শোকের জননী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
শোকের জননী
Salamanca - Iglesia de la Vera Cruz 12.jpg
পবিত্র সন্ন্যাস সংঘের গির্জায় সাতটি ছুরি দ্বারা মাতা মেরির হৃদয় বিদীর্ণকৃত, সালামানসা, স্পেন
শ্রদ্ধাজ্ঞাপনরোমান ক্যাথলিক গির্জা
উৎসব১৫ সেপ্টেম্বর
গুড ফ্রাইডের পূর্বের শুক্রবার
বৈশিষ্ট্যাবলীBlessed Virgin Mary in mournful state, tears, bleeding heart pierced by seven daggers
এর রক্ষাকর্তা

শোকের জননী (লাতিনঃ বিয়াটা মারিয়া ভারগো পেরডোলেন্স ), দুঃখের মা, দু:খিত মা অথবা দুঃখ মাতা (লাতিনঃ মাতের দোলোরোসা ), এবং করুণার জননী, সপ্ত শোকের জননী বা সাত দুঃখের জননী হলো কতিপয় নাম যার দ্বারা ভার্জিন মেরি -কে তার জীবনের দুঃখসহ উল্লেখ করা হয়। মাতের দোলোরোসা হিসাবে, এটি ক্যাথলিক চার্চে মারিয়ান আর্টেরও একটি মূল বিষয়।

মাতা মেরির সাত শোক রোমান ক্যাথলিক ভক্তি -এর একটি জনপ্রিয় অংশ। সাধারণ ধর্মীয় ক্যাথলিক চিত্রগুলিতে ভার্জিন মেরিকে, একটি বা সাতটি দীর্ঘ ছুরি বা খঞ্জর দ্বারা তার হৃদয় বিদীর্ণকৃত ও প্রায়শই রক্ত ঝরে এমন এক শোকার্ত এবং ক্রন্দনরত অবস্থায় চিত্রায়িত করা হয়। সিমিয়োন এর ভবিষ্যদ্বাণী -এর উপর ভিত্তি করে ধ্যাননির্ভর ভক্তিমূলক প্রার্থনাসমূহে তার সাত শোক দীর্ঘায়িত করা শুরু হয়। এই শিরোনামে করুণার সাধারণ উদাহরণগুলি হল সার্ভাইট জপমালা বা জননীর সাত তরবারির মালা, মাতা মেরির সাত আনন্দ এবং সম্প্রতি আরও, মাতা মেরির শোকার্ত ও নিষ্কলুষ হৃদয়।

শোকের জননী -এর ভোজ, প্রতি ১৫ সেপ্টেম্বর আওয়ার লেডি ধর্মীয়ভাবে পালন করা হয় এবং একই সময় কতিপয় ক্যাথলিক দেশগুলিতে দুঃখের শুক্রবারের উৎসব পালন করা হয়।

মাতা মেরির সপ্ত শোক[সম্পাদনা]

সপ্ত শোক (বা দোলোরস ) হলেন আশীর্বাদপ্রাপ্ত ভার্জিন মেরির জীবনের এমন ঘটনা যা জনপ্রিয় ভক্তি এবং প্রায়শই শিল্পে চিত্রিত হয়। [১]

এই সাত শোককে জপমালার পাঁচটি শোকময় রহস্য -এর সাথে বিভ্রান্ত করা উচিত নয়। সেগুলিকে প্রায়শই সাতটি ছুরি দ্বারা হৃদয় বিদীর্ণকৃত অবস্থায় চিত্রিত করা হয়।

