ভৌগলিক তথ্য ব্যবস্থা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

ভৌগলিক তথ্য ব্যবস্থা-র (ইংরেজি: Geographic Information System) মাধ্যমে দৈশিক তথা ভৌগলিক উপাত্ত সংগ্রহ, সংরক্ষণ, বিশ্লেষণ ও উপস্থাপন করা হয়। এর ইংরেজী প্রতিশব্দ হল জিওগ্রাফিক ইনফরমেশন সিস্টেম (Geographic Information System) এবং একে সংক্ষেপে জি আই এস (GIS) বলা হয় । জি আই এস হল ভূতথ্যবিজ্ঞান -এর একটা বৃহত্তর অংশ।[১]

সাধারণ ভাবে ভৌগলিক তথ্যের সংহতি, সংরক্ষণ, সম্পাদনা, বিশ্লেষণ, বন্টন ও প্রদর্শনে ব্যবহৃত তথ্য ব্যবস্থা প্রনালীকে এই পরিভাষিক শব্দটির প্রকাশ করা যেতে পারে। জি আই এস আপ্লিকেশন-এর সাহায্যে উভ:ক্রিয় (interactive) জিজ্ঞাসা (ব্যবহারকারীকৃত অনুসন্ধান), দৈশিক তথ্যের বিশ্লষণ,মানচিত্রে উপাত্তের সম্পাদনা এবং এই সমস্ত কার্যাবলীর প্রদর্শন সম্ভব।[২][৩] ভৌগলিক তথ্যবিজ্ঞান (Geographic information science) হল ভৌগলিক ধারণা, ব্যবহার ও ব্যবস্থা প্রণালীর ভিত্তিগত বিজ্ঞান।[৪] জি আই এস ব্যপক অর্থে বিভিন্ন প্রযুক্তি, প্রক্রিয়া ও পদ্ধতিকে নির্দেশ করে। প্রকৌশল, পরিকল্পনা, ব্যবস্থাপনা, পরিবহন. বীমা, দূরসঞ্চার এবং ব্যবসা বাণিজ্যের বিভিন্ন ক্ষেত্রে জি অই এসের ব্যবহার করা হয়।[৩] এই কারণে, জি আই এস এবং অবস্থানিক বোধবিদ্যা (location intelligence) ব্যবহার অবস্থান ভিত্তিক পরিসেবা প্রদানের অধার হতে পারে। অবস্থানকে সূচক চল গণ্য করে সম্পর্কহীন তথ্যকে GIS-এর মাধ্যমে সম্পর্কযুক্ত করা সম্ভব।পৃথিবীতে অবস্থান বা পরিসর বা স্থান-কালকে ঘটনার তারিখ/সময় দিয়ে ও x, y z স্থানাঙ্কে যথাক্রমে দ্রাঘিমা, অক্ষাংশউচ্চতা দ্বারা প্রকাশ করা যায়।

উন্নয়নের ইতিবৃত্ত[সম্পাদনা]

রজার টমিলসন সর্বপ্রথম "geographic information system" এই কথাটি ব্যবহার করেন ১৯৬৮ সালে তার একটি প্রবন্ধে যার নাম ছিল "A Geographic Information System for Regional Planning”।[৫] তিনি জি আই এস এর জনক হিসাবে উপাধিত।[৬]

জন স্নো'র মানচিত্রের (১৮৫৫ ) এডমণ্ড উইলিয়ম গিলবার্ট'কৃত সংস্করণটি (১৯৫৮) লন্ডনের সোহো-তে ১৮৫৪ সালের দুর্ভিক্ষে কলেরা প্রাদুর্ভাবের মূল অবস্থান গুলি দেখানো হয়েছে

বহুপূর্বে, ১৮৩২ মহামারী-সংক্রান্ত-বিদ্যাতে দৈশিক বিশ্লেষণের ব্যবহারের উল্লেখ পাওয়া যায় "Rapport sur la marche et les effets du choléra dans Paris et le département de la Seine".[৭]

জি আই এস বিষয়ক কৌশল এবং প্রযুক্তি[সম্পাদনা]

ভৌগলিক তথ্য ব্যবস্থা সাহায্যে দৈশিক বিশ্লেষণ[সম্পাদনা]

প্রয়োগ[সম্পাদনা]

কিছু জি আই এস সফটওয়্যার[সম্পাদনা]

  1. ESRI's ArcGIS
  2. QGIS
  3. gVGIS
  4. ILWIS
  5. MapWindow GIS
  6. Clark Lab's IDRISI and TerrSet

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Geographic Information Systems as an Integrating Technology: Context, Concepts, and Definitions"। Kenneth E. Foote and Margaret Lynch, The Geographer's Craft Project, Department of Geography, The University of Colorado at Boulder। সংগৃহীত ২১ Apr ২০১৫ 
  2. Clarke, K. C., 1986. Advances in geographic information systems, computers, environment and urban systems, Vol. 10, pp. 175–184.
  3. Maliene V, Grigonis V, Palevičius V, Griffiths S (২০১১)। "Geographic information system: Old principles with new capabilities"Urban Design International 16 (1)। পৃ: 1–6। ডিওআই:10.1057/udi.2010.25 
  4. Goodchild, Michael F (২০১০)। "Twenty years of progress: GIScience in 2010"। Journal of Spatial Information Scienceডিওআই:10.5311/JOSIS.2010.1.2 
  5. "The 50th Anniversary of GIS"। ESRI। সংগৃহীত ১৮ এপ্রিল ২০১৩ 
  6. "Roger Tomlinson"। UCGIS। ২০১৪-০২-২১। সংগৃহীত ২০১৫-১২-১৬ 
  7. "Rapport sur la marche et les effets du choléra dans Paris et le département de la Seine. Année 1832"। Gallica। সংগৃহীত ১০ মে ২০১২