মিতা পন্ডিত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মিতা পন্ডিত
জন্মনয়াদিল্লী, ভারত
উদ্ভবভারত
ধরনভারতীয় শাস্ত্রীয় সংগীত, হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সংগীত
পেশাসংগীতশিল্পী
বাদ্যযন্ত্রসমূহগাওয়া
কার্যকাল১৯৮৩-বর্তমান
লেবেলইএমআই, সারেগামা, আন্ডারস্কোর
ওয়েবসাইটমিতা পন্ডিত.কম

মিতা পন্ডিত একজন হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সংগীত শিল্পী যিনি গোয়ালিয়র ঘরনার গান পরিবেশন করে থাকেন। তিনি কৃষ্ণরাও শংকর পন্ডিত এর নাতনি ও শিষ্যা ছিলেন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

মিতা পন্ডিত জন্মেছিলেন নয়াদিল্লীতে[১] তার পিতা লক্ষ্মণ কৃষ্ণরাও পন্ডিত ছিলেন শাস্ত্রীয় সংগীতে সুদক্ষ। তার বাবা সংগীত নাটক আকাদেমি পুরস্কারে ভূষিত হয়েছিলেন।[২][৩][৪][৫] তার মা আভা পন্ডিত ছিলেন গৃহিণী।

তিনি তার প্রারম্ভিক জীবন নয়াদিল্লীতে অতিবাহিত করেন। সেখানকার সেন্ট মেরিজ কলেজে তিনি উচ্চমাধ্যমিক পর্যন্ত পড়েছিলেন। তিনি দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে লেডি শ্রীরাম কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন।[৬][৭]

তিনি, তার ঠাকুর্দা পদ্মভূষণ পুরস্কারজয়ী কৃষ্ণরাও শংকর পন্ডিত ও বাবা লক্ষ্মণ কৃষ্ণরাও পন্ডিতের নিকট, ৩ বছর বয়স থেকে গানের তালিম নেওয়া আরম্ভ করেছিলেন।

প্রাথমিকভাবে, অনিয়মিত কাজের সময় এবং একা ভ্রমণ করতে হয় বলে, মিতা পন্ডিতের বাবা মা চেয়েছিলেন তিনি যেন স্থায়ী কোন পেশাতে নিযুক্ত হন।[৮] তার বড় ভাই তুষার পণ্ডিতকে পরিবারের ঘরানা এগিয়ে নিয়ে যাবার জন্য তালিম দেওয়া হচ্ছিল। কিন্তু তুষার পন্ডিত, হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সংগীত এ পিএইচডি ডিগ্রি নেবার সময়ে, ২৭ বছর বয়সে, এক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন।[৯][১০][১১] সেই সময় মিতা তার স্নাতক ডিগ্রি অর্জন এবং এমবিএর প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এই ঘটনার পর তিনি পরিবারের ঘরানা এগিয়ে নিয়ে যাবার সিদ্ধান্ত গ্রহণ ক'রে, সংগীতকেই পেশা হিসেবে বেছে নেন। তিনি এমবিএ করার পরিবর্তে সংগীতে স্নাতকোত্তর করেন এবং হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সংগীতের উপরে ডক্টরেট ডিগ্রি লাভ করেন।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

মাত্র নয় বছর বয়সেই তিনি 'প্রসঙ্গ' সংগীত উৎসবে সংগীত পরিবেশনা করেছিলেন।[৮] ১৫ বছর বয়সে তিনি বারাণসীর সংকট মোচন উৎসবে সংগীত পরিবেশন করেন।[১]

১৯৯৫ থেকে ২০০৫ সালের মাঝে তিনি ভারত ও ভারতের বাইরের দেশ যেমন : ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য, সুইজারল্যান্ড, নরওয়ে, ইতালি, যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়াবাংলাদেশে সংগীত পরিবেশন করেছেন।[১]

২০০৩ সালে নয়াদিল্লীতে অবস্থিত ফরাসি দূতাবাসের এক বিশেষ প্রোগ্রামে তিনি তিন মাসের জন্য প্যারিসে থেকে "আর্টিস্ট ইন রেসিডেন্স" হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।[১২]

তিনি ২০০৪ সালে ভারতের সাংস্কৃতিক দূত হিসেবে পাকিস্তানের ইসলামাবাদে অনুষ্ঠিত সার্ক সম্মেলনে অংশ নিয়েছিলেন।[১১][১৩]