  1. সিমিয়োন -এর ভবিষ্যদ্বাণী। ( http://www.usccb.org/bible/luke/2 )
  2. মিশরে ফ্লাইট। ( http://www.usccb.org/bible/matthew/2 )
  3. জেরুজালেমের মন্দিরে শিশু যিশুর ক্ষতি। ( http://www.usccb.org/bible/luke/2 )
  4. ভায়া ডলোরোসায় মাতা মেরির সাথে সাক্ষাত। (নতুন টেস্টামেন্টে নেই)
  5. কালভারি পর্বতে যীশুর ক্রুশবিদ্ধকরণ। ( http://www.usccb.org/bible/matthew/27 ), ( http://www.usccb.org/bible/mark/15 ), ( http://www.usccb.org/bible/luke / 23 ), ( http://www.usccb.org/bible/john/19 )
  6. একটি বর্শাসহ যিশুর পাশের ছিদ্র, এবং ক্রুশ থেকে তাঁর অংশ। ( http://www.usccb.org/bible/john/19 )
  7. আরিমাথিয়ার জোসেফের দ্বারা যিশুর দাফন। ( http://www.usccb.org/bible/matthew/27 ), ( http://www.usccb.org/bible/mark/15 ), ( http://www.usccb.org/bible/luke / 23 ), ( http://www.usccb.org/bible/john/19 )

ক্যাথলিকদের কাছে প্রতিটি রহস্যের জন্য প্রতিদিন একজনকে আমাদের পিতা এবং সাতটি মাতা মেরির প্রতি অভিবাদন বলা প্রথাগত।

সপ্ত শোকের প্রতি উৎসর্গ[সম্পাদনা]

পাশ্চাত্য খ্রিস্টান[সম্পাদনা]

চারদিকের দুঃখকে ঘিরে মাতা মেরি

এর আগে, ১২৩২ সালে, টাসকানি'র সাত যুবক সার্ভাইট হুকুম ("সার্ভাইট ফ্রিয়ার্স" বা "মাতা মেরির ভক্তকূলের হুকুম" নামেও পরিচিত)। পাঁচ বছর পরে,ক্রশের নীচে দাঁড়িয়ে তারা মাতা মেরির শোককে তাদের হুকুমের প্রধান উৎসর্গ হিসাবে গ্রহণ করে। [২]

কয়েক শতাব্দী ধরে কয়েকটি উৎসর্গ, এমনকি হুকুমও, বিশেষভাবে মেরির শোকভিত্তিক ধ্যানকে কেন্দ্র করে উত্থাপিত হয়। সার্ভাইটগণ শোকার্ত জননীর প্রতি তিনটি সাধারণ উৎসর্গ গঠন করে, যেমন- সপ্ত শোকের জপমালা, মাতা মেরির সাত দুঃখের কালো ফলক এবং শোকের জননীর প্রতি নোভেনা। সাত দুঃখের কালো ফলক হলো শোকের জননী ভ্রাতৃসংঘ -এর প্রতীক, যা সার্ভাইট হুকুম -এর সাথেও সম্পর্কিত। [৩] বেশিরভাগ উৎসর্গকৃত ফলক -এর অলঙ্করণ বা নকশা সম্পর্কিত প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। কালো ফলকের প্রতি উৎসর্গের জন্য শুধুমাত্র কালো সুতি কাপড় প্রয়োজন। [৪] সেইন্ট পেরিগ্রিনের জাতীয় মন্দির থেকে শোকের জননীর নোভেনা ছড়িয়ে পড়ে, যার মূল হলো ভায়া ম্যাট্রিস [৫][৬]

জননী যিনি দুষ্ট হৃদয়কে নমনীয় করেন, ১৯ শতকের রাশিয়ান প্রতিমূর্তি

পূর্ব খ্রিস্টান[সম্পাদনা]

২ ফেব্রুয়ারি, প্রভুর বৈঠক -এর মহাভোজ -এর একই দিনে, অর্থোডক্স খ্রিস্টান এবং পূর্ব ক্যাথলিকরা, "দুষ্ট হৃদয়ের নমনীয়তা" বা "সিমিয়নের ভবিষ্যদ্বাণী হিসাবে পরিচিত থিওটোকোস ( ঈশ্বরের জননী ) -এর এক অলৌকিক-কাজ -এর প্রতিমূর্তি উদ্‌যাপন করে। [৭][৮]

