সিনাই উপদ্বীপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
সিনাই উপদ্বীপের মানচিত্র যাতে আন্তর্জাতিক সীমানাও দেখানো আছে।

সিনাই উপদ্বীপ বা সিনাই (আরবি: سيناء‎‎ Sīnā) মিশরে অবস্থিত ত্রিভুজ আকৃতির একটি উপদ্বীপ, যার আয়তন প্রায় ৬০,০০০ বর্গকিলোমিটার (২৩,০০০ বর্গমাইল)। এর উত্তরে ভূমধ্যসাগর ও দক্ষিণে লোহিত সাগর। এটি মিশরের একমাত্র এলাকা যা আফ্রিকায় নয়, এশিয়ায় অবস্থিত এবং কার্যতঃ এই দুটি মহাদেশের মধ্যে একটি ভূমি সেতুর মত কাজ করে। উপদ্বীপের বেশিরভাগ অঞ্চল প্রশাসনিক ভাবে মিশরের ২৭ টি গভর্নর শাসিত এলাকার ২ টির মধ্যে অন্তর্গত (সুয়েজ খালের দুপাশের অঞ্চল আরও তিনটি প্রশাসনিক এলাকার অন্তর্ভুক্ত)। সিনাই উপদ্বীপের জনসংখ্যা প্রায় ৫০০,০০০। দাপ্তরিক নাম ছাড়াও এই এলাকাকে মিসরীয়রা আদর করে ডাকে "ফেরুজের ভূমি" বা "Land of Fayrouz"।

ঐতিহাসিকভাবে এই অঞ্চল বিভিন্ন রাজ্যের মধ্যে সংঘাতের কেন্দ্রবিন্দু ছিল, যার মূলে ছিল এর কৌশলগত ভূ-রাজনৈতিক অবস্থান। বিভিন্ন মিসরীয় সরকারের সরাসরি শাসনাধীন ছাড়াও (যার মধ্যে আছে আব্বাসীয়, মামলুক, মোহাম্মদ আলী সাম্রাজ্য এবং বর্তমান আধুনিক মিসরীয় প্রজাতন্ত্র), এটি মিসরের অবশিষ্ট এলাকার মত উসমানিয়া সাম্রাজ্য এবং যুক্তরাজ্য কর্তৃক অধিকৃত এবং নিয়ন্ত্রীত হয়েছিল। ইসরাইল ১৯৫৬ সালের সুয়েজ সংকটের সময় এবং আবারও ১৯৬৭ সালে, ছয় দিনের যুদ্ধের সময় এ এলাকায় আগ্রাসন চালায় এবং দখল করে নেয়। এই উপদ্বীপকে মুক্ত করার জন্য ১৯৭৩ সালের ৬ অক্টোবর মিসর অক্টোবর যুদ্ধ শুরু করে এবং তখন এ অঞ্চলে মিসরীয় ও ইসরাইলী বাহিনীর মধ্যে মারাত্মক যুদ্ধ হয়। ১৯৭৯ সালের ইসরাইল-মিসর শান্তি চুক্তির পর, ১৯৮২ সালে ইসরাইল সিনাই উপদ্বীপ থেকে তার বাহিনী সম্পূর্ণরূপে প্রত্যাহার করে নেয়। বর্তমান সময়ে সিনাই উপদ্বীপ এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, সমৃদ্ধ প্রবাল প্রাচীর এবং বাইবেলের ইতিহাসের কারণে একটি আকর্ষনীয় পর্যটনকেন্দ্রে পরিনত হয়েছে। এই উপদ্বীপের সিনাই পর্বত ইব্রাহিমিয় ধর্মমত গুলোর জন্য একটি অন্যতম ধর্মীয় গুরুত্বপূর্ণ স্থান।

নামের উৎপত্তি[সম্পাদনা]

সিনাই নামটি প্রাচীন চাঁদ-ঈশ্বর সিন[১] বা হিব্রু শব্দ সেনে (হিব্রু: סֶ֫נֶּה Senneh) থেকে উদ্ভূত হয়েছে।[২] উপদ্বীপের নাম সিনাই হওয়ার আর একটি কারণ হল সেন্ট ক্যাথরিনের মঠের কাছাকাছি একটি পর্বতটি বাইবেলে মাউন্ট সিনাই হিসাবে উল্লেখিত। তবে এই অনুমানে বিতর্ক রয়েছে।[৩]

