বৈশ্বিক পরিবর্তন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
The Great Acceleration
Planetary response

বৈশ্বিক পরিবর্তন বলতে পৃথিবী ব্যবস্থার গ্রহমাত্রিক পরিবর্তনকে বোঝায়। ব্যবস্থাটি ভূমি, সমুদ্র, বায়ুমন্ডল, মেরু অঞ্চল, প্রাণ, গ্রহটির প্রাকৃতিক চক্রসমূহ এবং পৃথিবীর গভীর প্রক্রিয়াসমূহ নিয়ে গঠিত। এই উপাদানগুলো একটি অন্যটিকে প্রভাবিত করে। পৃথিবী ব্যবস্থা এখন মানব সমাজকে অন্তর্ভুক্ত করেছে, তাই বৈশ্বিক পরিবর্তন বলতে সমাজের বড় মাত্রার পরিবর্তন এবং পরিবেশের উপর পরবর্তী প্রভাবকেও বোঝায়।[১]

আরও পরিপূর্ণভাবে, "বৈশ্বিক পরিবর্তন" শব্দটি অন্তর্ভুক্ত করে: জনসংখা, জলবায়ু, অর্থনীতি, সম্পদ ব্যবহার, শক্তি উন্নয়ন, পরিবহন, যোগাযোগ, ভূমি ব্যবহার এবং ভূমি ভরাট, নগরায়ন, বিশ্বায়ন, বায়ুমণ্ডলীয় সঞ্চালন, সমুদ্রের সংবহন, কার্বন চক্র, নাইট্রোজেন চক্র, পানি চক্র এবং অন্যান্য চক্রসমুহ, সমুদ্রের বরফ ক্ষয়, সমুদ্রপৃষ্ঠের উত্থান, খাদ্যজাল, জীব বৈচিত্র, দূষণ, স্বাস্থ্য, আতিরিক্ত মাছ ধরা, বৈশ্বিক জলবায়ু ব্যাহতকরণ এবং অন্যান্য।[২]


বৈশ্বিক পরিবর্তন গবেষণার ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৮০ সালে সুইডিশ আবহাওয়াবিদ বার্ট বলিন এর নেতৃত্বে একদল বিজ্ঞানী একটি আন্তর্জাতিক কর্মসূচি চালু করেন যার নাম বিশ্ব জলবায়ু গবেষণা কর্মসূচি (ডব্লিউসিআরপি), এটি নির্ণয় করার জন্য যে জলবায়ুর পরিবর্তন হচ্ছে কিনা, জলবায়ুর পূর্বাভাস দেওয়া যেতে পারে কিনা এবং মানুষ কোনভাবে এই পরিবর্তনের জন্য দায়ী কিনা। কর্মসূচিটি বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা এবং আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান পরিষদ (আইসিএসইউ) স্পন্সর করেছিল। সময়ের সাথে সাথে একটি ক্রমবর্ধমান উপলব্ধি হয়েছিল যে, জলবায়ু পরিবর্তন বৃহত্তর ঘটনা বৈশ্বিক পরিবর্তনের একটি অংশ। ১৯৮৭ সালে একদল গবেষক আবারো বার্ট বলিন, জেমস ম্যাকার্থি, পল ক্রটজেন, এইচ ওয়েশগার এবং অন্যান্যদের নেতৃত্বে সাফল্যের সাথে বৈশ্বিক পরিবর্তন তদন্ত করার জন্য একটি আন্তর্জাতিক গবেষণা কর্মসূচির পক্ষে যুক্তি প্রদর্শন করেছেন। আইসিএসইউ এর দ্বারা স্পন্সরকৃত এই কর্মসূচিটি হলো আন্তর্জাতিক ভূপৃষ্ঠ-বায়ুমন্ডল কর্মসূচি (আইজিবিপি)। কর্মসূচিটিতে পৃথিবী ব্যবস্থার বিভিন্ন অংশ এবং তাদের মধ্যে সংযোগগুলির তদন্ত করে আটটি প্রকল্প রয়েছে।