এটি ভার্জিন মেরিকে চিত্রিত করে এমন মুহুর্তে যা পুণ্যবান সিমিয়োন এর মতে, "হ্যাঁ, একটি তলোয়ার আপনার নিজের প্রাণেও বিদ্ধ হবে... " ( লুক ২ঃ৩৫ )। তিনি তার হাত প্রার্থনায় অতৃপ্ত অবস্থায় রেখে দাঁড়িয়ে রয়েছেন, এবং সপ্ত শোকের নির্দেশক, সাতটি তলোয়ার তার হৃদয়কে ছিদ্র করে । [৭] এটি থিয়েটোকোসের কয়েকটি অর্থোডক্স প্রতিমূর্তির মধ্যে একটি যা শিশু যিশুকে ফুটিয়ে তোলে না । "আনন্দ করুন, বহু-শোকের ঈশ্বরের জননী, আমাদের দুঃখগুলি আনন্দে পরিণত করুন এবং দুষ্ট লোকদের হৃদয়কে নমনীয় করুন!" এই ধুয়াও ব্যবহার করা হয়। [৮]

ভক্তিমূলক ভোজ[সম্পাদনা]

করুণার জননী[সম্পাদনা]

বিভিন্ন শিরোনামের অধীনে হলেও, দ্বাদশ শতাব্দীতে করুণার জননীর ভোজের জনপ্রিয়তা বেড়েছে। একাদশ শতাব্দীতে, বিশেষত বেনেডিক্টিন সন্ন্যাসীদের কিছু লেখনীতে এর ধারণা পাওয়া যায় । [৯] মাতা দোলোরোসা -এর প্রতি প্রথম বেদী, ১২২১ সালে শোনাউ এর সিস্টারসিয়ান আশ্রমে প্রতিষ্ঠিত হয় ।

শোকের জননী-এর আনুষ্ঠানিক ভোজনের সূচনা হয়েছিল কোলোন -এর একটি প্রাদেশিক সম্মেলন এর মধ্য দিয়ে, ১৪২৩ সালে। এটি ইস্টারের পরের তৃতীয় রবিবারের পরের শুক্রবারে নির্ধারিত হয়েছিল এবং শিরোনাম ছিল: কমেমোরাতিও আঙ্গুস্টিয়ে এত দোলোরিস বি, মারিয়া ভি, । খ্রিস্টের ক্রুশবিদ্ধকরণ এবং মৃত্যুর সময় মেরির শোক ছিল এর লক্ষ্য । ষোড়শ শতাব্দীর আগে এই উৎসবটি উত্তর জার্মানি, স্ক্যান্ডিনেভিয়া এবং স্কটল্যান্ডের খ্রিস্টীয় ধর্মাধ্যক্ষের এক্তিয়ারভুক্ত এলাকার মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল।

ফাদার উইলিয়াম স্যান্ডার্স এর মতে, "... ১৪৮২ সালে, রোমান প্রার্থনা ও উপাসনা পুস্তকে আনুষ্ঠানিকভাবে করুনার জননী শিরোনামের অধীনে ভোজের বর্ণনা, একই সাথে শোকার্ত অবস্থায় পুত্রের প্রতি যে ভালবাসা আশীর্বাদপ্রাপ্ত জননী প্রকাশ করেছিলেন তাও উল্লেখ করা হয়। করুনার ইংরেজি কম্পেশন শব্দটি লাতিন মূল কাম এবং প্যাটিওর থেকে উদ্ভূত; যার অর্থ "শোক ভোগ করা"। [৯]

ব্রুকলিন ক্যারল গার্ডেন -এর বার্ষিক শোকের জননী শোভাযাত্রা, ১৯৪০ এর দশকে মোলা ডি বারির অভিবাসীদের দ্বারা শুরু হওয়া ঐতিহ্য, যারা নিজের আদি শহরের পৃষ্ঠপোষকতা উদ্‌যাপনরত

১৬০০ সালের পরে এটি ফ্রান্সে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে এবং পাম রবিবারের আগের শুক্রবারের জন্য নির্ধারণ করা হয় । ২২ এপ্রিল, ১৭২৭ এর এক ফরমান দ্বারা পোপ বেনেডিক্ট দ্বাদশ এটিকে "সেপ্টেম দোলোরাম বি,এম,ভি," শিরোনামে পুরো লাতিন গির্জায় বিস্তৃত করেন। [২] ১৯৫৪ সাল পর্যন্ত এটি সাধারণ রোমান পঞ্জিকায় বড় দ্বৈত (সেপ্টেম্বর ভোজের ক্রমের চেয়ে কিছুটা কম) ক্রম ধারণ করে থাকে । পোপ জন ত্রয়োবিংশ -এর ১৯৬০ সালের রাব্রিক কোড এ উদ্‌যাপনটিকে স্মৃতি-উৎসব -এর স্তরে নামিয়ে আনে ।

