স্ব-সংরক্ষণকরণ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

স্ব-সংরক্ষণকরণ (Self-archiving) হলো কোনো লেখক কর্তৃক তার কোনো লেখায় নিখরচায় প্রবেশের জন্য ইলেকট্রনিক ডকুমেন্ট তৈরি করে সেটিকে মুক্ত কপি হিসাবে অনলাইনে জমা দেওয়ার কার্যক্রম।[১] এই শব্দটি দ্বারা সমমান সম্পন্ন পর্যালোচিত গবেষণা সাময়িকী এবং সম্মেলন নিবন্ধগুলির স্ব-সংরক্ষণাগারকে বোঝায়, একই সাথে অভিসন্দর্ভ এবং বইয়ের অধ্যায়গুলিকেও, যাতে তার প্রবেশাধিকার যোগ্যতা, ব্যবহার এবং উদ্ধৃতি প্রভাবকে সর্বাধিকতর করার লক্ষ্যে লেখকের নিজস্ব প্রাতিষ্ঠানিক ভাণ্ডার বা উন্মুক্ত সংরক্ষণাগারে জমা দেওয়া হয়। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে সবুজ উন্মুক্ত প্রবেশাধিকার (green open access) শব্দটি প্রচলিত হয়ে উঠেছে যা একে স্বর্ণ উন্মুক্ত প্রবেশাধিকার পদ্ধতি থেকে আলাদা করেছে যেখানে সাময়িকী (জার্নাল) নিজেই নিবন্ধগুলি পাঠকদের জন্য বিনা পারিশ্রমিকে উন্মুক্ত করে দেয়া হয়।[২]

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

স্ব-সংরক্ষণকরণ বিশ্বব্যাপী ব্যবহারের উদাহরণ হিসাবে প্রথম পরিচিত হয় ১৯৯৪ সালে, স্টিভেন হারনাড কর্তৃক তার অনলাইন প্রকাশনা "সাবভারসিভ প্রপোজাল" (পরবর্তীতে যা Association of Research Libraries-এ প্রকাশিত হয়)[৩])-এর মাধ্যমে, যদিও কম্পিউটার বিজ্ঞানীরা বেনামে এফটিপি সংরক্ষণাগারগুলিতে স্ব-সংরক্ষণাগার অনুশীলন করে আসছিলেন অন্ততঃ ১৯৮০-এর দশক হতে (দেখুন সাইটসির) এবং পদার্থবিজ্ঞানীরা ১৯৯০-এর দশকের প্রথম থেকেই ওয়েবে এটি করছেন (দেখুন এআরএক্সফোর)।

সবুজ উন্মুক্ত প্রবেশাধিকার ধারণাটি ২০০৪ সালে ব্যবহৃত হয় যেখানে বিবৃত ছিলো "এমন একটি ধরন যা একটি অনুন্মুক্ত প্রবেশাধিকার সাময়িকীতে প্রকাশিত কিন্তু একই সাথে স্ব-সংরক্ষিত হিসাবে উন্মুক্ত প্রবেশাধিকার সংরক্ষণাগারে প্রকাশ করার জন্য সংরক্ষণ করা হয়েছিল"।[৪] কোনও কাজের বিভিন্ন খসড়াও স্ব-সংরক্ষণাগারযুক্ত হতে পারে; যেমন অভ্যন্তরীণ অ-সমমানসম্পন্ন পর্যালোচিত সংস্করণ, অথবা সাময়িকীতে প্রকাশিত সমমানসম্পন্ন পর্যালোচিত সংস্করণ। স্ব-সংরক্ষণাগার মাধ্যমে সবুজ উন্মুক্ত প্রবেশাধিকার কাজটি প্রাথমিকভাবে প্রাতিষ্ঠানিক বা শৃঙ্খলাভাণ্ডারের মাধ্যমে করতে সামর্থ্য হয়েছিল, কারণ বিশ্ববিদ্যালয়গুলি ক্রমবর্ধমানে স্ব-সংরক্ষণাগারকে উৎসাহিত করার নীতি গ্রহণ করে। স্ব-সংরক্ষণাগার সংগ্রহস্থলগুলি সমমানসম্পন্ন পর্যালোচিত নিবন্ধ নয়, যদিও এগুলি সমমানসম্পন্ন পর্যালোচিত নিবন্ধগুলির অনুলিপি সংরক্ষিত রাখতে পারে। স্ব-সংরক্ষণাগার সংগ্রহস্থলগুলিও আশা করে যে, লেখক যিনি স্ব-সংরক্ষণাগার রাখেন, সেগুলি করার প্রয়োজনীয় অধিকার তার রয়েছে, যেমনটি তিনি কোনো প্রকাশনের স্বত্বটি কোনও প্রকাশকের কাছে স্থানান্তরিত করতে পারেন। সুতরাং নিবন্ধের প্রাকমুদ্রণ সংষ্করণটিই কেবল নিজের সংরক্ষণাগারভুক্ত করা সম্ভব।[৫]

বাস্তবায়ন[সম্পাদনা]

প্রকাশিত হবার পর স্ব-সংরক্ষণাগার যেখানে প্রায়শই স্বত্ব-অধিকার সম্পর্কিত বিষয় (যদি স্বত্ব-অধিকারগুলি প্রকাশকের কাছে হস্তান্তর করা হয়), সেখানে প্রকাশিত হবার পূর্বের স্ব-সংরক্ষণাগার অধিকার কেবলমাত্র সাময়িকীর নীতির সাথে সম্পর্কিত।[৬][৭]

