নীল গেইম্যান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
নীল গেইম্যান
গেইম্যান, এ্প্রিল ২০১৩
গেইম্যান, এ্প্রিল ২০১৩
জন্মনীল রিচার্ড গেইম্যান
(1960-11-10) ১০ নভেম্বর ১৯৬০ (বয়স ৫৯)
পোর্টচেস্টার, হ্যাম্পশায়ার, ইংল্যান্ড
পেশালেখক, কমিকবই রচয়িতা, চিত্রনাট্যকার, কন্ঠ অভিনেতা
ধরনফ্যান্টাসি, হরর, কল্পবিজ্ঞান, ডার্ক ফ্যান্টাসি, কমেডি
উল্লেখযোগ্য রচনাদ্য স্যান্ডম্যান, নেভারহোয়্যার, আমেরিকান গড্‌স, স্টারডাস্ট, কোরালাইন, দ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক, গুড ওমেনস, দ্য ওশান অ্যাট দ্য এন্ড অফ দ্য লেন
সক্রিয় বছর১৯৮৪–বর্তমান
দাম্পত্যসঙ্গী
  • মেরী ম্যাক্‌গ্রাথ
    (বি. ১৯৮৫; বিচ্ছেদ. ২০০৭)
  • আমান্ডা পামার
    (বি. ২০১১)
সন্তান
ওয়েবসাইট
neilgaiman.com

নীল রিচার্ড ম্যাক্‌কিনন গেইম্যান[২] (/ˈɡmən/;[৩] জন্মসূত্রে নীল রিচার্ড গেইম্যান,[২] ১০ নভেম্বর ১৯৬০)[৪] হলেন একজন ইংরেজ লেখক যিনি ছোটগল্প, উপন্যাস, কমিকবই, গ্রাফিক উপন্যাস, বাস্তবনির্ভর সাহিত্য, কন্ঠনাট্য, এবং চলচ্চিত্রে অবদান রেখেছেন। তার কাজের ভিতর রয়েছে, কমিকবই সিরিজ দ্য স্যান্ডম্যান এবং উপন্যাস স্টারডাস্ট, আমেরিকান গড্‌স, কোরালাইন, এবং দ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক। তিনি প্রচুর পুরষ্কারের বিজেতা, যার মধ্যে রয়েছে হ্যুগো, নেবুলা, ব্রাম স্টোকার পুরষ্কার, এবং নিউবেরিকার্নেগী মেডাল। তিনিই প্রথম লেখক যিনি একই কাজের জন্য নিউবেরি এবং কার্নেগী মেডাল জয় করেছেন (২০০৮ সালে দ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক এর জন্য)।[৫][৬] তার দ্য ওশান অ্যাট দ্য এন্ড অফ দ্য লেন ২০১৩ সালে ব্রিটিশ ন্যাশনাল বুক অ্যাওয়ার্ডস এর বুক অফ দ্য ইয়ার ঘোষিত হয়েছিল।[৭]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

গেইম্য‍ান পরিবার পোলিশ-ইহুদী এবং অন্যান্য পূর্ব-ইউরোপীয় ইহুদী গোত্রীয়[৮]। নীল গেইম্যানের প্রপিতামহ বেলজিয়ামের অ্যান্টওয়ার্প থেকে ১৯১৪ সালে যুক্তরাজ্যে আগমন করেন[৯] এবং তার পিতামহ ইংল্যান্ডের দক্ষিণে পোর্টস্‌মাথের হ্যাম্পশায়ারে মুদিদোকানের সারি খোলেন। গেইম্যানের বাবা ডেভিড বার্নার্ড গেইম্যান পরবর্তীতে এ দোকানের দায়িত্ব নেন[১০] এবং মা শীলা গেইম্যান (বিবাহোত্তর পদবী গোল্ডম্যান) ছিলেন একজন ফার্মাসিস্ট। গেইম্যানের ছোট দুই বোন রয়েছে, ক্লেয়ার এবং লিজি[১১]

১৯৬০ সালে হ্যাম্পশায়ারে নীল গেইম্যানের জন্ম হয়। ১৯৬৫ সালে তার পরিবার ওয়েস্ট সাসেক্সের ইস্ট গ্রিনস্টেড শহরে চলে আসে। তার বাবা-মা এখানকার স্থানীয় সায়েন্টোলজি কেন্দ্রে ডায়ানেটিক্স বিষয়ে পড়াশোনা করতেন। তার এক বোন ক্লেয়ার পরবর্তীকালে লস এঞ্জেলসে সায়েন্টোলজিবিষয়ক কর্মকাণ্ডে যুক্ত হন। তার অপর বোন লিজির কথায়, "আমাদের সামাজিকতা ঘিরে ছিল সায়েন্টোলজি এবং ইহুদী ধর্মীয়তা। কৈশোরে কেউ যদি আমার ধর্ম জানতে চাইতো, আমি বলতাম, 'আমি একজন ইহুদী সায়েন্টোলজিস্ট'"। নীল গেইম্যান নিজেকে সায়েন্টোলজিস্ট বলে পরিচয় দেননা, বরং সায়েন্টোলজি এবং ইহুদী ধর্ম দুটোকেই তাঁর পারিবারিক ধর্ম হিসেবে বর্ণনা করেন।[১২]। তাঁর ব্যক্তিগত দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে তিনি বলেছেন, "আমার মনে হয় ডিসি জগতে ঈশ্বর রয়েছেন এটা বলতে পারি। এই জগতে ঈশ্বরের উপস্থিতির পক্ষে আমি ঢাক পেটাবো না। জানি না, আমার মনে হয় এর সুযোগ ৫০/৫০। এটা আমার কাছে কোন ব্যাপার না।"[১৩]

গেইম্যান মাত্র চার বছর বয়সে পড়তে শেখেন। তিনি ছোটবেলা থেকেই পড়তে ভালোবাসেন, এবং পড়ার মত যা কিছু পেতেন, তাই পড়তেন।[১৪] দশ বছর বয়সে তিনি ডেনিস হুইটলির সমস্ত লেখা পড়ে শেষ করেন, যার মধ্য‍ে দ্য কা অফ গিফর্ড হিলারি এবং দ্য হন্টিং অফ টোবি জুগ তার বিশেষ পছন্দ হয়েছিল। জে. আর. আর. টলকিন এর দ্য লর্ড অফ দ্য রিংস তাকে গভীরভাবে প্রভাবিত করে, যদিও তার বিদ্য‍ালয়ের পাঠাগারে এর প্রথম দুটি খণ্ডই শুধু ছিল। বিদ্যালয়ের ইংরেজি পুরষ্কার এবং পাঠ পুরষ্কার জেতার পর তিনি তৃতীয় খণ্ডটি কিনতে সক্ষম হন[১৫]

তার সপ্তম জন্মদিনে তিনি সি এস লুইস এর দ্য ক্রনিকলস অফ নার্নিয়া সিরিজটি হাতে পান। নার্নিয়া তাকে সাহিত্যিক পুরষ্কারের সাথেও পরিচিত করে; ১৯৫৬ সালে সিরিজটির শেষ খণ্ড কার্নেগী মেডাল জয় করেছিল। ২০১০ সালে যখণ নীল গেইম্যান নিজেও মেডালটি জয় করেন, তখন একেই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পুরষ্কার বলে মন্তব্য করেছিলেন[৬]

গেইম্যান ওয়েস্ট সাসেক্সের আর্ডিংলি কলেজে অধ্যয়ন করেছেন

লুইস ক্যারল এর লিখিত অ্যালিস' অ্যাডভেঞ্চার্স ইন ওয়ান্ডারল্যান্ড তার আরেকটি প্রিয় বই ছিল। তিনি একে সবসময়ের প্রিয় বই বলে গণনা করেন, এবং কৈশোরে নিয়মিত পড়তে পড়তে কাহিনীটি প্রায় মুখ্স্থ করে ফেলেছিলেন[১৫]। এছাড়া কৈশোরে ব্যাটম্যান তার প্রিয় কমিক ছিল[১৫]

গেইম্যান চার্চ অফ ইংল্যান্ডের বিভিন্ন শিক্ষালয়ে পড়াশোনা করেন, যার মধ্যে রয়েছে ইস্ট গ্রিনস্টেডের ফন্টহিল স্কুল[১৬], আর্ডিংলি কলেজ (১৯৭০–১৯৭৪), এবং ক্রয়ডনের উইটগিফ্ট স্কুল (১৯৭৪–১৯৭৭)[১৭]। তার বাবার সায়েন্টোলজি বিষয়ক কার্যকলাপের কারণে একটি বালক বিদ্যালয় সাত বছর বয়সী গেইম্যানকে ভর্তি করতে চায়নি[১২][১৮]

নীল গেইম্যান ইস্ট গ্রিনস্টেডে বহু বছর কাটিয়েছেন, ১৯৬৫ থেকে ১৯৮০ পর্যন্ত, এবং পরে ১৯৮৪ থেকে ১৯৮৭ পর্যন্ত।[১৬] এখানেই গেইম্যান তার প্রথম স্ত্রী মেরী ম্যাক্‌গ্রাথের সঙ্গে পরিচিত হন। মেরী সেসময় সায়েন্টোলজি পড়াশোনা করছিলেন, এবং গেইম্যানের বাবার ক্রয়কৃত একটি বাড়িতে বসবাসরত ছিলেন।১৯৮৫ সালে তাদের প্রথম সন্তান মাইকেলের জন্মের পর তারা বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন[১২]

পেশা[সম্পাদনা]

সাংবাদিকতা, প্রারম্ভিক সাহিত্যকর্ম এবং অনুপ্রেরণা[সম্পাদনা]

গেইম্যান সৃজনকারীর অধিকার নিয়ে তাঁর উদ্বিগ্নতার কথা বলছেন।

নীল গেইম্যানের প্রারম্ভিক জীবনে পাঠ করা লেখকদের মধ্যে রয়েছেন সি এস লুইস, জে আর আর টলকিন, লুইস ক্যারল, মেরী শেলি, রুডইয়ার্ড কিপলিং, এডগার অ্যালান পো, মাইকেল মুরকক, অ্যালান মুর, স্টিভ ডিটকো,[১৯] উইল আইজনার,[২০] উরসুলা কে লে গুইন, হারলান এলিসন, লর্ড ডানসনি এবং জি কে চেস্টারটন[১৫][২১][২২]। ১৯-২০ বছর বয়সে তিনি তার প্রিয় কল্পবিজ্ঞান লেখক আর এ ল্যাফার্টির সঙ্গে যোগাযোগ করেন লেখক হওয়ার জন্য পরামর্শ চান। ল্যাফার্টি তাকে একটি অনুপ্রেরণামূলক এবং তথ্যপূর্ণ চিঠির মাধ্যমে সাহিত্যিক পরামর্শ লিখে পাঠান[২৩][২৪]

গেইম্যন বলেছেন তার ওপর সবচে বেশি প্রভাব ফেলেছেন রজার জিলানি[২৫], গেইম্যানের সাহিত্যিক ঢং এবং বিষয়বস্তু থেকে এ কথার সমর্থন পাওয়া যায়[২৬]। গেইম্যানের মতে তার মননকে প্রভাবিত করা অন্যান্য লেখকরা হলেন মুরকক, এলিসন, স্যামুয়েল আর ডিল্যানি, অ্য‍াঞ্জেলা কার্টার, ল্যাফার্টি এবং লে গুইন।[২৫] এছাড়া গেইম্যান লোককথা ঐতিহ্য থেকেও অনুপ্রেরণা পেয়েছেন[২৭]

১৯৮০ দশকের শুরুতে গেইম্যান সাংবাদিকতায় মনোনিবেশ করেন, যার মাধ্যমে তিনি সাহিত্যজগতে প্রবেশ করে নিজের লেখা প্রকাশ করা সুযোগ তৈরি করতে চেয়েছিলেন[১৫]। তিনি ব্রিটিশ ফ্যান্টাসি সোসাইটির জন্য প্রচুর প্রতিবেদন লিখেছেন[২৮]। তার প্রথম প্রকাশিত লেখা হল "ফেদারকোয়েস্ট" নামের একটি ফ্যান্টাসি ছোটগল্প, যা ইম্যাজিন ম্যাগাজিন এর মে ১৯৮৪ সংখ্যায় প্রকাশিত হয়[২৮]

১৯৮৪ সালে লন্ডনের ভিক্টোরিয়া রেলস্টেশনে ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করার সময়ে তিনি অ্যালান মূর এর লেখা সোয়াম্প থিং কমিকটি হাতে পান, এবং গুরুতব দিয়ে সেটি পড়েন। কমিকলেখনে মূরের অভিনব এবং সতেজ ভঙ্গি তাকে এতটা প্রভাবিত করে যে তিনি কমিকবইয়ের প্রচণ্ড ভক্ত হয়ে ওঠেন এবং নিয়মিত কমিক পড়ার অভ্যাস গড়ে তোলেন[২২]

১৯৮৪ সালে গেইম্যান তার প্রথম বইটি লেখেন, যা ছিল ডুরান ডুরান ব্যান্ডের একটি জীবনী, এবং কিম নিউম্যানের সঙ্গে গ্যাস্টলি বিয়ন্ড বিলিফ নামের একটি উক্তিসংগ্রহও লেখেন।[১৫] যদিও গেইম্যান বইটি সম্বন্ধে উঁচু ধারণা পোষণ করেননি, তথাপি বইটির প্রথম সংষ্করণ খুব দ্রুতই বিক্রি হয়ে যায়।[১৫][২৯] এরপর পেন্টহাউজ ম্যাগাজিন তাকে চাকরির প্রস্তাব পাঠায়, তবে তিনি তা গ্রহণ করেননি।[১৫]

