মহুয়া রায়চৌধুরী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মহুয়া রায়চৌধুরী
মহুয়া রায়চৌধুরী.jpg
জন্ম (1958-09-24) ২৪ সেপ্টেম্বর ১৯৫৮ (বয়স ৬৪)
মৃত্যু২২ জুলাই ১৯৮৫(1985-07-22) (বয়স ২৬)
জাতীয়তাভারতীয়
পেশাচলচ্চিত্র অভিনেত্রী
পরিচিতির কারণ
দাম্পত্য সঙ্গীতিলক চক্রবর্তী

মহুয়া রায়চৌধুরী (ইংরেজি: Mahua Roychoudhury) (২৪ সেপ্টেম্বর ১৯৫৮ - ২২ জুলাই ১৯৮৫) ভারতীয় বাংলা চলচ্চিত্রের একজন অভিনেত্রী।[১] তিনি কিশোর বয়সে নৃত্যশিল্পী ছিলেন। ১৯৭৩ সালে তরুণ মজুমদার পরিচালিত "শ্রীমান পৃথ্বীরাজ" ছায়াছবিতে প্রথম অভিনয় করেন ৷ তাকে বাংলা চলচ্চিত্রের অন্যতম সফল অভিনেত্রী হিসেবে বিবেচনা করা হয়।[২] তিনি ফিল্মফেয়ার পুরস্কার সহ বেশ কয়েকটি পুরস্কার পেয়েছেন। ১৯৮৭ সালে ৫ তম দামেস্ক আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে আদমি অর আওরাত (১৯৮৪) চলচ্চিত্রে তার ভূমিকার জন্য তাকে মরণোত্তর শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কার প্রদান করা হয়।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

রায়চৌধুরী ২৪ সেপ্টেম্বর ১৯৫৮ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তার আসল নাম ছিল শিপ্রা রায় চৌধুরী। পরিচালক তরুণ মজুমদার তার নাম দিয়েছেন 'মহুয়া'। তরুণ মজুমদার তাকে আবিষ্কার করেন এবং সন্ধ্যা রায় তাকে সাজিয়ে তোলেন। মহুয়া রায়চৌধুরী ছিলেন দমদমের একটি নিম্ন-মধ্যবিত্ত পরিবারের । তার বাবা নীলাঞ্জন রায় চৌধুরী ছিলেন একজন নৃত্যশিল্পী।

তাই ছোটবেলা থেকেই তার নাচের দক্ষতা ছিল। পরিবারের অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতার কারণে তিনি পড়াশোনা করতে পারেননি। এদিকে, তিনি তরুণ মজুমদারের শ্রীমন পৃথিরাজ (১৯৭২) চলচ্চিত্রে তার অভিনয়ে আত্মপ্রকাশ করেন । তিনি ম্যাটিনি আইডল উত্তম কুমারের সাথে স্ক্রিন শেয়ার করেছিলেন সেয়ে চোখ, বাগ বান্দি খেলা ইত্যাদির মধ্যে উল্লেখযোগ্য । তিনি দীপঙ্কর দে , সন্তু মুখোপাধ্যায় , সমিত ভাঞ্জা , অনুপ কুমার , তাপস পল , চিরঞ্জিত , এর মতো অভিনেতাদের সাথে জুটি বেঁধে হিট চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছিলেন । কৌশিক ব্যানার্জি , রঞ্জিত মল্লিক , প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জি এমনকি কিংবদন্তি শ্রী উত্তম কুমারের সাথে. তার পাশের বাড়ির মেয়ে টাইপের অভিনয় তাকে বাঙালি ঘরে ঘরে জনপ্রিয় করে তুলেছে। অভিনেত্রী সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায় , সন্ধ্যা রায় তার অভিনয় দক্ষতা তৈরি করেছিলেন যা তার অভিনয় শৈলীকে আরও উন্নত করেছিল। তার সময়ের খুব কম অভিনেত্রীই শাস্ত্রীয় এবং আধুনিক নৃত্য এতটা ভালভাবে জানতেন। মহুয়া তার চলচ্চিত্রে সফলভাবে নাচের শিল্পকে প্রবেশ করান, যা সেই সময়ে খুবই বিরল গুণ।

তিনি ২ মে ১৯৭৬ সালে অভিনেতা তিলক চক্রবর্তীকে বিয়ে করেন। তাদের তমাল নামে একটি ছেলে ছিল।

অমল পালেকারের সাথে তপন সিনহার আদমি অর আওরাত - এ তার অসামান্য অভিনয় তার সমালোচকদের প্রশংসা জিতেছিল যা কেবল বক্স অফিসের কোষাগার পূরণ করার জন্য তার খ্যাতি সংশোধন করেছিল। এমনও একটা সময় ছিল যখন বাংলা ছবি চলত শুধু তার নামে। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই মহুয়া ব্যাপক সাফল্য ও জনপ্রিয়তা লাভ করে। ১৯৮৩ সালে লাল গোলাপ  তিনি প্রায় একাই বাংলা সিনেমাকে প্রত্যাবর্তনের পথে নিয়ে গিয়েছিলেন।[৩]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

১৯৮৫ সালের ২২ জুলাই মধ্যরাতে, মহুয়া তার বাসভবনে একটি অগ্নি দুর্ঘটনার সম্মুখীন হন, গুরুতরভাবে দগ্ধ হন এবং আঘাতের কারণে মৃত্যুবরণ করেন। অগ্নি দুর্ঘটনার সঠিক কারণ একটি রহস্য রয়ে গেছে।

