সাইমন হারমার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সাইমন হারমার
Simon Harmer.jpg
২০১৯ সালের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে সাইমন হারমার
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামসাইমন রস হারমার
জন্ম (1989-02-10) ১০ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৯ (বয়স ৩১)
প্রিটোরিয়া, ট্রান্সভাল, দক্ষিণ আফ্রিকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ ব্রেক
ভূমিকাঅল রাউন্ডার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৩২১)
২ জানুয়ারি ২০১৫ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ টেস্ট২৫ নভেম্বর ২০১৫ বনাম ভারত
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৯ - ২০১১ইস্টার্ন প্রভিন্স
২০১১-বর্তমানওয়ারিয়র্স (দল নং ১১)
২০১৬বর্ডার
২০১৭-বর্তমান‌এসেক্স (দল নং ১১)
২০১৮জজি স্টার্স
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি এলএ টি২০
ম্যাচ সংখ্যা ১৪৫ ৮৩ ৯২
রানের সংখ্যা ৫৮ ৪,২৯২ ১,০০২ ৬৩৫
ব্যাটিং গড় ১১.৬০ ২৪.৫২ ২০.৪৪ ১৯.২৪
১০০/৫০ ০/০ ২/২২ ০/০ ০/০
সর্বোচ্চ রান ১৩ ১০২* ৪৪* ৪৩
বল করেছে ১,১৪৮ ৩৪,৬০২ ৩,৮৫৮ ১,৬৫৯
উইকেট ২০ ৬০৮ ৭৮ ৬৮
বোলিং গড় ২৯.৪০ ২৭.৮০ ৪২.২৯ ৩০.৭২
ইনিংসে ৫ উইকেট ৩৪
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৪/৬১ ৯/৯৫ ৪/৪২ ৪/১৯
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/– ১৪০/– ৫৫/– ৪৪/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সাইমন রস হারমার (জন্ম: ১০ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮৯) ট্রান্সভাল প্রদেশের প্রিটোরিয়ায় জন্মগ্রহণকারী দক্ষিণ আফ্রিকার বিখ্যাত আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকা। দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য তিনি। দলে তিনি মূলতঃ অল-রাউন্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ডানহাতে মাঝারিসারির ব্যাটসম্যানের পাশাপাশি অফ ব্রেক বোলিং করে থাকেন সাইমন হারমার

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ওয়ারিয়র্সের প্রতিনিধিত্ব করছেন তিনি। এরপূর্বে দক্ষিণ আফ্রিকা এ দলে খেলেছেন। এছাড়াও সাউথ আফ্রিকান ইউনিভার্সিটিজ দলের অধিনায়ক তিনি।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

২০১০-১১ মৌসুমে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ওয়ারিয়র্সের পক্ষে অভিষেক ঘটে। উদ্বোধনী খেলাতেই তিনি কেপ কোবরাসের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ৫/৯৮ ও দ্বিতীয় ইনিংসে ১/৫৩ বোলিং পরিসংখ্যান গড়েন। এছাড়াও ৪৬ ও অপরাজিত ৬৯ রান তোলেন তিনি।[১] দলের নিয়মিত সদস্য হিসেবে ২০১১-১২ মৌসুমে ৪৪ উইকেট নিয়ে শীর্ষস্থানীয় উইকেট সংগ্রহকারী হন।[২]

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

ঘরোয়া ক্রিকেটে নিপুণ দক্ষতা লাভের প্রেক্ষিতে ক্রিকেট সাউথ আফ্রিকা কর্তৃপক্ষ তাকে ২০১৪-১৫ মৌসুমে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তৃতীয় টেস্টে খেলার জন্য আমন্ত্রণ জানায়।[৩] নিউ ইয়ার্স টেস্ট নামে পরিচিত কেপটাউনের নিউল্যান্ডসে ২ জানুয়ারি, ২০১৫ তারিখে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তার টেস্ট অভিষেক ঘটে।[৪] প্রথম দিনে মধ্যাহ্ন বিরতীর পূর্ব মুহুর্তে ডেভন স্মিথকে আউট করে নিজস্ব প্রথম উইকেট তুলে নেন তিনি।[৪] ইনিংসে তার বোলিং পরিসংখ্যান ছিল ২৫-৫-৭১-৩।[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]