প্রকাশ ভাণ্ডারী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
প্রকাশ ভাণ্ডারী
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামপ্রকাশ ভাণ্ডারী
জন্ম২৭ নভেম্বর, ১৯৩৫
দিল্লি, ব্রিটিশ ভারত
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ ব্রেক
ভূমিকাঅল-রাউন্ডার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৭৩)
২৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৫৫ বনাম পাকিস্তান
শেষ টেস্ট২ নভেম্বর ১৯৫৬ বনাম অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৬৩
রানের সংখ্যা ৭৭ ২,৫৫২
ব্যাটিং গড় ১৯.২৫ ৩২.৭১
১০০/৫০ ০/০ ৪/১১
সর্বোচ্চ রান ৩৯ ২২৭
বল করেছে ৭৮ ৮,০৩৫
উইকেট - ১২২
বোলিং গড় - ২৮.২৪
ইনিংসে ৫ উইকেট -
ম্যাচে ১০ উইকেট -
সেরা বোলিং - ৭/৫৪
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৫০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২ ফেব্রুয়ারি ২০২০

প্রকাশ ভাণ্ডারী (এই শব্দ সম্পর্কেউচ্চারণ ; মারাঠি: प्रकाश भंडारी; জন্ম: ২৭ নভেম্বর, ১৯৩৫) তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের দিল্লি এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক ভারতীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। ভারত ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৫৫ থেকে ১৯৫৬ সময়কালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ভারতের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ভারতীয় ক্রিকেটে বাংলা ও দিল্লি দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ অল-রাউন্ডার হিসেবে খেলতেন। ডানহাতে ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি ডানহাতে অফ ব্রেক বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন তিনি।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৫২-৫৩ মৌসুম থেকে ১৯৭০-৭১ মৌসুম পর্যন্ত প্রকাশ ভাণ্ডারী’র প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। খেলোয়াড়ী জীবনের শুরুতে বেশ প্রতিশ্রুতিশীলতার স্বাক্ষর রেখেছিলেন। ডানহাতে প্রচণ্ড শক্তি নিয়ে ব্যাটিং করতেন। আক্রমণাত্মক ঢংয়ে ডানহাতে ব্যাটিংয়ে নামতেন। এছাড়াও, কার্যকরী অফ ব্রেক বোলার ছিলেন তিনি। প্রায় দুই দশকব্যাপী খেলোয়াড়ী জীবনে চমৎকার প্রথম-শ্রেণীর রেকর্ডের স্বাক্ষর রাখেন। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে তারকা খেলোয়াড়ের মর্যাদা লাভ করেছেন। বিশ বছর পূর্তির পূর্বেই জাতীয় দলে খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন।

১৯৫১-৫২ মৌসুম থেকে ১৯৫৬-৫৭ মৌসুম পর্যন্ত দিল্লির বিদ্যালয় ও দিল্লির বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে ভারতের সকল ধরনের প্রতিযোগিতায় অংশ নিতেন। তন্মধ্যে শেষ মৌসুমে রোহিতন বারিয়া ট্রফি আন্তঃ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিযোগিতায় দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় দলকে নেতৃত্ব দেন। ১৯৫৩-৫৪ মৌসুমে ভারতীয় একাদশ দলের সদস্যরূপে সিলভার জুবিলি ওভারসিজ ক্রিকেট দলের বিপক্ষে খেলেন। এছাড়াও, ১৯৫৬ সালে সিলন গমন করেন। ১৯৫৭-৫৮ মৌসুমে দিল্লির সদস্যরূপে পাতিয়ালার বিপক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ২২৭ রান করেছিলেন। একই খেলায় ৮১ রান খরচায় নয় উইকেট পেয়েছিলেন তিনি।

১৯৬১-৬২ মৌসুমের রঞ্জী ট্রফি প্রতিযোগিতার সেমি-ফাইনালে রাজস্থানের বিপক্ষে দূর্দান্ত খেলেন। উদয়পুরে অনুষ্ঠিত খেলায় দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলা দলের ইনিংস ঘোষণার পূর্বে ৬০ মিনিটে শতরানের মনোরম ইনিংস উপহার দেন।[১] একসময় এ শতরানটি ভারতীয় ক্রিকেটে দ্রুততম শতরান হিসেবে ভাবা হতো। তবে, ১৯১৫-১৬ মৌসুমে ৬০ মিনিটে কেন গোল্ডি[২] ও ১৯২৩-২৪ মৌসুমে আহসান-উল-হক একচল্লিশ মিনিটে শতরান করার রেকর্ড চোখে পড়ে।[৩] প্রথম ইনিংসে তিনি ৫৮ রান তুলেন। একই খেলায় সাত উইকেট লাভ করেছিলেন তিনি। প্রায় দশ বছর পর পাঞ্জাবের বিপক্ষে অপরাজিত ২০২ রানের ইনিংস খেলেন।

সমগ্র প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবনে ৩২.৭০ গড়ে চার সেঞ্চুরি সহযোগে ২৪৫৩ রান তুলেন। এছাড়াও, ২৮.১৭ গড়ে ১২২ উইকেট পেয়েছিলেন তিনি।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে তিনটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন প্রকাশ ভাণ্ডারী। ২৬ ফেব্রুয়ারি, ১৯৫৫ তারিখে করাচীতে স্বাগতিক পাকিস্তান দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ২ নভেম্বর, ১৯৫৬ তারিখে কলকাতায় সফরকারী অস্ট্রেলিয়া দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

১৯৫৪-৫৫ মৌসুমে তরুণ অবস্থাতেই পাকিস্তান গমন করেছিলেন। তিনবার দলের দ্বাদশ খেলোয়াড় হিসেবে থাকার পর করাচীর জাতীয় স্টেডিয়ামে সিরিজের চূড়ান্ত টেস্টে ম্যাটিং উইকেটে খেলার সুযোগ লাভ করেন। খান মোহাম্মদের বলে স্ট্যাম্পে আঘাত লেগে বোল্ড হলে ১৯ রানে বিদেয় নেন তিনি। এছাড়াও, নিউজিল্যান্ড ও পরবর্তী মৌসুমে কলকাতায় অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট খেলায় অংশ নেন। ১৯৫৪-৫৫ মৌসুমে দিল্লির ফিরোজ শাহ কোটলায় নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৩৯ রান করেছিলেন। আট নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমে বাপু নাদকর্নী’র সাথে ৭৩ রানের জুটি গড়েছিলেন।

টাটা গ্রুপে কাজ করেছেন তিনি।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. https://cricketarchive.com/Archive/Scorecards/25/25326.htmlঅর্থের বিনিময়ে সদস্যতা প্রয়োজন  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  2. http://cricketarchive.co.uk/Archive/Scorecards/9/9485.htmlঅর্থের বিনিময়ে সদস্যতা প্রয়োজন  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  3. http://cricketarchive.co.uk/Archive/Scorecards/11/11053.htmlঅর্থের বিনিময়ে সদস্যতা প্রয়োজন  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]