চিত্তরঞ্জন পার্ক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চিত্তরঞ্জন পার্ক
উপকণ্ঠ
চিত্তরঞ্জন পার্ক দিল্লি-এ অবস্থিত
চিত্তরঞ্জন পার্ক
চিত্তরঞ্জন পার্ক
দিল্লিতে অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৮°৩২′২৩″ উত্তর ৭৭°১৪′৫২″ পূর্ব / ২৮.৫৩৯৫৯২° উত্তর ৭৭.২৪৭৬৯৯° পূর্ব / 28.539592; 77.247699স্থানাঙ্ক: ২৮°৩২′২৩″ উত্তর ৭৭°১৪′৫২″ পূর্ব / ২৮.৫৩৯৫৯২° উত্তর ৭৭.২৪৭৬৯৯° পূর্ব / 28.539592; 77.247699
দেশ ভারত
রাজ্যদিল্লি
জেলানয়াদিল্লি (পূর্বে দক্ষিণ দিল্লি)
মেট্রোনয়াদিল্লি
ভাষা
 • সরকারিবাংলা, হিন্দি, পাঞ্জাবি, ইংরেজি
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+০৫:৩০)
পিন১১০ ০১৯
পরিকল্পনা এজেন্সিদিল্লি পৌর কর্পোরেশন

চিত্তরঞ্জন পার্ক বা সিআর পার্ক দক্ষিণ দিল্লির একটি সমৃদ্ধ পাড়া এবং এখানে বিশাল বাঙালি সম্প্রদায়ের বসবাস।[১] এটি ১৯৬০-এর দশকের গোড়ার দিকে ইপিডিপি কলোনী বা পূর্ব পাকিস্তান বাস্তুচ্যুত ব্যক্তিদের কলোনি নামে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং পরে ১৯৮০-এর দশকে দেশবন্ধু (দেশপ্রেমিক) চিত্তরঞ্জন দাসের নামানুসারে বর্তমান নামকরণ করা হয়।[২] প্লটগুলির বাজারমূল্য বৃদ্ধির কারণে আজকাল এটি নয়াদিল্লীর স্থানীয় অঞ্চলের মধ্যে বিবেচিত হয়। ক্রমবর্ধমান মহাজাগরীয় প্রকৃতি সত্ত্বেও, এটি একটি বিশাল বাঙালি সম্প্রদায়ের আবাসস্থল এবং এখানে কলকাতার মত স্ট্রিট-ফুডের দোকান, বাঙালি খাবার, মাছের বাজার, মন্দির এবং সাংস্কৃতিক কেন্দ্র রয়েছে। এখানে অনেক উৎসব এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। দুর্গাপূজা এখানে সর্বাধিক উদযাপিত উৎসব, যা দুর্দান্তভাবে গর্বিত করে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

পূর্ব পাকিস্তানে তাদের বাড়িঘর থেকে স্থানচ্যুত হয় ভারত বিভাগ এবং সংশ্লিষ্ট বঙ্গভঙ্গ (১৯৪৭) বিভাগের পর ১৯৫৪ সালে একটি অ্যাসোসিয়েশন পূর্ব বঙ্গের বাসিন্দাদের জন্য বসতি গঠন করে। পূর্ববাংলা থেকে আগত সরকারী আধিকারিকদের একটি বিশাল দল দিল্লিতে পাড়ি জমান এবং একটি আবাসিক পাড়ার জন্য তদবির করেছিলেন। সেই সময় মুখ্য ভূমিকা গ্রহণ করেছিলেন চন্দ্র কুমার মুখোপাধ্যায়,[২] সুবোধ গোপাল বসুমল্লিক, আশুতোষ দত্ত, বিমল ভূষণ চক্রবর্তী এবং প্রধান নির্বাচন কমিশনার শ্যামাপ্রসন্ন সেনবর্মা। ১৯৬০-এর দশকে তদানীন্তন দক্ষিণাঞ্চলের অনুর্বর পাথুরে অঞ্চলে জমি বরাদ্দ দেওয়া হয়। সদস্যদের আবাসিক মর্যাদাপ্রাপ্তির লক্ষ্যে কিছু প্রামাণ্য দলিল সরবরাহ করার প্রয়োজন ছিল, এবং তাদের "ইতিমধ্যে দিল্লিতে বাস করা এবং লাভজনকভাবে রাজধানীতে নিযুক্ত" হওয়া প্রয়োজন; এর ভিত্তিতে, ২১৪৭ জনকে প্রাথমিকভাবে ৯৯ বছরের জন্য ইজারা দেওয়ার মাধ্যমে জমি দেওয়া হয়, কিন্তু পরবর্তীকালে এটি একটি ফ্রিহোল্ড মালিকানাতে রূপান্তরিত হয়। দিল্লি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের ভূমিকা অর্থাৎ ডিডিএ-এর ভূমিকা এখানে ছিল। অনেক লোক যারা তাদের জমিতে বাড়ি তৈরি করতে পারছিলেন না, তাদের জন্য বাড়ি তৈরি করে দেয় ডিডিএ এবং তারা ধীরে ধীরে প্রতি বছর কিস্তি হিসাবে নির্মাণ ব্যয়টি পরিশোধ করে।[৩]

মূল বিন্যাসে দুটি বাজার এবং সাংস্কৃতিক জায়গাসহ এগারোটি ব্লকে বিভক্ত দু-হাজার বিজোড় প্লট ছিল। তবে, ১৯৯০- এর দশকে, ৭১৪ বাস্তুচ্যুত পরিবারকে তাদের মধ্যে থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছিল, যারা পূর্বের সময়সীমাটি পূরণ করতে পারেনি। এর ফলে এম, এন, ও, পি, কে -১, কে -২, পকেট ৪০ (নবপল্লী হিসাবে পরিচিত), পকেট ৫২ (দক্ষিণ পল্লী হিসাবে পরিচিত) এবং পকেট-কে নামে নতুন ব্লক তৈরি হয়। বসতির মূল পুরো জায়গাটি বিপিন চন্দ্র পাল মার্গ। এখানকার প্রতিষ্ঠানগুলি রাইসিনা বাংলা স্কুল, কালী মন্দির (যাকে শিব মন্দিরও বলা হয়), বঙ্গীয় সমাজ এবং চিত্তরঞ্জন ভবনের একটি শাখা।[২]

চিত্তরঞ্জন পার্কে কালী প্রতিমা, সিআর পার্ক

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ANI (২০১৭-১১-৩০)। "Arun Dev Builders' MD to foray into food processing"Business Standard India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১২-০৭ 
  2. "Chittaranjan Park"। Travel Delhi। Mobile Reference। ২০০৭। আইএসবিএন 1-60501-051-0 
  3. "Pin Code of Chittaranjan Park Delhi"। citypincode.in। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৩-০৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]