হ্যারি মোজেস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হ্যারি মোজেস
হ্যারি মোজেস.jpg
আনুমানিক ১৯৩৮ সালের পূর্বেকার স্থিরচিত্রে হ্যারি মোজেস
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামহেনরি মোজেস
জন্ম১৩ ফেব্রুয়ারি, ১৮৫৮
উইন্ডসর, নিউ সাউথ ওয়েলস, অস্ট্রেলিয়া
মৃত্যু৭ ডিসেম্বর, ১৯৩৮
স্ট্রাথফিল্ড, নিউ সাউথ ওয়েলস, অস্ট্রেলিয়া
ব্যাটিংয়ের ধরনবামহাতি
বোলিংয়ের ধরন
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৪৫)
২৮ জানুয়ারি ১৮৮৭ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট১ ফেব্রুয়ারি ১৮৯৫ বনাম ইংল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৪৮
রানের সংখ্যা ১৯৮ ২৮৯৮
ব্যাটিং গড় ১৯.৮০ ৩৫.৭৭
১০০/৫০ ০/০ ৪/১৫
সর্বোচ্চ রান ৩৩ ২৯৭*
বল করেছে ৮৮
উইকেট
বোলিং গড় ৫২.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/১৯
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/- ২৫/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

হেনরি হ্যারি মোজেস (ইংরেজি: Harry Moses; জন্ম: ১৩ ফেব্রুয়ারি, ১৮৫৮ - মৃত্যু: ৭ ডিসেম্বর, ১৯৩৮) নিউ সাউথ ওয়েলসের উইন্ডসর এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন।[১] অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৮৮৭ থেকে ১৮৯৫ সময়কালে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটে নিউ সাউথ ওয়েলস দলের প্রতিনিধিত্ব করেন হেনরি মোজেস নামে পরিচিত হ্যারি মোজেস। দলে তিনি মূলতঃ বামহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৮৮১-৮২ মৌসুম থেকে ১৮৯৪-৯৫ মৌসুম পর্যন্ত হ্যারি মোজেসের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ১৮৮১-৮২ মৌসুম থেকে ১৮৯৪-৯৫ মৌসুম পর্যন্ত নিউ সাউথ ওয়েলসের পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন। তন্মধ্যে, ভিক্টোরিয়ার বিপক্ষে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ অপরাজিত ২৯৭ রানের ইনিংস খেলেছিলেন তিনি।[২] ১৮৭৭-৮৮ মৌসুমের শীর্ষস্থানীয় রান সংগ্রাহকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন তিনি। একই মৌসুমে সফররত ইংরেজ দলের বিপক্ষে ৫৮ ও ১০৯ রানের মনোজ্ঞ ইনিংস উপহার দিয়েছিলেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে ছয়টিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন হ্যারি মোজেস। ২৮ জানুয়ারি, ১৮৮৭ তারিখে সিডনিতে সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ১ ফেব্রুয়ারি, ১৮৯৫ তারিখে একই মাঠে ও একই দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি। তবে, ব্যবসায়িক দায়বদ্ধতার কারণে ইংল্যান্ড গমন করতে পারেননি।[৩] ১৮৮৬-৮৭ মৌসুমে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ব্যক্তিগত প্রথম দুই টেস্টে বেশ ভালো খেলেন। নিম্নমুখী রানের খেলায় ৩১, ২৪, ২৮ ও ৩৩ রান করেছিলেন হেনরি মোজেস।

খেলার ধরন[সম্পাদনা]

রক্ষণাত্মক বামহাতি ব্যাটিংয়ের অধিকারী ছিলেন অসম্ভব ধৈর্য্য শক্তির বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছেন তিনি। তবে, কিছুসংখ্যক ক্রিকেটবোদ্ধাদের অভিমত, বিখ্যাত ক্রিকেটার বিলি মারডকের সমতুল্য ছিলেন তিনি। তবে, অস্ট্রেলীয় ঘরোয়া ক্রিকেটে প্রতিভার তেমন বিচ্ছুরণ ঘটাতে পারেননি। কমপক্ষে ছয়বার ইংল্যান্ড গমনের উদ্দেশ্যে অস্ট্রেলিয়া দলের সদস্যরূপে মনোনীত করা হয়েছিল। কিন্তু কোনবারই সুযোগ করে নিতে পারেননি তিনি।

ক্রিকেট খেলা থেকে অবসর গ্রহণের পর এসসিজি ট্রাস্টিতে অনেকগুলো বছর দায়িত্ব পালন করেছিলেন তিনি। ৭ ডিসেম্বর, ১৯৩৮ তারিখে ৮০ বছর বয়সে নিউ সাউথ ওয়েলসের স্ট্রাথফিল্ড এলাকায় হ্যারি মোজেসের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Australia – Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  2. New South Wales v Victoria 1887–88
  3. Christopher Martin-Jenkins, The Complete Who's Who of Test Cricketers, Rigby, Adelaide, 1983, p. 239.

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]