আইজিবিপি, ডাব্লুসিআরপি এবং একটি তৃতীয় কর্মসূচি আন্তর্জাতিক মানবিক মাত্রা কর্মসূচি (আইএইচডিপি, ১৯৯৬ সালে প্রতিষ্ঠিত), 2001 সালে আমস্টারডামে অনুষ্ঠিত একটি যুগান্তকারী বিজ্ঞান সম্মেলনের নেতৃত্ব দেয়। পরিবর্তনশীল পৃথিবীর চ্যালেঞ্জ: বৈশ্বিক পরিবর্তনের মুক্ত বিজ্ঞান সম্মেলন নামক সম্মেলনটি আমস্টারডাম ঘোষণাপত্রের দিকে পরিচালিত করে, যেখানে বলা হয়েছে, "উল্লেখযোগ্য জলবায়ু পরিবর্তন-এর হুমকি ছাড়াও, বৈশ্বিক পরিবেশের অন্যান্য দিকগুলির ক্রমবর্ধমান মানবিক পরিবর্তন এবং এর ফলে মানুষের কল্যাণের জন্য প্রভাব নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে। গ্রহের জীবন সহায়তা ব্যবস্থা দ্বারা সরবরাহিত মৌলিক পণ্য এবং পরিষেবাগুলি যেমন খাদ্য, পানি, পরিষ্কার বাতাস এবং মানব স্বাস্থ্যের অনুকূল পরিবেশ বৈশ্বিক পরিবর্তনের দ্বারা ক্রমবর্ধমানভাবে প্রভাবিত হচ্ছে।"[৩]

ঘোষণায় বলা হয়েছে, "আন্তর্জাতিক বৈশ্বিক পরিবর্তন কর্মসূচিগুলো সরকার, সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠান এবং বিশ্বের জনগণকে একমত হতে অনুরোধ করে যে, বিশ্বব্যাপী পরিচালনা এবং পৃথিবী সিস্টেম ব্যবস্থাপনা কৌশলের জন্য একটি নৈতিক কাঠামো অবিলম্বে প্রয়োজন।"[৩]

অনেক জাতির এখন তাদের নিজস্ব বৈশ্বিক পরিবর্তন কর্মসূচি এবং প্রতিষ্ঠান রয়েছে, উদাহরণস্বরূপ ইউএস গ্লোবাল চেঞ্জ রিসার্চ প্রোগ্রাম এবং যুক্তরাজ্যের কোয়ান্টিফায়িং এন্ড আন্ডারস্ট্যান্ডিং দ্য আর্থ সিস্টেম (কিউইউইএসটি) প্রোগ্রাম। এবং আমস্টারডাম সম্মেলনের পর থেকে জীববৈচিত্র্যকে কেন্দ্র করে ডাইভারসিটাস নামক আরেকটি আন্তর্জাতিক কর্মসূচি স্থাপন করা হয়েছে। এই প্রোগ্রামগুলি পৃথিবী সিস্টেম সায়েন্স পার্টনারশিপ গঠন করে।

২০১২ সালে এই আন্তর্জাতিক কর্মসূচিগুলি লন্ডনে আরেকটি বড় বিজ্ঞান সম্মেলন করে, যার নাম চাপের মধ্যে গ্রহ: সমাধানের দিকে নতুন জ্ঞান।[৪]

কারণসমূহ[সম্পাদনা]

অতীতে বৈশ্বিক পরিবর্তনের প্রধান চালিকাশক্তি ছিল সৌর বৈচিত্র্য, প্লেট টেকটনিক, ভলক্যানিজম, জীবন বিস্তার ও হ্রাস, উল্কাপিণ্ড প্রভাব, সম্পদ হ্রাস, সূর্যের চারপাশে পৃথিবীর কক্ষপথ পরিবর্তন এবং পৃথিবীর নিজের অক্ষে কাত পরিবর্তন। অপ্রতিরোধ্য প্রমাণ আছে যে এখন প্লানেটারি স্কেলে পরিবর্তন বা বৈশ্বিক পরিবর্তনের প্রধান চালিকাশক্তি হল ক্রমবর্ধমান মানব জনসংখ্যার সম্পদের চাহিদা; কিছু বিশেষজ্ঞ এবং বিজ্ঞানীরা এই ঘটনাকে অ্যানথ্রোপোসিন যুগ হিসাবে বর্ণনা করেছেন।[৫][৬][৭][৮][৯] গত ২৫০ বছরে, মানব সৃষ্ট পরিবর্তন ত্বরান্বিত হয়েছে এবং জলবায়ু পরিবর্তন, ব্যাপক প্রজাতি বিলুপ্তি, মাছের বংশ বিনষ্ট, মরুভূমিকরণ, মহাসাগর অম্লীকরণ, ওজোন হ্রাস, দূষণ এবং অন্যান্য বড় আকারের পরিবর্তন ঘটায়।[১০]