তিনি বিভিন্ন ব্রিটিশ ম্যাগাজিনের জন্য সাক্ষাতকার ও প্রবন্ধ লিখেছেন। এসময় তিনি কখনও কখনও কিছু ছদ্মনাম ব্যবহার করতেন, যেমন জেরি মাসগ্রেভ, রিচার্ড গ্রে, ইত্যাদি।[৩০] ব্রিটিশ পত্রিকাগুলিকে নিয়মিত অসত্য তথ্যকে সত্য বলে প্রকাশ করতে দেখে তিনি ১৯৮৭ সালে সাংবাদিকতা থেকে মুখ ফিরিয়ে নেন[৩১][৩২]। ১৯৮০ দশকের শেষের দিকে গেইম্যান, বিশুদ্ধ ব্রিটিশ রসবোধের ঢংয়ে (তার নিজের মত) লেখেন ডোন্ট প্যানিক: দ্য অফিশিয়াল হিচহাইকার্স গাইড টু দ্য গ্যালাক্সী কম্পানিয়ন[৩৩]। এরপরে তিনি কমিক উপন্যাস গুড ওমেনস এর প্রথম ভাগ লেখেন, যা ছিল ইংরেজ লেখক টেরি প্র্যাচেট এর সঙ্গে তার সাহচর্যের আরম্ভ[৩৪]

কমিকস[সম্পাদনা]

অ্যালান মূর এর সঙ্গে বন্ধুত্ব স্থাপনের পর[২২] গেইম্যান কমিক বই রচনায় হাত দেন। মূর মিরাকলম্যান সিরিজ থেকে সরে আসার পর গেইম্যান সিরিজটিতে কাজ শুরু করেন, যদিও পরবর্তীতে এর প্রকাশক এক্লিপ্স কমিকস বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সিরিজটি অসমাপ্ত থেকে যায়। তার প্রকাশিত প্রথম কমিক ছইল ২০০০ এডি এর ফিউচার শক কমিকের চারটি পর্ব (১৯৮৬-১৯৮৭)। দীর্ঘদিনের বন্ধু ডেভ ম্যাক্‌কীনের সঙ্গে মিলিতভাবে গেইম্যান তিনটি কমিকবই তৈরি করেন: ভায়োলেন্ট কেসেস, সিগনাল টু নয়েজ, এবং দ্য ট্র্যাজিকাল কমেডি অর দ্য কমিকাল ট্র্যাজেডি অফ মিস্টার পাঞ্চ। এই কাজের প্রেক্ষিতে ডিসি কমিক্স ১৯৮৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে তাকে কাজের প্রস্তাব দেয়,[৩৫] এবং সেখানে গেইম্যান ব্ল্যাক অর্কিড মিনিসিরিজি লেখেন[৩৬]। কারেন বার্জার (যিনি পরে ডিসি কমকসের ভার্টিগো ব্র্যান্ডের পরিচালক পদে গিয়েছেন) ব্ল্যাক অর্কিড পড়ে গেইম্যানকে প্রস্তাব করেন একটি পুরাতন চরিত্র স্যান্ডম্যানকে তার নিজ রূপে উপস্থাপন করার জন্য।[১৫]

স্যান্ডম্যান চরিত্রটি হল স্বপ্নের (Dream) বার্ধক্যহীন মানব-রূপায়ন, যা অনেকের কাছে অনেক নামে পরিচিত, যেমন মর্ফিয়াস। সিরিজটি ১৯৮৯ এর জানুয়ারি থেকে ১৯৯৬ এর মার্চ পর্যন্ত চলে[৩৭]। দ্য স্যান্ডম্যানের ৮ম পর্বে গেইম্যান এবং চিত্রকর মাইক ড্রিঞ্জেনবার্গ মৃত্যু (Death) চরিত্রটি উপস্থাপন করা হয় স্যান্ডম্যানের বড় বোন হিসেবে, এবং এটিও বিপুল জনপ্রিয়তা পায়[৩৮] ১৯৯৩ সালে ডেথ: দ্য হাই কস্ট অফ লিভিং সিরিজটি দিয়ে ডিসির ভার্টিগো প্রকাশনা শাখা যাত্রা শুরু করে[৩৯]। মূল সিরিজের ৭৫ পর্ব, সঙ্গে একটি চিত্রিত প্রবন্ধ, এবং সাতটি গল্প নিয়ে একটি বিশেষ সংখ্যা, মোট ১২ খণ্ডে সংকলিত হয়েছে, যা এখনও নিয়মিত বিক্রি হচ্ছে (১৪ খণ্ড, যদি ডেথ: দ্য হাই কস্ট অফ লিভিং এবং ডেথ: দ্য টাইম অফ ইয়োর লাইফ অন্তর্ভুক্ত করা হয়)। এর চিত্রকরদের মধ্যে রয়েছেন, স্যাম কীথ, মাইক ড্রিঞ্জেনবার্গ, জিল থম্পসন, শন ম্যাকম্যানাস, মার্ক হেম্পেল এবং মাইকেল জুলি, অক্ষরায়নে টড ক্লাইন, রঞ্জনে ড্যানিয়েল ভোজো, এবং কভার চিত্রে ডেভ ম্যাককিন[১৫] এটি ডিসির অন্যতম বিক্রিত সিরিজে পরিণত হয়, এমনকি একসময় ব্যাটম্যান এবং সুপারম্যান সিরিজকেও ছাড়িয়ে গিয়েছিল।[৪০] কমিক ইতিহাসবিদ লেস ড্যানিয়েল্‌স মন্তব্য করেন যে গেইম্যানের কাজ "আশ্চর্যজনক" এবং দ্য স্যান্ডম্যান-এ "ফ্যান্টাসি, হরর, শ্লেষাত্বক রসকে এমনভাবে একীভূত করা হয়েছে যা কমিকে ইতিপূর্বে দেখা যায়নি"।[৪১][৪২] ডিসি কমিকসের পল লেভিৎজ বলেন যে দ্য স্যান্ডম্যান এর তুমুল জনপ্রিয়তা অনেক নতুন পাঠকদের কমিক পড়তে উৎসাহী করেছে, বিশেষত কলেজপড়ুয়া তরুনীদের, এবং গেইম্যানকে জনপ্রিয় সাংষ্কৃতিক ব্যক্তিত্বে উন্নীত করেছে।[৪৩]

গেইম্যান এবং জেমি ডেলানো সোয়াম্প থিং সিরিজটিতেও কাজ করছিলেন, তবে ডিসি কমিক্সের সেন্সর-সংক্রান্ত সম্পাদকীয় সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে তারা সিরিজটি থেকে সরে আসেন।[৪৪]

গেইম্যান ১৯৮৯ সালে ডিসি এর সিক্রেট অরিজিনস সিরিজের দুটি পর্বে কাজ করেছেন: পয়জন আইভি[৪৫] এবং রিডলার[৪৬]একশন কমিকস উইকলি এর জন্য গেইম্যানের লিখিত একটি পর্বের প্রকাশনা সম্পাদকীয় সিদ্ধান্তে বাতিল করা হয়েছিল, তবে তা অবশেষে ২০০০ সালে গ্রীন ল্যান্টার্ন/সুপারম্যান: লেজেন্ড অফ দ্য গ্রিন ফ্লেম নামে প্রকাশিত হয়।[৪৭]

১৯৯০ সালে গেইম্যান লেখেন দ্য বুকস অফ ম্যাজিক, যা ছিল ডিসি কমিকজগতের জাদুকরী এবং পৌরাণিক ধারা নিয়ে চার পর্বের একটি মিনিসিরিজ[৪৮], যার কাহিনী অগ্রসর হয় একজন ইংরেজ টিন-এজারকে কেন্দ্র করে যে আবিষ্কার করেছিল যে তার নিয়তি হচ্ছে বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ জাদুকর হওয়া। এটি পরে একটি নিয়মিত কমিক সিরিজে উন্নীত হয়।[৪৯]

মাইকেল জুলি এবং স্টিভেন আর. বিসেট এর চিত্রায়িত ট্যাবু কমিক সংকলনের জন্য গেইম্যান ঐতিহাসিক সুইনি টড চরিত্রটির সম্পাদনা করেছেন, তবে সংকলনটির সম্পূর্ণ হবার আগেই তার প্রকাশনা বন্ধ হয়ে যায়।[৫০]

১৯৯০ এর দশকের মধ্যভাগে গেইম্যান টেকনো কমিকসের জন্য একাধিক চরিত্র রচনা করেন, যেগুলো সম্পাদনাপূর্বক লেডি জাস্টিস, মিস্টার হিরো দ্য নিউম্যাটিক ম্যান, এবং টেকনোফেজ[৫১] চরিত্র তিনটিতে রূপান্তরিত হয়। এসব চরিত্রনির্ভর কমিকবইতে চরিত্রগুলোর স্রষ্টা হিসেবে গেইম্যানের নাম স্পষ্টাক্ষরে লেখা থাকত, যদিও তিনি কাহিনীগুলো রচনায় জড়িত ছিলেন না।

এড ক্রেমার সম্পাদিত সংকলন টেলস অফ দ্য হোয়াইট উল্ফ এর জন্য নীল গেইম্যান একটি আধা-আত্মজীবনীমূলক গল্প লিখেছিলেন, যা উপজীব্য ছিল মাইকেল মুরকক এর অনায়কোচিত চরিত্র মেলনিবনি-এর এলরিক নিয়ে এক কিশোরের মুগ্ধতা। ১৯৯৬ সালে গেইম্যান ক্রেমারের দ্য স্যান্ডম্যান: বুক অফ ড্রীমস সংকলনটি সহসম্পাদনা করেন, যাতে টোরি আমোস, ক্লাইভ বার্কার, জীন উল্ফ, ট্যাড উইলিয়ামস এবং অন্যান্যদের রচনা অন্তর্ভুক্ত ছিল।

কাহিনী বর্ণনার জন্য অন্যান্য মাধ্যম থেকে কমিক কেন বেশি পছন্দ করেন, এমন প্রশ্নের জবাবে গেইম্যান বলেছেন:

"কমিকের অন্যতম একটি আকর্ষণের কারণ ছিল, এই অনেক দিক দিয়েই অনাহত মাধ্যম। এটা ঊর্বর জমি। আমি যখন স্যান্ডম্যান এর কাজ করছিলাম, আমার প্রায়ই মনে হচ্ছিল যেন চাপাতি দিয়ে ঝোপঝাড় পরিষ্কার করে বনেবাদাড়ে হেঁটে যাচ্ছি। কমিক লেখার সময় আমি এমন জায়গায় পৌঁছেছি এবং এমন কাজ করেছি, যা আগে কেউ কখনও করেনি। উপন্যাস লেখার সময় আমার তীব্রভাবে জানা থাকে যে, আমি এমন একটা মাধ্যমে কাজ করছি, যেখানে আমার আগেই ধরুন, তিন-চার হাজার বছর ধরেই অনেকে অত্যন্ত বিস্ময়কর অবদান রেখে গেছে। অনেক অতীতে পিছিয়ে যেতে পারি; যেমন প্রাচীন স্বর্ণালী গর্দভ। আমার মনে হয়, আমার লেখা এটার মতই হচ্ছে, কিন্তু এটাও আড়াই হাজার বছরের পুরোনো। কিন্তু কমিকের ক্ষেত্রে আমার মনে হয় – আমি যা করছি তা আগে কেউ কখনও করেনি। আমি এমন কাজ করছি কেউ আগে ভাবেও নি। আর এটাই আমার কাছে খুবই মজাদার।"[৫২]

মার্ভেল কমিক্স এর জন্য গেইম্যান দুটি সিরিজ লিখেছেন: মার্ভেল ১৬০২, নভেম্বর ২০০৩ থেকে জুন ২০০৪ পর্যন্ত প্রকাশিত আট-পর্বের মিনিসিরিজ[৫৩], এবং দ্য এটার্নালস, আগস্ট ২০০৬ থেকে মার্চ ২০০৭ পর্য্ন্ত প্রকাশিত সাত-পর্বের মিনিসিরিজ[৫৪][৫৫]

২০০৯ সালে গেইম্যান ব্যাটম্যান চরিত্রের একটি দুই-পর্বের গল্প লেখেন, "হোয়াটএভার হ্যাপেন্‌ড টু দ্য কেপ্‌ড ক্রুসেডার?"[৫৬], যা এলান মূরের ক্লাসিক সুপারম্যান গল্প "হোয়াটএভার হ্যাপেন্‌ড টু দ্য ম্যান অফ টুমরো?" এর অনুপেরণায় লিখিত।[৫৭][৫৮] এছাড়া গেইম্যান ওয়েন্সডে কমিকসের মাসিক পত্রিকার মত সজ্জিত এবং মাইক অলরেডের চিত্রায়িত মেটামরফো সিরিজের বারো পর্বে কাজ করেছেন।[৫৯][৬০] অ্যাকশন কমিকস #৮৯৪ (ডিসেম্বর ২০১০) এ গেইম্যান এবং পল করনেল কাজ করেন, এবং এই পর্বে গেইম্যানের স্যান্ডম্যানের মৃত্যু চরিত্রটি উপস্থিত হয়েছিল।[৬১] ২০১৩ সালের অক্টোবরে ডিসি কমিক্স জে এইচ. উইলিয়ামস III এর চিত্রিত দ্য স্যান্ডম্যান: ওভারচ্যুর সংকলনটি প্রকাশ করে।[৬২][৬৩] গেইম্যানের অ্যাঞ্জেলা চরিত্রটি ২০১৩ সালে এজ অফ আলট্রন মিনিসিরিজের শেষ পর্বে মার্ভেল কমিকজগতে প্রবেশ করে।[৬৪]

