মায়মুনা বিনতে আল-হারিস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

মায়মুনা বিনতে আল-হারিস আল-হিলালিয়াহ (আরবি: ميمونة بنت الحارث الهلالية‎‎, Maymūnah bint al-Ḥārith al-Hilālīyah) ছিলেন ইসলামের শেষ নবী মুহাম্মাদ-এর স্ত্রী। তার প্রকৃত নাম ছিল বাররাহ, কিন্তু মুহাম্মাদ তার নাম পরিবর্তন করে মায়মুনা রেখেছিলেন।

পরিবার[সম্পাদনা]

তার পিতা আল-হারিস ইবনে হাজন ছিলেন মক্কা নগরীর হিলাল উপজাতিদের একজন। তার মাতা হিন্দ বিনতে আউফ ছিলেন ইয়েমে্নের হিমার নামক উপজাতিদের একজন। তার আপন বড় বোনের নাম ছিল লুবাবা বিনতে আল-হারিস। তার পিতৃ পক্ষের বোনেরা ছিলেন লায়লা, হাযায়লা আর আজ্জা। তার মাতৃ পক্ষের সহোদররা ছিলেন মাহমিইয়্যা ইবনে যাজী আল-জুবাইদী, আসমা বিনতে উমায়্যা (আবু বকর-এর স্ত্রী), সালমা বিনতে উমায়্যা (হামযা ইবনে আব্দুল্লাহ আল-মুত্তালিব এর স্ত্রী) এবং আওন ইবনে উমায়্যাস।[১] ইবনে কাসির উল্ল্যেখ করেছেন, জয়নব বিনতে খুজাইমা (মুহাম্মাদ-এর স্ত্রী) ছিলেন তার আরেক বোন।[২]

নবী মুহাম্মাদের সাথে বিবাহ[সম্পাদনা]

নবী (সাঃ) 'ওমরা' পালনের পর ফেরার পথে মক্কা নগরী থেকে ১০ মাইল দূরে শরিফ নামক স্থানে ৬২৯ খ্রিস্টাব্দে বিবাহ করেছিলেন;[৩] তখন মুহাম্মাদের বয়স ৫৮ এবং সম্ভবত মায়মুনার বয়স ৩০ বছরের কিছু কম বা বেশি ছিল।

৬৩২ সালে মুহাম্মাদের মৃত্যুর আগ পর্যন্ত মায়মুনা তাঁর সাথেই বসবাস করতেন।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

মায়মুনার মৃত্যুর তারিখ নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। তাবারির মতে: "ইয়াজিদ ইবনে মুওয়াইয়া এর খিলাফত কালে ৬১ হিজরিতে [৬৮০-৬৮১] ময়মুনার মৃত্যু হয়েছিল। তিনি নবীর স্ত্রীদের মধ্যে সর্বশেষ স্ত্রী ছিলেন এবং তখন তাঁর বয়স ছিল ৮০ অথবা ৮১ বছর।"[৪] তাবারি আরও উল্ল্যেখ করেছেন, "মুহাম্মাদের মৃত্যুর পর মায়মুনা উম্মে সালামার কাছে ছিলেন।"[৫]

ইবনে কাছির লিখেছেন: "নবীজীর ইন্তেকালের পরে মায়মুনা আরো চল্লিশ বছর মদিনাতে বসবাস করেছিলেন এবং ৫১ হিজরীতে ৮০ বছর বয়সে তিনি ইন্তেকাল করেন। তিনি ছিলেন নবীজির স্ত্রীদের মধ্যে সর্বশেষ জন।"[৬] মুহাম্মদের স্ত্রীদের মধ্যে কমপক্ষে চার জন (সুফিয়া, সাউদা, আয়িশা এবং উম্মে সালামা ) বিধবা স্ত্রী ৫১ হিজরী সাল পর্যন্ত বেঁচে ছিলেন।

ইবনে হাজারও দেখিয়েছেন যে, 'মায়মুনা আয়িশার আগে ইন্তেকাল করেছিলেন'; "আমরা মদিনার দেওয়ালের উপর দাঁড়িয়ে ছিলাম, বাইরের দিকে তাকিয়েছিলাম… আয়েশা বলেছেন: 'হায় আল্লাহ! মাইয়মুনা আর নেই। সে ইন্তেকাল করেছে, আর এখন তুমি যা ইচ্ছা তাই করার জন্য মুক্ত। সে ছিল আমাদের মধ্যে সবচেয়ে ধার্মিক এবং আত্নীয়দের প্রতি সবচেয়ে নিবেদিত।"[৭][৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Muhammad ibn Jarir Al-Tabari, Tarik ul-Rasul wa'l-Muluk, vol. 39.
  2. Ismail ibn Umar ibn Kathir, Al-Sira al-Nabawiyya, vol. 3.
  3. Guillaume/Ishaq p. 531.
  4. Landau-Tasseron/Tabari, p. 186.
  5. Landau-Tasseron/Tabari, p. 177.
  6. "Ibn Kathir: Wives of the Prophet Muhammad (SAW)"islamawareness.net 
  7. Al-Hakim al-Nishaburi, Mustadrak vol. 4 p. 32.
  8. Ibn Hajar, Al-Isaba vol. 8 p. 192.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]