যমুনা বরুয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(যমুনা বড়ুয়া থেকে পুনর্নির্দেশিত)
যমুনা বরুয়া
Jamuna.png
জিন্দেগিতে যমুনা বরুয়া
জন্ম
যমুনা গুপ্ত

(১৯১৯-১০-১০)১০ অক্টোবর ১৯১৯
মৃত্যু২৪ নভেম্বর ২০০৫(2005-11-24) (বয়স ৮৬)
কর্মজীবন১৯৩৪–১৯৫৩
দাম্পত্য সঙ্গীপ্রমথেশ চন্দ্র বরুয়া
দেবদাসে কুণ্ডল লাল সায়গল ও যমুনা, বরুয়া'র ১৯৩৬ সালের হিন্দি সংস্করণ।

যমুনা বরুয়া ( অসমীয়া: যমুনা বৰুৱা) (১০ অক্টোবর ১৯১৯ - ২৪ নভেম্বর ২০০৫) একজন শীর্ষস্থানীয় ভারতীয় অভিনেত্রী।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

যমুনা ভারতের আগ্রার নিকটবর্তী একটি গ্রামের বাসিন্দা পুরান গুপ্তের ছয় কন্যার মধ্যে চতুর্থ ছিল। প্রতিটি বোনের নাম করণ করা হয় গঙ্গা, যমুনা, ভাগীরথী ইত্যাদি ভারতীয় নদীর নামে।ভাগ্য অনুযায়ী যমুনা ভারতের একটি শীর্ষস্থানীয় চলচ্চিত্র উৎপাদনকারী শহর কলকাতায় বসবাস করতে আসেন। মূলত অসমের গোয়ালপাড়া জেলার গৌরীপুরের (অবিভক্ত) , যমুনার কিংবদন্তি অভিনেতা পরিচালক প্রমথেশ বরুয়া বা পি.সি বরুয়ার সাথে বিয়ে হয়েছিল, যিনি ১৯৫০ সালে মারা গিয়েছিলেন। [১] দেবদাস [২] ১৯৩৬ সালে তার অভিনয় জীবন শুরু করেছিলেন এবং চলচ্চিত্রের প্রধান চরিত্রে ছিলেন পার্বতী বা পারোতিনি অসমীয়া, বাংলাহিন্দিতে বেশ কিছু স্মরণীয় চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন আমিরি, মুক্তি, অধিকার এবং শেষ উত্তর। বরুয়ার মৃত্যুর পর তিনি অভিনয় করা বন্ধ করে দেন। [৩]

চলচ্চিত্র ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

যমুনা ১৯৩০-এর দশকে তার চলচ্চিত্রে আত্মপ্রকাশ করেন এবং মহব্বত কি কাসাউতি (১৯৩৪), পি.সি বরুয়া পরিচালিত রূপলেখা (বাংলা) এর হিন্দি সংস্করণ একটি ছোট চরিত্রে অভিনয় করেন।[৪] একটি প্রেম শুরু হয় যদিও ভারতের আদিবাসী রাজ্য অসমের রাজ্যের গৌরীপুরের বাসিন্দা বরুয়া ইতোমধ্যে দুইবার বিয়ে করেন। অভিনেত্রী হিসেবে, যিনি বরুয়ার পরবর্তী উদ্যোগে পার্বতী চরিত্রে অভিনয় করার কথা ছিল দেবদাসে (১৯৩৫)[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] শুটিংয়ের প্রথম দিনেই স্টুডিওতে উপস্থিত থাকতে অক্ষম হওয়ার সংবাদ প্রদান করেন, যমুনাকে বরুয়ার বাসভবন থেকে ডাকা হয় (তিনি ততক্ষণে তার সাথে ছিলেন) এবং তাকে সরাসরি কাজে নামতে বলা হয়।[৫] এইভাবে তিনি ভারতীয় টকিজের প্রথম পার্বতী হন- মিস লাইট অত্যন্ত জনপ্রিয় শরৎচন্দ্র উপন্যাসের নীরব সংস্করণে ভূমিকা পালন করেছিলেন। ঐশ্বর্যা রাই এখন পর্যন্ত সর্বশেষ করছে এবং দেবদাস বেশ কয়েকবার তৈরি এবং পুনরায় তৈরি করা হয়েছে। যমুনা হিন্দি সংস্করণেও একই ভূমিকা পালন করেন এবং তার নিজের অধিকারে একজন অভিনেত্রী হিসেবে এই প্রথম যথাযথ এক্সপোজারগ্রহণ করা হয়। তিনি বরুয়ার গ্রাহাদাহ (১৯৩৬), মায়া (১৯৩৬), অধিকারী (১৯৩৯), উত্তরায়ন (১৯৪১), শেষ উত্তর (১৯৪২), চন্দ্র কালাঙ্কা (১৯৪৪) এবং প্রতিটি চলচ্চিত্রের সংশ্লিষ্ট হিন্দি সংস্করণের মতো চলচ্চিত্রে অভিনয় অব্যাহত রাখেন। বরুয়া ১৯৪০ সালে মর্যাদাপূর্ণ নিউ থিয়েটার্স ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন এবং পরিচালনার পাশাপাশি তাঁর চলচ্চিত্র প্রযোজনা করেন। এরপরে তিনি আমিরি, পেহচান এবং ইরান কি এক রাতের মত বরুয়া পরিচালিত বেশ কয়েকটি হিন্দি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। এই চলচ্চিত্রগুলি অবশ্য বরুয়া বা যমুনার প্রতিপত্তিতে কোনও যোগই করতে পারেনি। যমুনা তিনটি বাংলা চলচ্চিত্র দেবর (১৯৪৩) ও নীলাঙ্গুরিয়া (১৯৪৩) ছবিতে বরুয়ার পরিচালনায় অভিনয় করেন যেখানে তিনি বরুয়ার প্রভাব ছাড়াই নিজেকে প্রমাণ করেন। তার শেষ চলচ্চিত্র মালাঞ্চ (১৯৫৩) এছাড়াও বরুয়ার পরিচালনার বাইরে ছিল। তিনি তার হিন্দি সংস্করণ ফুলওয়ারি (১৯৫৩) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ১৯৫১ সালে মাত্র ৪৮ বছর বয়সে বরুয়ার মৃত্যু যমুনার জীবনকে পুরোপুরি বদলে দেয়। তাঁর তিন সন্তান ছিল বরুয়া, দেব কুমার, রজত ও প্রসূন। তারা সবাই সে সময় নাবালক ছিল এবং গৌরীপুর এস্টেট তাদের কোন দায়িত্ব নিতে অস্বীকার করে। তাকে এবং তার সন্তানদের বকেয়া এবং স্বীকৃতি পেতে তাকে ক্ষমতাবান এবং প্রভাবশালী রাজপরিবারের সাথে একটি আইনি লড়াই করতে হয়। সময় বিষয়টি নিষ্পত্তি করে এবং তাকে তার বিশাল সংলগ্ন জমি এবং একটি ভাতা সহ বাড়ির মালিকানা অনুমোদন করা হয়। যমুনা তার বাকি জীবন বরুয়ার পর গৃহিণী হিসেবে অতিবাহিত করেন, তার নাবালক সন্তানদের লালন-পালন করতে ব্যস্ত হোন। তিনি অবশ্যই অসমাপ্ত চলচ্চিত্র মালাঞ্চ সম্পন্ন করতে হয় কিন্তু শীঘ্রই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিকে বিদায় জানাতে হয়। পরবর্তী জীবনে তিনি স্বামী পি.সি বরুয়ার শতবার্ষিকী উদ্‌যাপন উপলক্ষে বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে যোগ দেন এবং ভারত সরকার ও অসম সরকারের পক্ষ থেকে ভারতীয় টকিজের প্রথম পার্বতী হিসেবে সংবর্ধনা লাভ করেন।[৬]