গেইম্যান ভার্টিগোর প্রকাশিত দ্য স্যান্ডম্যান ইউনিভার্স কাহিনীসম্ভারের পরিচালক। ২০১৮ সালের ৮ আগস্ট থেকে এর প্রকাশনা শুরু হয়েছে, এবং এর অধীনে চারটি নতুন সিরিজ প্রকাশিত হচ্ছে: হাউজ অফ হুইস্পারস, লুসিফার, দ্য বুকস অফ ম্যাজিক, এবং দ্য ড্রিমিং[৬৫][৬৬]

উপন্যাস[সম্পাদনা]

গেইম্যান, ২০০৯ সালের ছবি

ডিস্কওয়ার্ল্ড উপন্যাসগুলোর জন্য জনপ্রিয় লেখক টেরি প্র্যাচেটের সহাযোগিতায় নীল গেইম্যান ১৯৯০ সালে তার প্রথম উপন্যাস গুড ওমেনস প্রকাশ করেন। ২০১১ সালে প্র্যাচেট বলেছেন উপন্যাসটির কাহিনী গঠন এবং চিন্তাভাবনা দুজনের সমান অংশগ্রহণে হলেও তিনি বেশিরভাগ অংশ লেখা ও সম্পাদনার কাজ করেছেন, কারণ সে সময় গেইম্যান প্রায়ই স্যান্ডম্যান এর কাজে ব্যস্ত থাকতেন।[৬৭]

বিবিসি মিনিসিরিজ নেভারহোয়্যার এর জন্য ১৯৯৬ লিখিত একই নামের উপন্যাসটি ছিল গেইম্যানের একক রচনায় প্রথম উপন্যাস। উপন্যাসটি টিভি সিরিজের সাথে তাল মিলিয়ে প্রকাশিত হয়েছিল। পরবর্তীতে গেইম্যান উপন্যাসটি দুইবার সম্পাদনা করেছেন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

১৯৯৯ সালে গাঁর ফ্যান্টাসি উপন্যাস স্টারডাস্ট প্রকাশিত হয়। এটি দুইভাবে প্রকাশিত হয়েছে, সাধারণ লিখিত রচনা এবং একটি চিত্রিত সংষ্করণ[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] উপন্যাসটিতে ভিক্টোরিয় যুগের রূপকথা এবং সংষ্কৃতির লক্ষ্যনীয় প্রভাব রয়েছে[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

২০০১ সালে প্রকাশের পর আমেরিকান গড্‌স গেইম্যানের অন্যতম সর্বাধিক-বিক্রিত উপন্যাসে পরিণত হয় এবং প্রচুর সম্মাননা অর্জন করে।[৬৮] এর একটি বিশেষ ১০ম বার্ষিকী সংষ্করণ প্রকাশিত হয়েছে, যা প্রথম সংষ্করণের চেয়ে প্রায় ১২,০০০ অধিক শব্দবাহী।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

গেইম্যান আমেরিকান গড্‌স এর চরিত্রগুলো বিভিন্ন সময় পুনর্ব্যবহার করেছেন। তার একটি ছোটগল্পে আমেরিকান গড্‌সের শ্যাডো চরিত্রটির ইউরোপ ভ্রমণের চিত্র উঠে এসেছে। ২০০৫ সালে প্রকাশিত আনানসি বয়েজ উপন্যাসটির মূল চরিত্র আনানসি বা মিস্টার ন্যান্সির দুই সন্তান এবং তাদের নিজেদের বংশানুক্রম অনুসন্ধান। উপন্যাসটি প্রকাশমাত্রই নিউ ইয়র্ক টাইমস এর বেস্ট সেলার্স তালিকার প্রথম স্থানে উঠে আসে।[৬৯]

২০০৮ সালের শেষভাগে, গেইম্যান একটি শিশুতোষ সাহিত্য দ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক প্রকাশ করেন। এটি রুডইয়ার্ড কিপলিং এর দ্য জাঙ্গল বুক দ্বারা অনুপ্রাণিত।জানুয়ারি ২০০৯ পর্যন্ত, এটি নিউ ইয়র্ক টাইমস এর বেস্ট সেলার্স (শিশুতোষ) তালিকায় পনের সপ্তাহ ধরে প্রথম অবস্থানে ছিল।[৭০]

২০১৩ সালে প্রকাশিত দ্য ওশান অ্যাট দ্য এন্ড অফ দ্য লেন উপন্যাসটি ব্রিটিশ স্পেকসেভার্স জাতীয় পুস্তক পুরষ্কারের "বুক অফ দ্য ইয়ার" ঘোষিত হয়।[৭] উপন্যাসটির উপজীব্য হল আত্মপরিচয়ের অনুসন্ধান এবং "কৈশোর ও পরিণত বয়সের বিচ্ছিন্নতা"।[৭১]

২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে নীল গেইম্যান জানান যে গিনি কয়েক বছর ধরে নর্স পুরাণ পুনর্বর্ণনার কাজ করছেন।[৭২] পরবর্তীতে ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে তার নর্স মিথোলজি বইটি প্রকাশিত হয়।[৭৩]

চলচ্চিত্র এবং চিত্রনাট্য[সম্পাদনা]

১৯৯৬ সালে বিবিসিতে প্রচারিত টেলিভিশন সিরিজ নেভারহোয়্যার নীল গেইম্যানের রচিত। ডেভ ম্যাক্‌কীনের সঙ্গে তিনি মিররমাস্ক চলচ্ছিত্রের চিত্রনাট্য লিখেছেন। এনিমে চলচ্চিত্র প্রিন্সেস মনোনকি এর ইংরেজি ভাষান্তর গেইম্যানের করা।[৭৪]

২০০৭ সালে রবার্ট জেমেকিসের পরিচালিত বিওউল্ফ কাহিনীটির চলচ্চিত্রায়নের স্ক্রিপ্ট রজার অ্যাভেরি এবং নীল গেইম্যানের সহলিখিত[৭৫]গিলগামেশের মহাকাব্য নিয়ে রচিত কোন চলচ্চিত্রের ওপর কাজ করতে গেইম্যান আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।[৭৬]

২০১৮ এর নিউ ইয়র্ক কমিক-কনে গুড ওমেনস টিভি সিরিজের প্যানেলে আলোচনারত গেইম্যান

জে মাইকেল স্ট্রাকজিনস্কি ব্যতীত গেইম্যানই দ্বিতীয় ব্যক্তি যিনি ব্যাবিলন ৫ কল্পবিজ্ঞান টিভি সিরিজটির সর্বশেষ তিন মৌসুমের কোন এপিসোডের স্ক্রিপ্ট লিখেছেন।[৭৪]

রবার্ট জেমেকিসের এর পরিচালনায় চলচ্চিত্রায়নের জন্য নীল গেইম্যান নিকলসন বেকারের উপন্যাস দ্য ফার্মাটা এর অন্তত তিনটি খসড়া চিত্রনাট্য লিখেছেন[৭৭][৭৮] যদিও উভয়ের অন্যান্য প্রকল্পের ব্যস্ততার কারণে সেটি অগ্রসর হয়নি।

গেইম্যানের একাধিক সাহিত্যকর্ম চলচ্চিত্রায়নের জন্য নির্বাচিত হয়েছে। বিশেষত ২০০৭ সালে ম্যাথু ভন পরিচালিত চলচ্চিত্র স্টারডাস্ট, যার অভিনেতাদের মধ্যে রয়েছেন চার্লি কক্স, রবার্ট ডি নিরো, মিশেল ফাইফার এবং ক্লেয়ার ডেনস। ২০০৯ সালে কোরালাইন নামে স্টপমোশন চলচ্চিত্র মুক্তি পায়, যার পরিচালনায় ছিলেন হেনরি সেলিক, এবং মূল কন্ঠাভিনয়ে ডাকোটা ফ্যানিং এবং টেরি হ্যাচার[১২]

২০০৭ সালে গিয়ের্মো দেল তোরো পরিচালিত ডেথ: দ্য হাই কস্ট অফ লিভিং চলচ্চিত্র পরিকল্পনাধীন ছিল[৭৯][৮০] ২০১০ সালের দিকে এ প্রকল্পটি বাতিল হয়ে যায়।[৮১]

সিয়িং ইয়ার থিয়েটার গেইম্যানের দুটি কন্ঠনাট্য "স্নো, গ্লাস, অ্যাপল্‌স" এবং "মার্ডার মিস্ট্রিজ" উপস্থাপনা করে। গেইম্যানের স্মোক অ্যান্ড মিররস (১৯৯৮) সংগ্রহে দুটি নাট্যই প্রকাশিত হয়েছে।[৮২]

গেইম্যানের দ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক এর ভিত্তিতে একটি চলচ্চিত্র রন হাওয়ার্ড এর পরিচালনায় নির্মিতব্য রয়েছে।[৮৩]

এছাড়া নীল গেইম্যান বিবিসি এর জনপ্রিয় কল্পবিজ্ঞান টিভি সিরিজ ডক্টর হু এর একটি পর্বের চিত্রনাট্য লিখেছেন, যা ২০১১ সালে ডক্টর হিসেবে ম্যাট স্মিথের দ্বিতীয় সিরিজে প্রচারিত হয়।[৮৪] পর্বটির নাম শুরুতে "দ্য হাউজ অফ নাথিং"[৮৫] তবে অবশেষে "দ্য ডক্টর্স ওয়াইফ" নামে প্রচারিত হয়।[৮৬] পরবর্তীতে গেইম্যান "নাইটমেয়ার ইন সিলভার" নামে ডক্টর হু এর চর একট পর্বও লিখেছেন।[৮৭][৮৮]

২০১১ সালে জানানো হয় যে গেইম্যান জার্নি টু দ্য ওয়েস্ট এর চলচ্চিত্রায়ন করছেন।[৮৯][৯০]

দ্য সিম্পসনস এর "দ্য বুক জব" পর্বে (২০ নভেম্বর ২০১২) গেইম্যান উপস্থিত হয়েছিলেন।[৯১][৯২][৯৩]

২০১৫ সালে স্টারজ থেকে গেইম্যানের আমেরিকান গড্‌স ভিত্তিক টিভি সিরিজ তৈরির অনুমোদন দেয়া হয়। ব্রায়ান ফুলার এবং মাইকেল গ্রিনসিরিজটি রচনা এবং পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন।[৯৪]

বেতার[সম্পাদনা]

২০১৩ সালের মার্চে বিবিসি রেডিও ৪ এবং রেডিও ৪ এক্সট্রায় যা ডীর্ক ম্যাগ্‌সের সম্পাদিত ছয় খন্ডের নেভারহোয়্যার বেতার নাটক সম্প্রচারিত হয়। এতে মুখ্য অভিনেতাদের মধ্যে রয়েছেন জেমস ম্যাকঅ্যাভয়, নাটালি ডোর্মার, বেনেডিক্ট কাম্বারব্যাচ, ক্রিস্টোফার লী, বার্নার্ড ক্রিবেন্স এবং জনি ভেগাস[৯৫]

২০১৪ এর সেপ্টেম্বরে গেইম্যান এবং টেরি প্র্যাচেট বিবিসি রেডিও ৪ এর সহযোগিতায় গুড ওমেনস উপন্যাসটির নাটকায়ন করেন, যা ডিসেম্বর মাসে ছয়টি পর্বে প্রচারিত হয়, যার শেষ পর্বটির জন্য এক ঘন্টা সময় বরাদ্দ ছিল[৩৪]

উন্মুক্ত শিল্পানুষ্ঠান[সম্পাদনা]

গেইম্যান নিয়মিত তার গল্প এবং কবিতা জনসম্মুখে পাঠ করেন, এবং তার স্ত্রী সঙ্গীতশিল্পী আমান্ডা পামারের সঙ্গে সফর করেন। কোন কোন সফরে তিনি নিজেও গান গেযেছেন, যা তিনি বর্ণনা করেছেন একজন ঔপন্যাসিকের ধরনের গান গাওয়া বলে[৯৬] যদিও তিনি মনে করেন তার কন্ঠস্বর মোটেই গায়কের মত নয়[৯৭]

২০১৫ সালে, লং নাউ ফাউন্ডেশন এর জন্য হাউ স্টোরিজ লাস্ট শিরোনামে গেইম্যান একটি ১০০ মিনিটের ভাষণ দেন, যার বিষয়বস্তু ছিল কীভাবে মানব সমাজে গল্পকাহিনী টিকে থাকে[৯৮]। ২০১৮ সালের এপ্রিলে তিনি দ্য বিগ ব্যাং থিওরি টিভি সিরিজের একটি পর্বটির নিজভূমিকায় অভিনয় করেন। সিরিজটির কাল্পনিক কমিক বইয়ের দোকান নিয়ে করা গেইম্যানের একটি টুইট ছিল পর্বটির মূল বিষয়[৯৯]

