লুৎফর রহমান খান আজাদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লুৎফর রহমান খান আজাদ
শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
১১ ফেব্রুয়ারি ২০০২ – ২২ মে ২০০৩
বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
২২ মে ২০০৩ – ৬ মে ২০০৪
প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
৯ জুলাই ২০০৬ – ২৯ অক্টোবর ২০০৬
প্রধানমন্ত্রীখালেদা জিয়া
টাঙ্গাইল-৩ আসনেরের সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
৫ মার্চ ১৯৯১ – ২৯ অক্টোবর ২০০৬
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1957-01-01) ১ জানুয়ারি ১৯৫৭ (বয়স ৬২)
ঘাটাইল টাঙ্গাইল
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)

লুৎফর রহমান খান আজাদ একজন বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী। তিনি টাঙ্গাইল-৩ আসন থেকে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত খালেদা জিয়ার দ্বিতীয় মন্ত্রীসভায় বিভিন্ন সময় শ্রম ও কর্মসংস্থান, বস্ত্র ও পাট এবং প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমান তিনি বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।[১][২]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

আজাদ ১৯৫৭ সালের ১ জানুয়ারি টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন।[৩] তার পিতার নাম হাবিবর রহমান ও মাতার নাম সুফিয়া খানম।[৩] উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত লেখাপড়া করে তিনি রাজীতিতে প্রবেশ করেন।[৩]

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

আজাদ ঘাটাইল উপজেলা নিয়ে গঠিত টাঙ্গাইল-৩ নির্বাচনী আসন থেকে ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।[২][৪][৫] এ তিনটি নির্বাচনে তিনি তার চাচাত ভাই ও আওয়ামী লীগের শামসুর রহমান খান শাহজাহানের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে যথাক্রমে ৭১,১৫৭, ৭৩,৮১৫ ও ৯৪,৪২০ ভোট পান ও বিজয়ী হন।[১][৪] ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একই আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী মতিউড় রহমানের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে ৮৩,০৭৬ ভোট লাভ করেন এবং পরাজিত হন।[৪][৬] ২০১৮ সালের নির্বাচনে একই আসনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের মনোনয়ন লাভ করেন।[৭]

আজাদ, খালেদা জিয়ার দ্বিতীয় মন্ত্রীসভায় ২০০২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০০৩ সালের ২২ মে পর্যন্ত শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী, ২২ মে ২০০৩ থেকে ৬ মে ২০০৪ পর্যন্ত বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী এবং ২০০৬ সালের ৯ জুলাই থেকে ২৯ অক্টোবর পর্যন্ত প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "এমপি রানার আসন দখলে নিতে আ.লীগের অর্ধডজন নেতা মাঠে"Bhorer Kagoj। ২৫ জুলাই ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসে ২০১৮ 
  2. https://www.banglanews24.com/mathe-ghate-voter-kotha/news/bd/685140.details
  3. "Election Commission Bangladesh: Candidate Disclosure"IIS Windows Server। ২৫ জুন ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসে ২০১৮ 
  4. "লুতফর রহমান খান আজাদ"প্রথম আলো। ১০ নভে ২০১৮। ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসে ২০১৮ 
  5. "আওয়ামী লীগের বিভক্তি কাজে লাগাতে চায় বিএনপি"সমকাল। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসে ২০১৮ 
  6. "মনোনয়ন দ্বন্দ্বে আওয়ামী লীগ বিএনপিতে স্বস্তি"মানবজমিন। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসে ২০১৮ 
  7. Kantho, Kaler (১৮ সেপ্টে ২০১৮)। "বিএনপির ১৭৩ প্রার্থী প্রায় চূড়ান্ত - কালের কণ্ঠ"Kalerkantho। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসে ২০১৮