সারেগামা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সারেগামা ভারত
সর্বজনীন
শিল্প দোকান, রেকর্ড দোকান এবং হোম ভিডিও
প্রতিষ্ঠাকাল ১৩ আগষ্ট ১৯৪৬ (দ্যা গ্রামোফোন কোম্পানী), ৩ নভেম্বর ২০০০ (সারেগামা)
সদরদপ্তর লখনউ, উত্তর প্রদেশ, ভারত
অঞ্চলিক পরিসেবা
বিশ্বব্যাপী
প্রধান ব্যক্তি
সুরিয়া মেনথা (ব্যবস্থাপনা পরিচালক)
পণ্যসমূহ সংগীত ক্যাসেট গুলি, কম্প্যাক্ট ডিস্ক, ভিসিডি, ডিভিডি, গ্রামোফোন রেকর্ড (পূর্বের)।
মূল প্রতিষ্ঠান আরপিজি গ্রুপ
অধীনস্থ প্রতিষ্ঠান সারেগামা হোম ভিডিও
ওয়েবসাইট http://www.saregama.com/

সারেগামা ইন্ডিয়া লিমিটেড, (ইংরেজি: Saregama India Limited) পূর্বে দ্যা গ্রামোফোন কোম্পানী অব ইন্ডিয়া, হল একটি ভারতীয় সঙ্গীত কোম্পানী। এছাড়াও সারেগামা হোম ভিডিওর ব্যবসায়িক কাজ করে থাকে। এটা সঙ্গীত লেবেল সারেগামা, আরপিজি মিউজিক এবং এইচএমভি ব্যবহার করে।

সারেগামা কলকাতার পশ্চিমবঙ্গ অবস্থিত।

পরিদর্শন[সম্পাদনা]

১৯০১ সালে এটি ইলেক্ট্রিক এন্ড মিউজিকাল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, ইমিআই, লন্ডনে প্রথম বিদেশী শাখা হিসাবে কার্যক্রম শুরু করে।

আরপিজি গ্রুপ ইএমআই থেকে ১৯৮৫ সালে এই কোম্পানীর উপর দায়িত্ব নেন। ২০০৫ সালে, এই কোম্পানীর গত ৮% অবশিষ্ট ইএমআই পণ বিক্রি হয়, ইএমআই থেকে এটি সম্পূর্ণভাবে সম্পর্কহীনভাবে তৈরী হয়।[১] এখন, ইএমআই এর কার্যক্রম ভারতে ১৯৯৮ সালে শুরু হয় যা ভার্জিন রেকর্ডস ভারতের অধীন ছিল।

নভেম্বর ৩, ২০০০ সালে পশ্চিমবঙ্গে কোম্পানির নাম "দ্যা গ্রামোফোন কোম্পানী অব ইন্ডিয়া লিমিটেডের" থেকে "সারেগামা ইন্ডিয়া লিমিটেড" নামে পরিবর্তন করা হয়। নাম পরিবর্তন করার জন্য কোম্পানির অভিপ্রায় সঙ্গীত এবং বিনোদন ব্যবসার মধ্যে একটি ভারতীয় কোম্পানী হিসাবে এর জায়গা রিপজিশনে ছিল। "সারেগামা" নামটি ভারতীয় বাদ্যযন্ত্র স্কেলের প্রথম চারটি নোট বোঝায়।[২]

সঙ্গীত[সম্পাদনা]

সারেগামা ভারতের প্রাচীনতম ও বৃহত্তম রেকর্ড লেবেলগুলোর মধ্য অন্যতম একটি। সারেগামা ৭০০০০ এর অধিক গান এবং ৬০০ টি ক্যাসেট ও সিডি নির্মানের কাজ করেছে। সারেগামা নিম্নলিখিত আকারে সেবা প্রদান করে থাকে:

  • ছায়াছবির গান (পুরাতন এবং নতুন) – ৭০% ভারতের সর্বদা সঙ্গীত রেকর্ড।
  • ধার্মিক (জাতীয় এবং আঞ্চলিক)
  • গজল ও শাস্ত্রীয় (হিন্দুস্থানী ও কর্ণাটক)
  • হিন্দি পপ এবং বিশ্ব সঙ্গীত এবং ধ্রুপদী সঙ্গীত
  • রিমিক্স এবং পপ ভাঙ্গরা
  • আঞ্চলিক - পাঞ্জাবি, বাংলা, তামিল, মালায়ালম, কন্নড, তেলুগু, গুজরাটি, মারাঠি, অসমিয়া, ওড়িয়া, চৈত্তসগাদী

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]