বর্মণ রাজবংশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বর্মণ রাজবংশ
৩৫০–৬৫৫
রাজধানী প্রাগজ্যোতিষপুর[১]
ভাষাসমূহ কামরূপী প্রাকৃত, সংস্কৃত
ধর্ম হিন্দু ধর্ম
সরকার রাজতন্ত্র
মহারাজাধিরাজ
 -  ৩৫০-৩৭৪ খ্রিস্টাব্দ পুষ্যবর্মণ
 -  ৩৭৪-৩৯৮ খ্রিস্টাব্দ সমুদ্রবর্মণ
 -  ৩৯৮-৪২২ খ্রিস্টাব্দ বলবর্মণ
 -  ৪২২-৪৪৬ খ্রিস্টাব্দ কল্যাণবর্মণ
 -  ৪৪৬-৪৭০ খ্রিস্টাব্দ গণপতিবর্মণ
 -  ৪৭০-৪৯৪ খ্রিস্টাব্দ মহেন্দ্রবর্মণ
 -  ৪৯৮-৫১৮ খ্রিস্টাব্দ নারায়ণবর্মণ
 -  ৫১৮–৫৪২ খ্রিস্টাব্দ মহাভূতবর্মণ
 -  ৫৪২-৫৬৬ খ্রিস্টাব্দ চন্দ্রমুখবর্মণ
 -  ৫৬৬-৫৯০ খ্রিস্টাব্দ স্থিতবর্মণ
 -  ৫৯০-৫৯৫খ্রিস্টাব্দ সুস্থিতবর্মণ
 -  ৫৯৫-৬০০ খ্রিস্টাব্দ সুপ্রতিষ্ঠিতবর্মণ
 -  ৬০০-৬৫০ খ্রিস্টাব্দ ভাস্করবর্মণ
 -  ৬৫০-৬৫৫ খ্রিস্টাব্দ অবন্তীবর্মণ
ঐতিহাসিক যুগ আদি মধ্যযুগ
 -  সংস্থাপিত ৩৫০
 -  ভাঙ্গিয়া দেত্তয়া হয়েছে ৬৫৫
সতর্কীকরণ: "common_name" জন্য উল্লিখিত মান নয়।|- style="font-size: 85%;" সতর্কীকরণ: "মহাদেশের" জন্য উল্লিখিত মান সম্মত নয়

বর্মণ রাজবংশ পুষ্যবর্মণ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত কামরূপ রাজ্যের প্রথম ঐতিহাসিক রাজবংশ।[n ১] এই রাজবংশের শাসকরা গুপ্ত সাম্রাজ্যের সামন্ত ছিলেন, কিন্তু পরবর্তীকালে গুপ্ত সাম্রাজ্যের দুর্বলতার সুযোগে মহেন্দ্রবর্মণ দুইটি অশ্বমেধ যজ্ঞ সম্পন্ন করে স্বাধীনতা ঘোষণা করেন।[n ২] সপ্তম শতাব্দীর মধ্যভাগে শালস্তম্ভ নামক এক আদিবাসী নেতা এই রাজবংশের শেষ রাজা অবন্তীবর্মণকে সিংহাসনচ্যুত করে ম্লেচ্ছ রাজবংশের প্রতিষ্ঠা করেন।[৩]

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

আসামের ডুবিনিধানপুর অঞ্চল থেকে প্রাপ্ত ভাস্করবর্মণের তাম্রলিপিগুলি থেকে জানা যায় যে, এই রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন পুষ্যবর্মণ। এই লিপিতে তাঁকে নরকাসুর, ভগদত্তবজ্রদত্ত নামক পৌরাণিক চরিত্রগুলিরর বংশধর বলে উল্লেখ করা হয়েছে।[n ৩][n ৪] ঐতিহাসিক দীনেশচন্দ্র সরকার অবশ্য বর্মণ রাজবংশের এই পৌরাণিক উৎপত্তি মানতে রাজি হননি, কারণ তাঁর মতে, প্রত্যেক রাজবংশ পৌরাণিক চরিত্রের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনের দাবী করে থাকলেও তার কোন প্রামাণ্য ঐতিহাসিকতা নেই বললেই চলে।[n ৫]