উপদ্বীপের আনুষ্ঠানিক নামটি ছাড়াও, মিশরীয়রাও এটির উল-উলুজে (أرض الفيروز "ফিরোজ জমির জমি") হিসাবে উল্লেখ করে। প্রাচীন মিশরীয়রা এই উপদ্বীপকে মফেকট বা "ফিরোজা ভূমি" বলে উল্লেখ করেছে। [৪]

ভূগোল[সম্পাদনা]

জেমিনি ১১ মহাকাশযানটি থেকে ছবি; ভূমধ্যসাগর, মিশর এবং সিনাই উপদ্বীপের অংশ এবং ব্যাকগ্রাউন্ডে লেভান্ট অংশ দেখানো হয়েছে।

সিনাই উপদ্বীপ আংশিক ত্রিভূজাকৃতি। এর উত্তর দিকে দক্ষিণ ভূমধ্যসাগরের উত্তর তীর অবস্থিত, এবং দক্ষিণ-পশ্চিমাংশে সুয়েজ উপসাগর এবং দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে আকাবা উপসাগর আবস্থিত। দুটি উপসাগরই লোহিত সাগরের সম্প্রসারিত আংশ। এটা সুয়েজ যোজক নামক ১২৫ কিলোমিটার (৭৮ মাইল) চওড়া ভুমি খণ্ড দ্বারা আফ্রিকা মহাদেশ সাথে সংযুক্ত রয়েছে। এই ভুমি ভাগে সুয়েজ খাল আবস্থান করছে। উপদ্বীপের পূর্ব দিকের যোজকটি প্রায় ২০০ কিলোমিটার (১২০ মাইল) প্রশস্ত যা এশিয়ার মূল ভূখন্ডের সঙ্গে যুক্ত। উপদ্বীপের পূর্ব তীরে আফ্রিকান পাত থেকে আরবীয় পাত পৃথক হয়েছে।[৫]

এই উপদ্বীপের দক্ষিণতম প্রান্তে রাস মুহাম্মদ জাতীয় উদ্যান আবস্থিত।

সিনাই উপদ্বীপের অধিকাংশই মিশরের দুটি গভর্নরেটে বিভক্ত: দক্ষিণ সিনাই (গানুব সিনা) এবং উত্তর সিনাই (শামাল সিনা)।[৬] একসাথে, তারা প্রায় ৬০,০০ বর্গ কিলোমিটার (২৩,০০০ বর্গ মাইল) এলাকা নিয়ে গঠিত এবং উপদ্বীপের মোট জনসংখ্যা ৫,৯৭,০০০ জন (জানুয়ারী ২০১৩)। আরও তিনটি শাসন রয়েছে সুয়েজ খাল জুড়ে; আফ্রিকান মিশরে: উত্তরে সুয়েজ খাল, কেন্দ্রে ইসমাঈলীয়ার এবং দক্ষিণ প্রান্তে পোর্ট সাইদ

প্রায় ১,৬০,০০০ জন বাসিন্দাদের সাথে সিনাই উপদ্বীপের সবচেয়ে বড় শহর হল আরিশ এবং শহরটি উত্তর সাইন-এর রাজধানী। অন্যান্য বড় জনবসতি শারম এল শেখ এবং এল-তোর দক্ষিণ উপকূলের অন্তর্ভুক্ত। শুষ্ক, পর্বতময় এবং অতিশয় জনবহুল অন্তর্দেশীয় সিনাইয়ের বৃহত্তম বসতি হল সেন্ট ক্যাথরিন এবং নেচেলের।[৬]

জলবায়ু[সম্পাদনা]

সিনাই উপদ্বীপ তার উচ্চ উচ্চতার এবং পর্বতশৃঙ্গপূর্ণ হওয়ার কারনে মিশরে শীতলতম প্রদেশের অন্যতম। সিনাইয়ের কয়েকটি নগর ও শহরে শীতকালীন তাপমাত্রা -১৬ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড (৩ ডিগ্রি ফারেনহাইট) পর্যন্ত পৌঁছায়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

