অগ্নি-৫

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অগ্নি-৫
Agni-V during its first test flight.jpg
প্রকার ইন্টারকন্টিনেন্টাল ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র(ICBM)[১][২]
উদ্ভাবনকারী  ভারত
ব্যবহার ইতিহাস
ব্যবহারকাল এখনো স্থাপন করা হয় নি[৩]
উৎপাদন ইতিহাস
নকশাকারী প্রতিরক্ষা গবেষণা ও উন্নয়ন সংগঠন
উৎপাদনকারী ভারত ডায়নামিক লিমিটিড
উৎপাদন
খরচ (প্রতিটি)
৫০ কোটি[৪]
উৎপাদনকাল ১৯ এপ্রিল,২০১২
তথ্যাবলি
ওজন ৫০,০০০ কিলোগ্রাম[৫]
দৈর্ঘ্য ১৭.৫ মিটার[৬]
ব্যাস ২ মিটার

Warhead Strategic nuclear weapon
Warhead weight ১,৫০০ কিলোগ্রাম (৩,৩০০ পা)[১১]

ইঞ্জিন তিন ধাপের কঠিন জ্বালানি
অপারেশনাল
রেঞ্জ
৫০০০ - ৮০০০ কিলোমিটার
গতিবেগ মাচ ২৪ (টার্মিনাল ফেজ)[৭]
নির্দেশনা
পদ্ধতি
Ring laser gyroscope and inertial navigation system, optionally augmented by GPS/IRNSS
Accuracy 10-80 m CEP with terminal guidance[৯][১০]
লঞ্চ
প্লাটফর্ম
৮ গুন ৮ টাট্রা TEL এবং রেল[৮]
Transport সড়ক ও রেল পথ

অগ্নি-৫ হল ভারতের প্রতিরক্ষা গবেষণা ও উন্নয়ন সংগঠন এর তৈরি এটি সলিড ফুয়েল(কঠিন জ্বালানি) এর ইন্টারকন্টিনেন্টাল ব্যালিস্টিক মিশাইল[১২] এটি প্রথম পরিক্ষা করা হয় ঊড়িষার হুইলার দ্বীপে ২০১২ সালের ১৯ এপ্রিল। এটিকে ২০১৪ সালে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে যুক্ত করা হয়। এটি ৫৮০০ কিমি দূরের লক্ষে আঘাত হানতে পাড়ে। এর পরিধির মধ্যে চীন, জাপান, সম্পূর্ণ রাশিয়া, পূর্ব আফ্রিকার দেশ সমূহ, ও পূর্ব ইউরোপ। এই ক্ষেপণাস্ত্র তৈরির সঙ্গে সঙ্গে ভারত ইন্টারকন্টিনেন্টাল ব্যালিস্টার মিশাইল দেশে পরিনত হয়।

অগ্নি -৫ হল অগ্নি সিরিজের অংশ, যা সুসংহত নিয়ন্ত্রিত ক্ষেপণাস্ত্র উন্নয়ন কর্মসূচির অধীনে ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থাগুলির একটি। ডিআরডিও প্রধান ভি.কে সরস্বত প্রথমে অগ্নি-৫ এর সঠিক পরিসর প্রকাশ করতে অস্বীকার করেছিল।[১৩] পরে, তিনি ৫,৫০০-৫,৮০০ কিলোমিটার পরিসীমার ক্ষেপণাস্ত্র হিসেবে অগ্নি-৫ এর বর্ণনা করেছিলেন। চীনের পিএলএ একাডেমি অব মিলিটারি সায়েন্সেসের গবেষক ডু ওয়েনলং গ্লোবাল টাইমসকে বলেছেন যে এই ক্ষেপণাস্ত্রটি প্রায় ৮,০০০ কিলোমিটার (৫,০০০ মাইল) দূরের লক্ষ্য বস্তুকে আঘাত করতে সক্ষম। [১০][১৪][১৫]

মার্কিন বিমানবাহিনীর ন্যাশনাল এয়ার অ্যান্ড স্পেস ইন্টেলিজেন্স সেন্টার অনুমান করে যে ২০১৭ সালের জুন পর্যন্ত কোনও অগ্নি-৫ ক্ষেপণাস্ত্র এখনও কার্যকরীভাবে স্থাপন করা হয়নি। [৩]