২০০৮ সালে ওয়ার্ল্ড স্পেস স্যাটেলাইট রেডিওতে 'স্বর শৃঙ্গার' নামের একটি অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেছিলেন তিনি।[১২] তিনি আমস্টারডামের তবলাবাদক হেইকো ডিজকারের সাথে দ্য লুমিন্যান্স প্রজেক্ট (২০১২) নামের একটি অ্যালবামে কাজ করেছিলেন।[১৪] ২০০৯ সাল থেকে তিনি ইন্দিরা গান্ধী ন্যাশনাল সেন্টার ফর আর্টস এর সাথে সংযুক্ত আছেন।[৪][১৫][১৬][১৭]

তিনি ভজন, ঠুমরী, টপ্পা, গজলখেয়ালে সুদক্ষ। তিনি ভারতীয় শাস্ত্রীয় সংগীতকে বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে কাজ করে চলেছেন।[১৩]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

মিতা পন্ডিত হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সংগীত জগতে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে পেয়েছেন নানা পুরস্কার। এগুলো হল:

  • গোল্ডেন ভয়েজ অব ইন্ডিয়া পুরস্কার (১৯৮৯)
  • সুর মনি পুরস্কার (১৯৯২)
  • এক্সেলেন্স ইন মিউজিক পুরস্কার (১৯৯৫)
  • ফুল সার্কেল ইনার ফ্লেম পুরস্কার (১৯৯৯)[১৮]
  • যুব রত্ন পুরস্কার (১৯৯৯)
  • সুর ময়াঙ্ক পন্ডিত নিখিল ব্যানার্জী স্মৃতি পুরস্কার (২০০১)
  • যুব ওজস্বিনী পুরস্কার (২০০৫)[১৯]
  • এফআইসিসিআই ইয়ং অ্যাচিভার অ্যাওয়ার্ড (২০০৭)
  • বিসমিল্লাহ্ খান পুরস্কার (২০০৭)[২০]
  • দিল্লি রত্ন পুরস্কার (২০০৯)
  • আর্ট কারাত অ্যাওয়ার্ড (২০১৩)
  • সামাপা যুবরত্ন পুরস্কার (২০১৫)[২১]

অ্যালবাম তালিকা[সম্পাদনা]

তার প্রকাশিত অ্যালবামগুলো হল:

  • রাগ রং
  • অর্পণ
  • ইয়ং মায়েস্ট্রো
  • দ্য লুমিন্যান্স প্রজেক্ট
  • ঘরনা অউর পরম্পরা (ভলিউম ১ ও ২)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Meeta Pandit taking classical music to the young"। Zee News। Zee Media Corporation Limited। ৫ এপ্রিল ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  2. "Tagore Akademi Ratna and Tagore Akademi Puraskar"Sangeet Natak Akademi। Sangeet Natak Akademi। ৭ জুলাই ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  3. "Lakshman Pandit is the last surviving doyen of the hoary Gwalior gharana"India Today। India Today Group। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  4. "Ongoing legacy"। The Hindu। The Hindu। ২৭ নভেম্বর ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  5. "Sangeet Natak Akademi Puraskar (Akademi Awards)"Sangeet Natak Akademi। Sangeet Natak Akademi। ৩০ মে ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  6. "Campus Days - Trading notes"। The Hindu। The Hindu। ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  7. "Lady Shri Ram College For Women" (PDF)lsr.edu.in। Lady Shri Ram College। ৩১ মার্চ ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  8. "A young star of classical music traditions"। The Sunday Guardian। ২৬ অক্টোবর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  9. "Obituary"। The Times Of India। Bennette, Coleman & Co. Ltd.। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  10. "I Was Prepared For Everything God Had In Store For Me"। Tehelka.com। Tehelka.com। ২৮ জুন ২০১৪। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  11. "Upholding a family legacy, and also going beyond it"। The Hindu। The Hindu। ৯ এপ্রিল ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  12. "With music genres on tabs"। Deccan Herald। Deccan Herald। ২২ ডিসেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  13. "Music Maestro"Womensera.com। Woman's Era। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  14. "Indian classical needs support to sustain itself: Meeta Pandit"। Zee News। Zee Media Corporation Limited। ৫ আগস্ট ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  15. "Lady of Lineage"। The Sunday Standard। The New Indian Express Group। ১৩ এপ্রিল ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  16. "Diva of classical music"। Tribune India। The Tribune। ৭ আগস্ট ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  17. "Gems from classical music maestros recorded for posterity"। Business Standard। Press Trust Of India। ২৩ জুলাই ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  18. "Biography"last.fm। CBS Interactive। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  19. "Meeta Pandit"Sawai Gandharva Bheemsen Mahotsav। Sawai Gandharva Bheemsen Mahotsav। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  20. "Ustad Bismillah Khan Yuva Puraskar 2007"sangeetnatak.gov.in। Sangeet Natak Akademi। ৪ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬ 
  21. "Santoor maestro Bhajan Sopori announces SaMaPa awards"। The Indian Express। The Indian Express। ১৮ নভেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৬