দুই তরুণ বেদুইন মরুভূমিতে রুটি তৈরি করছেন।

উত্তর ও দক্ষিণ সিনাইয়ের দুটি গভর্নরেট এলাকার মোট জনসংখ্যা ৫,৯৭,০০০ জন (জানুয়ারী ২০১৩)। এই জনসংখ্যার চিত্রটি ইস্তামিলিয়া এবং সুয়েজ গভর্নমেন্টের অংশগুলি এবং সুয়েজ খালের পূর্বদিকে অবস্থিত পশ্চিমা সিনাই সহ ১৪,০০,০০০ জন পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়। পোর্ট সাইদের মোট জনসংখ্যা প্রায় ৫ লাখ (জানুয়ারী ২০১৩)। ইসমাঈলীয়ার এবং সুয়েজ জনগোষ্ঠী, পশ্চিমে সিনাইয়ে বাস করে, বাকিরা সুয়েজ খালের পশ্চিমাঞ্চলে বসবাস করে।

সিনাইয়ের জনসংখ্যা মূলত তাদের রঙিন ঐতিহ্যগত পোশাক এবং উল্লেখযোগ্য সংস্কৃতির সাথে মরুভূমি বসবাসকারী বেদুইনদের নিয়ে গঠিত হয়েছে।[৭] নীলনদ উপত্যকা এবং বদ্বীপ থেকে বিপুল সংখ্যক মিশরীয় জগণ পর্যটনে কাজ করার জন্য সিনাই এলাকাতে স্থানান্তরিত হয়েছেন, কিন্তু এই উন্নয়নটি স্থানীয় বেদুইন জনগোষ্ঠিকে প্রভাবিত করে। তাদের সমস্যা হ্রাসে সহায়তা করার জন্য, বিভিন্ন এনজিও মকাদ ট্রাস্টের সাথে এই অঞ্চলে কাজ করতে শুরু করেছে, একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা, যা সিনাইয়ের প্রাকৃতিক পরিবেশ, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির সংরক্ষণে একটি টেকসই বা স্থায়ী আয়ের উন্নয়নে বেদুইনদের সহায়তা করে।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

দাহাব হল দক্ষিণ সিনাইয়ের একটি জনপ্রিয় সমুদ্র সৈকত এবং ডাইভিং রিসর্ট
আরও দেখুন: মিশরের পর্যটন

ইসরায়েলি-মিশরীয় শান্তি চুক্তির পর থেকে সিনাইয়ের দর্শনীয় স্থান (প্রবালপ্রাচীর উপকূল সহ) এবং ধর্মীয় কাঠামোগুলি পর্যটন শিল্পের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। সিনাইয়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় পর্যটক গন্তব্য হিসাবে বিবেচিত হয় সিনাই পর্বত (জব্বাল মুসা) এবং সেন্ট ক্যাথেরিনের মঠ, যা বিশ্বের প্রাচীনতম খ্রিস্টীয় মঠ, এবং শরমে এল-শেখ, দাহাব, নুওয়াইবা ও তাবা শহরে আবস্থিত সৈকত গুলি। অধিকাংশ পর্যটক কায়রো থেকে সড়ক পথে বা জর্দানে আকাবা থেকে খেয়া দ্বারা, ইসরাইলের এইলাত শহরের শারম এল শেখ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও তাবা সীমান্ত অতিক্রম করে সড়ক পথে সিনাইয়ের পর্যটন কেন্দ্রে পৌঁচ্ছায়।

গ্যালারি[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Sinai Peninsula (peninsula, Egypt) - Britannica Online Encyclopedia"। Britannica.com। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১২ 
  2. "Sinai, Mount"। JewishEncyclopedia.com। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১২ 
  3. See Biblical Mount Sinai for a fuller discussion.
  4. "Étude de la turquoise : de ses traitements et imitations" আর্কাইভ 15 December 2013 at the Wayback Machine., thesis by Claire Salanne, Université de Nantes, 2009.
  5. Homberg, Catherine and Martina Bachmann, Evolution of the Levant Margin and Western Arabia Platform Since the Mesozoic, The Geological Society of London, 2010, p 65 আইএসবিএন ৯৭৮-১৮৬২৩৯৩০৬৬
  6. Ned Greenwood (১ জানুয়ারি ২০১০)। The Sinai: A Physical Geography। University of Texas Press। পৃষ্ঠা 4–। আইএসবিএন 978-0-292-77909-9 
  7. Leonard, William R. and Michael H. Crawford, The Human Biology of Pastoral Populations, Cambridge University Press, 2002, p. 67 আইএসবিএন ৯৭৮-০৫২১৭৮০১৬২

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

স্থানাঙ্ক: ২৯°৩০′ উত্তর ৩৩°৫০′ পূর্ব / ২৯.৫০০° উত্তর ৩৩.৮৩৩° পূর্ব / 29.500; 33.833