ফ্যান্টাসি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
দ্য ভায়োলেট ফেয়ারি বুক (১৯০৬)

ফ্যান্টাসি বা অলীক কল্পনা একটি কল্পকাহিনী বর্গ[১] যা কোনো কাল্পনিক জগতে ঘটে, সাধারণত বাস্তবের স্থান, ঘটনা বা লোকজন এতে পাওয়া যায়না। অধিকাংশ ফ্যান্টাসিতেই মূল আখ্যান, থিম বা সংস্থাপন হিসেবে জাদু বা অতিপ্রাকৃত উপাদান ব্যবহৃত হয়। এসবের জগতে অনেক কাল্পনিক প্রাণীও দেখা যায়। বিজ্ঞান বা ভৌতিক থিমগুলো এড়িয়ে যাবার কারণে একে সাধারণত কল্পবিজ্ঞানভৌতিক সাহিত্য থেকে আলাদা করে দেখা হয়। তবে তিনটিই কল্পসাহিত্যের উপবর্গ হওয়ায় এদের মধ্যে মিলও প্রচুর।

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে ফ্যান্টাসি ধারাটি প্রধানত মধ্যযুগীয় রূপবিশিষ্ট। অবশ্য ব্যাপক অর্থে, আগেকার দিনের পৌরাণিক কাহিনীকিংবদন্তির বহু লেখক, শিল্পী, চলচ্চিত্রনির্মাতা এবং সঙ্গীতশিল্পী থেকে শুরু করে এসময়ের অনেক জনপ্রিয় সৃষ্টিকর্মও ফ্যান্টাসির অন্তর্ভুক্ত।

ফ্যান্টাসি নিয়ে বিভিন্ন ক্ষেত্রে গবেষণা করা হয়, যেমন ইংরেজি ও অন্যান্য ভাষা, সাংস্কৃতিক গবেষণা, তুলনামূলক সাহিত্য, ইতিহাস এবং মধ্যযুগীয় গবেষণা। এই ধারায় কাজ হয়েছে জ্বাটান টোডোরোভের কাঠামোগত "লিমিনাল স্পেস" তত্ত্ব থেকে মধ্যযুগতত্ত্ব এবং জনপ্রিয় সংস্কৃতির মধ্য সম্পর্ক বিবিধ বিস্তৃত ক্ষেত্রে।[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

যদিও আধুনিককালের ফ্যান্টাসি ২ শতাব্দীরও কম পুরনো, কিন্তু এর পূর্ববর্তী ধারার রয়েছে একটি বৃহৎ এবং ভিন্ন ইতিহাস। ক্লাসিক্যাল মিথোলজি ফ্যান্টাসিতে পরিপূর্ণ এবং এদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি পরিচিত (এবং সম্ভবত বর্তমান যুগের রূপকথার সঙ্গে অধিক মিল রয়েছে) হোমারের কাজগুলো।[৩] তাঁর রচিত ওডিসি ফ্যান্টাসির সংজ্ঞাকে সমর্থন করে।[৪] প্লেটোর দর্শন ফ্যান্টাসিতে ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে।[৫] মধ্যযুগের উল্লেখযোগ্য ফ্যান্টাসিগুলোর মধ্যে ছিল আরব্য রজনীউইলিয়াম মরিস এবং জে. আর. আর. টলকিনের মতে মধ্য যুগের ইউরোপীয় সাগাগুলো পরবর্তী সময়ের ফ্যান্টাসিতঃ ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে।[৬]

ফ্যান্টাসির নতুন ধারার সূচনা হয় ভিক্টোরিয়ান সময়ে; মেরি শেলি, উইলিয়াম মরিস এবং জর্জ ম্যাকডোনাল্ডের কাজের মাধ্যমে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Fiction » Fantasy Fiction Definition - Complete List of Book Genres"the book genre Dictionary। সংগৃহীত আগস্ট ৮, ২০১৬। "fantasy fiction genre" 
  2. Jane Tolmie, "Medievalism and the Fantasy Heroine", Journal of Gender Studies, Vol. 15, No. 2 (July 2006), pp. 145–158. ISSN 0958-9236
  3. John Grant and John Clute, The Encyclopedia of Fantasy, "Taproot texts", p 921 আইএসবিএন ০-৩১২-১৯৮৬৯-৮
  4. Sirangelo Maggio, Sandra; Fritsch, Valter Henrique (২০১১)। "There and Back Again: Tolkien's The Lord of the Rings in the Modern Fiction"Recorte: Revista Eletrônica 8 (2)। সংগৃহীত জুলাই ৭, ২০১২ 
  5. Stephen Prickett, Victorian Fantasy p 229 আইএসবিএন ০-২৫৩-১৭৪৬১-৯
  6. John Grant and John Clute, The Encyclopedia of Fantasy, "Nordic fantasy", p 692 আইএসবিএন ০-৩১২-১৯৮৬৯-৮

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]