আশীর্বাদপ্রাপ্ত জননীর সপ্ত শোক

১৬৬৮ সালে, মেরি এর সপ্ত শোকের পৃথক ভোজ; যা সেপ্টেম্বর মাসের তৃতীয় রবিবার উদযাপিত হত, সার্ভাইটগণকে পালনের অনুমতি দেওয়া হয় । [২] পোপ পিউস সপ্তম ১৮১৪ সালে এটি সাধারণ রোমান ক্যালেন্ডার -এ চালু করেন । ১৯১৩ সালে, পোপ পিয়াস দশম, সাধারণ উৎসবগুলির চেয়ে রবিবারের উৎসবকে অগ্রাধিকার প্রদানের সংস্কারের অংশ হিসেবে, ক্রুশের ভোজ -এর পরের দিন, ১৫ সেপ্টেম্বর এই উৎসব স্থানান্তরিত করেন । [১০] এটি এখনও এই তারিখে পালন করা হয়।

যেহেতু একই শিরোনামে এভাবে দুটি ভোজ ছিল, যার প্রত্যেকটিতে স্তাবেত মাতের সঙ্গীত ক্রম আবৃত্তি করা হত, তাই ১৯৬৯ সালে, প্যাশন সপ্তাহ উদ্‌যাপনটিকে সেপ্টেম্বর ভোজের অনুরূপ বিবেচনায় সাধারণ রোমান ক্যালেন্ডার থেকে সরানো হয়। [১১] দুটি উদ্‌যাপনের প্রত্যেকটিকেই "আশীর্বাদপ্রাপ্ত জননীর সপ্ত শোক" -এর ভোজ (লাতিন: সেপ্তেম দোলোরাম বিটায়ে মারিয়া ভার্জিনিস ) বলা হত । স্তাবেত মাতের -এর আবৃত্তি ছিল ঐচ্ছিক ।

কোকুলা, গেরেরো, মেক্সিকোয় পবিত্র সপ্তাহ উদ্‌যাপনের অংশ হিসাবে শোকের জননীর সম্মানে শোভাযাত্রা

গণ উৎসর্গের ঐতিহ্যবাহী প্রকাশের অস্তিত্ব যেমন গুড ফ্রাইডে -এর কাছাকাছি দিনগুলিতে শোকের জননীর মূর্তি নিয়ে শোভাযাত্রা, মাল্টা-র মত কিছু স্থানীয় পঞ্জিকায়, ভক্তিমূলক উদ্‌যাপনের পূর্ববর্তী শুক্রবারে মেরির শোকের উদ্‌যাপন স্থান পায় ।

সর্বত্র রোমান মিসাল -এর সর্বশেষ সংস্করণ সেই শুক্রবারে নিম্নোক্ত ঐচ্ছিক প্রার্থনা সংগ্রহ সরবরাহ করা হয় :

দাইরিক বাউটস, নেদ্যারল্যাণ্ডীয় মাতের দোলোরোসা, ১৪৭০-৭৫

হে প্রভু, খ্রিষ্টের ভাবাবেগে ধ্যানরত আশীর্বাদপ্রাপ্ত মেরির অনুকরণে

যে এই মৌসুমে ভক্তিভাবে তোমার গির্জাকে চাকচিক্য দান করে,

তাকে দান কর, আমরা প্রার্থনা করি, তার সুপারিশের মাধ্যমে,

যাতে আমরা প্রতিদিন আরো দৃঢ়ভাবে

তোমার একমাত্র প্রসূত পুত্রের যুক্ত থাকতে পারি,

এবং সবশেষে তার মহিমার পূর্ণতায় উপনিত হতে পারি ।

পোপ বেনেডিক্ট ষোড়শ -এর মোতু প্রোপরিও সামোরিয়াম পন্টিফিকাম কিছু শর্তে, ১৯৬২ সালের রোমান মিসাল ধারাবাহিকভাবে ব্যবহারের অনুমোদন দেন, যাতে লেন্টের পঞ্চম সপ্তাহের শুক্রবারের ভোজ অন্তর্ভুক্ত ।