উন্নয়ন[সম্পাদনা]

অগ্নি-৫ ক্ষেপণাস্ত্র প্রধানত চীনের বিরুদ্ধে পারমাণবিক প্রতিবন্ধকতা বৃদ্ধির জন্য নির্মিত। সম্প্রতি পর্যন্ত, ভারতের দীর্ঘতম পরিসীমার ক্ষেপণাস্ত্র ছিল অগ্নি-৩, যার পরিসীমা ৩,০০০-৩,৫০০ কিলোমিটার। এই পরিসীমা দ্বারা চীনের পূর্ব ও উত্তর-পূর্ব অঞ্চলে পৌঁছানোর জন্য যথেষ্ট ছিল না। চীনের বেশিরভাগ গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক কেন্দ্র তার পূর্ব সমুদ্র তীরে অবস্থিত।[১০]

সিনিয়র প্রতিরক্ষা বিজ্ঞানী এম. নাটরাজান ২০০৭ সালে প্রকাশ করেছিলেন যে ডিআরডিও অগ্নি-৩ নামে একটি ক্ষেপণাস্ত্রের সংস্করণের কাজ করছে এবং এটি ৪ বছরের মধ্যে প্রস্তুত হবে।[১৬] ক্ষেপণাস্ত্রটি ৫,০০০ কিলোমিটারেরও বেশি (৩,১০০ মাইল) দূরত্বে আঘাত হানতে পারবে।[১৭]

২০১৪ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে চার থেকে পাঁচটি পুনরাবৃত্তিযোগ্য পরীক্ষার পরে ক্ষেপণাস্ত্রটি সেনাবাহিনীতে যুক্ত করা হবে। [১৪][১৮][১৯] ভারতীয় কর্তৃপক্ষ বিশ্বাস করে যে কঠিন-জ্বালানী যুক্ত অগ্নি-৫ বর্তমান হুমকি এবং নিরাপত্তা উদ্বেগ পূরণের বা প্রশমন করার জন্য যথেষ্ট। এমনকি ৫,০০০ কিলোমিটারের পরিধি সহও, অগ্নি-৫ বেইজিং সহ চীনের যে কোনো লক্ষ্য আঘাত করতে পারে। [১৯][২০][২১] ক্ষেপণাস্ত্রের পরিসীমা ভারতের সামরিক বাহিনীকে চীন থেকে দূরে কেন্দ্রীয় ও দক্ষিণ ভারতের অগ্নি-৫ ঘাঁটি থেকে সমগ্র চীনকে লক্ষ্যবস্তু করার করা যাবে। [২২] ক্ষেপণাস্ত্রটি 'ক্যানিস্টার-লঞ্চ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা'র ব্যবহার দ্বারা রাস্তায় সহজে পরিবহনের পরিকল্পিত ছিল যা পূর্ববর্তী অগ্নি ক্ষেপণাস্ত্রগুলির থেকে আলাদা। [৬] অগ্নি-৫ একযোগে উন্নত এমআইআরভি (একাধিক স্বাধীনভাবে লক্ষ্যযোগ্য পুনরায় প্রবেশের যানবাহন) পেলোড বহন করবে। [২৩] একমাত্র এমআইআরভি সজ্জিত ক্ষেপণাস্ত্র বিভিন্ন লক্ষ্যে একাধিক ওয়ারহেড সরবরাহ করতে পারে। [২৩]