ব্লগ এবং টুইটার[সম্পাদনা]

২০০১ এর ফেব্রুয়ারিতে আমেরিকান গড্‌স উপন্যাসটির প্রচারের জন্য এর প্রকাশক প্রতিষ্ঠান একটি ব্লগ ঘরানার ওয়েবসাইট খোলে, য়েখানে গেইম্যান উপন্যাসটি লেখার দৈনন্দিন অগ্রগতি বর্ণনা করতেন। উপন্যাসটি প্রকাশের পর ব্লগটি গেইম্যানের ব্যক্তিগত ওয়েবসাইটে পরিণত হয়[১০০]

এই ওয়েবসাইটে গেইম্যান তার লেখা, প্রকাশনা, ইত্যাদি দৈনন্দিন কার্যকলাপ ও চিন্তাভাবনা সম্বন্ধে লেখেন। এছাড়া এখানে পাঠকদের ইমেইলের উত্তর দেন, যা তাকে ভক্তদের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক তৈরিতে সাহায্য করেছে। ব্লগটি কেন লেখেন, এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেছেন, "কারণ লেখাজোখা করা, মৃত্যুর মতই, একাকীত্বপূর্ণ একটা কাজ।"[১০১]

গেইম্যান সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে @neilhimself নামে নিয়মিত অংশগ্রহণ করেন[১০২], এবং তার ২৭ লক্ষেরও বেশি অনুসারী রয়েছে (জুন ২০১৮ মোতাবেক)। ২০১৩ সালে, আইজিএন গেইম্যানকে "কমিকসে অন্যতম শ্রেষ্ঠ টুইটার" উপাধি দেয়[১০৩]

এছাড়া গেইম্যান একটি টাম্বলার একাউন্টও নিয়ন্ত্রণ করেন, যেখানে তিনি মূলত ভক্তদের প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন[১০৪]

অভিনয়ের তালিকা[সম্পাদনা]

বছর নাম ভূমিকা টীকা
২০১০ আর্থার নিজভূমিকায় (কন্ঠ) "ফেলাফেলোসফি/দ্য গ্রেট লিন্ট রাশ"
২০১১ দ্য গীল্ড নিজভূমিকায় "ডাউনটার্ন"
২০১১ দ্য সিম্পসনস নিজভূমিকায় (কন্ঠ) "দ্য বুক জব"
২০১৩ জে অ্যান্ড সাইলেন্ট বব'স সুপার গ্রুভি কার্টুন মুভি ভৃত্য অ্যালবার্ট (কন্ঠ)
২০১৫ দ্য‍া মেকিং অফ এ সুপারহিরো মিউজিকাল মেলভিন মোরেল
২০১৬ নীল গেইম্যান ড্রীম ডেঞ্জারাসলি নিজভূমিকায়
২০১৭ দ্য সিম্পসনস স্নোবল (কন্ঠ) "ট্রিহাউজ অফ হরর XXVIII"
২০১৮ দ্য‍া বিগ ব্যাং থিওরি নিজভূমিকায় "দ্য কমেট পোলারাইজেশন"
২০১৮ লুসিফার ঈশ্বর "ওয়ান্স আপন এ টাইম"
২০১৯ গুড ওমেনস থিয়েটারের দর্শক/খরগোশ (কন্ঠ)/প্রধান ব্যাং (কন্ঠ)[১০৫] "স্যাটারডে মর্নিং ফানটাইম"

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

আবাস এবং পরিবার[সম্পাদনা]

নীল গেইম্যান এবং আমান্ডা পামার (ভিয়েনা ২০১১)

গেইম্যান ১৯৯২ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের উইসকনসিন রাজ্যের মেনোমনি শহরে বসবার করছেন। তিনি এখানে স্থানান্তরিত হয়েছিলেন তার পরিবার এবং তংকালীন স্ত্রী মেরী ম্যাক্‌গ্রাথ (যার সঙ্গে তার তিন সন্তান রয়েছে: মাইকেল, হলি এবং মেডেলিন) এর সঙ্গে ঘনিষ্টভাবে থাকার উদ্দেশ্যে[১৫][১০৬][১০৭][১০৮][১০৯][১১০]। গেইম্যান হলোকস্ট থেকে বেঁচে ফেরা অধ্যাপক হেলেন ফাগিন এর জ্ঞাতিভাই হন[১১১]। ২০১৩ সাল থেকে ম্যাসাচুসেটস এর ক্যামব্রিজেও গেইম্যানের আবাস রয়েছে[১১২]। নিউ ইয়র্কের বার্ড কলেজে পাঁচ বছর মেয়াদে শিল্পকলার অধ্যাপকের পদে আসীন ছিলেন[১১৩]

নীল গেইম্যান সঙ্গীতরচয়িতা এবং গায়িকা আমান্ডা পামারের সঙ্গে উন্মুক্ত বৈবাহিক সম্পর্কে সম্পর্কিত[১১৪]। তারা ২০০৯ এর জুন মাসে নিজেদের প্রণয় জনসম্মুখে প্রকাশ করেন[১১৫][১১৬] এবং ২০১১ সালের ২ জানুয়ারি তাদের আনুষ্ঠানিক বিবাহ সম্পন্ন হয়[১১৭]। বিবাহের পর আমান্ডা পামারের নামের মধ্যাংশ, ম্যাক্‌কীনন, গেইম্যান নিজের নামে যুক্ত করেন[২] ২০১৫ সালে তাদের প্রথম সন্তান এন্থনির জন্ম হয়[১১৮]

প্রতিনিধিত্ব[সম্পাদনা]

২০১৬ সালে নীল গেইম্যান, কেট ব্লানচেট, চুয়াটেল এজিওফর, পিটার কাপাল্ডি, ডগলাস বুথ, জেসি আইজেনবার্গ, কিরা নাইটলি, জুলিয়েট স্টিভেনসন, কিট হ্যারিংটন, এবং স্ট্যানলি টুচি একটি ভিডিওতে অংশগ্রহণ করেন: "হোয়াট দে টুক ইউথ দেম", যা জাতিসংঘ শরণার্থীবিষয়ক হাইকমিশনার এর তত্ত্বাবধায়নে বৈশ্বিক উদ্বাস্তু সংকট বিষয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে তৈরি করা হয়েছিল[১১৯][১২০]

গেইম্যান কমিকবই আইনী প্রতিরক্ষা তহবিল পরিষদের সদস্য এবং সমর্থক[১২১]

বন্ধুত্ব[সম্পাদনা]

সঙ্গীতশিল্পী টোরি আমোস এর সঙ্গে গেইম্যানের বন্ধুত্ব আলোচিত। আমোস স্যান্ডম্যান এর ভক্ত এবং ১৯৯১ সালে নিজের ডেমো টেপ "নীল অ্যান্ড দ্য ড্রীম কিং" এ এই প্রসঙ্গ উল্লেখ করার পর গেইম্যানের সঙ্গে তার বন্ধুত্ব তৈরি হয়। পরে গেইম্যান স্টারডাস্ট উপন্যাসে আমোসকে একটি চরিত্র হিসেবে য়ুক্ত করেন।[১২২] আমোস নিজের বেশ কিছু গানে গেইম্যানের প্রসঙ্গ উল্লেখ করেছেন: "টিয়ার ইন ইয়োর হ্যান্ড",[১২৩] "স্পেস ডগ",[১২৪] "হর্সেজ",[১২৫] "কার্বন",[১২৬] "সুইট ড্রীমস",[১২৭] এবং "নট ডাইয়িং টুডে"[১২৬]। গেইম্যান, আমোসের বয়েজ ফর পেলে এবং স্কারলেট'স ওয়াক এর সফরসহায়িকা লিখেছেন, আমেরিকান ডল পস্যে এর সফর বইয়ে একটি পত্র লিখেছেন, এবং স্ট্রেঞ্জ লিটল গার্লস এর নামভূমিকার প্রতিটি মেয়ে চরিত্রের নেপথ্যকাহিনী লিখেছেন। গেইম্যানের উপন্যাস ডেথ: দ্য হাই কস্ট অফ লিভিং এর ভূমিকা লিখেছেন আমোস, এবং বইটির প্রচ্ছদে এসেছেন। এছাড়া আমোস স্যান্ডম্যান চরিত্রের ভিত্তিতে "সিস্টার নেম্‌ড ডিজায়ার" গান লিখেছেন, যা গেইম্যানের হোয়্যার্স নীল হোয়েন ইউ নীড হিম? সংগ্রহে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

গেইম্যান টোরি আমোসের কন্যা ট্যাশের ধর্মপিতা হন,[১২৮] এবং টোরি ও ট্যাশের জন্য "ব্লুবেরি গার্ল" কবিতাটি লিখেছেন[১২৯] গেইম্যান তার দ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক বইটির পাঠ ভ্রমণ সফরকালে স্যান ফ্রানসিস্কোর সানড্যান্স কাবুকি থিয়েটারে কবিতাটি শ্রোতাদের সামনে প্রথম পাঠ করেন।[১৩০]। পরে অঙ্কনশিল্পী চার্লস ভেস কবিতাটিকে একটি বইয়ে রূপান্তর করেন।[১৩১]

মামলা[সম্পাদনা]

১৯৯৩ সালে টড ম্যাকফার্লেন, স্পন কমিক সিরিজের একটি পর্ব লেখার প্রস্তাব নিয়ে গেইম্যানের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। ম্যাকফার্লেন তার নতুন কমিক সিরিজের প্রচারের জন্য গেইম্যান, অ্যালান মূর, ফ্র্যাঙ্ক মিলার, এবং ডেভ সিম এঁর থেকে অতিথি সংখ্যা আশা করছিলেন।

তাদের আলাপের ফলস্বরূপ ওই সিরিজের নবম পর্বে গেইম্যানের লিখিত অ্যাঞ্জেলা, কলিয়োস্ত্রো, এবং মেডিভাল স্পন চরিত্র তিনটি প্রকাশিত হয়। এই পর্বের আগে স্পন চরিত্রটি ছিল একজন সরকারসমর্থিত গুপ্তঘাতক যে মৃত্যুর পরে নরকের একজন অনাগ্রহী কিন্তু উদ্দেশ্যবিহীন প্রতিনিধি হিসাবে ফেরত আসে[১৩২]। মেডিভাল স্পন (বা মধ্যযুগীয় স্পন) চরিত্রটির মাধ্যমে গেইম্যান স্পনের ইতিহাস সমৃদ্ধ করেন এবং একটি নজির তৈরি করেন যে স্পন সবসময় স্বার্থপর বা খলনায়োকচিত না-ও হতে পারে, এবং হেলস্পন স্রষ্টা ম্যালবোলজার চরিত্রায়নে গভীরতা আনেন। অ্যাঞ্জেলা, একজন নিষ্ঠুর স্বর্গদূত, স্পনের নৈতিক বিপরীত হিসেবে গঠিত এবং তার অস্তিত্বের জন্য হুমকি হয়ে দেখা দেয়। কলিয়োস্ত্রো চরিত্রটি গেইম্যান তৈরি করেছেন ঘটনাক্রম বর্ণনার উপায় হিসেবে এবং সে স্পনের পরামর্শদাতার ভূমিকাও পালন করে।

পরিকল্পনামত[১৩৩] পরবর্তী দশক জুড়ে ম্যাকফার্লেন ওই তিনটি চরিত্রই স্পন কমিক জগতে একাধিকবার ব্যবহার করেন। তবে ২০০২ সালে গেইম্যান দাবি করেন, চরিত্রগুলোর অধিকার শুধু চিত্রকর ম্যাকফার্লেনের একার নয়, বরং তার পাশাপাশি লেখক হিসেবে গেইম্যানেরও[১৩৪][১৩৫]। চরিত্রের স্বত্বাধিকার নিয়ে দ্বন্দ্বই ছিল ম্যাকফার্লেন এবং আরও কয়েকজন চিত্রকরের সম্মিলিতভাবে ইমেজ কমিক্স প্রতিষ্ঠার মূল কারণ (যদিও এক্ষেত্রে বাদানুবাদ চলছিল চরিত্র উদ্ভাবক হিসেবে লেখক এবং চিত্রকরের মধ্যে)। গেইম্যানের অনুমতি বা রয়ালটি ছাড়া চরিত্রগুলো ব্যবহারের কারণে গেইম্যান ম্যাকফার্লেনের বিরুদ্ধে কপিরাইট ভঙ্গের অভিযোগ করেন (যদিও এবিষয়ে তাদের প্রাথমিক বন্দোবস্ত কেবল মৌখিকভাবে হয়েছিল)। ম্যাকফার্লেন প্রথমদিকে স্বীকার করেছিলেন যে গেইম্যান চরিত্রগুলো থেকে তার অধিকার হস্তান্তর করেননি, এবং একটি বিকল্প সমাধান হিসেবে তিনি গেইম্যানের সঙ্গে "মার্ভেলম্যান" চরিত্রটি বিনিময় করার প্রস্তাব করেন[১৩৬] (ম্যাকফার্লেনের বিশ্বাস ছিল এক্লিপ্স কমিক্স বিলুপ্ত হয়ে যাবার পর "মার্ভেলম্যান" চরিত্রটি তার অধিকারে এসেছিল, এবং গেইম্যান আগ্রহী ছিলেন চরিত্রটি নিয়ে তার তার তৈরি বাধাগ্রস্ত সিরিজটি চালিয়ে যেতে)। কিন্তু পরবর্তীতে ম্যাকফার্লেন মত পরিবর্তন করে দাবি করেন যে স্পন কমিকে গেইম্যানের কাজ ছিল চুক্তিভিত্তিক এবং ওই চরিত্রগুলোর সম্পূর্ণ অধিকার ম্যাকফার্লেনের একার। তবে "কপিরাইট অর্পণ অবশ্যই লিখিতভাবে হতে হবে", এই আইনী শর্তের ভিত্তিতে বিচারক তার দাবি প্রত্যাখ্যান করেন[১৩৭]