আন্তর্জাতিক জিওস্ফিয়ার-বায়োস্ফিয়ার প্রোগ্রামে কাজ করা বিজ্ঞানীরা বলেছেন যে পৃথিবী এখন "নো অ্যানালগ" অবস্থায় কাজ করছে।[১১] অতীত এবং বর্তমান পৃথিবী সিস্টেম প্রক্রিয়ার পরিমাপ এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে যে গ্রহটি অন্তত গত অর্ধ মিলিয়ন বছরে প্রাকৃতিক পরিবর্তনশীলতা সীমার বাইরে ভালভাবে চলে গেছে। হোমো সেপিয়েন্স প্রায় ২০০,০০০ বছর ধরে রয়েছে।

ভৌত প্রমাণ[সম্পাদনা]

মানুষ সবসময় তাদের পরিবেশ পরিবর্তন করেছে। প্রায় ১০,০০০ বছর আগে কৃষির আবির্ভাবের ফলে জমির ব্যবহারে আমূল পরিবর্তন ঘটে যা এখনও অব্যাহত রয়েছে। কিন্তু তুলনামূলকভাবে ছোট মানব জনসংখ্যা ১৭৫০ সালে শিল্প বিপ্লব শুরু না হওয়া পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী খুব কম প্রভাব ফেলেছিল। এই ঘটনা ১৯০৯ সালে হ্যাবার-বোশ প্রক্রিয়া উদ্ভাবনের পরে বহুল পরিমাণে সার উৎপাদনের অনুমতি দেয়, যা সরাসরি গ্রহের অনেক গুরুত্বপূর্ণ শারীরিক, রাসায়নিক এবং জৈবিক প্রক্রিয়ায় দ্রুত পরিবর্তনের দিকে পরিচালিত করে।

১৯৫০-এর দশকে গিয়ারে পরিবর্তন দেখা যায়: বৈশ্বিক পরিবর্তন ত্বরান্বিত হতে শুরু করে। ১৯৫০ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে জনসংখ্যা দ্বিগুণেরও বেশি হয়। সেই সময়ে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের দ্রুত সম্প্রসারণ মূলধন প্রবাহের উত্থান এবং নতুন প্রযুক্তি বিশেষ করে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সাথে মিলিত হয়ে জাতীয় অর্থনীতিগুলিকে আরও সম্পূর্ণভাবে একীভূত করে। অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপ দশগুণ বৃদ্ধি পেয়েছিল এবং বিশ্বের মানব জনসংখ্যা আগের চেয়ে আরও ভালোভাবে সংযুক্ত হয়েছিল। এই সময়কালে পানির ব্যবহার এবং নদী বাঁধ দেওয়ার সংখ্যা ছয়গুণ বৃদ্ধি পেয়েছিল। বিশ্বের প্রায় ৭০ শতাংশ স্বাদুপানি এখন কৃষির জন্য ব্যবহৃত হয়। এটি ভারত এবং চীনে ৯০ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। পৃথিবীর অর্ধেক ভূমিপৃষ্ঠ এখন মালিকানাভূক্ত হয়ে গেছে। ২০১০ সালে প্রথমবারের মতো শহুরে জনসংখ্যা গ্রামীণ জনসংখ্যাকে ছাড়িয়ে যায়। এবং সারের ব্যবহার পাঁচগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রকৃতপক্ষে, সার উৎপাদন এবং শিল্প থেকে উৎপাদিত প্রতিক্রিয়াশীল নাইট্রোজেন এখন প্রতিক্রিয়াশীল নাইট্রোজেনের বিশ্বব্যাপী স্থলজ উৎপাদনকে ছাড়িয়ে গেছে। কৃত্রিম সার ছাড়া সাত বিলিয়ন জনসংখ্যার জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য থাকবে না।