আনুমানিক ৫০ টন ওজন (৪৯ দীর্ঘ টন; ৫৫ শর্ট টন) এবং ₹২,৫০০ কোটি টাকার (মার্কিন $ 348 মিলিয়ন মার্কিন ডলার) উন্নয়নের ব্যয় নিয়ে, অগ্নি-৫ উন্নততর ক্ষেপণাস্ত্র প্রযুক্তিগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করে। এই সব প্রযুক্তিগিলির মধ্যে রিভিং লেজার গাইরোস্কোপ এবং নেভিগেশান এবং নির্দেশনার জন্য অ্যাক্সিলেরোমিটার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এটি তৃতীয়-স্তরের পরিবর্তে অগ্নি-৩-এর প্রথম পর্যায়টি গ্রহণ করে এবং তৃতীয় পর্যায়টিকে ক্ষুদ্রতর পর্যায় হিসাবে ব্যবহার করে ৫,০০০ কিলোমিটার (৩,১০০ মাইল) দূরত্ব অতিক্রম করতে সক্ষম হয়। সড়ক পথে পরিবহনের জন্য ক্যান্টার-লঞ্চ ব্যবস্থা ব্মবহার করা হয়, ক্ষেপণাস্ত্রটি অগ্নি সিরিজের আগের প্রজন্মের অগ্নি ক্ষেপণাস্ত্রের তুলনায় সশস্ত্র বাহিনীগুলিকে আরও বেশি কার্যকরী নমনীয়তা দেবে। একটি সূত্র অনুযায়ী, অগ্নি-৫ এবং ৪,৮০০ কিলোমিটার (২,৪০০ মাইল) পাল্লার অগ্নি-৪ (প্রথম নভেম্বর ২০১১ সালে প্রথম পরীক্ষা করা হয়েছিল) এর নির্ভুলতা মাত্রা, নির্দেশনা এবং নেভিগেশান ব্যবস্থা আগের অগ্নি-১ (৭০০ কিমি [৪৩০ মাইল]), অগ্নি-২ (২,০০০ কিলোমিটার [১,২০০ মাইল]) এবং অগ্নি-৩ (৩,০০০ কিলোমিটার [১,৯০০ মাইল]) ক্ষেপণাস্ত্রের তুলনায় অনেক ভালো।[১৯] অগ্নি-৫ এর প্রকল্প পরিচালক টেসি থমাসের মতে, দ্বিতীয় পরীক্ষায় ক্ষেপণাস্ত্রটি (মিসাইলটি) একক সংখ্যার সঠিকতা অর্জন করেছে।[৯]

পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপন[সম্পাদনা]

৩ জুন ২০১৮সালে অগ্নি-৫ একটি ক্যানিস্টার থেকে নিক্ষেপ করা হয়।

পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি[সম্পাদনা]

প্রাক্তন ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী এ. কে. এন্টনি বার্ষিক ডিআরডিও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। প্রতিরক্ষা মন্ত্রী বিজ্ঞানীদের নিকটতম ৫,০০ কিলোমিটার (৩,১০০ মাইল) পরিসীমায় ক্ষেপণাস্ত্রের দক্ষতা প্রদর্শন করতে বলেন।[৬] ডিআরডিওর প্রধান ভি কে সরস্বত ২০১১ সালের মাঝামাঝি টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে বলেন যে ডিআরডিও তিনটি কঠিন প্রপেল্যান্ট কম্পোসিট রকেট মোটর পর্যায় অগ্নি ক্ষেপণাস্তে স্বাধীনভাবে পরীক্ষা করেছিল এবং সমস্ত স্থল পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছিল। ২০১১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে, সরস্বত নিশ্চিত করেছিলেন যে ২০১২ সালে ওড়িশা উপকূলে হুইলার দ্বীপ থেকে প্রথম পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপন পরিচালনা করা হবে।[১৯][২৪]

ফেব্রুয়ারী ২০১২ সালে একটি সূত্র জানায় যে ডিআরডিও পরীক্ষার জন্য প্রায় প্রস্তুত ছিল, কিন্তু ক্ষুদ্রায়ন ও যৌক্তিক সমস্যা ছিল, কারণ মিসাইল মহাসাগর জুড়ে অর্ধেক পথ অতিক্রম করবে, ফলে ইন্দোনেশিয়া এবং অস্ট্রেলিয়ার মতো দেশগুলির পাশাপাশি আন্তর্জাতিক অঞ্চলে আন্তর্জাতিক বায়ু ও সমুদ্রের ট্র্যাফিকের পরীক্ষা উৎক্ষেপনের ১০ দিন আগে সাবধান করতে হয়। তাছাড়া, ভারতীয় নৌবাহিনী, ডিআরডিও বিজ্ঞানীরা ট্র্যাকিং ও পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থার সাথে মিডওয়েওয়ে এবং দক্ষিণাঞ্চলীয় মহাসাগরে যে খানে মিসাইল আঘাত করবে তার কাছাকাছি অবস্থান করতে হয়েছিল।[১৯]