আপিল আদালতের সপ্তম সার্কিটে পূর্ববর্তী রায় অপরিবর্তিত থাকে[১৩৮], যার ফলে উল্লিখিত তিনটি চরিত্রের ওপর গেইম্যান এবং ম্যাকফার্লেন উভয়ের যৌথ মালিকানা প্রতিষ্ঠিত হয়। বিশেষত কলিয়োস্ত্রো চরিত্রটির বিষয়ে বিচারক জন সি. শাহবাজ ঘোষণা করেন, "কমিকবই চরিত্র কাউন্ট নিকোলাস কলিয়োস্ত্রো সৃজনকর্মটি গেইম্যান এবং ম্যাকফার্লেনের সমন্বিত সৃষ্টি— এতে উভয়ের অবদান আমাদের দৃষ্টিতে বস্তুত সমান— এবং চরিত্রটির কপিরাইটের অধিকার দুজনেরই প্রাপ্য"[১৩৯]। অন্য দুটি চরিত্র অ্যাঞ্জেলা এবং মেডিভাল স্পনের বিষয়েও অনুরূপ সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যায়।

এই আইনী প্রক্রিয়া চালানোর সাহায্যের জন্য গেইম্যান মার্ভেল অ্যান্ড মিরাকলস এলএলসি প্রতিষ্ঠানটি গঠন করেছিলেন, এবং এর সাহায্যে মার্ভেলম্যান চরিত্রটি সম্পর্কিত আইনগত জটিলতা সমাধান করেন। ২০০৩ সালে গেইম্যান এ প্রকল্পের আর্থিক প্রয়োজন পূরণের জন্য মার্ভেল কমিকস এর অধীনে মার্ভেল ১৬০২ কমিক লিখেছিলেন।[১৪০][১৪০] এই সিরিজটির প্রথম আসল সংখ্যাগুলো থেকে মার্ভেল কমিক্সের সমস্ত আয় গেইম্যানের মার্ভেল অ্যান্ড মিরাকলস প্রতিষ্ঠানে হ্স্তান্তর করা হয়েছিল[১৪০]। পরে ২০০৯ সালে মার্ভেল কমিকস মার্ভেলম্যান চরিত্রের মালিকানা ক্রয় করে নেয়[১৪১]

পরবর্তীতে গেইম্যান স্পন কমিকসের আরও তিনটি চরিত্রের (ডার্ক এজেস স্পন, ডমিনা, এবং টিফানি) ব্যাপারে আদালতে অভিযোগ করেন, যে এগুলো তার পূর্বলিখিত তিনটি চরিত্রের ভিত্তিতে গঠিত।[১৪২] এক্ষেত্রেও বিচারকের রায় গেইম্যানের পক্ষে যায়, এবং ম্যাকফার্লেনকে ২০১০ এর সেপ্টেম্বরের মধ্যে সমঝোতায় আসার জন্য আদেশ দেয়া হয়।[১৪৩]

সাহিত্যিক প্রভাব[সম্পাদনা]

গেইম্যানের সাহিত্যকর্ম উচ্চমাত্রার সাহিত্যিক আভাসের জন্য পরিচিত[১৪৪] মেরেডিথ কলিন্স স্টারডাস্ট উপন্যাসে ভিক্টোরিয়ান রূপকথা ও সংষ্কৃতির লক্ষ্যণীয় আবেশ দেখেন[১৪৫]। বিশেষত দ্য স্যান্ডম্যান বিভিন্ন সাহিত্যিক চরিত্রকে উপস্থিত করেছে; উইলিয়াম শেক্সপিয়ার এবং জেফ্রি চসার উভয়ে চরিত্র হিসেবে এসেছেন, এবং এ মিডসামার নাইট'স ড্রীমদ্য টেমপেস্ট এর বিভিন্ন চরিত্রও।[১৪৬] কমিক কাহিনীটি প্রচুর মিথোলজি এবং ঐতিহাসিক সময়কাল থেকেও প্রেরণা নেয়।

দ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক বিশ্লেষণ করে গ্রন্থাগারিক এবং গ্রন্থ-বিবরণবিদ রিচার্ড ব্লেইলার গথিক উপন্যাসধারার প্রভাব পেয়েছেন, বিশেষত হোরেস ওয়ালপোল এর দ্য ক্যাসল অফ অটরান্টো থেকে শার্লি জ্যাকসন এর দ্য হন্টিং অফ হিল হাউজ। এধরনের মন্তব্যের প্রেক্ষিতে গেইম্যান নিজে দ্য স্যান্ডম্যান গথিক কীনা এবিষয়ে স্পষ্ট মতামত দিতে পারেননি।[১৪৭]

ক্লে স্মিথ মন্তব্য করেন যে এধরনের সাহিত্যিক সংযোগ গেইম্যানকে সাহিত্যকর্মে প্রবল উপস্থিতি এবং নিয়ন্ত্রণ দেয়, যা তার সহলেখকদের পক্ষে অন্তরাল হয়ে উঠতে পারে[১৪৮] তবে স্মিথের মন্তব্যের জোরালো সমর্থন পাওয়া যায় না। অনেকের মতে গেইম্যানের সাহিত্যিক দক্ষতা নিয়ে কোন প্রশ্ন থেকে থাকলে তার কারণ হতে পারে যে, "...তাঁর সাহিত্যিক মেধা এবং বিপুল জনপ্রিয়তা তাঁকে এত দ্রুত উদীয়মান কমিকসাহিত্যক্ষেত্রে সম্পৃক্ত করেছে যে তাঁর কাজের আলোচনা-সমালোচনার নির্ভরযোগ্য কোন ভিত্তি এখনও প্রতিষ্ঠিত হয়নি।"[১৪৯]

ডেভিড রুড কোরালাইন উপন্যাস পাঠে তুলনামূলক উদার দৃষ্টিকোণ নিয়েছেন। তার মতে উপন্যাসটি সিগমুন্ড ফ্রয়েডের অস্বাভাবিকতা বা Unheimlich ধারণাটি আকর্ষনীয়ভাবে প্রয়োগ করেছে।[১৫০]

যদিও গেইম্যানের কাজকে প্রায়ই মোনোমিথ বা নায়কোচিত অভিযাত্রা (যা জোসেফ ক্যাম্পবেলের দ্য হিরো ইউথ এ থাউজেন্ড ফেসেজ গ্রন্থে বর্ণিত) শ্রেণীভুক্ত করা হয়[১৫১], তবে গেইম্যান বলেন তিনি একাধিকবার দ্য হিরো ইউথ এ থাউজেন্ড ফেসেজ পড়তে শুরু করেও শেষ করতে চান নি, কারণ তিনি ধারণাটির সম্পর্কে অজ্ঞাত থেকে এধরনের রচনা তৈরিতে অধিক স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন।[১৫২]

উল্লেখযোগ্য অর্জন[সম্পাদনা]

নীল গেইম্যান তার পেশাগত সাহিত্য জীবনের শুরু থেকেই বিভিন্ন পুরস্কার ও সম্মাননার জন্য মনোনীত হয়েছেন। এখানে তার একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা দেয়া হয়েছে।

