ব্যবহারকারী:Ibrahim Husain Meraj/নিবন্ধ ১

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে হত্যা দ্বারা বাংলাদেশভারতের মধ্যে ৪,০৯৬ কিলোমিটার (২,৫৪৫ মাইল) দীর্ঘ আন্তর্জাতিক সীমানায়[১] মূলত ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী, বিএসএফ কর্তৃক সাধারণ ও বেসামরিক বাংলাদেশি নাগরিকদের উপর সংগঠিত নিয়মিত নির্যাতন ও হত্যাকান্ডকে বোঝানো হয়েছে।[২] সীমান্তে চোরাচালান ও বাংলাদেশ থেকে কথিত অবৈধ অভিবাসন ঠেকাতে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিতর্কিত শ্যুট-অন-সাইট (দেখামাত্র গুলি) নীতি বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে বহাল আছে, যার প্রেক্ষিতে বিএসএফ কারণে কিংবা অকারণে বাংলাদেশি নাগরিককে গুলি করতে পারে।[৩] আত্মীয়ের বাসায় যাওয়া, বাজার-সদাই করা, এবং কাজ খুঁজতে সঙ্গে অনেক মানুষ নিয়মিতভাবে সীমান্ত পারাপার করে। অন্যান্য ছোটখাটো এবং গুরুতর আন্তঃসীমান্ত অপরাধে নিয়োজিত। সীমান্ত বাহিনী অবৈধ কার্যক্রম মোকাবেলার বাধ্যতামূলক করা হয়, বিশেষ করে মাদক চোরাচালান, যৌন কাজের জন্য মানব পাচার, এবং জাল মুদ্রা ও বিস্ফোরক পরিবহন।[২] ২০০০ সালের পর থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ১,৫০০ সাধারণ ও বেসামরিক বাংলাদেশি হত্যার অভিযোগ আছে।[৩] অধিকার, একটি বাংলাদেশি এনজিও, ২০১১ সালের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ভারতীয় সীমান্ত বাহিনী দ্বারা কমপক্ষে ১৭ বাংলাদেশি হত্যা ও অন্য নির্যাতনের দৃষ্টান্ত নথিভুক্ত করে। মাসুম, একটি কলকাতা ভিত্তিক এনজিও যারা সীমান্ত এলাকার তথ্য উদঘাটন করে, বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত এলাকায় গুলি চালনার হার কমলেও বিএসএফ সন্দেহভাজনদের আক্রমনাত্মক ভীতি প্রদর্শন, নিষ্ঠুরভাবে প্রহার এবং নির্যাতন করে।[২]

২০১১ সালের জুলাইয়ে হিউম্যান রাইটস্‌ ওয়াচ সীমান্ত হত্যা নিয়ে বলে, "ভারত সরকারের বাংলাদেশের সীমান্তে বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স (বিএসএফ) দ্বারা হত্যা, নির্যাতন, ও অন্যান্য অনাচারের নতুন অভিযোগ একটি, দ্রুত পরিষ্কার, এবং স্বচ্ছ অপরাধের তদন্ত দায়িত্বগ্রহণ করা উচিত।" হিউম্যান রাইটস্‌ ওয়াচের দক্ষিণ এশিয়া পরিচালক, মিনাক্ষী গাঙ্গুলী বলেন, "সীমান্তে মানুষের উপর অত্যধিক বল ব্যবহার ও নির্বিচারে প্রহার অসমর্থনীয়। এইসব নির্যাতনের ঘটনা ভারতের আইনের শাসনের প্রতি দায়বদ্ধতা প্রশ্নবিদ্ধ করে।"[২]

বিগত ১০ বছরে প্রায় ১,০০০ মানুষকে, যার বেশিরভাগই বাংলাদেশি, হত্যা করে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী। সীমান্ত এলাকাকে একটি দক্ষিণ এশিয়ার হত্যার ক্ষেত্রে পরিণত করে। অনেক ক্ষেত্রে নিরস্ত্র এবং অসহায় স্থানীয় বাসিন্দাদের বিরুদ্ধে ঠান্ডা মাথায় হত্যাকাণ্ডের পরিষ্কার প্রমাণ সত্ত্বেও, এখন পর্যন্ত কাঊকেই হত্যাকাণ্ডের জন্য অভিযুক্ত করা হয়নি।[৩]

ব্যাড এডামস, হিউম্যান রাইটস্‌ ওয়াচের এশিয়া বিভাগের নির্বাহী পরিচালক, সীমান্তে হত্যা প্রসঙ্গে বলেন,

"Routinely shooting poor, unarmed villagers is not how the world's largest democracy should behave."[৩]

ভারতীয় কর্মকর্তারা বিএসএফ-এর আচরণের পরিবর্তন এবং শ্যুট-অন-সাইট নীতি বাতিল করতে নতুন আদেশ পাঠাতে অঙ্গীকার করেছেন। তারা অবৈধভাবে সীমান্ত পারাপারকারী বা পাচারকারীদের ধরতে অহিংস উপায় ব্যবহার করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছে।[৩] যদিও তা এখনোও বাস্তবে কার্যকর হয়নি।

বিভিন্ন সরকারি কর্মকর্তাদের শ্যুট-অন-সাইট নীতি অভিযোগের প্রতিক্রিয়া বিভ্রান্তিকর: আমরা অবৈধ সীমান্ত পারাপারকারীদের গুলি করি যেহেতু তারা আইনভঙ্গকারী; আমরা সীমান্ত পারাপারকারীদের গুলি করি না; আমরা কেবল আত্মরক্ষাতে গুলি করি; আমরা হত্যা করতে গুলি করি না।[৩]