মানব উপ-ব্যবস্থার এই পরিবর্তনগুলি পৃথিবী সিস্টেমের সমস্ত উপাদানের উপর সরাসরি প্রভাব বিস্তার করে। বায়ুমণ্ডলের রাসায়নিক সংযুক্তি উল্লেখযোগ্যভাবে পরিবর্তিত হয়েছে। তাৎপর্যপূর্ণ গ্রীনহাউজ গ্যাস, কার্বন-ডাই-অক্সাইড, মিথেন এবং নাইট্রাস অক্সাইড এর ঘনত্ব দ্রুত বাড়ছে। অ্যান্টার্কটিকা এর উপর ওজোন স্তরের একটি বড় গর্ত আবির্ভূত হয়। মৎস্য চষের অধঃপতন হয়েছে: বিশ্বের বেশিরভাগ মৎস্য চাষ এখন পুরোপুরি বা অতিরিক্তভাবে বিলীন হয়েছে। ত্রিশ শতাংশ ক্রান্তীয় রেইন ফরেস্ট অদৃশ্য হয়ে গেছে।

২০০০ সালে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী বিজ্ঞানী পল ক্রটজেন ঘোষণা করেন যে, পরিবর্তনের মাত্রা এতটাই বেশি যে মাত্র ২৫০ বছরের মধ্যে মানব সমাজ গ্রহটিকে একটি নতুন ভূতাত্ত্বিক যুগ অ্যানথ্রোপোসিন এ ঠেলে দিয়েছে। এই নামটি থেমে গেছে এবং অ্যানথ্রোপোসিনকে আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রহণ করার আহ্বান জানানো হয়েছে। যদি তা হয়, তবে এটি সমস্ত ভূতাত্ত্বিক যুগগুলির মধ্যে সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত হতে পারে। প্রমাণ থেকে জানা যায় যে, যদি মানুষের ক্রিয়াকলাপ পৃথিবী ব্যবস্থার উপাদানগুলি পরিবর্তন করতে থাকে, যার সবগুলি আন্তঃসংযুক্ত, তবে এটি পৃথিবী ব্যবস্থাকে এক অবস্থা থেকে অন্য একটি নতুন অবস্থায় নিয়ে যেতে পারে।


সমাজ[সম্পাদনা]

সামাজিক প্রেক্ষাপটে বৈশ্বিক পরিবর্তন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, প্রযুক্তিগত, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং আইনগত পরিবর্তনকে অন্তর্ভুক্ত করে। বৈশ্বিক পরিবর্তন এবং সমাজের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত শব্দগুলি হল বিশ্বায়ন এবং বৈশ্বিক একীভূতকরণ। বিশ্বায়ন শুরু হয় দূরপাল্লার বাণিজ্য এবং নগরবাদ এর মাধ্যমে। দূরপাল্লার বাণিজ্যিক রুটের প্রথম রেকর্ড খ্রিস্টপূর্ব তৃতীয় সহস্রাব্দে। মেসোপটেমিয়ায় সুমেরীয়রা আধুনিক ভারতের সিন্ধু উপত্যকাতে বসতিস্থাপনকারীদের সাথে ব্যবসা করেছিল।

১৭৫০ সাল থেকে, কিন্তু আরও তাৎপর্যপূর্ণভাবে ১৯৫০ এর দশকের পর থেকে বিশ্বব্যাপী একীকরণ ত্বরান্বিত হয়েছে। এই যুগে যোগাযোগ, পরিবহন এবং কম্পিউটার প্রযুক্তিতে অবিশ্বাস্য বৈশ্বিক পরিবর্তন দেখা গেছে। ধারণা, সংস্কৃতি, মানুষ, পণ্য, পরিষেবা এবং অর্থ সহজেই গ্রহের চারপাশে বিচরণ করছে। এই নতুন বৈশ্বিক পরস্পর সংযুক্তি এবং তথ্যের অবাধ প্রবাহ অন্যান্য সংস্কৃতি, দ্বন্দ্ব, ধর্ম এবং নিষিদ্ধ ধারণাগুলিকে আমূল পরিবর্তন করেছে। এখন সামাজিক আন্দোলনগুলি প্লানেটারি স্কেলে তৈরি হতে পারে এবং করতে পারে।

যদি আরো প্রমাণ প্রয়োজন হয়, সামাজিক এবং পরিবেশগত বৈশ্বিক পরিবর্তনের মধ্যে যোগসূত্র ২০০৮-২০০৯ সালের বৈশ্বিক আর্থিক সংকট নিয়ে এসেছিল। এই সংকট গ্রহের প্রধান অর্থনৈতিক শক্তিকেন্দ্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ এবং এশিয়া এর বেশিরভাগ অংশকে মন্দার দিকে নিয়ে যায়। বৈশ্বিক কার্বন প্রকল্প অনুসারে, কার্বন-ডাই-অক্সাইডের বিশ্বব্যাপী বায়ুমণ্ডলীয় নির্গমন ২০০০ থেকে ২০০৮ সালের মধ্যে বার্ষিক বৃদ্ধির হার প্রায় ৩.৪% থেকে কমে ২০০৮ সালে প্রায় ২% বৃদ্ধির হারে নেমে আসে।[১২]


