জর্জ পেইন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জর্জ পেইন
জর্জ পেইন.jpg
ক্রিকেট তথ্য
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনস্লো লেফট-আর্ম অর্থোডক্স
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ২৮০)
৮ জানুয়ারি ১৯৩৫ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ টেস্ট১৪ মার্চ ১৯৩৫ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ২৫৮
রানের সংখ্যা ৯৭ ৩৪৩০
ব্যাটিং গড় ১৬.১৬ ১১.৯৫
১০০/৫০ -/- -/৭
সর্বোচ্চ রান ৪৯ ৭৯
বল করেছে ১০৪৪ ৫৯০৪৬
উইকেট ১৭ ১০২১
বোলিং গড় ২৭.৪৭ ২২.৮৫
ইনিংসে ৫ উইকেট ৭৪
ম্যাচে ১০ উইকেট - ১৩
সেরা বোলিং ৫/১৬৮ ৮/৪৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৫/- ১৬০/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১২ মার্চ ২০১৮

জর্জ আলফ্রেড এডওয়ার্ড পেইন (ইংরেজি: George Paine; জন্ম: ১১ জুন, ১৯০৮ - মৃত্যু: ৩০ মার্চ, ১৯৭৮) লন্ডনের প্যাডিংটন এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকা ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৩৪-৩৫ মৌসুমে ইংল্যান্ড দলের পক্ষে চার টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে মিডলসেক্স ও ওয়ারউইকশায়ারের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ স্লো লেফট-আর্ম অর্থোডক্স বোলার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও নীচেরসারিতে ডানহাতে কার্যকরী ভূমিকা রাখতেন জর্জ পেইন

কাউন্টি ক্রিকেটে অংশগ্রহণ[সম্পাদনা]

দীর্ঘদেহী নীচেরসারির ব্যাটসম্যান ও বামহাতি স্পিনার জর্জ পেইনের প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ১৯২৬ সালে মিডলসেক্সের সদস্যরূপে আত্মপ্রকাশ ঘটে। এ সময় তিনি পাঁচটি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিয়েছিলেন। পরবর্তীতে ১৯২৯ সালে আবাসকালীন যোগ্যতা অর্জন করায় ওয়ারউইকশায়ারের পক্ষে খেলতে থাকেন।

প্রথম দুই মৌসুমে বেশ রান দিয়ে ফেলেন জর্জ পেইন। কিন্তু, ১৯৩১ সালে শীর্ষসারির স্পিনার হিসেবে আবির্ভাব ঘটে তাঁর। বোলিংয়ে অতিরিক্ত ফ্লাইট ও স্পিন যুক্ত করেন। ঐ মৌসুমে ১২৭ উইকেট তুলে নেন। এরপর থেকে পরবর্তী পাঁচ মৌসুমে শতাধিক উইকেট পান। তন্মধ্যে, ১৯৩৪ সালে ব্যক্তিগত সেরা ১৫৬ উইকেট দখল করেন তিনি। এ সময় তিনি প্রথম-শ্রেণীর গড়ের দিক দিয়ে শীর্ষে আরোহণ করেন।

ঘরোয়া ক্রিকেটে অপূর্ব ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শনের কারণে ১৯৩৫ সালে উইজডেন কর্তৃক অন্যতম বর্ষসেরা ক্রিকেটার হিসেবে মনোনীত হন।[১]

টেস্ট ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৩৪-৩৫ মৌসুমে মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের প্রতিনিধিত্ব করেছেন।[২][৩] এ সময়ে এরিক হোলিসসহ তিনি এমসিসি দলের সদস্যরূপে ওয়েস্ট ইন্ডিজ গমন করেন।

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে মাত্র চারটি টেস্টে অংশগ্রহণের সুযোগ ঘটে জর্জ পেইনের যার সবগুলোই ছিল স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। ৮ জানুয়ারি, ১৯৩৫ তারিখে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তাঁর। যে-কোন ইংরেজ বোলারের তুলনায় ১৭ উইকেট দখল করে শীর্ষে ছিলেন। এছাড়াও, তৃতীয় টেস্টে ইংল্যান্ডের সংগৃহীত ২২৬ রানের ইনিংসে নাইটওয়াচম্যান হিসেবে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৪৯ রান তুলেন। তবে, এ সফরটি স্বার্থকতা পায়নি তাঁর। স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল ২-১ ব্যবধানে চার টেস্টে গড়া সিরিজ জয় করে। এরপর পেইনকে আর কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়নি।

অবসর[সম্পাদনা]

১৯৩৫ সালে শতাধিক উইকেট পেলেও ওয়ারউইকশায়ারে তাঁর কার্যকারিতা ফুরিয়ে যেতে থাকে। উইজডেন ১৯৩৬ সালের সংস্করণে ব্যক্ত করে যে, শারীরিক সমস্যার জর্জরিত ছিলেন তিনি। ১৯৩৬ সালের অধিকাংশ সময়ই তাঁকে অসুস্থ থাকতে দেখা যায়। ১৯৩৭ সালে নিজেকে মেলে ধরলেও পুণরায় ১৯৩৮ সালে আরেকটি অকার্যকর মৌসুম অতিবাহিত করেন। ১৯৩৯ সালে ওয়ারউইকশায়ার কর্তৃপক্ষ চুক্তি নবায়ণ করতে চাইলেও তিনি তা প্রত্যাখ্যান করেন ও প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট থেকে অবসর গ্রহণ করেন। তবে, ১৯৪৭ সালেও তাঁকে একটি খেলায় অংশগ্রহণ করতে দেখা গিয়েছিল।

৩০ মার্চ, ১৯৭৮ তারিখে ৭০ বছর বয়সে ওয়ারউইকশায়ারের সলিহাল এলাকায় জর্জ পেইনের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Full List on Cricinfo, Retrieved 11 July, 2017.
  2. ACS (১৯৮২)। A Guide to First-Class Cricket Matches Played in the British Isles। Nottingham: ACS। 
  3. "Marylebone Cricket Club Players"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৭ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]