২০০৩ সালের একটি সমীক্ষায় ৮০টি সাময়িকী প্রকাশকদের স্বত্ব-অধিকার সম্পর্কিত চুক্তি বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে যে, ৯০% প্রকাশক স্বত্ব-অধিকার সম্পর্কিত চুক্তির কিছু স্থানান্তর চেয়েছিলেন এবং কেবলমাত্র ৪২.৫ শতাংশ কোনো আকারের স্ব-সংরক্ষণাগার মঞ্জুর করেন। ২০১৪ সালে শেরপা / রোমিও প্রকল্পে উল্লেখ করা হয়েছে যে ১,২৭৫ জন প্রকাশকের মধ্যে ৭০ শতাংশ কোনো প্রকার স্ব-সংরক্ষণাগারের জন্য রাজী হয়েছেন, ৬২ শতাংশ প্রকাশিত রচনার প্রকাশ-পূর্ব ও প্রকাশ পরবর্তী উভয়টিরই স্ব-সংরক্ষণাগারে সংরক্ষণের অনুমতি দিয়েছে।[৮] ২০১৭ সালে প্রকল্পটির তথ্য মতে, ২,৩৭৫ জন প্রকাশকের ৪১ শতাংশ প্রকাশনা প্রাক এবং পরবর্তী সংস্করণকে স্ব-সংরক্ষণাগারভুক্ত করার অনুমতি দিয়েছিল। ৩৩ শতাংশ কেবল প্রকাশনা পরবর্তী সংস্করণকে স্ব-সংরক্ষণাগারে রাখতে মঞ্জুরি দেয়, যার অর্থ চূড়ান্ত খসড়া পড়ার সুযোগ দেয়া হয়। ৬ শতাংশ প্রকাশক কেবল প্রকাশ পূর্ব খসড়াটি স্ব-সংরক্ষণাগারে সংরক্ষণের অনুমতি দিয়েছিলেন।[৯] কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস[১০] বা আমেরিকান জিওফিজিক্যাল ইউনিয়ন[১১]-এর মতো প্রকাশকরা কেবল সমমানসম্পন্ন পর্যালোচিত চূড়ান্ত খসড়াই নয়, নিবন্ধের চূড়ান্ত প্রকাশিত সংস্করণটিরও স্ব-সংরক্ষণাগারকে অনুমোদন করেন।

স্ব-সংরক্ষণাগারের জন্য সংরক্ষণাগারগুলির মধ্যে প্রাতিষ্ঠানিক সংগ্রহশালা, বিষয় ভিত্তিক সংগ্রহশালা, ব্যক্তিগত ওয়েবসাইট এবং সামাজিক যোগাযোগ ওয়েবসাইট, যেগুলো গবেষকদের জন্য গড়ে তোলা হয়েছে, সেগুলি রয়েছে।[১২] কিছু প্রকাশক স্ব-সংরক্ষণাগারে সংরক্ষণের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা আরোপের চেষ্টা করেন; নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ প্রকাশের তারিখের পরবর্তী ৬-১২ মাস বা তারও বেশি হতে পারে (এসএইচইআরপিএ / আরওএমইও দেখুন)। এই নিষেধাজ্ঞা চলাকালীন সময়ে প্রকাশিত রচনার জন্য কিছু প্রাতিষ্ঠান তাদের সংরক্ষণাগারে একটি অনুরোধ-অনুলিপির বোতাম যুক্ত করে থাকে যাতে চাপ দিয়ে ব্যবহারকারীরা অনুরোধ করতে পারেন এবং নিষেধাজ্ঞা সময় লেখকরা প্রতিটি ক্লিকের জন্য একটি করে একক অনুলিপি সরবরাহ করতে পারেন।[১৩]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Harnad, S. (২০০১)। "The Self-Archiving Initiative"। Nature410 (6832): 1024–1025। ডিওআই:10.1038/35074210পিএমআইডি 11323640 
  2. Harnad, S., Brody, T., Vallieres, F., Carr, L., Hitchcock, S., Gingras, Y, Oppenheim, C., Stamerjohanns, H., & Hilf, E. (2004) The Access/Impact Problem and the Green and Gold Roads to Open Access ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে. Serials Review 30.
  3. Okerson, A. S. & O'Donnell, J. J. eds. (1995). Scholarly Journals at the Crossroads: A Subversive Proposal for Electronic Publishing. Association of Research Libraries. Retrieved from http://www.arl.org/sc/subversive/ ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৮ মার্চ ২০১৩ তারিখে
  4. Harnad, Stevan (২০০৫)। "Fast-Forward on the Green Road to Open Access: The Case Against Mixing Up Green and Gold"Ariadne (42)। আইএসএসএন 1361-3200 
  5. Madalli, Devika P. (২০১৫)। Concepts of openness and open access। UNESCO Publishing। পৃষ্ঠা 17–18। আইএসবিএন 9789231000799 
  6. Self-Archiving FAQ
  7. "THES May 12 1995: PostGutenberg Galaxy"cogprints.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৭ 
  8. Scheufen, Marc (২০১৪)। Copyright Versus Open Access: On the Organisation and International Political Economy of Access to Scientific Knowledge। Springer। পৃষ্ঠা 85। আইএসবিএন 978-3-319-12738-5 
  9. "RoMEO Statistics"। SHERPA & JISC। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-০৮ 
  10. Cambridge University Press। "Cambridge Journals Online: Open Access Options" 
  11. American Geophysical Union। "Usage Permissions" 
  12. "A social networking site is not an open access repository"Office of Scholarly Communication (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৫-১২-০১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০২-২৪ 
  13. Sale, A., Couture, M., Rodrigues, E., Carr, L. and Harnad, S. (2012) Open Access Mandates and the "Fair Dealing" Button'. In: Dynamic Fair Dealing: Creating Canadian Culture Online (Rosemary J. Coombe & Darren Wershler, Eds.)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]