শামসুর রহমান খান শাহজাহান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শামসুর রহমান খান শাহজাহান
টাঙ্গাইল-৩ আসন আসনের
সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
৭ ডিসেম্বর ১৯৭০ – ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১
কাজের মেয়াদ
৭ মার্চ ১৯৭৩ – ১৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৯
কাজের মেয়াদ
৭ মে ১৯৮৬ – ৩ মার্চ ১৯৮৮
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম১৯৩৩
মৃত্যু২ জানুয়ারি ২০১২
নাগরিকত্বব্রিটিশ ভারত (১৯৪৭ সাল পর্যন্ত)
পাকিস্তান (১৯৭১ সালের পূর্বে)
বাংলাদেশ
জাতীয়তাবাংলাদেশি
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
প্রাক্তন শিক্ষার্থীঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
পেশারাজনীতিবিদ

শামসুর রহমান খান শাহজাহান (১৯৩৩ - ২ জানুয়ারি ২০১২) ছিলেন একজন বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও সংসদ সদস্য। তিনি ১৯৭১ সালে গঠিত অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকারের টাঙ্গাইলময়মনসিংহ আঞ্চলিক প্রশাসন কাউন্সিলের সভাপতি ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের সহচর ছিলেন। এছাড়ও তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়নে একাধিকবার টাঙ্গাইল-৩ আসন থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

শাহজাহান ১৯৩৩ সালে টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলার বাগুন্তা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন।

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

শাহজাহান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত অবস্থায় ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত হন এবং ১৯৫৪ থেকে ১৯৫৬ সাল পর্যন্ত তিনি ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।[১] শিক্ষাজীবন শেষে তিনি টাঙ্গাইলের রাজনীতিতে সক্রিয় হন এবং ১৯৬৫ থেকে ১৯৬৭ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগের টাঙ্গাইল শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন ও ১৯৮৫ সালে সভাপতি নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে জেলা থেকে তাকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয়।[১] ২০০৪ সালের ৫ই জানুয়ারি পুনরায় তিনি সভাপতি নির্বাচিত হন ও মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।[১]

শাহজাহান ১৯৭০-এর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসন থেকে জয়ী হয়ে গণপরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন।[২] বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর অনুষ্ঠিত প্রথম[৩]১৯৮৬ সালে তৃতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একই আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে জয় লাভ করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।[২][৪][৫][৬] তবে তিনি ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী লুৎফর রহমান খান আজাদের কাছে পরাজিত হন।[৫][৭][৮][৯]

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ[সম্পাদনা]

শাহজাহান বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে সংগঠকের ভূমিকা পালন করেন। ১৯৭১ সালে অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকার (মুজিবনগর সরকার নামে পরিচিত) গঠিত হলে তিনি এ সরকারের ২ নং আঞ্চলিক প্রশাসন পরিচালনার দায়িত্ব পান। ২ নাম্বার প্রশাসনিক অঞ্চলটি ময়মনসিংহ ও টাঙ্গাইল জেলা থেকে ১৯৭০-এর নির্বাচনে নির্বাচিত জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদ সদস্যদের নিয়ে গঠিত হয়েছিল যেখানে তিনি সভাপতির দায়িত্ব পান। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে এ অঞ্চলটি ১১ নাম্বার সেক্টরের অধীনে পরিচালিত হয়। যুদ্ধ চলাকালীন তিনি অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে ভারতে সামরিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠিত করেন ও রাজনৈতিক নেতৃত্ব প্রদান করেন।

গ্রন্থ[সম্পাদনা]

শাহজাহান তার জীবদ্দশায় বেশ কিছু গ্রন্থ রচনা করেন। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, ‘মুক্তিযুদ্ধের ডায়েরি, চিঠি ও স্মৃতিচারণ’ এবং ‘কেউ দাবায়ে রাখতে পারবানা’। এর মধ্যে ‘কেউ দাবায়ে রাখতে পারবানা’ বইটি শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনের উপর ভিত্তি করে লিখিত।

ব্যক্তিগত ও পারিবারিক জীবন[সম্পাদনা]

শাহজাহানের চাচাত ভাই লুৎফর রহমান খান আজাদ বিএনপির মনোনয়নে চারবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন ও প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। ভাতিজা আমানুর রহমান খান রানা নবম ও দশম জাতীয় সংসদের সদস্য ছিলেন।[১] ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শাহজাহানের ভাই আতোয়ার রহমান খান টাঙ্গাইল-৩ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "টাঙ্গাইলে চালকের আসনে খান পরিবার"মানবজমিন। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  2. "রানার জায়গা দখলে আ'লীগের অর্ধডজন নেতা, স্বস্তিতে বিএনপি"দৈনিক যুগান্তর। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  3. "১ম জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. "৩য় জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. "টাঙ্গাইল-৩: বিএনপিকে ঠেকাতে রানার বিকল্প নেই"বাংলানিউজ২৪.কম। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  6. "এমপি রানার আসন দখলে নিতে আ.লীগের অর্ধডজন নেতা মাঠে"ভোরের কাগজ। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  7. "লুতফর রহমান খান আজাদ"প্রথম আলো। ১০ নভে ২০১৮। ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসে ২০১৮ 
  8. "একাদশ সংসদ নির্বাচন"সমকাল। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  9. "রানার পরিবর্তে কে হচ্ছেন প্রার্থী"বাংলাদেশ প্রতিদিন। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