প্রথম পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপন[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপন[সম্পাদনা]

১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৩ সালে ভারতের ওড়িশা রাজ্যের উপকূলে হুইলার দ্বীপ থেকে অগ্নি-৫ একটি দ্বিতীয় পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপন পরিচালিত হয়। ক্ষেপণাস্ত্র সকাল ৮:৫০ টায় ইন্টিগ্রেটেড টেস্ট রেঞ্জ (আইটিআর) এর "উৎক্ষেপন চত্বর-৪" থেকে একটি ক্ষেপণাস্ত্র পরিবহনকারী যান থেকে পরীক্ষা করা হয়। উৎক্ষেপনের পর ২০ মিনিটেরও কম সময়ে ক্ষেপণাস্ত্রটি কয়েক মিটার ত্রুটির সঙ্গে সঠিকতার সাথে ভারত মহাসাগরের প্রাক পরিকল্পিত লক্ষ্যে আঘাত করেছিল।[৯][২৫]

তৃতীয় পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপন[সম্পাদনা]

৩১ জানুয়ারী ২০১৫ সালে, ভারতের হুইল দ্বীপ থেকে অগ্নি-৫ এর তৃতীয় সফল পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপন পরিচালনা করেছিল। পরীক্ষায় ক্ষেপণাস্ত্রের একটি ক্যানিস্টার সংস্করণ ব্যবহার করা হয়েছিল। এটি একটি ক্ষেপণাস্ত্র বহনকারী যানের উপর স্থাপিত ছিল। ইন্টিগ্রেটেড টেস্ট রেঞ্জের ডিরেক্টর এম.ভি.কে.ভি প্রসাদ বলেন, "ক্ষেপণাস্ত্রটির একটি ত্রুটিপূর্ণ 'স্বয়ংক্রিয় উৎক্ষেপন' হয় এবং বিভিন্ন তথ্য বিভিন্ন রাডার এবং নেটওয়ার্ক সিস্টেম থেকে পুনরুদ্ধারের পরে বিস্তারিত ফলাফল জানা যাবে।"[২৬][২৭]

চতুর্থ পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপন[সম্পাদনা]

২৬ ডিসেম্বর ২০১৬ সালে, ওড়িশার হুইলার দ্বীপ থেকে ১১.০৫ টকয় পেক্ষণাস্ত্রে চতুর্থ টেস্ট সফলভাবে পরিচালিত হয়েছিল। এটি ক্ষেপণাস্ত্রের দ্বিতীয় ক্যানিস্টারাইজড পরীক্ষা ছিল এবং কৌশলগত বাহিনী কমান্ড (এসএফসি) এর দ্বারা এখন ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহারকারীর পরীক্ষার জন্য পথ পস্তুত করবে।[২৮][২৯][৩০][৩১]

পঞ্চম পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপন[সম্পাদনা]

২০১৮ সালের ১৮ জানুয়ারি, ওড়িশার হুইলার দ্বীপ বা আব্দুল কালাম দ্বীপ থেকে মিসাইলের একটি পঞ্চম পরীক্ষা সফলভাবে পরিচালিত হয়েছিল সকাল ০৯.৫৩ টায়। এটি সড়ক-মোবাইল লঞ্চার থেকে ক্ষেপণাস্ত্রের তৃতীয়টি পরীক্ষা এবং তার চূড়ান্ত কার্যক্ষম কনফিগারেশনে পরীক্ষা। ক্ষেপণাস্ত্র ১৯ মিনিটের মধ্যে ৪,৯০০ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করেছে।[৩২][৩৩][৩৪]

ষষ্ঠ পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপন[সম্পাদনা]

২০১৮ সালের ৩ জুন, অগ্নি-৫-এর একটি ষষ্ঠতম পরীক্ষা সফলভাবে আব্দুল কালাম দ্বীপ থেকে ০৯.৪৫ টায় অনুষ্ঠিত হয়। [৩৫] এটি ২০১২ সাল থেকে শুরু পরীক্ষামূলক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপনগুলির মধ্যে ষষ্ঠতম ছিল এবং এটি একটি "স্পষ্ট উৎক্ষেপন" ছিল। ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায় যে রাডার, ইলেক্ট্রো ট্র্যাকিং স্টেশন, এবং টেলিম্যাট্রির স্টেশনগুলি অবশ্যই ক্ষেপণাস্ত্রের পুরো যাত্রা পথে নজর রাখে। [৩৬]