মৃত্যুর সময়ও তার প্রায় ১৫ টি চলচ্চিত্রে কাজ করার কথা ছিল। তার মৃত্যুর পর তার অনেক ছবি মুক্তি পায় যেমন অনুরাগের ছোয়া , প্রেম ও পাপ , অভিমান , আশির্বাদ , কেনরাম বেচারাম , আবির ইত্যাদি। তার আকস্মিক মৃত্যুতে পুরো ইন্ডাস্ট্রি শোকাহত।[৪] পুলিশ তার মৃত্যুর সঠিক কারণ খুঁজে বের করতে পারেনি।

পুরস্কার[সম্পাদনা]

পুরস্কার বছর শ্রেণী চলচ্চিত্র ফলাফল
ফিল্মফেয়ার পুরস্কার পূর্ব ১৯৮০ শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী দাদার কীর্তি| style="background: #99FF99; color: black; vertical-align: middle; text-align: center; " class="yes table-yes2"|বিজয়ী[৫]
দামেস্ক আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব ১৯৮৭ Aadmi Aur Aurat| style="background: #99FF99; color: black; vertical-align: middle; text-align: center; " class="yes table-yes2"|বিজয়ী[৬]

চলচ্চিত্র তালিকা[সম্পাদনা]

  • যেখানে অশ্রয় (২০০৯)
  • রংবাজ (১৯৯৩)
  • সংক্রান্তি (১৯৯০)
  • জাগোরন (১৯৯০)
  • জওয়াব (১৯৮৭)
  • আবির (১৯৮৭)
  • লালন ফকির (১৯৮৭)
  • রাজ পুরুষ (১৯৮৭)
  • মধুময় (১৯৮৬)
  • আশীর্বাদ-১৯৮৭
  • আবির—১৯৮৭
  • রাজ পুরুষ—১৯৮৭
  • লালন ফকির—১৯৮৭
  • সপ্তমুখী—১৯৮৬
  • অভিমান—১৯৮৬
  • প্রেম ও পাপ -১৯৮৬
  • অনুরাগের ছোঁয়া-১৯৮৬
  • সন্ধ্যা প্রদীপ-১৯৮৫
  • তিল থেকে তাল—১৯৮৫
  • আলোয় ফেরা -১৯৮৫
  • আমার পৃথিবী—১৯৮৫
  • শত্রু—১৯৮৪
  • আদমি অর অউরাত (TV movie)-১৯৮৪
  • যোগ বিয়োগ—১৯৮৪
  • পরমা—১৯৮৪
  • পারাবত প্রিয়া—১৯৮৪
  • জবানবন্দি—১৯৮৩
  • রাজেশ্বরী—১৯৮৩
  • অমৃত কুম্ভের সন্ধানে—১৯৮২
  • সোনার বাংলা—১৯৮২
  • ইমন কল্যাণ —১৯৮২
  • সাহেব—১৯৮১
  • প্রতিশোধ—১৯৮১[৭]
  • সুবর্ণগোলক -১৯৮১
  • কপালকুণ্ডলা—১৯৮১
  • পাহাড়ি ফুল—১৯৮১[৮]
  • সূর্য সাক্ষী —১৯৮১
  • উপলব্ধি—১৯৮১
  • দাদার কীর্তি—১৯৮০[৯]
  • পাকা দেখা —১৯৮০
  • ঘটকালি—১৯৭৯
  • রঙ্গের সাহেব—১৯৭৮
  • জীবন মরুর প্রান্তে—১৯৭৬
  • দম্পতি—১৯৭৬[১০]
  • সেই চোখ—১৯৭৬
  • যে যেখানে দাঁড়িয়ে—১৯৭৪
  • শ্রীমান পৃথ্বীরাজ (১৯৭৩)[১১]
  • বেহুলা লখীন্দর

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Mahua Raychowdhury profile"in.com। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৯-২৭ 
  2. "Mahua Roy Chowdhury movies, filmography, biography and songs - Cinestaan.com"Cinestaan। ৮ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-২২ 
  3. "Mahua Roychoudhury: A Death Most Foul — Out of Pandora"Out of Pandora (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৫-০৪। ২৪ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-২৬ 
  4. "Queen of Bengali cinema Mahua Roychowdhury death remains a suspense drama"India Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-২৬ 
  5. "Queen of Bengali cinema Mahua Roychowdhury death remains a suspense drama"India Today। ১৫ আগস্ট ১৯৮৫। ২১ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  6. الدورة الخامسةDamascus International Film Festival (archived) (আরবি ভাষায়)। ১৪ সেপ্টেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-২২ 
  7. "Songs of Mahua Raychowdhury"gomolo.com। ২০১৫-০৯-২৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৯-২৭ 
  8. "Bengali movies of Mahua Roy Chowdhury by year"moovyshoovy.com। ২০১৫-০৯-২৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৯-২৭ 
  9. "Top movies of Mahua Raychowdhury"gomolo.com। ২০১৫-০৯-২৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৯-২৭ 
  10. "mahua roychoudhury biography"itimes.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৯-২৭ 
  11. "Filmography of Mahua Raychowdhury"gomolo.com। ২০১৫-০৯-২৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৯-২৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]