বিষয়বস্তুতে চলুন

"কামরূপ রাজ্য" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(→‎top: বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
'''রাজা রাজরা এবং রাজদরবার''': রাজাকে ঐশী উৎস হতে উপলব্ধ বলে মনে করা হতো। বংশ পরম্পরায় রাজা হবার প্রচলন ছিল, তবে দুটি প্রধান ঘটনার কারণে পৃথক পৃথক শাসক বংশের উৎপত্তি হয়। দ্বিতীয় ঘটনায় রাজ্যের মন্ত্রীগণ ব্রহ্মপাল নামীয় রাজাকে নির্বাচিত করেন যেহেতু পূর্ববর্তী রাজাগণ কোনো উত্তরাধিকারী ছাড়াই মৃত্যুবরণ করেন। রাজদরবার ''রাজগুরু'', কবি, শিক্ষিত লোকজন এবং চিকিৎসকদের দ্বারা ভর্তি থাকত। বিভিন্ন মহাকাব্যীয় উৎস হতে রাজদরবারের বিভিন্ন রাজকর্মচারীর উল্লেখ পাওয়া যায়: ''মহাবরধিপতি'', ''মহাপ্রতিহরা'', ''মহাল্লকাপ্রৌধিকা'', ইত্যাদি।
 
'''মন্ত্রীপরিষদমন্ত্রিপরিষদ''': রাজাগণের উপদেশদাতা হিসেবে ছিল মন্ত্রীপরিষদমন্ত্রিপরিষদ এবং সুয়ানচাং হতে ভাষ্করবর্মণ ও তার মন্ত্রীগণের একটি সভার উল্লেখ পাওয়া যায়। কামৌলি লিপি হতে প্রতিয়মান হয় যে এই পদগুলি ব্রাহ্মণদের অধীনে ছিল এবং উত্তরাধিকার সূত্রের মাধ্যমে প্রাপ্ত হতো। রাষ্ট্রের কর্মকাণ্ড বিশেষায়িত ছিল এবং বিভিন্ন শাখার কর্মচারীগণ বিভিন্ন বিভাগের কর্মকাণ্ড দেখভার করতো।
 
'''রাজস্ব''': বিশেষ কর সংগ্রাহকগণ চাষীদের নিকট হতে ভূমি কর সংগ্রহ করতেন। ভূমির অধিকারী নয় এমন চাষীগণকে ''উপরিকর'' দিতে হতো। টোল সংগ্রাহকগণ (কৈবর্ত) বণিক নৌকা হতে শুল্ক সংগ্রহ করত। তাম্রখনির উপর রাষ্ট্রের একচ্ছত্র অধিকার ছিল (কমলকর)। রাষ্ট্র তার কর্মচারীগণের মাধ্যমে এর ভাণ্ডাগার এবং কোশাগারের রক্ষণাবেক্ষণ করত যাদের বলা হতো ''ভাণ্ডাগারাধিকৃত'' এবং ''কোশ্ঠাগারিকা''।
১,৮৬,১২৭টি

সম্পাদনা