বিবরণ[সম্পাদনা]

পরিচালনা[সম্পাদনা]

অগ্নি-৫ একটি তৃতীয়-স্তরীয় কঠিন জ্বালানীযুক্ত ক্ষেপণাস্ত্র যা দ্বিতীয় এবং তৃতীয় পর্যায়ে যৌগিক মোটর আবরণ যুক্ত। [৩৭] অনেক দিক থেকে, অগ্নি-৫ ক্ষেপণাস্ত্র হল অগ্নি-৩ ক্ষেপণাস্ত্রের উন্নত সংস্করন। যৌগগুলি ওজন হ্রাস করার জন্য ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয় এবং তৃতীয় স্তরটি যোগ করা হয় (অগ্নি-৩ একটি দ্বি-স্তরীয় ক্ষেপণাস্ত্র ছিল), যাতে অগ্নি-৫ আন্তঃ মহাদেশীয় পরিসরে উল্লেখযোগ্যভাবে আরো উড়ে যেতে পারে।

২০ এপ্রিল ২০১২ সালে অগ্নি-৫ এর প্রথম উৎক্ষেপণ পরীক্ষা করা হয়। এই পরিক্ষায় অগ্নি-৫ মোট সময় ১১৩০ সেকেন্ডের জন্য উড়েছিল ছিল। প্রথম পর্যায় ৯০ সেকেন্ডের জন্য জ্বলেছিল।[৩৮]

চলাচল[সম্পাদনা]

২০১৩ সালে প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজ অনুশীলন চলাকালীন একটি রোড-মোবাইল গাড়িতে আগ্নি-৫।

এএসএল এর পরিচালক, অবিনাশ চন্দর ব্যাখ্যা করেন, যে "অগ্নি-৫ বিশেষভাবে রাস্তায় পরিবহনের জন্য উপযোগী"। "ক্যানিস্টার সফলভাবে উন্নত হয়ে যাওয়ার সাথে সাথে, ভবিষ্যতে ভারতের সকল ভূমি ভিত্তিক কৌশলগত ক্ষেপণাস্ত্রগুলিও পরিবহন করা সহজ হবে।"[৩৯] ক্ষেপণাস্ত্র একটি ক্যান্সার ব্যবহার করবে এবং এটি থেকে উৎক্ষেপন করা যাবে। মার্জিং ইস্পাত দ্বারা তৈরির জন্য, একটি ক্যানিস্টার অবশ্যই কয়েক বছর ধরে ক্ষেপণাস্ত্রকে সুরক্ষিত করে এমন একটি হরম্যাটিক সিল পরিবেশ সরবরাহ করবে। ৫০ টন (৪৯ দীর্ঘ টন; ৫৫ শর্ট টন) ক্ষেপণাস্ত্র নির্গত করার জন্য ৩০০ থেকে ৪০০ টন (৩০০ থেকে ৩২০ দীর্ঘ টন; ৩৩০ থেকে ৪৪০ শর্ট টন) ধাক্কা বা টান উৎপাদনের জন্য ক্যানিস্টারকে প্রচুর চাপ দিতে হবে।[৩৯]

যদি ক্ষেপণাস্ত্র থেকে গ্যাস জেনারেটর ব্যবহার করে ক্ষেপণাস্ত্রটি বের করে আনা হয় তবে মিসাইলটি প্রাক-নির্মিত উৎক্ষেপন স্থানের কোনও প্রয়োজন ছাড়াই প্রাক-জরিপ করা উৎক্ষেপন অবস্থান থেকে চালু হতে পারে।[১০]

ট্রান্সপোর্ট-কাম-টিল্টিং ভেকেল ৫ বা পরিবহন-সহ-বাঁকানো যান-৫ নামে পরিচিত লঞ্চার একটি ১৪০-টন ওজন, ৩০-মিটার দীর্ঘ এবং ৭-এক্সেল ট্রেলার। ট্রেলারটিকে ৩-এক্সেল বিশিষ্ট ভলভো ট্রাক (ডিআরডিও নিউজলেটার ০১৪) দ্বারা টেনে নেওয়া হয়। ক্যানিস্টার নকশা "প্রতিক্রিয়া সময়কে অতিমাত্রায় কমাবে ... স্টপ-টু-লঞ্চ থেকে মাত্র কয়েক মিনিট,[২২] দূরে থাকবে ক্ষেপণাস্ত্রটি।