গ্রহজনিত ব্যবস্থাপনা[সম্পাদনা]

মানুষ গ্রহের বায়োজিওকেমিক্যাল চক্রকে মূলত অনিয়ন্ত্রিত উপায়ে পরিবর্তন করছে, যার পরিণতি সম্পর্কে সীমিত জ্ঞান রয়েছে।[১১] পৃথিবী সিস্টেম - গ্রহের শারীরিক, রাসায়নিক, জৈবিক এবং সামাজিক উপাদানগুলি কার্যকরভাবে পরিচালনা করার পদক্ষেপ ছাড়া সম্ভবত মানুষ এবং বাস্তুতন্ত্রের উপর গুরুতর প্রভাব পড়বে। সম্ভবত সবচেয়ে বড় উদ্বেগ হল পৃথিবী ব্যবস্থার একটি উপাদান, উদাহরণস্বরূপ-সমুদ্র সঞ্চালন, আমাজন রেইনফরেস্ট বা আর্কটিক সমুদ্রের বরফ একটি টিপিং পয়েন্টে পৌঁছাবে এবং বর্তমান অবস্থা থেকে অন্য একটি অবস্থা: প্রবাহিত হওয়া থেকে প্রবাহিত না হওয়া, রেইনফরেস্ট থেকে সাভানা, অথবা বরফ থেকে বরফশূণ্য তে পরিবর্তিত হবে। পৃথিবী সিস্টেমের অন্যান্য উপাদানের দ্রুত অবস্থা পরিবর্তনের সাথে একটি ডমিনো প্রভাব শুরু হতে পারে।

গত 20 বছর ধরে নিবিড় গবেষণায় দেখা গেছে যে টিপিং পয়েন্ট পৃথিবী সিস্টেমে বিদ্যমান এবং ব্যাপক মাত্রার পরিবর্তন দ্রুত হতে পারে - যা কয়েক দশকের ব্যাপার। সম্ভাব্য টিপিং পয়েন্টগুলি সনাক্ত করা হয়েছে এবং সীমা নির্ধারণের চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু আজ পর্যন্ত সর্বোচ্চ প্রচেষ্টাগুলি কেবল আলগাভাবে সংজ্ঞায়িত "প্লানেটারি সীমানা” সনাক্ত করতে পারে, যার বাইরে টিপিং পয়েন্টগুলি বিদ্যমান কিন্তু তাদের সুনির্দিষ্ট অবস্থানগুলি অধরা থেকে যায়।

প্লানেটারি স্কেলে পরিবেশ পরিচালনার জন্য আরও ভাল উপায়ের আহ্বান জানানো হয়েছে, যা কখনও কখনও "পৃথিবীর জীবন সমর্থন ব্যবস্থা" পরিচালনা হিসাবে উল্লেখ করা হয়।[১৩] জাতিসংঘ যুদ্ধ বন্ধ করতে এবং দেশগুলির মধ্যে আলোচনার জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করতে গঠিত হয়েছিল। এটি আঞ্চলিক বা বৈশ্বিক স্কেলে বড় পরিবেশগত বিপর্যয় এড়াতে তৈরি করা হয়নি। কিন্তু জাতিসংঘের অধীনে বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক পরিবেশ বিষয়ক সম্মেলন বিদ্যমান, যার মধ্যে রয়েছে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক কাঠামোগত সম্মেলন, মন্ট্রিইয়াল প্রোটোকল, মরুভূমিকরণ প্রতিরোধ বিষয়ক সম্মেলন, এবং জীব বৈচিত্র্য বিষয়ক সম্মেলন। উপরন্তু, জাতিসংঘের পরিবেশ ও উন্নয়ন কার্যক্রম সমন্বয়ের জন্য জাতিসংঘ পরিবেশ কর্মসূচি (ইউএনইপি) এবং জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি) নামক দুটি সংস্থা রয়েছে।