কোনো নিরাপত্তা বাহিনীর, বিএসএফ-এর মত, সদস্যের দ্বারা সংঘটিত একটি অপরাধের তদন্ত শুরু করার জন্য একটি উর্ধ্বতন ভারতীয় কর্মকর্তার অনুমতি প্রয়োজন, যা খুব কমই ঘটে।[৩]

ভারতে একটি কার্যকরী আদালত থাকলেও, দৃশ্যত বিএসএফ বিচারক, জুরি এবং ঘাতক হিসাবে কাজ করতে পারে।[৩]

ভারত তার সীমান্তে নিয়ন্ত্রণ আরোপ করার অধিকার রয়েছে। কিন্তু ভারতে প্রাণঘাতী বল ব্যবহার করার অধিকার নেই। তবুও কিছু ভারতীয় কর্মকর্তারা প্রকাশ্যে নিরস্ত্র বেসামরিক নাগরিকদের হত্যা করা হচ্ছে স্বীকার করেন।[৩]

বিএসএফ-এর প্রাক্তন প্রধান, রমণ শ্রীবাস্তব, বলেন যে মানুষের এই শিকারগ্রস্তদের জন্য দুঃখ বোধ করা উচিত নয়। তিনি দাবি করেন যে, যেহেতু এইসব ব্যক্তি প্রায়শই রাতে, অবৈধভাবে ভারতীয় ভূখণ্ডে প্রবেশ করছিল, তাই তারা "নির্দোষ না" ছিল এবং সেই কারণে এরা বৈধ লক্ষ্য ছিল।[৩]

https://www.facebook.com/SaveOurSovereignty http://www.theguardian.com/commentisfree/2009/sep/05/bangladesh-india-border-fence http://www.hrw.org/en/news/2010/12/06/indiabangladesh-indiscriminate-killings-abuse-border-officers http://www.somewhereinblog.net/blog/dinmojurblog/29538256

পরিচ্ছেদসমূহ

পটভূমি[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত[সম্পাদনা]

স্থল সীমান্ত[সম্পাদনা]

জল সীমান্ত[সম্পাদনা]

অমিমাংসিত সীমান্ত[সম্পাদনা]

হত্যাকান্ডের পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

১৯৭১-এর পূর্বে (পূর্ব পাকিস্থান)[সম্পাদনা]

১৯৭১-১৯৯০[সম্পাদনা]

১৯৯১-২০১০[সম্পাদনা]

২০১১-বর্তমান[সম্পাদনা]

হত্যাকান্ডের কারণ[সম্পাদনা]

গরু বাণিজ্য[সম্পাদনা]

পাচার[সম্পাদনা]

অন্যান্য[সম্পাদনা]

অজানা[সম্পাদনা]

বিএসএফের ভাষ্য[সম্পাদনা]

বিজিবির ভাষ্য[সম্পাদনা]

হত্যাকান্ডের ধরণ[সম্পাদনা]

গুলি[সম্পাদনা]

নির্যাতন[সম্পাদনা]

অপহরণ[সম্পাদনা]

গণ পিটুনি[সম্পাদনা]

হত্যাকান্ডের স্বীকার[সম্পাদনা]

কৃষক[সম্পাদনা]

স্থানীয় জনগণ[সম্পাদনা]

গরু ব্যবসায়ী[সম্পাদনা]

পর্যটক[সম্পাদনা]

হত্যাকান্ডের উল্লেখযোগ্য ঘটনা[সম্পাদনা]

ফেলানি[সম্পাদনা]

যুবক নির্যাতন[সম্পাদনা]

হত্যাকান্ডের শাস্তি[সম্পাদনা]

ফেলানি হত্যা মামলা[সম্পাদনা]

ক্ষতিপূরণ[সম্পাদনা]

দায় স্বীকার[সম্পাদনা]

ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)-র ভূমিকা[সম্পাদনা]

বাংলাদেশি সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিজিবি)-র ভূমিকা[সম্পাদনা]

সংবাদ মাধ্যমে হত্যাকান্ডের খবর[সম্পাদনা]

আন্তর্জাতিক[সম্পাদনা]

ভারতীয়[সম্পাদনা]

বাংলাদেশি[সম্পাদনা]

সাইবার যুদ্ধ[সম্পাদনা]

জনপ্রিয় মাধ্যমে উপস্থাপনা[সম্পাদনা]

সঙ্গীতে[সম্পাদনা]

আরোও পড়ুন[সম্পাদনা]

আরোও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Border Management: Dilemma of Guarding the India-Bangladesh Border"IDSA। জানুয়ারি ২০০৪। 
  2. "India: New Killings, Torture at Bangladeshi Border"হিউম্যান রাইটস্‌ ওয়াচ। নিউ ইয়র্ক: হিউম্যান রাইটস্‌ ওয়াচ। ২০১১-০৭-২৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১০-১২ 
  3. Adams, Brad (২০১১-০১-২৩)। "India's shoot-to-kill policy on the Bangladesh border"The Guardian। London। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১০-১২ 

ইদ মোবারক[সম্পাদনা]

ঈদ মোবারক.svg প্রিয় সুধী, ঈদুল ফিতর আপনার এবং আপনার পরিবারের সদস্যবৃন্দের জীবনে নিয়ে আসুক অনাবিল সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি। ইদ মোবারক

-মেরাজ (আলাপ) ০৭:০৯, ২৬ জুন ২০১৭ (ইউটিসি)