মারজুক রাসেল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মারজুক রাসেল
জন্ম (1973-08-15) ১৫ আগস্ট ১৯৭৩ (বয়স ৪৭)
গোপালগঞ্জ, বাংলাদেশ
জাতীয়তাবাংলাদেশি
পেশাকবি, গীতিকার, মডেল, অভিনেতা
কর্মজীবন২০০৩-বর্তমান

মারজুক রাসেল (জন্ম ১৫ আগস্ট ১৯৭৩) একজন বাংলাদেশী কবি, গীতিকার, মডেল এবং অভিনেতা। তার কর্মজীবনের শুরু কবিতা ও গানের গীত রচনার মধ্য দিয়ে। তিনি টেলিভিশন নাটকের মাধ্যমে অভিনেতা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন, টেলিভিশনে তার অভিনীত প্রথম কাজ ছিল মোস্তফা সরওয়ার ফারুকী পরিচালিত আয়না মহল। সেই থেকে তিনি বহু টেলিভিশন নাটকে অভিনয় করেছেন এবং অসংখ্য টেলিভিশন বিজ্ঞাপনে কাজ করেছেন। তিনি ২০০৪ সালে ব্যাচেলর চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অভিনয়ের সূচনা করেন এবং প্রশংসা পান। মারজুক একাধিক সঙ্গীত ভিডিওতে কাজ করেছেন, যেমন ঘুড়ি তুমি কার আকাশে উড়ো (২০১২),[১] স্মৃতি কথা (২০১৭)।[২]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

মারজুক রাসেলের জন্ম ১৫ ই আগস্ট তার মাতৃগ্রাম গোপালগঞ্জ জেলায়[৩] তার বাবা গোপালগঞ্জের একটি জুট মিলে কাজ করতেন। বাবার চাকরি সূত্রে তিনি বড় হয়েছেন খুলনার দৌলতপুরে। তিনি প্রথমে কৃষ্ণমোহন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন, তবে তার বাবা তাকে একটি মাদ্রাসায় ষষ্ঠ শ্রেণীতে ভর্তি করান। মাদ্রাসায় তিনি শ্রেণী বৈষম্যে ভুগেছিলেন।[৪] খুলনায় থাকাকালীন তিনি ১৯৮৪-৮৫ সালে ঢাকার সংবাদপত্রে ছাপার জন্য কবিতা লিখে পাঠাতেন। ১৯৯৩ সালে দৈনিক বাংলার বাণীতে তার প্রথম কবিতা ছাপা হয়। এরপর নিয়মিত তার কবিতা বিভিন্ন দৈনিকে ছাপা হয়।[৫]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

মারজুক ১৯৯৫ সালে গান লেখা শুরু করেন। সে সময় তিনি গান লিখে বিভিন্ন সুরকারকে দিতেন, কিন্তু কোন সুরকার তার গান নেননি। দুই বছর পর তিনি এক বন্ধুর বাসায় জেমসের গাওয়া "মান্নান মিয়ার তিতাস মলম" গান শুনে জেমসের সাথে দেখা করার সিদ্ধান্ত নেন। লেখালেখির সূত্র ধরে তার সঞ্জীব চৌধুরীর সাথে পরিচয় ছিল, তার মাধ্যমেই সাউন্ড গার্ডেন স্টুডিওতে জেমসের সাথে সাক্ষাৎ করেন। জেমস তখন লেইস ফিতা অ্যালবামের কাজ করছেন। মারজুক সেই অ্যালবামের জন্য "হাউজি", "দে দৌড়", এবং "রাখে আল্লাহ মারে কে" গান লিখেন।[৫] এরপর সাড়ে চার বছর জেমসের সাথে কাজ করেন। জেমসের "ঠিক আছে বন্ধু" অ্যালবামের জন্য "মীরাবাঈ", "এপিটাফ", "পত্র দিও"সহ ৭-৮টি গান লিখেন। "মীরাবাঈ" তার লেখা প্রথম জনপ্রিয় গান।[৫] এরপর তিনি বৃহস্পতি মিক্সড অ্যালবামের জন্য লিখেন "তেরো নদী সাত সমুদ্দুর", "শুরু হলো ভালোবাসা"। তিনি পুনরায় জেমসের জন্য পাগলা হাওয়া অ্যালবামের "আমি ভাসবে যে জলে" গান লিখেন।[৫]

