হাসিনা মমতাজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হাসিনা মমতাজ
স্থানীয় নাম
হাসিনা মমতাজ
জন্ম
বাসস্থানলন্ডন, ইংল্যান্ড
জাতীয়তাব্রিটিশ
শিক্ষাবিএসসি আন্তর্জাতিক সম্পর্ক, আইন এবং সমাজবিজ্ঞান
যেখানের শিক্ষার্থীলন্ডন স্কুল অব ইকোনমিক্স এবং রাষ্ট্র বিজ্ঞান
পেশাপ্রেস আধিকারিক, ঘোষক, সংবাদ উপস্থাপক, সাংবাদিক
কার্যকাল২০০৩–বর্তমান
উপাধিএলজিএ (লোকাল গভর্নমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন) এর সংবাদ ও গণমাধ্যমে উপ অধিকর্তা
সন্তানএকটি
পিতা-মাতাহাজি মহম্মদ আমিরুজ জামান (বাবা)

হাসিনা মমতাজ (বাংলা: হাসিনা মমতাজ) একজন ব্রিটিশ সংবাদ উপস্থাপক, গণমাধ্যম ও যোগাযোগ বিশেষজ্ঞ এবং ২০০৩ - ২০১১ লন্ডনের মেয়রের প্রাক্তন প্রেস আধিকারিক

প্রথম জীবন[সম্পাদনা]

মমতাজ পূর্ব পাকিস্তানের (অধুনা বাংলাদেশ) সিলেট বিভাগের সিলেট জেলার অন্তর্গত বিয়ানীবাজারে জন্মগ্রহণ করেন এবং পাঁচ বছর বয়সে ইংল্যান্ডের লন্ডনে চলে আসেন।[১] তার বাবা ছিলেন ব্যবসায়ী হাজি মহম্মদ আমিরুজ জামান, তিনি ২০০৪ সালে মারা যান। তারা পাঁচ ভাইবোন।[২]

মমতাজ তিনটি এ-লেভেল করে কলেজ ছাড়েন।[২] তিনি আন্তর্জাতিক সম্পর্ক এবং আইন ও সমাজবিজ্ঞান বিষয়ে সাম্মানিক সহ স্নাতক বিএসসি পাস করেন লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিক্স এবং রাষ্ট্র বিজ্ঞান থেকে।[১] ২০০৮ সালে, তিনি চার্টার্ড ইনস্টিটিউট অব পাবলিক রিলেশনস (সিআইপিআর) থেকে ডিপ্লোমা পাস করেন।[২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

মমতাজ একজন যোগাযোগ, গণমাধ্যম সম্পর্ক এবং অংশীদারি নিযুক্তি বিশেষজ্ঞ।[১] রাজনৈতিকভাবে কৌশলগত এবং সক্রিয় উভয় বিভাগেই জটিল এবং দ্রুত-পরিবর্তনশীল জাতীয়, আঞ্চলিক ও স্থানীয় সরকারি পরিবেশে তার দশ বছরের অভিজ্ঞতা।[২]

২০০৩ সালের এপ্রিল থেকে, মমতাজ, লন্ডনের শাসনব্যবস্থাকে আট বছর ধরে তাদের সদরদপ্তর সিটি হলে পরামর্শ দিয়েছেন, লন্ডনের মেয়র কেন লিভিংস্টোনকে কৌশলগত এবং সক্রিয় গণমাধ্যম সম্পর্ক বিষয়ে পাঁচ বছর ধরে পরামর্শ দিয়েছেন। ২০০৮ সালে বরিস জনসন দায়িত্ব নেওয়ার পর, তিনি সিটি হল থেকে, ২০১১ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জনসন ও তার প্রশাসনকে পরামর্শ দেন।[৩]

গ্রেটার লন্ডন অথরিটি (জিএলএ) তে থাকাকালীন, মমতাজ অভীষ্ট বিস্তৃত গণমাধ্যম বিষয়ে কৌশল প্রণয়ন ও কার্যকর করতেন, মেয়রকে তার সাক্ষাৎকার বিষয়ে, উচ্চ পদস্থ পুলিশ অধিকর্তা এবং অপরাধ বিষয়ে, সংবেদনশীল সম্প্রদায় নিযুক্তি বিষয়ে পরামর্শ দিতেন। পাশাপাশি মেয়রকে এবং তার শীর্ষ দলকে নিয়মিত বিবরণ পেশ করতেন।[১] সিটি হলে থাকাকালীন, তিনি, বৃহত্তম জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ বিষয়ে পরামর্শদানকারী দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন। সংবাদগুলির মধ্যে ছিল ৭ই জুলাই ২০০৫ এর লন্ডন বোমা হামলা,[৩] গুলিচালনায় জিন চার্লস ডি মেনেজেসের মৃত্যুর তদন্তে আইপিসিসি এবং ২০০৮ সালে লন্ডন মেয়র নির্বাচনের পর প্রশাসনের পরিবর্তন।[১]