  • ১৯৯১ থেকে ১৯৯৩ পর্যন্ত নিম্নোল্লিখিত বিষয়ে হার্ভি পুরষ্কার:
    • ১৯৯১ শ্রেষ্ঠ লেখক – দ্য স্যান্ডম্যান[১৫৩]
    • ১৯৯২ শ্রেষ্ঠ লেখক – দ্য স্যান্ডম্যান[১৫৪]
    • ১৯৯৩ শ্রেষ্ঠ চলমান বা সীমিত সিরিজ – দ্য স্যান্ডম্যান[১৫৫]
  • ১৯৯১ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত, নিম্নোল্লিখিত বিষয়ে লোকাস পুরষ্কার:
    • ১৯৯১ শ্রেষ্ঠ ফ্যান্টাসি উপন্যাস (রানার-আপ) – গুড ওমেনস[১৫৬][১৫৭]
    • ১৯৯৯ শ্রেষ্ঠ ফ্যান্টাসি উপন্যাস (রানার-আপ) – স্টারডাস্ট[১৫৬][১৫৮]
    • ২০০২ শ্রেষ্ঠ ফ্যান্টাসি উপন্যাস – আমেরিকান গড্‌স[১৫৬][১৫৯]
    • ২০০৩ শ্রেষ্ঠ তরুণপ্রাপ্তবয়ষ্ক বই – কোরালাইন[১৫৬][১৬০]
    • ২০০৪ শ্রেষ্ঠ উপন্যাসিকা – "এ স্টাডি ইন এমারাল্ড"[১৫৬]
    • ২০০৫ শ্রেষ্ঠ ছোটগল্প – "ফরবিডেন ব্রাইডস অফ দ্য ফেসলেস স্লেভস ইন দ্য নেমলেস হাউজ অফ দ্য নাইট অফ ড্রেড ডিজায়ার"[১৫৬]
    • ২০০৬ শ্রেষ্ঠ ফ্যান্টাসি উপন্যাস – আনান্‌সি বয়েজ[১৫৬]
    • ২০০৬ শ্রেষ্ঠ ছোটগল্প – "সানবার্ড"[১৫৬]
    • ২০০৭ শ্রেষ্ঠ ছোটগল্প – "হাউ টু টক টু গার্লস অ্যাট পার্টিজ"[১৫৬]
    • ২০০৭ শ্রেষ্ঠ সংকলন – ফ্র্যাজাইল থিংস[১৫৬]
    • ২০০৯ শ্রেষ্ঠ তরুণপ্রাপ্তবয়ষ্ক উপন্যাস – দ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক'[১৫৬]
    • ২০১০ শ্রেষ্ঠ ছোটগল্প – অ্যান ইনভোকেশন অফ ইনকিউরিওসিটি,[১৫৬][১৬১]
    • ২০১১ শ্রেষ্ঠ ছোটগল্প – দ্য থিং অ্যাবাউট কাসান্ড্রা'[১৫৬][১৬২]
    • ২০১১ শ্রেষ্ঠ উপন্যাসিকা – দ্য ট্রুথ ইজ এ কেভ ইন দ্য ব্ল্যাক মাউন্টেইনস,[১৫৬][১৬২]
    • ২০১৪ শ্রেষ্ঠ ফ্যান্টাসি নভেল – দ্য ওশান অ্যাট দ্য এন্ড অফ দ্য লেন
  • ১৯৯১ থেকে ২০০৯ পর্যন্ত নিম্নোল্লিখিত বিষয়ে আইজনার পুরষ্কার:
    • ১৯৯১ শ্রেষ্ঠ চলমান সিরিজ – স্যান্ডম্যান (ডিসি)[১৬৩]
    • ১৯৯১ শ্রেষ্ঠ গ্রাফিক অ্যালবাম (পুনর্মুদ্রণ) – স্যান্ডম্যান: দ্য ডল'স হাউজ (ডিসি)[১৬৩]
    • ১৯৯১ শ্রেষ্ঠ লেখক – স্যান্ডম্যান (ডিসি)[১৬৩]
    • ১৯৯২ শ্রেষ্ঠ একক পর্ব বা গল্প – স্যান্ডম্যান #২২-#২৮: "সিজন অফ মিস্ট্‌স" (ডিসি)[১৬৩]
    • ১৯৯২ শ্রেষ্ঠ চলমান সিরিজ – স্যান্ডম্যান (ডিসি)[১৬৩]
    • ১৯৯২ শ্রেষ্ঠ লেখক – স্যান্ডম্যান, বুকস অফ ম্যাজিক (ডিসি), মিরাকলম্যান (এক্লিপ্স)[১৬৩]
    • ১৯৯৩ শ্রেষ্ঠ চলমান সিরিজ – স্যান্ডম্যান (ডিসি)[১৬৩]
    • ১৯৯৩ শ্রেষ্ঠ গ্রাফিক অ্যালবাম (নতুন) – সিগনাল টু নয়েজ (ভিজি গ্রাফিক্স/ডার্ক হর্স)[১৬৩]
    • ১৯৯৩ শ্রেষ্ঠ লেখক – মিরাকলম্যান (এক্লিপ্স); স্যান্ডম্যান (ডিসি)[১৬৩]
    • ১৯৯৪ শ্রেষ্ঠ লেখক – স্যান্ডম্যান (ডিসি/ভার্টিগো); ডেথ: দ্য হাই কস্ট অফ লিভিং (ডিসি/ভার্টিগো)[১৬৩]
    • ২০০০ শ্রেষ্ঠ কমিক-বিষয়ক বই – দ্য স্যান্ডম্যান: দ্য ড্রীম হান্টার্স (ডিসি/ভার্টিগো)[১৬৪]
    • ২০০৪ শ্রেষ্ঠ ছোটগল্প – "ডেথ" (ডিসি/ভার্টিগো)[১৬৪]
    • ২০০৪ শ্রেষ্ঠ সংগ্রহ – দ্য স্যান্ডম্যান: এন্ডলেস নাইটস (ডিসি/ভার্টিগো)[১৬৪]
    • ২০০৭ শ্রেষ্ঠ আর্কাইভ সংগ্রহ (কমিক) – অ্যাবসলুট স্যান্ডম্যান, খণ্ড ১ (ডিসি/ভার্টিগো)[১৬৪]
    • ২০০৯ শ্রেষ্ঠ টীন/টুয়িন প্রকাশনা – কোরালাইন (হার্পার কলিন্স চিলড্রেন্স বুকস)[১৬৪]
  • ২০০০ থেকে ২০০৪ পর্যন্ত নিম্নোল্লিখিত বিষয়ে ব্রাম স্টোকার পুরষ্কার:
    • ২০০০ শ্রেষ্ঠ চিত্রায়িত কাহিনী – দ্য স্যান্ডম্যান: দ্য ড্রীম হান্টার্স[১৫৬][১৬৫]
    • ২০০১ শ্রেষ্ঠ উপন্যাস – আমেরিকান গড্‌স'[১৫৬]
    • ২০০৩ শ্রেষ্ঠ তরুণ পাঠকদের সাহিত্য – কোরালাইন[১৫৬][১৬৬]
    • ২০০৪ শ্রেষ্ঠ চিত্রায়িত কাহিনী – দ্য স্যান্ডম্যান: এন্ডলেস নাইটস[১৫৬]
  • ২০০২ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত নিম্নোল্লিখিত বিষয়ে হ্যুগো পুরষ্কার:
    • ২০০২ শ্রেষ্ঠ উপন্যাস – আমেরিকান গড্‌স[১৫৬][১৬৭]
    • ২০০৩ শ্রেষ্ঠ উপন্যাসিকা – কোরালাইন[১৫৬]
    • ২০০৪ শ্রেষ্ঠ গল্প – এ স্টাডি ইন এমারাল্ড[১৫৬]
    • ২০০৯ শ্রেষ্ঠ Novel for দ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক[১৫৬][১৬৮][১৬৯]
    • ২০১২ শ্রেষ্ঠ নাটকীয় উপস্থাপনা (সংক্ষিপ্ত) – "দ্য ডক্টর্স ওয়াইফ"[১৭০][১৭১]
    • ২০১৬ শ্রেষ্ঠ গ্রাফিক গল্প – দ্য স্যান্ডম্যান: ওভারচার[১৭২]
  • ২০০২ থেকে ২০০৩ পর্যন্ত নিম্নোল্লিখিত বিষয়ে নেবুলা পুরষ্কার:
    • ২০০২ শ্রেষ্ঠ উপন্যাস – আমেরিকান গড্‌স[১৫৬][১৬৭]
    • ২০০৩ শ্রেষ্ঠ উপন্যাসিকা – কোরালাইন[১৫৬]
  • ২০০৬ থেকে ২০১০ পর্যন্ত নিম্নোল্লিখিত বিষয়ে ব্রিটিশ ফ্যান্টাসি পুরষ্কার:
    • ২০০৬ শ্রেষ্ঠ উপন্যাস – আনান্‌সি বয়েজ[১৫৬][১৭৩]
    • ২০০৭ সংকলন – ফ্র্যাজাইল থিংস[১৫৬]
    • ২০০৯ শ্রেষ্ঠ উপন্যাস, সংক্ষিপ্ততালিকা – দ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক[১৭৪]
    • ২০১০ কমিক হোয়াটএভার হ্যাপেন্‌ড টু দ্য কেপ্‌ড ক্রুসেডার?[১৫৬]
  • ২০১০ সালে নিম্নোল্লিখিত বিষয়ে শার্লি জ্যাকসন পুরষ্কার:
    • ২০১০ শ্রেষ্ঠ উপন্যাসিকা – "দ্য ট্রুথ ইজ এ কেভ ইন দ্য ব্ল্যাক মাউন্টেইনস"[১৭৫]
    • ২০১০ শ্রেষ্ঠ সম্পাদিত সংগ্রহ – স্টোরিজ: অল নিউ টেলস (উইলিয়াম মরো)[১৭৫]
  • ১৯৯১ বিশ্ব ফ্যান্টাসী পুরস্কার – স্যান্ডম্যান এর "এ মিডসামার নাইট'স ড্রীম" পর্ব[১৫৬]
  • ১৯৯১ সালে স্যানডিয়েগো কমিক-কনের ইঙ্কপট পুরষ্কার[১৭৬]
  • ১৯৯১–১৯৯৩ কমিক্স বায়ার্স গাইড প্রিয় লেখক পুরস্কার
  • ১৯৯৭–২০০০ কমিক্স বায়ার্স গাইড প্রিয় লেখক পুরস্কারের মনোনয়ন
  • ১৯৯৭ কমিক বই আইনী প্রতিরক্ষা তহবিলের "ডিফেন্ডার অফ লিবার্টি" পুরস্কার[১৭৭]
  • ১৯৯৯ মিথোপোয়িক ফ্যান্টাসী পুরস্কার (প্রাপ্তবয়স্ক সাহিত্য) – স্টারডাস্ট এর চিত্রিত সংস্করণ[১৫৬][১৭৮]
  • ২০০৩ ব্রিটিশ কল্পবিজ্ঞান সংঘ পুরস্কার (ছোটগল্প) – কোরালাইন[১৫৬]
  • ২০০৪ আঙ্গোলেম আন্তর্জাতিক কমিক্স উৎসবে পুরস্কার (দৃশ্যকল্প) – দ্য স্যান্ডম্যান: সিজন অফ মিস্টস[১৭৯]
  • ২০০৫ উইলিয়াম শ্যাটনার গোল্ডেন গ্রাউন্ডহগ পুরস্কার (শ্রেষ্ঠ আন্ডারগ্রাউন্ড চলচ্চিত্র) মনোনয়ন – মিররমাস্ক[১৮০]
  • ২০০৫ কুইল পুরস্কারমার্ভেল ১৬০২[১৮১]
  • ২০০৬ মিথোপোয়িক ফ্যান্টাসী পুরস্কার (প্রাপ্তবয়স্ক সাহিত্য) – আনানসি বয়েজ[১৫৬]
  • ২০০৭ বব ক্ল্যাম্পেট মানবিকতা পুরস্কার[১৮২]
  • ২০০৭ স্যান ডিয়েগো কমিক-কনে আইকন পুরস্কার[১৮৩]
  • ২০০৯ নিউবেরি পদক – দ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক[১৮৪]
  • ২০০৯ অ্যডি পুরস্কার (৮-১২ বছর বয়সের শিশুদের জন্য বছরের শ্রেষ্ঠ অডিওবই) – দ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক (অডিওবই)[১৮৫]
  • ২০০৯ বুকট্রাস্ট টিন-এজ পুরস্কার – দ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক
  • ২০১০ মার্কিন পাঠাগার সংঘের জাতীয় পাঠাগার সপ্তাহের সম্মানজনক চেয়ার পদে মনোনয়ন[১৮৬]
  • ২০১০ কার্নেগী পদকদ্য গ্রেভইয়ার্ড বুক[৫][৬][১৮৭][১৮৮][১৮৯]
  • ২০১১ রে ব্র্যাডবেরি পুরস্কার (বিশিষ্ট ড্রামা উপস্থাপনা) – দ্য ডক্টরস ওযাইফ[১৯০]
  • ২০১২ শিল্পকলা বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানজনক শিল্পকলা ডক্টরেট ডিগ্রী[১৯১]
  • ২০১৩ ব্রিটিশ স্পেকসেভার্স জাতীয় গ্রন্থ পুরস্কার (বছরের শ্রেষ্ঠ বই) – দ্য ওশান অ্যাট দ্য এন্ড অফ দ্য লেন[১৯২]
  • ২০১৬ সেন্ট অ্যান্ড্রুজ বিশ্ববিদ্যালয় এর সম্মানজনক ডি. লিট. ডিগ্রী[১৯৩]
  • ২০১৮ নিউ একাডেমী সাহিত্য পুরস্কার মনোনয়ন[১৯৪]
  • ২০১৯ বার্নস অ্যান্ড নোবেল এর লেখকদের জন্য লেখক পুরস্কার, “বিশ্বব্যাপী মতপ্রকাশের স্বাধীনতার জন্য প্রচেষ্টা এবং অসংখ্য লেখকদের অনুপ্রাণিত করার জন্য"[১৯৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Neil Gaiman"Saturday Live। ১২ অক্টোবর ২০১৩। বিবিসি রেডিও ৪। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জানুয়ারি ২০১৪ 
  2. জন্মসূত্রে নীল রিচার্ড গেইম্যান, আমান্ডা পামারের সঙ্গে বিবাহোত্তর সংযুক্তি "ম্যাক্‌কিনন". "Wedding: Palmer — Gaiman", Lexington Minuteman, ১৪ জানুয়ারি ২০১১, ১২ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  3. "Author Name Pronunciation Guide – Neil Gaiman"। Teachingbooks.net। ২২ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  4. Miller, John Jackson (১০ জুন ২০০৫)। "Comics Industry Birthdays"Comics Buyer's Guide। Iola, Wisconsin। ৩০ অক্টোবর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. Flood, Alison (২৪ জুন ২০১০)। "Neil Gaiman wins Carnegie Medal"The Guardian। ২৬ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুন ২০১০ 
  6. "Neil Gaiman wins children's book prize"BBC News। ২৫ জুন ২০১০। ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০১০ 
  7. Press Association (২৬ ডিসেম্বর ২০১৩)। "Neil Gaiman novel wins Book of the Year"The Guardian। ২ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  8. Wagner, Hank; Golden, Christopher; Bissette, Stephen R. (২০০৮)। "The Interview"। Prince of Stories: The Many Worlds of Neil Gaiman। New York, New York: St. Martin's Press। পৃষ্ঠা 447–449। আইএসবিএন 978-0-312-38765-5 
  9. Gaiman, Neil (১৬ জানুয়ারি ২০০৯)। "Journeys End"। Neil Gaiman's Journal। ১১ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জানুয়ারি ২০০৯My paternal great-grandfather came to the UK before 1914; and he would have come from Antwerp. 
  10. Lancaster, James (১১ অক্টোবর ২০০৫)। "Everyone has the potential to be great"। The Argus। পৃষ্ঠা 10–11। David Gaiman quote: "It's not me you should be interviewing. It's my son. Neil Gaiman. He's in the New York Times Bestsellers list. Fantasy. He's flavour of the month, very famous 
  11. Gaiman, Neil (২০ ডিসেম্বর ২০০৮)। "Trees"। Neil Gaiman's Journal। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  12. Goodyear, Dana (২৫ জানুয়ারি ২০১০)। "Kid Goth Neil Gaiman's fantasies"The New Yorker। ২৭ এপ্রিল ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  13. Whitaker, Steve (জানুয়ারি ১৯৮৯)। "Neil Gaiman interview"। FA (109): 24–29। 
  14. Abbey, Cherie D. (ed.) (২০১০)। Biography Today General Series। Omnigraphics Inc.। পৃষ্ঠা 66। আইএসবিএন 978-0-7808-1058-7 
  15. Abbey p. 68
  16. "East Grinstead Hall of Fame – Neil Gaiman"। East Grinstead Community Web Site। n.d.। ১৮ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  17. "Neil Gaiman"। Exclusive Books। ৪ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  18. "Head Bars Son of Cult Man"The Times। ১৩ আগস্ট ১৯৬৮। পৃষ্ঠা 2। ২৯ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করাA headmaster has refused the son of a scientologist entry to a preparatory school until, he says, the cult "clears its name". The boy, Neil Gaiman, aged 7, (...) Mr. David Gaiman, the father, aged 35, former South Coast businessman, has become in recent weeks a prominent spokesman in Britain for scientology, which has its headquarters at East Grinstead. 
  19. Darren Wilshaw (২০১৭-০৫-২১), In Search Of Steve Ditko (2007), সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-১৯ 
  20. Gaiman, Neil (২০১৭-০৩-০৭)। "Neil Gaiman on Will Eisner: 'He thought comics were an artform – he was right'"The Guardian (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-১৯ 
  21. Gaiman, Neil (১৮ অক্টোবর ২০১৪)। "My hero : Mary Shelley by Neil Gaiman"The Guardian। ৬ জুন ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  22. Olsen, Steven P. (২০০৫)। Neil Gaiman (Library of Graphic Novelists)। New York, New York: Rosen Publishing। পৃষ্ঠা 16–18। আইএসবিএন 978-1404202856 
  23. Ball, Natasha (১১ মে ২০১৪)। "Lafferty Lost and Found"। This Land Press। ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  24. Barnett, David (১৩ আগস্ট ২০১৪)। "RA Lafferty – the secret sci-fi genius more than ready for a comeback"The Guardian। ১৭ জুন ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  25. "Of Meetings and Partings" by Neil Gaiman, introduction to This Mortal Mountain: Volume 3 of The Collected Stories of Roger Zelazny, NESFA Press, edited by David G. Grubbs, Christopher S. Kovacs, and Ann Crimmins, 2009, page 12.
  26. "Something Else Like ... Roger Zelazny" by Jo Walton, Tor.com, November 11, 2012.
  27. "A Literary Expert on Driving in the Dark" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১১-২০ 
  28. "Works by Gaiman – Book Reviews"NeilGaimanBibliography.com। n.d.। ১৭ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  29. "Authors at Google – Neil Gaiman interview"। YouTube। ৩ অক্টোবর ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  30. Gaiman, Neil (২ জানুয়ারি ২০০৯)। "Rumour control?"। Neil Gaiman's Journal। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  31. "Neil Gaiman – Journalism"Twitter.com। ২৯ জানুয়ারি ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  32. Kanazawa, Satoshi (২৪ জানুয়ারি ২০১০)। "Psychology Today – British Newspapers Make Things Up"Psychologytoday.com। ১৯ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  33. Huddleston, Kathie (n.d.)। "Neil Gaiman hitchhikes through Douglas Adams' hilarious galaxy"Science Fiction Weekly। ১২ জুন ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  34. Williams, Gwyneth (৫ সেপ্টেম্বর ২০১৪)। "Radio 4 to make first ever dramatisation of Good Omens – Media Centre"। BBC। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৫ 
  35. Bender, Hy (১৯৯৯)। The Sandman Companion। DC Comics। পৃষ্ঠা 20–22। আইএসবিএন 978-1563894657 
  36. Manning, Matthew K.; Dolan, Hannah, ed. (২০১০)। "1980s"। DC Comics Year By Year A Visual Chronicle। London, United Kingdom: Dorling Kindersley। পৃষ্ঠা 235। আইএসবিএন 978-0-7566-6742-9Neil Gaiman scripted the complex Black Orchid prestige format limited series in December [1988], re-envisioning the character with the help of artist Dave McKean. 