এন্টি উপগ্রহ সংস্করণ[সম্পাদনা]

ভি.কে. সরস্বত বলেন, অগ্নি-৫ ক্ষেপণাস্ত্রকে এএসএটি ক্ষেপণাস্ত্র হিসাবে ব্যবহার প্রযুক্তিগত ভাবে সম্ভব। এএসএটি অস্ত্র হতে হলে ৮০০ কিমি উচ্চতায় পৌঁছাতে হবে। অগ্নি-৫ উন্নততর সন্ধানকারীদের সাথে বুস্টিং ক্ষমতা এবং 'কিল গাড়ি' সরবরাহ করে। এই ক্ষেপণাস্ত্রটি কৃত্রিম উপগ্রহে আঘাত হানতে সক্ষম হতে পারবে।[১০]

এমআইআরভি'এস[সম্পাদনা]

ভবিষ্যতে, অগ্নি-৫ একাধিক স্বাধীনভাবে লক্ষ্য নির্ধারনযোগ্য পুনর্নবীকরণ যানবাহন (এমআইআরভি) সমন্বিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে, প্রতিটি ক্ষেপণাস্ত্র ২-১০ টি পৃথক পারমাণবিক ওয়ারহেড বহন করতে সক্ষম।[৪০] প্রতিটি ওয়ারহেড দ্বারা কয়েক কিলোমিটারের দূরত্বে পৃথক পৃথক লক্ষ্য নির্ধারণ করা যাবে; বিকল্পভাবে, দুই বা ততোধিক ওয়ারহেড দ্বারা এক লক্ষ্যে আঘাত করা যাবে।[৩৯] ডিআরডিও সূত্র জানায়, একটি এমআইআরভি পেলোড উল্লেখযোগ্যভাবে ভারী হবে, কারণ এতে বেশ কয়েকটি পারমানবিক ওয়ারহেড রয়েছে, যার মধ্যে প্রত্যেকে ৪০০ কিলোগ্রাম ওজনের। একটি ৫টি-ওয়ারহেড এমআইআরভি এর ওজন হবে দুই টন। [১০]

পরীক্ষার প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

অভ্যান্তরীন[সম্পাদনা]

ভারতে, অগ্নি-৫ ক্ষেপণাস্ত্র সাফল্যের সাথে উৎক্ষেপন করে অনেক প্রশংসা এবং সংবাদ মাধ্যমে ব্যাপক প্রচার পেয়েছিল। তারপর ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং একটি বিবৃতি দিয়ে ডিআরডিওকে অভিনন্দন জানান: "আমি আমাদের দেশের প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা জোরদার করার প্রচেষ্টায় ডিআরডিও এবং অন্যান্য সংস্থার সকল বৈজ্ঞানিক ও কারিগরি কর্মীদের অভিনন্দন জানাচ্ছি। আজকে অগ্নি-৫ ক্ষেপণাস্ত্রের সফল উৎক্ষেপন আমাদের নিরাপত্তা এবং প্রস্তুতির বিশ্বাসযোগ্যতার যোগান এবং বিজ্ঞানের বিভিন্ন সীমানাগুলিতে ক্রমাগত অনুসন্ধানের লক্ষ্যে আমাদের মাইলফলকের প্রতিনিধিত্ব করে। দেশ গর্বিত বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায়ের সম্মানের সঙ্গে একসাথে দাঁড়িয়েছে। "[৪১] মিসাইল প্রোগ্রাম ডিরেক্টর অবিনাশ চন্দর মন্তব্য করেছেন যে এই উৎক্ষেপন "বৃহত্তর ক্ষেপণাস্ত্র উন্নয়ন কর্মসূচিতে" ভারত দ্বারা গৃহীত বিশাল পদক্ষেপ।[৪২] প্রতিরক্ষা মন্ত্রী এ.কে এন্টনি অভিনন্দন জানান ডক্টর ভি.কে সরস্বত ও ডিআরডিও দলের কর্মসূচি পরিচালক ড. আভিনাশ চন্দরকে এবং বলেন, "অগ্নি-৫ এর অসাধারণ সাফল্য দেশের ক্ষেপণাস্ত্র গবেষণা ও উন্নয়ন কর্মসূচির একটি বড় মাইলফলক।" [৪৩][৪৪] সাবেক পররাষ্ট্র সচিব কানওয়াল সিবল ভারতে লিখেছেন, "বাস্তবে, আত্মনিয়ন্ত্রণ ও শান্তি স্থাপনের সময় আমাদের নীতিগুলি চিহ্নিত করে, আমরা শান্তি পছন্দ করি কারণ আমরা আমাদের দুর্বলতা এবং সামরিক প্রস্তুতির অভাব সম্পর্কে সচেতন। [..] চীন, যে কোন ক্ষেত্রে এমনকি লম্বা পরিসীমা সহ মিসাইলর ক্ষেত্রে এগিয়ে। আগেই ভারতের ক্ষেপণাস্তগুলি চীনা ক্ষেপণাস্ত্রগুলির পক্ষে দুর্বল ছিল এবং এখন সমগ্র চীন ভারতের ক্ষেপণাস্ত্রে পরিসীমার অন্তর্গত, এই প্রতিরোধে আরও ভাল ভারসাম্য তৈরি করবে। "[৪৫]