তার প্রথম প্রকাশিত কাব্যের শিরোনাম শান্টিং ছাড়া সংযোগ নিষিদ্ধ। তারপরে তিনি যথাক্রমে তিনটি কবিতা লিখেছিলেন - চান্দের বুড়ির বয়স যখন ষোল (২০০৩), বাঈজী বাড়ি রোড, ছোট্ট কোথায় টেনিস বল

তিনি প্রথম মোস্তফা সরওয়ার ফারুকী পরিচালিত আয়না মহল ভিডিও ফিকশনের মধ্য দিয়ে অভিনয় জীবন শুরু করেন।[৬] এরপর তিনি চড়ুইভাতি টিভি নাটকে অভিনয় করেন। ফারুকীর সহকারী হিসেবে তিনি স্বরবর্ণ থিয়েটারে কাজ করেন।[৫] ২০০৪ সালে ব্যাচেলর দিয়ে তার চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে এবং তার কাজ বেশ প্রশংসিত হয়।[৭]

বইসমূহ[সম্পাদনা]

  • শান্টিং ছাড়া সংযোগ নিষিদ্ধ (২০০০)
  • চাঁদের বুড়ির বয়স যখন ষোলো (২০০৩)[৮]
  • বাঈজী বাড়ি রোড
  • ছোট্ট কোথায় টেনিস বল (২০০৫)[৯]
  • দেহবণ্টনবিষয়ক দ্বিপক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষর (২০২০)[১০]

চলচ্চিত্রের তালিকা[সম্পাদনা]

অভিনেতা
বছর শিরোনাম চরিত্র টীকা
২০০৪ ব্যাচেলর মারজুক সহযোগী পরিচালক[৬]
২০০৭ মেড ইন বাংলাদেশ সাদেকুর রহমান [৬]
২০১৭ রাত্রির যাত্রী
২০১৯ দি ডিরেক্টর
সাপলুডু

টেলিভিশন[সম্পাদনা]

নাম বছর চরিত্র পরিচালক মন্তব্য
কানামাছি - - মোস্তফা সরোয়ার ফারুকী
স্বরবর্ণেরর চোখে - মোস্তফা সরওয়ার ফারুকী
আয়না মহল - - [৬]
একান্নবতী টিভি সিরিজ[৬]
পালাবি কোথায় ওয়েব সিরিজ
৪২০ - - মোস্তফা সরওয়ার ফারুকী
কবি - - মোস্তফা সরওয়ার ফারুকী
মুরব্বি - -
অস্থির প্রেমিক - -
ক্যাপটিন - -
চড়ুইভাতি ২০০২ মারজুক মোস্তফা সরওয়ার ফারুকী
হাউজ ফুল ২০০৯ সুজন রেদওয়ান রনি, ইফতেখার আহমেদ ফাহমি ড্রামা সিরিজ
রিলেশন ২০১৩ [৬]
বিশ্বাস ২০১০
খরসু+ময়না মোস্তফা সরওয়ার ফারুকী
বিসিএস পাগলা প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র ২০১৪
মিঃ টেনশন ২০১৮
ছাতি রইস ২০১৮ ছাতি রইস জুবাইর আনার
ব্যাচেলর পয়েন্ট ২০২০ পাশা কাজল আরেফিন অমি

গীতকার[সম্পাদনা]

নাম চলচ্চিত্র বছর শিল্পী

আমিতো প্রেমে পরি নি
গোল্লা
ঈশান কোনের বায়ু
ও আমার পাগলা ঘোড়ারে

ব্যাচেলর (চলচ্চিত্র) ২০০৩ আইয়ুব বাচ্চু
পান্থ কানাই
পান্থ কানাই
আসিফ আকবর
দ্বিধা
ভিতর বলে দূরে থাকুক
থার্ড পারসন সিঙ্গুলার নাম্বার ২০০৯ হাবিব, নাজমুন মুনিরা ন্যান্সি
দোলনা চাঁদের নিজের কোন আলো নেই - আরেফিন রুমি, নাজমুন মুনিরা ন্যান্সি

