অগ্নি-৩

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অগ্নি-৩
Agni-3 test launch (cropped).jpg
২০১২ সালের ২১শে সেপ্টেম্বর অগ্নি-৩ ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিত হয়েছিল
প্রকার মধ্যবর্তী পরিসীমার ব্যালিস্টিক মিসাইল
উদ্ভাবনকারী ভারত
ব্যবহার ইতিহাস
ব্যবহারকাল সক্রিয়[১]
ব্যবহারকারী স্ট্রাটেজিক ফোর্সেস কম্যান্ড
উৎপাদন ইতিহাস
নকশাকারী প্রতিরক্ষা গবেষণা ও উন্নয়ন সংস্থা
উৎপাদনকারী ভারত ডায়নামিক্স লিমিটেড
উৎপাদন
খরচ (প্রতিটি)
২৫০ মিলিয়ন (US$৩ মিলিয়ন)৩৫০ মিলিয়ন (US$৫ মিলিয়ন)[২]
তথ্যাবলি
ওজন ৫০,০০০ কেজি[৩]
দৈর্ঘ্য ১৭ মি[৪]
ব্যাস ২.০ মি[৪]

Warhead প্রচলিত, থার্মোবারিক, কৌশলগত পারমাণবিক অস্ত্র

ইঞ্জিন সলিড প্রোপেল্যান্ট মাল্টিস্টেজ রকেট ইঞ্জিন
প্রপেল্যান্ট হাইড্রোক্সিল-টারমিনেটেড পলিবুটাডাইন[৫]
অপারেশনাল
রেঞ্জ
৩,৫০০ কিমি – ৫,০০০ কিমি[৭]
ফ্লাইট উচ্চতা > ৪৫০ কিমি[৯]
গতিবেগ ৫–৬ কিমি/সেকেন্ড [৬]
নির্দেশনা
পদ্ধতি
রিং লেজার জাইরো- আইএনএস (আন্তঃ ন্যাভিগেশন সিস্টেম), ঐচ্ছিকভাবে জিপিএস দ্বারা বাড়ানো হয়েছে, ইমেজিং ইনফ্রারেড, অ্যাক্টিভ রাডার টার্মিনাল পারস্পরিক সম্পর্ক[৮]
স্টিয়ারিং
পদ্ধিত
ফ্লেক্স-অগ্রভাগ থ্রাস্ট ভেক্টরিং (প্রথম এবং দ্বিতীয় স্তর)[৫]
লঞ্চ
প্লাটফর্ম
৮ × ৮ টিইএলএআর (ট্রান্সপোর্টার ইরেক্টর লঞ্চার) রেল মোবাইল লঞ্চার

অগ্নি-৩ (আইএএসটি (সংস্কৃত লিপ্যন্তরের আন্তর্জাতিক বর্ণমালা): Agnī, ("আগুন", এছাড়াও বৈদিক হিন্দুধর্ম তে আগুনের দেবতা) হল ভারতের তৈরি একটি মধ্যবর্তী পরিসীমার ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র। এটি অগ্নি-২ এর পরবর্তী পর্যায় হিসাবে বিকাশিত।[৭] এটির আক্রমনের পরিসীমা ৩,৫০০ কিলোমিটার - ৫,০০০ কিলোমিটার,[১০] এবং প্রতিবেশী দেশগুলির ভিতরে গভীরে আক্রমন করতে সক্ষম,[১১] এর মধ্যে চিনের সাংহাইও পড়ে।[১২] ক্ষেপণাস্ত্রটির বৃত্তীয় সম্ভাব্য ত্রুটি (সিইপি) ৪০ মিটার সীমার মধ্যে, এর ফলে পরিষেবার ক্ষেত্রে এটি বিশ্বের সর্বাধিক পরিশীলিত এবং নির্ভুল ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র হিসেবে পরিগণিত।[১৩] ২০১১ সালের জুনে জানা গিয়েছিল যে অগ্নি-৩ সশস্ত্র বাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে এবং এর উৎপাদন চলছে।[১৪] ইউনাইটেড স্টেটস এয়ার ফোর্স জাতীয় বিমান ও মহাকাশ গোয়েন্দা কেন্দ্র অনুমান করে যে জুন ২০১৭ পর্যন্ত ১০ টিরও কম উৎক্ষেপক কার্যকরভাবে মোতায়েন করা হয়েছিল।[১৫]