আন্তর্জাতিক সংস্থা[সম্পাদনা]

  • ন্যাটো - ন্যাটোর মহাসচিব অ্যান্ডার্স ফগ রাসমুসেন বলেছেন যে মিসাইল প্রযুক্তিতে ভারতের অগ্রগতি সত্ত্বেও তারা মনে করে না যে ভারত একটি ক্ষেপণাস্ত্র হুমকি ন্যাটো ও তার সহযোগীদের জন্য।[৪৬]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Rajat Pandit (১৭ নভেম্বর ২০১১)। "Eyeing China, India to enter ICBM club in 3 months"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১২ 
  2. Rahul Datta (৮ অক্টোবর ২০১১)। "With Russian help, India to enter ICBM club soon"Dailypioneer। সংগ্রহের তারিখ ২০ এপ্রিল ২০১২ 
  3. http://www.nasic.af.mil/LinkClick.aspx?fileticket=F2VLcKSmCTE%3d&portalid=19
  4. "India has all the building blocks for an anti-satellite capability"India today। সংগ্রহের তারিখ ১২ আগস্ট ২০১২ 
  5. T.S. Subramanian (২৩ জুলাই ২০১১)। "Preparations apace for Agni V launch"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১২ 
  6. "DRDO plans to test 10 missiles this year"The Times of India। ২৭ জানুয়ারি ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৯ অক্টোবর ২০১১ 
  7. Raj Chengappa (১৬ এপ্রিল ২০১২)। "India's most potent missile Agni V all set for launch"The Tribune। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১২ 
  8. Y. Mallikarjun, Agni-V design completed; to be test-fired in 2010, The Hindu, 27 November 2008
  9. "Agni-V vital: Tessy Thomas"The Hindu। ২ অক্টোবর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৩ অক্টোবর ২০১৩ 
  10. http://capsindia.org/files/documents/ISSUE-BRIEF_49_LONGER-REACH-AND-ENABLING-MORE-OPERATIONS_30-April-2012.pdf
  11. Rajat Pandit (২০ এপ্রিল ২০১২)। "Canister storage gives N-capable Agni-V missile flexibility"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০ এপ্রিল ২০১২ 
  12. "Pakistan tests missile that could carry nuclear warhead to every part of India" 
  13. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Deccan নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  14. "Missile defence system ready for induction: DRDO chief"IndianExpress news service। ২৮ এপ্রিল ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০১২ 
  15. Times, Global। "India successfully tests Agni-V intercontinental missile - Global Times"www.globaltimes.cn। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-১৩ 
  16. Press Trust of India। "Next variant of Agni to be inducted within 4 years: Scientist"। সংগ্রহের তারিখ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০০৭ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ][অকার্যকর সংযোগ]
  17. "Don't Even Think About It"Foreign-policy। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  18. "DRDO Lab Develops Detonator for Nuclear Capable Agni-V Missile As It Gets Ready For Launch"Defencenow। ১৭ জানুয়ারি ২০১২। ২২ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  19. Rajat, Pandit (২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২)। "Decks cleared for first test of 5000-km range Agni-V missile"Times of India। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০১২ 
  20. http://www.nti.org/learn/countries/india/delivery-systems/
  21. Chand, Naresh (জুন–জুলাই ২০১২)। "India's Strategic Deterrence Reaches New Heights"SP's Land Forces9 (9): 11। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মে ২০১৩ 
  22. Kristensen, Hans M.; Norris, Robert S.। "Indian nuclear forces, 2017"Bulletin of the Atomic Scientists73 (4): 205–209। doi:10.1080/00963402.2017.1337998। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৭ 
  23. "No intention to cap missile plan"Business Standard। সংগ্রহের তারিখ ২১ এপ্রিল ২০১২ 
