চান্দা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

চান্দা
(Red Helen)
Close wing position of Papilio helenus Linnaeus, 1758 – Red Helen WLB DSC 0 196.jpg
ডানা বন্ধ অবস্থায়
Open wing position of Papilio helenus Linnaeus, 1758 – Red Helen.jpg
ডানা খোলা অবস্থায়
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: Animalia
পর্ব: Arthropoda
শ্রেণী: Insecta
বর্গ: Lepidoptera
পরিবার: Papilionidae
গণ: Papilio
প্রজাতি: P. helenus
দ্বিপদী নাম
Papilio helenus
(Linnaeus, 1758)

চান্দা[১] (বৈজ্ঞানিক নাম: Papilio helenus (Linnaeus)) এক প্রজাতির বড় আকারের প্রজাপতি, যার মূল শরীরটা কালো বর্ণের এবং ডানায় চাঁদের আকৃতির সাদা অথবা ফিকে হলুদ রঙের নকশা দেখা যায়। এরা ‘প্যাপিলিওনিডি’ পরিবারের এবং 'প্যাপিলিওনিনি' উপগোত্রের সদস্য।

উপপ্রজাতি[সম্পাদনা]

চান্দা প্রজাপতিদের ১৩টি উপপ্রজাতি দেখা যায়। তার মধ্যে দুটি উপপ্রজাতি ভারতে দেখা যায়ঃ

আকার[সম্পাদনা]

প্রসারিত অবস্থায় চান্দার ডানার আকার ১০০-১২০ মিলিমিটার দৈর্ঘ্যের হয়।[২]

বিস্তার[সম্পাদনা]

সাধারণত এই জাতীয় প্রজাপতিটি ভারতের নীলগিরি, মালাবার অঞ্চল, হিমালয় সন্নিহিত অঞ্চল (উত্তরাঞ্চল থেকে অরুণাচল প্রদেশ) এছাড়া সিকিমএ ২১০০ মিটার উচ্চতা অবধি এদের দেখা যায়।[৩] ভারতের বাইরে নেপাল, ভুটান, বাংলাদেশ, মায়ানমার, শ্রীলঙ্কা থেকে মালয় এবং চিন পর্যন্ত এদের বিস্তার।[৪] এরা পাহাড়ি অঞ্চল এবং ঘন জঙ্গলের প্রজাপতি। যে সব অঞ্চলে ভারী বর্ষা হয় সেখানে এদের পাওয়া যায়।

বর্ণনা[সম্পাদনা]

এই প্রজাপতির ডানার উভয় দিকই কালো বা বাদামি ছোঁয়া কালো বর্ণের হয়।[৫] পিছনের ডানার মাঝামাঝি সাদা অথবা ফিকে হলুদ রঙের একটা বড় চাঁদ আকৃতির নকশা দেখা যায়। ডানার নিচের কোণে কয়েকটা লাল রঙের বেড় থাকে আর তার ভেতরে কালো। পিছনের ডানায় বেশ লম্বা পুচ্ছ আছে। এরা ওড়ে খুব দ্রুত বেগে তবে মাটি থেকে বেশি উঁচুতে নয়।[৬]

আচরণ[সম্পাদনা]

অনেক সময় একসঙ্গে অনেকে মিলে আবার অন্যান্য প্রজাতিদের সাথে একসাথে দল বেঁধে জলপান করতে দেখা যায়। এরা সাধারণত বেশি বৃষ্টিপাতযুক্ত অঞ্চলের জঙ্গলে দেখা যায়। চান্দা দ্রুত ও শক্তিশালী উড়ান দিতে সক্ষম। এরা খুব বেশি উঁচুতে ওড়ে না। বাগানের ফুলে বসে মধু খেতে এদের প্রায়ই দেখা যায়।[৭]

বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

ডিম[সম্পাদনা]

চান্দার ডিম গোলাকার এবং কমলা রঙের হয় এতে লালচে বাদামি বর্ণের ছিট দেখা যায়। মাটি থেকে ১০-১২ ফুট উঁচুতে এবং একটু ছায়ার আড়ালে থাকা পাতায় ডিম পাড়ে।

শূককীট[সম্পাদনা]

শূককীট গুলি লম্বাটে এবং উজ্জবল ঘন সবুজ বর্ণের হয়।এদের চতুর্থ দেহখন্ডের উপর দিকে কালো সুতোর মতো বিনুনি দেখা যায়। শূককীট পাতার ওপর-পিঠে বা সরু প্রশাখার ওপর বসে বিশ্রাম করে।

আহার্য উদ্ভিদ[সম্পাদনা]

এই শূককীট লেবু জাতীয় উদ্ভিদ, যেমন- পাতিলেবু Citrus medica, বাতাবি লেবু Citrus decumana, জাম্বুরা Citrus maxima এছাড়া আশশেওড়া (Glycosmis pentaphylla), দাহন(Toddalia asiatica), (Zanthoxylum acanthopodium)[৮] গাছের পাতার রসালো অংশ আহার করে।

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Dāśagupta, Yudhājit̲̲̲̲̲̲a (২০০৬)। Paścimabaṅgera prajāpati (1. saṃskaraṇa. সংস্করণ)। Kalakātā: Ānanda। পৃষ্ঠা ৫১। আইএসবিএন 81-7756-558-3 
  2. Collins, N.M. & Morris, M.G. (1985). Threatened Swallowtail Butterflies of the World. IUCN. |আইএসবিএন ২-৮৮০৩২-৬০৩-৬}}
  3. Haribal, Meena (1994). Butterflies of Sikkim Himalaya and their Natural History
  4. Isaac, Kehimkar (২০০৮)। The book of Indian Butterflies। New Delhi: Oxford University Press। আইএসবিএন 978 019569620 2 
  5. Bingham, C. T. 1907. Fauna of British India. Butterflies. Volume 2
  6. Wynter-Blyth, M.A. (1957). Butterflies of the Indian Region. Bombay Natural History Society, Mumbai, India.
  7. Pratap Singh, Arun (২০১১)। Butterflies of India (1st সংস্করণ)। Utter Pradesh: Om Books International। পৃষ্ঠা 22। আইএসবিএন 978-93-80069-60-9 
  8. A Pictorial Guide Butterflies of Gorumara National Park (2013 সংস্করণ)। Department of Forests Government of West Bengal। পৃষ্ঠা 18। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]