ভূমিকা[সম্পাদনা]

ভারতের বিশ্বাসযোগ্য ন্যূনতম বিপর্যয় (প্রথম আক্রমণ না করে একটি নিশ্চিত দ্বিতীয় আক্রমনের ক্ষমতা) পাল্টা আক্রমন করার সামর্থ্যটি একটি পারমাণবিক ত্রিভুজ পরিকল্পনায় শক্তিশালী প্রতি আক্রমন করার ক্ষমতার জন্য একটি দীর্ঘ পরিসরের ক্ষেপণাস্ত্রের প্রয়োজন ছিল। এমন একটি ক্ষেপণাস্ত্র পদ্ধতি যা ভারতের মূল ভূখণ্ডে দূর-দূরান্তে ছড়িয়ে দেওয়া যায়, এর সুদূর প্রবাহ দ্বীপ বা তার নীল জলের নৌ সম্পদগুলি বিশ্বের মহাসাগরগুলিতে ছড়িয়ে পড়ে। এই প্রয়োজনীয়তা অনুসরণ করে ভারত বৃহত্তর অগ্নি-৩ ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করেছে, যার ভারী পরিবহন ক্ষমতা এবং দীর্ঘ পরিসীমা থাকবে, কিন্তু আকৃতি হবে ঘনবিন্যস্ত, অর্থাৎ সেটি হবে মোটা তবে দৈর্ঘ্যে খাটো। এই বিকাশ আরও নিশ্চিত প্রত্যাঘাতের প্রয়োজনে করা হয়েছে যা আসতে থাকা অ্যান্টি-ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (এবিএম) প্রতিরক্ষা এবং পাল্টা পদক্ষেপগুলিকে পরাস্ত করতে পারে। এই ধরনের ক্ষমতার জন্য একটি ঘনবিন্যস্ত ক্ষেপণাস্ত্র প্রয়োজন, যেটি অস্ত্র সহ এবিএম এর পাল্টা-প্রত্যাঘাত পরিমাপের অস্ত্র বহন করতে পারে, একটি এমআইআরভি (একাধিক স্বতন্ত্রভাবে লক্ষ্যবস্তুযুক্ত পুনরায় প্রবেশের বাহন) এর অনুরূপ আকৃতিতে, এবং অত্যাধুনিক ছদ্মবেশ ধারণের ক্ষমতা সম্পন্ন।

বিবরণ[সম্পাদনা]

অগ্নি-২ এর পরবর্তী পদক্ষেপ হিসেবে অগ্নি-৩ তৈরি করা হয়েছিল।[৭] ভারত সরকারের প্রতিরক্ষা গবেষণা ও উন্নয়ন সংস্থা (ডিআরডিও), দ্বারা নকশাকৃত অগ্নি-৩ একটি দ্বি-পর্যায় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র যা পারমাণবিক অস্ত্র সরবরাহ করতে সক্ষম। ডিআরডিওর একটি গবেষণাকেন্দ্র, অ্যাডভান্সড সিস্টেম ল্যাবরেটরি (এএসএল),[১৬] এটির নির্মাণ ও বিকাশ করেছিল। এটি ২০০১ এর সেপ্টেম্বরে গঠিত হয়েছিল যার মূল লক্ষ্যটি ছিল বৃহৎ আকারের রকেট মোটরগুলির বিকাশ। প্রোপেলান্ট ঢালাইয়ের জন্য অবকাঠামো সহ কঠিন জ্বালানী মোটরগুলির জন্য প্রপালশন প্ল্যান্টটি, এএসএল তৈরি করে। দৃঢ় দ্বি-পর্যায়ের শক্ত জ্বালানী ক্ষেপণাস্ত্রটি বিভিন্ন পৃষ্ঠ/উপ-পৃষ্ঠের তলগুলিতে সহজ গতিশীলতা এবং নমনীয় স্থাপনার জন্য ঘনসন্নিবদ্ধ এবং যথেষ্ট ছোট।[১৭]