  24. Agni-5 demo in February 2012. Ibnlive.in.com. 22 October 2011. Retrieved 20 April 2012.
  25. "India test-fires Agni V with range as far as China"Hindustan Times। ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৩। ২৪ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ অক্টোবর ২০১৩ 
  26. "Agni 5, India's Longest Range Ballistic Missile, Successfully Test-Fired"The Arunachal Times। ৩১ জানুয়ারি ২০১৫। ৩১ জানুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  27. Y. Mallikarjun; T. S. Subramanian (৩১ জানুয়ারি ২০১৫)। "Agni-V's maiden canister trial a roaring success"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  28. "India successfully test-fires nuclear capable Agni-V - Times of India"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-২৬ 
  29. "India successfully test-fires nuclear-capable Agni 5 ballistic missile"www.hindustantimes.com। ২০১৬-১২-২৬। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-২৬ 
  30. "Successful test firing of India's most potent missile Agni 5, paves way for induction in Strategic Forces Command"The Economic Times। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-২৬ 
  31. "India successfully test fires Agni-V missile for a reduced range"The New Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-২৬ 
  32. "India test-fires nuclear-capable ICBM Agni-V - Times of India"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-১৮ 
  33. "Press Information Bureau"www.pib.nic.in (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-১৮ 
  34. Gurung, Shaurya Karanbir (২০১৮)। "India successfully test-fires nuclear-capable Agni-5 ballistic missile"The Economic Times। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-২১ 
  35. "Agni-5 missile Successfully Tested"pib.nic.in। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-০৩ 
  36. Cebul, Daniel (৭ জুন ২০১৮)। "What tech was used in India's nuclear-capable ICBM test launch?"Defense News 
  37. Ajai Shukla (২১ এপ্রিল ২০১২)। "No intention to cap missile plan"Business Standard। সংগ্রহের তারিখ ২১ এপ্রিল ২০১২ 
  38. Rajat Pandit (২০ এপ্রিল ২০১২)। "Canister storage gives N-capable Agni-V missile flexibility"Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০ এপ্রিল ২০১২ 
  39. "What makes 5000 km range Agni-5 missile deadlier"। News.rediff.com। ১২ অক্টোবর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০ অক্টোবর ২০১১ 
  40. "India test fires ICBM Agni V"। IndiaVoice। ১৯ এপ্রিল ২০১২। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ এপ্রিল ২০১২ 
  41. CNN IBN: Agni-V missile test-fired: PM congratulates DRDO. Ibnlive.in.com (10 May 2011). Retrieved 20 April 2012.
  42. "Agni-V, capable of reaching China, test-fired successfully"Press Trust of IndiaThe Times of India। ১৯ এপ্রিল ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১২ 
  43. "Agni-5's launch is a major milestone, defence minister A K Antony says"The Times of IndiaPress Trust of India। ১৯ এপ্রিল ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১২ 
  44. "अग्नि-5: पी-5 क्लब का एंट्री टिकट!"Dainik Jagranjagran.com। Jagran Bureau। ২০ এপ্রিল ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২০ এপ্রিল ২০১২ 
  45. Sibal, Kanwal (২৩ এপ্রিল ২০১২)। "Agni V a positive step on security"dailymail। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০১২ 
  46. "India poses no missile threat: NATO"Indo-Asian News Network। First Post। ১৯ এপ্রিল ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]