২০০৪ সালে আইজিবিপি "গ্লোবাল চেঞ্জ অ্যান্ড দ্য আর্থ সিস্টেম, অ্যা প্লানেট আন্ডার প্রেশার" প্রকাশ করে।[১১] প্রকাশনার নির্বাহী সংক্ষিপ্তসার এটি বলে উপসংহার টেনেছে যে: "পৃথিবী ব্যবস্থার পরিচালনার জন্য একটি সামগ্রিক, ব্যাপক, অভ্যন্তরীণ ভাবে সামঞ্জস্যপূর্ণ কৌশল প্রয়োজন"। এতে বলা হয়েছে যে একটি গবেষণার লক্ষ্য হল বৈশ্বিক পরিবেশে একটি স্থিতিশীল ভারসাম্য সংজ্ঞায়িত করা এবং বজায় রাখা।

২০০৭ সালে ফ্রান্স ইউএনইপিকে "জাতিসংঘ পরিবেশ সংস্থা নামে একটি নতুন এবং শক্তিশালী সংস্থা দ্বারা প্রতিস্থাপিত করার আহ্বান জানায়।" যুক্তি ছিল যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা এর মতো একটি "সংগঠন" না হয়ে ইউএনইপি এর একটি "প্রোগ্রাম" হিসাবে মর্যাদা এটিকে এতটাই দুর্বল করে দিয়েছিল যে গ্রহের অবস্থা সম্পর্কে বর্তমান জ্ঞান প্রদানের উদ্দেশ্যের জন্য এটি আর উপযুক্ত নয়।[১৪]


আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "International Geosphere-Biosphere Programme the Earth as a System"। ২০১০-০৪-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৩-২৫  আন্তর্জাতিক ভূমণ্ডল-জৈবমণ্ডল কর্মসূচি
  2. "The Achilles Heel of the Earth System" (PDF)ইন্টারন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর অ্যাপ্লায়েড সিস্টেমস অ্যানালাইসিস। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৩-২৫ 
  3. "The Amsterdam Declaration"আর্থ সিস্টেম সায়েন্স পার্টনারশিপ। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৩-২৫ 
  4. Planet Under Pressure: New Knowledge Towards Solutions, European Research Council, ২০১২ 
  5. Borenstein, Seth (১৪ অক্টোবর ২০১৪)। "With their mark on Earth, humans may name era, too"। Associated Press। সংগ্রহের তারিখ ১৪ অক্টোবর ২০১৪ 
  6. Waters, C.N.; ও অন্যান্য (৮ জানুয়ারি ২০১৬)। "The Anthropocene is functionally and stratigraphically distinct from the Holocene"। Science351 (6269): aad2622। এসটুসিআইডি 206642594ডিওআই:10.1126/science.aad2622পিএমআইডি 26744408 
  7. Edwards, Lucy E. (৩০ নভেম্বর ২০১৫)। "What is the Anthropocene?"Eos96ডিওআই:10.1029/2015EO040297 
  8. Castree, Noel (২০১৫)। "The Anthropocene: a primer for geographers"Geography100 (2): 66–75। ডিওআই:10.1080/00167487.2015.12093958। ২৯ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০২১ 
  9. Ellis, Erle (২০১৮)। Anthropocene: A Very Short Introduction1। Oxford University Press। আইএসবিএন 978-0-19-879298-7ডিওআই:10.1093/actrade/9780198792987.001.0001 
  10. Dahms, Hans-Uwe; Schizas, Nikolaos V.; James, R. Arthur; Wang, Lan; Hwang, Jiang-Shiou (মার্চ ২০১৮)। "Marine hydrothermal vents as templates for global change scenarios"Hydrobiologia818: 1–10। এসটুসিআইডি 4313072ডিওআই:10.1007/s10750-018-3598-8 – Springer-এর মাধ্যমে। 
  11. "Global Change and the Earth System"। ২০১০-০৪-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৩-২৫ 
  12. "2008 Global Carbon Budget"বৈশ্বিক কার্বন প্রকল্প। ২০১০-০৭-০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৩-২৫ 
  13. Sustainable Building 2000, 22-25 October 2000, Maastricht, The Netherlands: proceedings। Uitgeverij Æneas BV, 2000। ২২–২৫ অক্টোবর ২০০০। পৃষ্ঠা 1। আইএসবিএন 978-90-75365-36-8 
  14. https://www.peacepalacelibrary.nl/ebooks/files/C08-0036-Ivanova-International.pdf

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]