ্কা
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই
ম্যাচ সংখ্যা
রানের সংখ্যা ৩১ ১৩
ব্যাটিং গড় ৬.২০ ১৩.০০
১০০/৫০ ০/০ ০/০
সর্বোচ্চ রান ১১ *
বল করেছে ১,০৫৭ ৪১৭
উইকেট ২০ ১১
বোলিং গড় ২৯.৮৫ ৩১.৪৫
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৫/৪৬ ৩/৪৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/– ০/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৮ জানুয়ারি ২০২১

আমির নাজির (উর্দু: عامر نذیر‎‎; জন্ম: ২ জানুয়ারি, ১৯৭১) পাঞ্জাবের লাহোর এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক পাকিস্তানি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৯০-এর দশকের সূচনালগ্নে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে পাকিস্তানের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর পাকিস্তানি ক্রিকেটে অ্যালাইড ব্যাংক, গুজরানওয়ালা ক্রিকেট সংস্থা, ইসলামাবাদ ক্রিকেট সংস্থা ও লাহোর দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম বোলার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে নিচেরসারিতে ব্যাটিং করতেন তিনি।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

১৯৯২-৯৩ মৌসুম থেকে ২০০২-০৩ মৌসুম পর্যন্ত আমির নাজিরের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল।

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে ছয়টিমাত্র টেস্টে ও নয়টিমাত্র একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করেছেন আমির নাজির। ২৩ এপ্রিল, ১৯৯৩ তারিখে ব্রিজটাউনে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ২২ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৫ তারিখে শিয়ালকোটে সফরকারী শ্রীলঙ্কা দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

টেস্ট ক্রিকেট অভিষেকেই দূর্লভ হ্যাট্রিক লাভের দ্বারপ্রান্তে উপনীত হয়েছিলেন। তবে, ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান আম্পায়ার ক্লাইড কাম্বারব্যাচের দূর্বল সিদ্ধান্তের কারণে এ কৃতিত্বের সাথে নিজেকে জড়াতে পারেননি তিনি। ১৯৯৫ সালে জোহেন্সবার্গে সফররত টেস্টে পাকিস্তানি দল পেস বোলারদের আঘাতপ্রাপ্তিতে জবুথবু অবস্থায় ছিল। ফলশ্রুতিতে, আমির নাজিরকে দলে যুক্ত করা হয়। দলের নাম ঘোষণাকালে তিনি ১৪-ঘণ্টার বিমান ভ্রমণে ছিলেন। খেলা শুরু হবার এক ঘণ্টা পূর্বে বিমান অবতরণ করে। খেলা শুরু হবার ৩৫ মিনিট পর তিনি মাঠে নামেন। বোলিংকালে তাকে কম্পমান অবস্থায় দেখা যায়।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "South Africa v England: Quinton de Kock out, Dane Vilas flies in"। BBC। ১৪ জানুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০১৬ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]