ব্যবহারকারী:Mrb Rafi/অনুপস্থিত নিবন্ধতালিকা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
Notre Dame College entrance.jpg

নটর ডেম কলেজ বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় অবস্থিত একটি উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, যা একাধিকবার দেশের শ্রেষ্ঠ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। হলি ক্রস সংঘের খ্রিস্টান ধর্মযাজকদের দ্বারা নটর ডেম কলেজ প্রতিষ্ঠিত ও পরিচালিত হয়। বর্তমানে এটি কমলাপুর রেলস্টেশনের কাছাকাছি মতিঝিল থানার আরামবাগে অবস্থিত। উৎকৃষ্ট শিক্ষা পদ্ধতি, কঠোর শৃঙ্খলা, বিস্তৃত সহশিক্ষা ও ক্রীড়া কার্যক্রমের জন্য প্রতিষ্ঠানটি সুপরিচিত। দেশ বিভাগের পর নতুন গঠিত পূর্ব পাকিস্তানে শিক্ষা বিস্তারের জন্য কলেজ প্রতিষ্ঠায় সরকারের আমন্ত্রণ পেয়ে তৎকালীন আর্চবিশপ লরেন্স গ্রেনারের তৎপরতায় হলি ক্রসের সিদ্ধান্ত অনুসারে রোমান ক্যাথলিক পাদ্রি সম্প্রদায় কর্তৃক ১৯৪৯ খ্রিষ্টাব্দের ৩ নভেম্বর ঢাকার লক্ষ্মীবাজারে সেন্ট গ্রেগরিজ স্কুলের পরিবর্ধিত রূপ হিসাবে সেন্ট গ্রেগরিজ কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৫৪ খ্রিষ্টাব্দে কলেজটিকে তার বর্তমান ঠিকানা আরামবাগে স্থানান্তর করা হয়। বর্তমানে কলেজটিতে তিনটি ছয় তলা শিক্ষাভবন, একটি তিন তলা শিক্ষাভবন ও একটি আবাসিক হল ও একটি কোয়ার্টার রয়েছে। ১৯৫৪ সালে সেন্ট গ্রেগরিজ কলেজ পরিবর্তন করে নটর ডেম কলেজ নাম রাখা হয়। নটর ডেম ফরাসি শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হল Our Lady। রোমান ক্যাথলিকগণ Our Lady বলতে যিশুখ্রিষ্টের মাতা মেরিকে বুঝিয়ে থাকেন। তারা কলেজটি মাতা মেরির নামে উৎসর্গ করেন। কলেজের মূলনীতিটি লাতিন ভাষায়। তা হল: Diligite Lumen Sapientiae, যার বাংলা ভাবানুবাদ জ্ঞানের আলোকে ভালোবাসো। প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে শুধু কলা ও বাণিজ্য বিভাগ থাকলেও ১৯৫৫ খ্রিষ্টাব্দে বি.এ এবং ১৯৬০ খ্রিষ্টাব্দে বি.এস.সি চালু করে। বাংলাদেশের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেন নটর ডেমের ১৯৫০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। ১৯৫০ খ্রিষ্টাব্দে নটর ডেম কলেজ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হয়ে ১৯৫৯ খ্রিষ্টাব্দে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের সেরা কলেজ হিসেবে স্বীকৃতি পায়। খ্রিস্টান মিশনারি কর্তৃক পরিচালিত হলেও এতে সকল ধর্মের শিক্ষার্থীদের অধ্যয়নের সুযোগ দেওয়া হয়। প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে মাত্র ১৯ জন ছাত্র নিয়ে যাত্রা শুরু করা নটর ডেম কলেজের বর্তমান শিক্ষার্থী সংখ্যা ৬০০০ এর অধিক। প্রতিষ্ঠানটিতে ছাত্র রাজনীতি সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ হলেও শিক্ষার্থীদের নেতৃত্ব ও সাংগঠনিক দক্ষতা উন্নয়নের জন্য কঠোর নীতিমালা দ্বারা নিয়ন্ত্রিত ২৪ টি সহশিক্ষা সংগঠনের প্রচেষ্টায় সক্রিয় ও ব্যতিক্রমী সহশিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হয়। (বাকি অংশ পড়ুন...)