  37. Manning "1980s" in Dolan, p. 238: "In arguably one of the greatest achievements in serialized modern comic books, writer Neil Gaiman crafted the seventy-five-issue ongoing series The Sandman, introducing its readers to a complex world of horror and fantasy."
  38. Manning "1980s" in Dolan, p. 240: "Neil Gaiman, aided by penciller Mike Dringenberg, introduced the character Death to a fascinated readership...Death was an instant hit and arguably became more popular than the Sandman himself."
  39. Manning "1990s" in Dolan, p. 262: "In March 1993, DC Comics debuted a three-issue limited series entitled Death: The High Cost of Living...Written by Neil Gaiman and drawn by future comics superstar Chris Bachalo, The High Cost of Living had one notable trait besides a brilliant story: its cover bore a new logo. With this debut, DC's provocative new mature-reader imprint, Vertigo, was born."
  40. Hoad, Phil (২১ অক্টোবর ২০১৩)। "Neil Gaiman and Dave McKean: how we made The Sandman"The Guardian। ২৫ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  41. Daniels, Les (১৯৯৫)। "The Sandman's Coming: A New Approach to Making Myths"। DC Comics: Sixty Years of the World's Favorite Comic Book Heroes। New York, New York: Bulfinch Press। পৃষ্ঠা 206। আইএসবিএন 978-0821220764 
  42. "The Inevitable Post About Neil Gaiman's 'The Sandman'"NPR.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৮-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-১৬ 
  43. Levitz, Paul (২০১০)। "The Dark Age 1984–1998"। 75 Years of DC Comics The Art of Modern Mythmaking। Cologne, Germany: Taschen। পৃষ্ঠা 567। আইএসবিএন 9783836519816 
  44. Duncan, Randy; Smith, Matthew J. (২০১৩)। Icons of the American Comic Book: From Captain America to Wonder Woman, Volume 1। Santa Barbara, California: Greenwood Publishing Group। পৃষ্ঠা 741–742। আইএসবিএন 978-0313399237DC's censorship of Veitch's Swamp Thing #88 (1989) had a lasting negative impact on the series...With Veitch's immediate departure, the team that had been groomed to follow Veitch (writers Neil Gaiman and Jamie Delano) also left the title in solidarity with Veitch. 
  45. Manning, Matthew K.; Dougall, Alastair, ed. (২০১৪)। "1980s"। Batman: A Visual History। London, United Kingdom: Dorling Kindersley। পৃষ্ঠা 183। আইএসবিএন 978-1465424563Secret Origins No. 36 Neil Gaiman gave readers a rare glimpse into the inner workings of Poison Ivy's mind. 
  46. Manning "1980s" in Dougall (2014), p. 179: Secret Origins Special No. 1 "Gaiman wrote the Riddler's tale, with the help of artist Bernie Mireault."
  47. Martin, Brian (আগস্ট ২০১৭)। "Where the Action is...Weekly"। Back Issue! (98): 77। 
  48. Manning "1990s" in Dolan, p. 247: "Neil Gaiman chronicled the adventures of magic pupil Timothy Hunter in this miniseries. each issue explored the realms of magic as portrayed by a different painter."
  49. Andreasen, Henrik (১ ডিসেম্বর ১৯৯৫)। "Interview with John Ney Rieber"। Serie Journalen। ২০ জুন ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  50. Johnston, Rich (৫ জুন ২০১২)। "Get Your Free Neil Gaiman And Michael Zulli Sweeney Todd Comic Here"। Bleeding Cool। ৯ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০১৩ 
  51. "Teknophage"Neilgaiman.info। ২৩ জুলাই ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  52. Ogline, Tim E. (২০ নভেম্বর ২০০৭)। "Myth, Magic and the Mind of Neil Gaiman"Wild River Review। ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  53. Manning, Matthew K.; Gilbert, Laura, ed. (২০০৮)। "2000s"। Marvel Chronicle A Year by Year History। London, United Kingdom: Dorling Kindersley। পৃষ্ঠা 317। আইএসবিএন 978-0756641238Neil Gaiman...took his creative vision and penchant for times past to Marvel, crafting this eight-issue limited series alongside fan-favorite artist Andy Kubert. Digitally painted by Richard Isanove...this series took an alternative look at what the classic Marvel pantheon would be like if they had existed in the 17th century. 
  54. Richards, Dave (৯ জুন ২০০৬)। "Following in the Footsteps: Romita Talks Eternals"Comic Book Resources। ১৫ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৩ 
  55. MacQuarrie, Jim (৩ আগস্ট ২০০৭)। "CCI XTRA: Spotlight on Neil Gaiman"Comic Book Resources। ৭ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৩ 
  56. Cowsill, Alan "2000s" in Dolan, p. 337: "Writer Neil Gaiman and art legend Andy Kubert teamed up to present a touching imaginary tale of a wake for the dead Batman...A love song to the Dark Knight's long history...it went on to win SFX's Best Comic award in 2010."
  57. Tabu, Hannibal (২৭ জুলাই ২০০৮)। "CCI: DC One Weekend Later – Gaiman on Batman"Comic Book Resources। ২৩ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  58. Brady, Matt (২৭ জুলাই ২০০৮)। "SDCC '08 – More on Gaiman-Batman with Dan DiDio"Newsarama। ২৫ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  59. Cowsill "2000s" in Dolan, p. 338: "The [series] contained fifteen continuous stories, including...'Metamorpho' scripted by Neil Gaiman and illustrated by Michael Allred."
  60. Minnick, Remy (৩০ জানুয়ারি ২০০৯)। "Gaiman & Allred on Metamorpho"Comic Book Resources। ২০ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০০৯ 
  61. Johnston, Rich (২৩ সেপ্টেম্বর ২০১০)। "Neil Gaiman Co-Wrote Action Comics #894?"BleedingCool.com। ১৯ অক্টোবর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৩ 
  62. Armitage, Hugh (১৩ জুলাই ২০১২)। "Neil Gaiman returns to The Sandman – Comic Con 2012"Digital Spy। ২২ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  63. Hudson, Laura (২৫ জুলাই ২০১৩)। "25 Years Later, Neil Gaiman's Sandman Returns With a Prequel"Wired। ১ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  64. Sunu, Steve (২১ মার্চ ২০১৩)। "Gaiman Returns to Marvel, Brings Spawn's Angela"Comic Book Resources। ২৩ মার্চ ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মার্চ ২০১৩Later this year, writer Neil Gaiman makes his return to Marvel Comics...Perhaps even more intriguing is the announcement that Gaiman plans to introduce Angela to the Marvel U. 
  65. Bishop, Bryan (১ মার্চ ২০১৮)। "Neil Gaiman is turning The Sandman into an expanded comics universe"The Verge। ৯ মার্চ ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১৮ 
  66. Polo, Susana (১ মার্চ ২০১৮)। "The Sandman Universe is Neil Gaiman's next comics project"Polygon। ৩০ এপ্রিল ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১৮ 
  67. Pratchett, Terry (n.d.)। "Words from the Master"Lspace.org। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  68. "American Gods wins a Hugo!"Neilgaiman.com। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০০২। ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  69. "Best-Seller Lists: Hardcover Fiction"The New York Times। ৯ অক্টোবর ২০০৫। ২৭ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ মার্চ ২০১০ 
  70. Gaiman, Neil (১৯ নভেম্বর ২০০৮)। "Beyone Tea"। Neil Gaiman's Journal। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  71. Lofuto, Tina (৩ জুলাই ২০১৩)। "With The Ocean at the End of the Lane, fantasy master Neil Gaiman presents a mythical view of childhood's fears"Nashville Scene। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুলাই ২০১৩ 
  72. Gaiman, Neil। "A cover revealed! A book exposed! A year mislaid!"journal.neilgaiman.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৯-১৮ 
  73. "Neil Gaiman Puts His Spin On Thor In Norse Mythology Novel"Comicbook.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৯-১৮ 
  74. Wagner, Hank; Golden, Christopher; Bissette, Stephen R. (২০০৮)। "The Scripts"। Prince of Stories: The Many Worlds of Neil Gaiman। New York, New York: St. Martin's Press। পৃষ্ঠা 413–448। আইএসবিএন 978-0-312-38765-5 
  75. "Neil Gaiman and Roger Avary: Shaping Beowulf's story"Stv.tv। ২০০৭। ২৫ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  76. Ambrose, Tom (ডিসেম্বর ২০০৭)। "He Is Legend"। Empire। পৃষ্ঠা 142। 
  77. "Neil Gaiman's Film Work"Neil Gaiman.com। ১৩ আগস্ট ২০০৭। ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  78. Burns, Tom (n.d.)। "Neil Gaiman Takes Hollywood"UGO.com। ১৩ মে ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  79. Sanchez, Robert (২ আগস্ট ২০০৬)। "Neil Gaiman on Stardust and Death: High Cost of Living!"IESB.net। ১৩ আগস্ট ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৭ 
  80. Gaiman, Neil (৯ জানুয়ারি ২০০৭)। "The best film of 2006 was…"। Neil Gaiman's Journal। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৭ 
  81. "The Vulture Transcript: Neil Gaiman on Comics, Twilight, Twitter Etiquette, Killing Batman, and Sharing Porn With His Son"। ১৪ অক্টোবর ২০১০। 
  82. Gaiman, Neil (১৯৯৮)। Smoke and Mirrors: Short Fictions and IllusionsAvon। পৃষ্ঠা 384। আইএসবিএন 978-0380789023 
  83. Kit, Borys (২২ জানুয়ারি ২০১৩)। "Ron Howard in Talks to Direct Disney's Graveyard Book"The Hollywood Reporter। ২৬ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৩ 
  84. "Exclusive Neil Gaiman Confirms Doctor Who Episode"SFX। ১৯ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০১০ 
  85. Masters, Tim (২৪ মে ২০১০)। "Neil Gaiman reveals power of writing Doctor Who"BBC News। ১৮ মার্চ ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মে ২০১০ 
  86. "Doctor Who: Title Of the Neil Gaiman Episode Revealed"SFX। ২৮ মার্চ ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ৬ মে ২০১১ 
  87. "Tweet"Doctor Who Magazine। Twitter। ২৬ মার্চ ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৩ 
  88. Jeffery, Morgan (৯ নভেম্বর ২০১২)। "Doctor Who writer Neil Gaiman: 'I want to make the Cybermen scary again'"Digital Spy। ১৮ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৩ 
  89. "Neil Gaiman's Journal: A quick in and out"Journal.neilgaiman.com। ১২ মার্চ ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  90. Coonan, Clifford (১০ মার্চ ২০১১)। "Neil Gaiman to script 'Journey'"Variety। ১৩ মার্চ ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  91. "Author Neil Gaiman to guest star on The Simpsons"BBC News। ১৩ জানুয়ারি ২০১১। ৩০ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০১১ 
  92. Campbell, Josie (১৯ নভেম্বর ২০১১)। "Neil Gaiman on His Simpsons Appearance, Teen Lit and Trolls"Comic Book Resources। ৫ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ অক্টোবর ২০১৩ 
  93. Gaiman, Neil (২০ নভেম্বর ২০১১)। "Hey Hey We're, er, on The Simpsons"। Neil Gaiman's Journal। ২৪ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ অক্টোবর ২০১৩ 
  94. Falcone, Dana Rose (১৬ জুন ২০১৫)। "Neil Gaiman's American Gods gets series order at Starz"Entertainment Weekly। ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  95. "BBC Radio Neverwhere 2013" 
  96. Sisario, Ben (৫ জুন ২০১২)। "Giving Love, Lots of It, To Her Fans"The New York Times 
  97. Pollack, David (১৪ আগস্ট ২০১২), "Amanda Palmer & Neil Gaiman, Queen's Hall, Edinburg", The Independent 
  98. Neil Gaiman How Stories Last Filmed on Tuesday 9 June 2015 at The Long Now Foundation. Audio and video available.
  99. "What Neil Gaiman Did On The Big Bang Theory"। ২০ এপ্রিল ২০১৮। 
  100. "Official Neil Gaiman Website"Neilgaiman.com। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  101. "Neil Gaiman's journal, 2/11/2008"Journal.neilgaiman.com। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  102. "Neil Gaiman (neilhimself) on Twitter"। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুন ২০১৮ 
  103. Yehl, Joshua (২০১৩-০২-২০)। "The Best Tweeters in Comics"। সংগ্রহের তারিখ ২২ এপ্রিল ২০১৪ 
  104. "Neil Gaiman"Neil-gaiman.tumblr.com। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৫ 
  105. "Hey Neil! First of all, love Good Omens. Secondly, my friend thinks you are the one in the cinema with Crowley, and she recognised you solely from your "posture". Is she right?? Because I watched it again and think she might be!"Tumblr। ৩ জুন ২০১৯। 
  106. "Neil Gaiman's Journal: All Questions, All the Time"Journal.neilgaiman.com। ১১ এপ্রিল ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  107. Kaszuba, Mike (৬ মে ২০১১)। "Furor keeps building over author's $45,000 speech fee"Star Tribune। ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  108. Rabinovitch, Dina (১২ ডিসেম্বর ২০০৫)। "A writer's life: Neil Gaiman"The Telegraph। London। ১৩ নভেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ মে ২০১০ 
  109. McGinty, Stephen (২৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৬)। "Dream weaver"The Scotsman 