কামরূপ অনুসন্ধান সমিতির মতো গবেষণা প্রতিষ্ঠান বর্মণ রাজবংশকে আসামের প্রথম ইন্দো-আর্য্য রাজবংশ বলে উল্লেখ করেছে।[n ৬] যদিও মহাভারতে ভগদত্তকে ম্লেচ্ছ বলে উল্লেখ করা হয়েছে,[n ৭] তবে নিধানপুর তাম্রলিপিতে তাঁকে ইন্দ্রসখা বা ইন্দ্রের বন্ধু বলে দাবী করা হয়েছে বলে, বেশ কয়েকজন অসমীয়া ঐতিহাসিক এই শাসকদের ইন্দো-আর্য্য বলেই মনে করেছেন।[n ৮][n ৯] হিউয়েন সাং বর্মণ রাজবংশের রাজা ভাস্করবর্মণকে নারায়ণ হতে উদ্ভূত একজন ব্রাহ্মণ বলে উল্লেখ করেছেন ঠিকই,[n ১০] কিন্তু সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়ের মতে, এই রাজবংশের রাজারা ব্রাহ্মণ ছিলেন না, বরং তাঁরা ছিলেন হিন্দু ধর্মে ধর্মান্তরিত ইন্দো-মঙ্গোলোয়েড নব্য-ক্ষত্রিয়।[n ১১] হিউজ আর্বানও মনে করেছেন, যে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকার সমস্ত রাজবংশের মতো বর্মণ রাজবংশের রাজারাও প্রথমে অনার্য্য ছিলেন, যারা পরে ব্রাহ্মণ্য ধর্ম গ্রহণ করে আর্য্য সমাজে অন্তর্ভুক্ত হন।[n ১২]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. Three thousand years after these mythical ancestors (Naraka, Bhagadatta and Vajradatta) there occurred Pushyavarman as the first historical king, after whom we have an uninterrupted line of rulers up to Bhaskarvarman.[২]:xxix
  2. According to him (D C Sircar) Narayanavarma, the father of Bhutivarman, was the first Kamarupa king to perform horse-sacrifices and thus for the first time since the days of Pusyavarman freedom from the Gupta political supremacy was declared by Narayanavarma. But a careful study or even a casual perusal of the seal attached to the Dubi C.P. and of the nalanda seals should show that it is Sri Mahendra, the father of Narayanavarma himself, who is described as the performer of two horse-sacrifices.[২]:
  3. The mythical ancestors of this line of rulers were Naraka, Bhagadatta and Vajradatta. Three thousand years after these mythical ancestors there occurred Pushyavarman...[২]:xxix
  4. In the Nidhanpur copperplate inscription, it is mentioned: "When the kings of his (Vajradatta's) family having enjoyed the position (of rulers) for three thousand years had (all) attained the state of gods, Pushyavarman became the lord of the world.[২]:৫০
  5. Since the Epico-Pauranic myths associated Pragjyotisha with Naraka and his descendants, it was quite natural for the kings of ancient Assam to fabricate the story of descent from Naraka's family[৪]:৯৫
  6. The Varman dynasty, which was probably the first Indo-Aryan dynasty in Assam was overthrown by Salastambha, a man of Mleccha or non-Aryan (Mongolian) origin.[৫]
  7. In some sections of the Great Epic, Bhagadatta is represented as Yavana or Mleccha ruler, although a friend of Indra.[৬]
  8. One may go perhaps a step further and suggest that Pusyavarman was the first Indo-Aryan ruler set up by Samudragupta over the two territories of Kamarupa and Davaka unified into a single kingdom. None can or should deny it as a fact if Bhattasali simply means to say that the process leading to the assertion of independence by the Varmans of Kamarupa commenced earlier, ie., before Bhutivarman, even without specifically bringing Mahendravarman into play. The above suggestion, that the first Indo-Aryan rule favourable to Brahmanism was founded in Kamarupa with Pusyavarman as the first ruler under Samudragupta, received its support from these two facts: (1) that Bhagadatta the great legendary ancestor of the Varmans, is described in the Nidhanpur grant of Bhaskaravarman as Indrasakhah, "The friend of Indra (the heavenly prototype of the earthly Indo-Aryan monarch)", and his father and predecessor Naraka as one begotten of the Varaha form of vishnu, and (2) the descent claimed, as known to Hwen Thsang, by the Varmans from "the god Narayana." If thus the earlier rulers of the Varmans line were Vaisnavas, at least up till Bhutivarman. [৭]
  9. K.N. Dutta seems to be right in concluding that the Varman dynasty, which was probably the first Indo-Aryan dynasty in Assam, was overthrown by Salastambha, (Mongoloid) origin, who then made himself the king of Kamarupa.[৮]
  10. The present king belongs to the old line (tso yari) of Narayana-deva. He is of the Brahman caste. His name is Bhaskaravarman, and his title Kumara (Keu-mo-lo). Beal, Samuel (১৮৮৪)। Si-Yu-Ki. Buddhist Records of the Western World (PDF)II। Ludgate Hill: Trubner & Co.। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৩ </ref>
  11. Hiuen Ts’ang by mistake described Bhaskara-varman as a Brahman, but he was just a neo-Kshatriya, a member of a Hinduised mleccha or non-Hindu Indo-Mongoloid family which had been accepted within the fold of Hindu orthodoxy[৯]:৯১
  12. Virtually all of Assam’s kings, from the fourth-century Varmans down to the eighteenth-century Ahoms, came from non-Aryan tribes that were only gradually Sanskritised.[১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Prakash, Col Ved, Encyclopedia of North-East India 
  2. Sharma, Mukunda Madhava (১৯৭৮)। Inscriptions of Ancient Assam। Gauhati University, Assam। 
  3. Sarkar, Ichhimuddin (১৯৯২)। Aspects of historical geography of Prāgjyotiṣa-Kāmarūpa (ancient Assam)। Naya Prokash। পৃষ্ঠা 295। 
  4. Sircar, D C (১৯৯০), "Political History", Barpujari, H K, The Comprehensive History of Assam, I, Guwahati: Publication Board, Assam, পৃষ্ঠা 94–171 
  5. Kāmarūpa Anusandhāna Samiti, Readings in the history & culture of Assam - Page 179, 1984
  6. B M Barua, Common Ancestry of Pre-Ahom rulers and some problems of early History of Assam, in "Discovery of Northeast India" (ed Sharma S. K et al.) p277.
  7. Suresh Kant Sharma, Usha Sharma, Discovery of North-East India: Geography, History, Culture ..., Volume 3 - Page 275, 2005
  8. Niśipada Caudhurī, Historical archaeology of central Assam - Page 83, 1985
  9. Chatterji, S. K. (১৯৭৪)। Kirata-Jana-Krti। Calcutta: The Asiatic Society। 
  10. Urban, Hugh B. (২০১১)। "The Womb of Tantra: Goddesses, Tribals, and Kings in Assam"। The Journal of Hindu Studies4: 231–247। doi:10.1093/jhs/hir034  :২৩৪