পৃষ্ঠপোষকতা[সম্পাদনা]

শোকের জননীর পৃষ্ঠপোষক সন্ত -এর মধ্যে রয়েছে:

গির্জাঃ

গ্যালারী/প্রদর্শনশালা[সম্পাদনা]

শোকের জননী, " মাতের দোলোরোসা " ( শোকের জননী ) হিসাবে প্রচলিত, রোমান ক্যাথলিক মারিয়ান শিল্পকলার কিছু মূল রচনারও বিষয়। শোকার্ত ভার্জিন মেরির তিনটি সাধারণ শৈল্পিক উপস্থাপনার মধ্যে মাতের দোলোরোসা অন্যতম, অপর দুটি হলো স্তাবেত মাতের এবং পিয়েতা[১২]

এই মুর্তিশিল্প-এ, শোকের জননীকে মাঝে মাঝেই নিজের দ্বারা দুঃখিত এবং বেদনার্থ রূপে উপস্থাপন করা হয়, সাথে থাকে তার কান্না ও শোকের অভিব্যক্তি । অন্যান্য উপস্থাপনায় ভার্জিন মেরিকে তাঁর হৃদয়ে সাতটি তলোয়ার দিয়ে চিত্রিত থাকে,যা মন্দিরের যীশুর উপস্থাপনার সিমিয়নের ভবিষ্যদ্বাণীর একটি উল্লেখসূত্র ।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Encyclopedia of Catholic Devotions and Practices 
  2.  One or more of the preceding sentences incorporates text from a publication now in the public domainHolweck, Frederick (১৯১২)। "Feasts of the Seven Sorrows of the Blessed Virgin Mary"। Herbermann, Charles। Catholic Encyclopedia14। New York: Robert Appleton। সংগ্রহের তারিখ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  3. Order of Friar Servants of Mary: The Confraternity of Our Lady of Sorrows আর্কাইভইজে আর্কাইভকৃত ১৩ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে - retrieved on 22-Mar-2009
  4. Francis de Zulueta, 2008, Early Steps In The Fold, Miller Press, আইএসবিএন ৯৭৮-১-৪০৮৬-৬০০৩-৪, p. 301
  5. Kosloski, Philip (২০১৮-০২-১৭)। "A powerful novena in honor of the Sorrowful Mother"Aleteia। ২০১৮-০৬-১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-২৫The core of the prayers in the novena is the Via Matris, which can be found here. 
  6. "The Via Matris"Sisters of Our Lady of Sorrows। ২০১৬। ২০১৮-১২-২৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-২৮ 
  7. Churchly joy: Orthodox devotions for the church year by Sergeĭ Nikolaevich Bulgakov, Boris Jakim 2008 আইএসবিএন ০-৮০২৮-৪৮৩৪-৬ pages 10-11
  8. Orthodox life, Volumes 54-55, Holy Trinity Monastery (Jordanville, N.Y.) page 7
  9. Saunders, William. "The Feast of Our Lady of Sorrows", Arlington Catholic Herald, 2000
  10. "Calendarium Romanum", Libreria Editrice Vaticana, 1969, p. 103
  11. Calendarium Romanum (Typis Polyglottis Vaticanis 1969). p.119
  12. Arthur de Bles, 2004 How to Distinguish the Saints in Art by Their Costumes, Symbols and Attributes আইএসবিএন ১-৪১৭৯-০৮৭০-X page 35

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

দ্যা সেভেন সরোস অফ মেরি ( মেরির সপ্ত শোক ) জোয়েল গিয়ালানজা, সি,এস,সি, ২০০৮, অ্যাভে মারিয়া প্রেস কর্তৃক প্রকাশিত, আইএসবিএন ১-৫৯৪৭১-১৭৬-৩

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]