  110. "Neil Gaiman – Biography"Biography। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুন ২০০৬ 
  111. Popova, Maria (২০১৮-১২-১৮)। "A 100-Year-Old Holocaust Survivor on How Books Save Lives"Brain Pickings (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৩-০৬ 
  112. Gaiman, Neil (১৮ জুন ২০১৩)। The Ocean at the End of the LaneWilliam Morrow and Company। পৃষ্ঠা Back Flap। আইএসবিএন 978-0062255655 
  113. Bury, Liz (১ নভেম্বর ২০১৩), "Neil Gaiman becomes professor at US college: Author to teach wide range of courses over five years in the languages and literature faculty of Bard College", The Guardian 
  114. Portwood, Jerry (২০ সেপ্টেম্বর ২০১২)। "Amanda Palmer Gets Intimate"out.com। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১২ 
  115. Yu, Kathryn (৪ জুন ২০০৯)। "Two Lovers"Amanda Palmer, Neil Gaiman Perform Together in NYC। SPIN। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০০৯ 
  116. Gaiman, Neil (১৫ জানুয়ারি ২০১০)। "Telling the World: An Official Announcement"Journal.neilgaiman.com। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০১০ 
  117. Zutter, Natalie। "Amanda Palmer and Neil Gaiman Marry"Ology Magazine। ৯ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ জানুয়ারি ২০১১ 
  118. "Our Not-So-Humble Bundle"Neil Gaiman's journal। ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  119. "2016 Stories – #WithRefugees" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৯-১৪ 
  120. "What They Took With Them – #WithRefugees" (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-০৯-০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৯-১৪ 
  121. "Neil Gaiman Talks Sandman, CBLDF on NPR"। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৩। ১৪ আগস্ট ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ সেপ্টেম্বর ২০০৮ 
  122. Tori Amos, "Tear in Your Hand," Little Earthquakes
  123. "Tear in Your Hand"। Everything Tori। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  124. "Space Dog"। Everything Tori। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  125. "Beauty Queen/ Horses"। Everything Tori। ২২ সেপ্টেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  126. "Carbon"। Everything Tori। ২২ সেপ্টেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  127. "Sweet Dreams"। Everything Tori। ২২ সেপ্টেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  128. "Neil Gaiman's Journal: listening to unresolving"Journal.neilgaiman.com। ৩০ নভেম্বর ২০০৪। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  129. "Neil Gaiman's Journal: Blueberry Girls"Journal.neilgaiman.com। ৭ জুলাই ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  130. "Neil Gaiman's Journal: Chapter Six in San Francisco yesterday"Journal.neilgaiman.com। ৬ অক্টোবর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  131. "News from Green Man Press " Blog Archive " Blueberry Wanderings"। Green Man Press। ৬ জুলাই ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  132. Boyd, Todd (৩০ অক্টোবর ২০০৮)। African Americans and Popular Culture [3 volumes]। ABC-CLIO। পৃষ্ঠা 174। আইএসবিএন 978-0-313-06408-1 
  133. বিচারক শাহবাজ এর রায়: "অংশীদার হিসেবে ম্যাকফার্লেন কর্মটি প্রকাশ করে কপিরাইট আইন ভঙ্গ করেননি, তবে তিনি অপর অংশীদারের মুনাফার বিবরণ দিতে বাধ্য থাকবেন।"
  134. Listen to the "Oral Argument," List of Documents in case: 03-1331 : Gaiman, Neil v. McFarlane, Todd ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০ অক্টোবর ২০০৮ তারিখে. Retrieved 22 September 2008.
  135. See also the official decision by Judge John Shabaz in The United States Court of Appeals For the Seventh Circuit Nos. 03–1331, 03–1461 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৫ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে. Retrieved 22 September 2008.
  136. See Judge Shabaz's ruling ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৫ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে: "A tentative agreement was reached that... Gaiman would exchange his rights in Medieval Spawn and Cogliostro for McFarlane's rights in another comic book character, Miracleman."
  137. Judge Shabaz, Official ruling ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৫ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে, as per "Schiller & Schmidt, Inc. v. Nordisco Corp., 969 F.2d 410, 413 (7th Cir. 1992)"
  138. Yarbrough, Beau (৩ অক্টোবর ২০০২)। "Gaiman in Stunning Victory over McFarlane in Spawn Case: Jury Finds for Gaiman on All Counts"Comic Book Resources। সংগ্রহের তারিখ ২২ সেপ্টেম্বর ২০০৮ 
  139. See Judge Shabaz's ruling ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৫ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে for similar statements on Angela and Medieval Spawn.
  140. Weiland, Jonah (২৭ জুন ২০০৩)। "Marvel's "1602" Press Conference"Comic Book Resources। সংগ্রহের তারিখ ২২ সেপ্টেম্বর ২০০৮ 
  141. Phegley, Kiel (২৪ জুলাই ২০০৯)। "CCI: Marvel Acquires Marvelman"Comic Book Resources। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০০৯ 
  142. Treleven, Ed (২৫ মে ২০১০)। "Gaiman takes on McFarlane in Wis. federal court comic book clash"Wisconsin State Journal। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মে ২০১০ 
  143. Melrose, Kevin (২১ জুলাই ২০১০)। "Judge rules Dark Ages Spawn, Domina and Tiffany are derivative characters"Comic Book Resources। ১৯ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জুলাই ২০১০ 
  144. See particularly Rodney Sharkey, James Fleming, and Zuleyha Cetiner-Oktem's articles in ImageTexT's special issue on Gaiman's work: [১].
  145. Collins, Meredith. "Fairy and Faerie: Uses of the Victorian in Neil Gaiman's and Charles Vess's Stardust." ImageTexT 4.1. [২]
  146. See this detailed analysis: [৩].
  147. Olson, Danel (২০১৪)। "Casket Letters: The Essential Comics of Horror, Gothic, and the Weird for 2014"। The Weird Fiction Review5: 285–291। 
  148. Smith, Clay. "Get Gaiman?: PolyMorpheus Perversity in Works by and about Neil Gaiman." ImageTexT 4.1. [৪]
  149. Sandifer, Philip; Eklund, Tof (২০০৮)। "A Special Issue on the Works of Neil Gaiman, Introduction"English.ufl.edu4 (1)। ২৮ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  150. Rudd, David "An Eye for an 'I': Neil Gaiman's Coraline and the Question of Identity" Children's Literature and Education 39(3), 2008, pp. 159–168 "Archived copy"। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০০৮ 
  151. See Stephen Rauch, Neil Gaiman's The Sandman and Joseph Campbell: In Search of the Modern Myth, Wildside Press, 2003
  152. Ogline, Tim E.। "The Wild River Review, "Interview with the Dream King""Wildriverreview.com। ১৮ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  153. "1991 Harvey Award Nominees and Winners"। Hahn Library Comic Book Awards Almanac। n.d.। ৫ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  154. "1992 Harvey Award Nominees and Winners"। Hahn Library Comic Book Awards Almanac। n.d.। ৪ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুলাই ২০১৯ 
  155. "1993 Harvey Award Nominees and Winners"। Hahn Library Comic Book Awards Almanac। ৪ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  156. "Gaiman, Neil" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৪ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে. The Locus Index to SF Awards: Index to Literary Nominees. Locus Publications. Retrieved 5 November 2012.
  157. "1991 Award Winners & Nominees"Worlds Without End। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০০৯ 
  158. "1999 Award Winners & Nominees"Worlds Without End। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০০৯ 
  159. "Locus Award Winners by Category"Locus Magazine। ২০০২। ১ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০০৮ 
  160. "Locus Award Winners by Category"Locus Magazine। ২০০৩। ১ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০০৮ 
  161. "2010 Locus Awards Winners"Locusmag.com। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৫ 
  162. "2011 Locus Awards Winners"Locusmag.com। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৫ 
  163. "1990s Eisner Awards Recipients"San Diego Comic-Con International। ২০১৩। ২৩ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৩ 
  164. "2000s Eisner Awards Recipients"। San Diego Comicon International। ২০১৩। ২৩ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৩ 
  165. "The Locus Index to SF Awards:2000 Bram Stoker Awards"Locusmag.com। ৩ এপ্রিল ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  166. "The Locus Index to SF Awards: 2003 Bram Stoker Awards"Locusmag.com। ৭ জুন ২০০৩। ১৩ মে ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  167. "2002 Award Winners & Nominees"Worlds Without End। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০০৯ 
  168. "The Hugo Awards: 2009 Hugo Award Winners"। ৯ আগস্ট ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১০ আগস্ট ২০০৯ 
  169. "Neil Gaiman gewinnt den Hugo Award"Der Standard (German ভাষায়)। ১৪ আগস্ট ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  170. Davis, Lauren (৭ এপ্রিল ২০১২)। "The 2012 Hugo Nominations have been announced!"io9। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০১২ 
  171. Fox, Rose (২ সেপ্টেম্বর ২০১২)। "Hugo Awards Liveblog"Publishers Weekly। ১৩ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  172. "2016 Hugo Awards"। ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫। 
  173. "2006 Award Winners & Nominees"Worlds Without End। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০০৯ 
  174. "British Fantasy Awards 2009: the Shortlist!"Britishfantasysociety.org.uk। ১ আগস্ট ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১০ 
  175. "2010 Shirley Jackson Awards"Shirleyjacksonawards.org। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জানুয়ারি ২০১৭ 
  176. "Inkpot Award"San Diego Comic-Con। ২০১৬। ২৯ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  177. "Cool Stuff | Essays | Essays About Neil | Neil Gaiman and Comics"Neilgaiman.com। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৫ 
  178. "Mythypoeic Awards – Winners"Mythopoeic Society। ৫ অক্টোবর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ নভেম্বর ২০০৮ 
  179. Weiland, Jonah (২০০৪-০১-২৯)। "Sandman: Season of Mists Wins at Angoulême"Comic Book Resources। ২৪ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০১১  Archive requires scrolldown
  180. von Busack, Richard (৮ মার্চ ২০০৬)। "Sunnyvale"। Metroactive। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  181. "The Quill Awards: The 2005 Awards"। Quills Foundation। ২০০৫। ২৮ ডিসেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ 
  182. "The Bob Clampett Humanitarian Award"Comic-con.org। ২২ জুলাই ২০১১। ২০ সেপ্টেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  183. "Icon Award"। San Diego Comic-Con International। ২০১৩। ২৩ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৩ 
  184. "Gaiman's blog, 26 January 2009"Journal.neilgaiman.com। ২৬ জানুয়ারি ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১১ 
  185. "Finally not a bridesmaid actually"Neil Gaiman's Journal। ৩০ মে ২০০৯। 
  186. "Neil Gaiman named Honorary Chair of National Library Week"। ১২ অক্টোবর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১৫ এপ্রিল ২০১০ 
  187. (Carnegie Winner 2010) ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৯ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে. Living Archive: Celebrating the Carnegie and Greenaway Winners. CILIP. Retrieved 20 August 2012.
  188. "Releases for 2010 Awards" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৪ মে ২০১২ তারিখে. Press Desk. CILIP. Retrieved 20 August 2012.
  189. "About Neil Gaiman". 28 July 2014.
  190. "Announcing the 2011 Nebula Awards Winners"Tor.comTor Books। ১৯ মে ২০১২। 
  191. "Neil Gaiman Headlines 134th Commencement: Award-winning author, graphic novelist tells graduates to 'make good art'"University of the Arts। ১৩ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মে ২০১২ 
  192. Press Association (২৬ ডিসেম্বর ২০১৩)। "Neil Gaiman novel wins Book of the Year"The Guardian। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  193. "Laureation Address: Professor Neil Gaiman"। ২১ জুন ২০১৬। ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুলাই ২০১৯ 
  194. Löfgren, Emma (২৯ আগস্ট ২০১৮)। "Four writers shortlisted for 'the new Nobel Literature Prize'"The Local। সংগ্রহের তারিখ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  195. Gaiman Wins Writers for Writers Award

বহি:সংযোগ[সম্পাদনা]