২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে, লোকাল গভর্নমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন (এলজিএ) এর সংবাদ ও গণমাধ্যমের সম্পর্ক বিভাগের উপ অধিকর্তা হিসাবে সিনিয়র ম্যানেজমেন্ট ভূমিকা নিতে মমতাজ মেয়র প্রেস অফিস ছাড়েন। ২০১২ সালের জুন মাসে, ট্রান্সপোর্ট ফর লন্ডনের সম্পূর্ণ মালিকানাধীন সহায়ক টিউব লাইনের জন্য তিনি যোগাযোগ ব্যবসার অংশীদার হিসাবে তার বর্তমান ভূমিকা শুরু করেছেন।[২]

২০১৩ সালে, মমতাজ, বাংলাদেশী দূরদর্শন চ্যানেল এনটিভি ইউরোপ (স্কাই ৮৫২)তে একটি সাপ্তাহিক ইংরেজি সংবাদ এবং বর্তমান বিষয়সূচি সম্বলিত অনুষ্ঠান উইকলি নিউজ হাইলাইটস উপস্থাপন শুরু করেন। সেখানে ইউ কে এবং ইউরোপ জুড়ে বাংলাদেশ থেকে সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ প্রচার করা হত।[৩][৪] ২০১৪ সালে, তিনি তার টক শো ডিনার ডিবেটস উইথ হাসিনা মমতাজ শুরু করেন চ্যানেল আই ইউরোপ (স্কাই ৮৫২)তে। তিনি সম্পত্তি বিশেষজ্ঞ কামরু আলীর সাথে ইয়োর প্রপার্টি শো উপস্থাপন করছেন।

মমতাজ এছাড়াও একটি ফ্রিল্যান্স গণমাধ্যম পরামর্শদাতা। তিনি কমিউনিটি গ্রুপ, স্বেচ্ছাসেবক প্রতিষ্ঠান, গণমাধ্যম সম্পর্কের উপর সদস্যপদ সংস্থা, অংশীদারত্বে নিযুক্তির মত প্রতিষ্ঠানকে পরামর্শ দিয়েছেন।[৩]

২০১৫র মে মাসে, মমতাজ, এশীয়ান সানডে নিউজপেপার এবং এশিয়ান স্টাইল ম্যাগাজিন এর শীর্ষ সম্পাদক নিযুক্ত হন।[৫]

পুরস্কার এবং মনোনয়ন[সম্পাদনা]

২০০৯ সালে, এশিয়ান উইমেন অব এ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ডে মমতাজ মিডিয়া প্রফেশনাল অফ দ্য ইয়ার পুরস্কারের জন্য দ্বিতীয় স্থানে ছিলেন।[৬]

২০১৩র অক্টোবর মাসে, তিনি শক্তিশালী পুরস্কার বিজয়ী দলের সদস্য ছিলেন, যাঁরা লন্ডন ২০১২ অলিম্পিকে অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ এবং কর্মচারী নিযুক্তির জন্য মেলক্রাম পুরস্কার জিতেছেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

মমতাজ একটি দাতব্য সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। সংস্থাটি বাংলাদেশের ঢাকার সাভারে ২০১২ পোশাক কারখানা ভেঙে পড়ার পর তৈরী করা হয়েছিল, এবং দুর্ঘটনার শিকার এবং পরিবারের জীবিতদের জন্য তহবিল গঠন করেছিল।[৩]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Karim, Mohammed Abdul; Karim, Shahadoth (অক্টোবর ২০১০)। British Bangladeshi Who's Who (PDF)। British Bangla Media Group। পৃষ্ঠা 90। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০১৪ 
  2. Karim, Mohammed Abdul; Karim, Shahadoth (অক্টোবর ২০১২)। British Bangladeshi Who's Who (PDF)। British Bangla Media Group। পৃষ্ঠা 100। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০১৪ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  3. "Hasina Momtaz"। British Bangladesh Chamber of Women Entrepreneurs। ১ এপ্রিল ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০১৪ 
  4. Karim, Mohammed Abdul; Karim, Shahadoth (অক্টোবর ২০১৩)। British Bangladeshi Who's Who (PDF)। British Bangla Media Group। পৃষ্ঠা 116। ৮ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৪ 
  5. "Asian Sunday announces new Editor"Asian Sunday। ১৯ মে ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৫ 
  6. "Asian Women of Achievement Awards 2009 – Shortlist Announced"Redhotcurry.com। ২৭ মার্চ ২০০৯। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০১৪