ক্ষেপণাস্ত্রটি উৎক্ষেপকস্থিত উন্নত কম্পিউটার সিস্টেমের সাথে পরিশীলিত পথ প্রদর্শন, দিক নির্দেশন এবং নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থায় সজ্জিত। বৈদ্যুতিন ব্যবস্থাগুলি উচ্চতর কম্পন, তাপ এবং শব্দের প্রভাবকে সহ্য করার ক্ষমতা সম্পন্ন করে তৈরি করা হয়েছে। ফেব্রুয়ারি ২০১০-য়ে অগ্নি-৩ এর পরীক্ষা চলাকালীন একটি উচ্চ দক্ষতার দেশীয় রিং লেজার জাইরো-ভিত্তিক পথ প্রদর্শন পদ্ধিতিটি প্রথমবারের জন্য উড়ান চলাকালীন করা হয়েছিল।[১৮]

অগ্নি-৩ এর দুই মিটার সামগ্রিক ব্যাস যুক্ত দুটি পর্যায় রয়েছে। প্রাথমিকভাবে, প্রথম পর্যায়ের ভর প্রায় ৩২ টন এবং দৈর্ঘ্য ৭.৭ মিটার ছিল, দ্বিতীয় পর্যায়ে ভর ছিল প্রায় ১০ টন এবং দৈর্ঘ্য ৩.৩ মিটার। ক্ষেপণাস্ত্রটির বোমার আকৃতির বিস্তৃত অংশকে সমর্থন করার কথা, ৪,৫০০ কিলোমিটার পরিসীমা এবং মোট বহনক্ষমতা ২৪৯০ কেজি সহ।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Subramanian, T.S. (২০০৬)। "Agni-V next"Frontline, The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০১২ 
  2. "Technical tune to Agni test before talks"। Calcutta, India: The Telegraph। ৩০ আগস্ট ২০০৪। ১১ ডিসেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১২-১৩ 
  3. "India successfully test fires nuclear-capable Agni III ballistic missile"The Indian Express। PTI। ১৬ এপ্রিল ২০১৫। 
  4. "India tests long-range nuclear-capable Agni-III missile"। Yahoo News। ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০২-০৭ 
  5. Brügge, Norbert। "India's solid-fuel ballistic missile-family "Agni""Presentation of Space Launch Vehicles। ৮ ডিসেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ নভেম্বর ২০১৫ 
  6. Vishwakarma, Arun (১ জুলাই ২০০৭)। "Indian Long Range Strategic Missiles" (PDF)Lancer Publishers and Distributors। ২৯ নভেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১২-১৩ 
  7. "Agni-III test fired by India"। The Indian Express। ১৩ জুলাই ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৬-০৭-০৯ 
  8. https://missilethreat.csis.org/missile/agni-3/
  9. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; hindu102369 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  10. "Agni-3"। MissileThreat। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১০-২০ 
  11. "Agni – India Missile Special Weapons Deilivery System"। Federation of American Scientists। ১৬ এপ্রিল ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৫-১৬ 
  12. https://missilethreat.csis.org/missile/agni-3/#en-492-5
  13. "Successful Agni-III missile tests provide India with a credible deterrent, boost for DRDO"। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  14. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; TH নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  15. Ballistic and Cruise Missile Threat (প্রতিবেদন)। Defense Intelligence Ballistic Missile Analysis Committee। জুন ২০১৭। পৃষ্ঠা 25। NASIC-1031-0985-17। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুলাই ২০১৭ 
  16. "Laboratories of DRDO"। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  17. "New kid on the nuclear block"The Hindu। Chennai, India। ১৮ নভেম্বর ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ৪ ডিসেম্বর ২০১১ 
  18. PTI (৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। "Nuclear-capable Agni-III missile successfully tested"rediff.com। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০১২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Indian missiles টেমপ্লেট:Defence Research and Development Organisation (DRDO)