ওয়েব ধারাবাহিক[সম্পাদনা]

বছর শিরোনাম ওটিটি চরিত্র সহ-শিল্পী পরিচালক টীকা
২০২০ বদমাইশ পোলাপাইন মকবুল স্যার ফজলুর রহমান বাবু, প্রত্তয় হিরণ, মাখনুন সুলতানা মহিমা, রায়হান খান, রাশেদ এমরান, আহসান হাবিব নিলয়, তৌফিকুল হাসান নিহাল, তানজিম হাসান অনিক, তানভীর নিলয়, আয়েশা সালমা মুক্তি, এস এম সামিউল আলম, সাগর হুদা, নিপুন আহমেদ মাবরুর রশিদ বান্নাহ

গান[সম্পাদনা]

নাম অ্যালবাম বছর শিল্পী

লেইস ফিতা লেইস
দে দূরে
বাইসকুপের খেলা
রাখে আল্লাহ মারে কে
হাউজি

লেইস ফিতা লেইস ১৯৯৮ জেমস

জাত যায়
কথা
সারাবে সারাব
পাখি উড়ে যায়
পত্র দিও
মীরাবাঈ

ঠিক আছে বন্ধু ১৯৯৯ জেমস

তেরো নদী সাত সমুদ্র

বৃহস্পতি - জেমস
সবার বাংলাদেশ হ্রদয়ে রক্তক্ষরণ - আসিফ আকবর
তুমি হারিয়ে যাওয়ার সময় সঙ্গে নিও পাশানি ২০০৩ আসিফ আকবর
নারী ফিস ফাস ফিস - আসিফ আকবর

একটি পরীর গল্প
কি কারণে
কোন কে কেনো
ফুল বনমালী
বেশে যাওয়ার গান
পরিনতি'
উল্টোরথে'
সে

আজকাল তোমাকে

হ্রদগন্ত ২০০৭ হাসান মাসুদ
ফুল তোক্বা শখি তুমি কার ২০১৬ মারজুক রাসেল
  • হা ডু ডুর জেমস
  • ভাসবো যে জ্বলে প্রেম যমুনার কোলে জেমস
  • ললনা আইয়ুব বাচ্চু
  • তোমার চেখে দেখলে আইয়ুব বাচ্চু
  • বদলে আসিফ আকবর (২০১৬)
  • মিল আসিফ আকবর
  • মাইথ আসিফ আকবর
  • জলকণ্যা আসিফ আকবর
  • ফু (২০১৮) আসিফ আকবর
  • পুড়তে চাইলে

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "গানের চিত্রায়ণে মারজুক রাসেল"প্রথম আলো। ১২ জুন ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  2. "দশ বছর পর মিউজিক ভিডিওতে মারজুক রাসেল"Jago News 24। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  3. "Poet, Songwriter & Actor Marzuk Russell says…"নিউ এজ (বাংলাদেশ) (সাক্ষাৎকার)। সাক্ষাত্কার গ্রহণ করেন Islam Sadequle। ১২ মে ২০১৫। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  4. আব্দুল্লাহ নুহ। "মারজুক রাসেল একজন সৃষ্টিশীল মানুষ"। সাপ্তাহিক। 
  5. মন্‌জু, শেখ (আগস্ট ২০০৪)। "শান্টিং ছাড়া সংযোগ নিষিদ্ধ"। আনন্দধারা১৪২ 
  6. Entertainment Desk (২৩ জুন ২০১৩)। "Marzuk Russell-Shokh in TV play for first play"businessnews24bd.com। Business News 24। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  7. Sheikh Arif Bulbon (২৫ ডিসেম্বর ২০১৪)। "Sonia-Marzuk Russell New pair in film industry" (মুদ্রণ)দি নিউ নেশন। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  8. "Chader Burir Boyosh Jokhon Solo"RokomariRokomari.com। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  9. "Chotto Kothay Tenisbol"e-anyaprokash। Anyaprokash। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  10. "মারজুক রাসেলের বই এক ঘণ্টায় শেষ"। সংগ্রহের তারিখ ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০