পরবর্তী জীবন[সম্পাদনা]

তার শেষ দিনগুলো খুব একটা আরামদায়ক ছিল না এবং মৃত্যুর আগে ছয় মাসের বেশি সময় ধরে তিনি শয্যাশায়ী ছিলেন। তিনি তার তিন পুত্র এবং তাদের পরিবার এবং অনেক আত্মীয় দ্বারা বেঁচে আছে। তার পরিবারের সদস্যদের মতে, তিনি কিছুদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন, এবং মৃত্যুর কারণ ছিল বার্ধক্য জনিত অসুস্থতা। দক্ষিণ কলকাতায় তাঁর নিজের বাসভবনে তিনি মারা যান।

ফিল্মোগ্রাফি[সম্পাদনা]

দেবদাস ছবিতে প্রমথেশ বরুয়া ও যমুনা বরুয়া (১৯৩৫)
  • মালঞ্চ [বাংলা সংস্করণ] / ফুলওয়ারী [হিন্দি সংস্করণ] (উভয় ১৯৫৩)
  • ইরান কি এক রাত (১৯৪৯)
  • সুলেহ (১৯৪৬)
  • সুবাহ শ্যাম (১৯৪৪)
  • দেবর (১৯৪৩) .... নমিতা
  • রানী (১৯৪৩)
  • জবাব (১৯৪২).... রেবা
  • উত্তরায়ণ (১৯৪১).... আরতি
  • হিন্দুস্তান হামারা (১৯৪০).... বীণা
  • জিন্দেগি (১৯৪০).... শ্রীমাতা
  • অধিকার (১৯৩৯).... ইন্দিরা
  • দেবদাস (১৯৩৬).... পার্বতী / পারো
  • গৃহহাদ (১৯৩৬).... আচলা
  • মঞ্জিল (১৯৩৬).... আচলা
  • মায়া (১৯৩৬ / ১ম) .... মায়া
  • মায়া (১৯৩৬ / ২য়) .... মায়া
  • দেবদাস (১৯৩৫).... পার্বতী / পারো
  • রূপ লেখা (১৯৩৪) / ( হিন্দিতে মোহাব্বত কি কসৌতি ).... হিন্দি সংস্করণে গৌণ ভূমিকা

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Pallab Bhattacharya (২০১৫-০৮-২১)। "A grand cinematic exchange"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-১৫ 
  2. "Looking back at Bollywood in Posters"Rediff.com। ২০১০-০৬-০১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-১৫ 
  3. "IndiaGlitz - Original Paro of 'Devdas' passes away - Bollywood Movie News"। Indiaglitz.com। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০২-১৮ 
  4. "Roop Lekha (1934)"chiloka.com। সংগ্রহের তারিখ ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  5. Namrata Joshi। "Namrata Joshi on Shivendra Singh Dungarpur's enviable collection of film memorabilia"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-১৫ 
  6. "Radiating with brilliance"The Hindu। ২০১৫-০৬-২৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]