কাটিবল্গা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

কাটিবল্গা
Chain swordtail
Close wing position of Graphium aristeus Stoll, 1782 – Chain Swordtail WLB.jpg
ডানা বন্ধ অবস্থায়
Open wing position of Graphium aristeus Stoll, 1782 – Chain Swordtail WLB.jpg
ডানা খোলা অবস্থায়
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: Animalia
পর্ব: Arthropoda
শ্রেণী: Insecta
বর্গ: Lepidoptera
পরিবার: Papilionidae
গণ: Graphium
উপগণ: Pathysa
প্রজাতি: G. aristeus
দ্বিপদী নাম
Graphium aristeus
(Stoll, 1782)

কাটিবল্গা[১] (বৈজ্ঞানিক নাম: Graphium aristeus(Stoll)) এক প্রজাতির বড় আকারের প্রজাপতি। এদের নিচের ডানার পিছনের দিকে লেজের মত প্রক্ষিপ্ত অংশ থাকে, যার জন্য এদের সোয়ালোটেল (sowallotail) বলা হয়। এরা প্যাপিলিওনিডি পরিবার এবং প্যাপিলিওনিনি উপগোত্র এবং গ্রাফিয়াম বর্গের অন্তর্ভুক্ত প্রজাতি। এই প্রজাতি ভারতের বন্যপ্রাণ সংরক্ষণ আইন (Wild Life Protection Act, 1972) অনুসারে তফ্‌সিল ২ এর তালিকার অন্তর্ভুক্ত।

আকার[সম্পাদনা]

কাটিবল্গা এর প্রসারিত অবস্থায় ডানার আকার ৭০-৮০ মিলিমিটার দৈর্ঘ্যের হয়।[২]

উপপ্রজাতি[সম্পাদনা]

কাটিবল্গার উপপ্রজাতিগুলো হলো-

  • Graphium aristeus aristeus (Stoll, 1780)
  • Graphium aristeus anticrates (Doubleday, 1846)
  • Graphium aristeus hermocrates (C. & R. Felder, 1865)
  • Graphium aristeus hainanensis (Chou & Gu, 1994)
  • Graphium aristeus parmatus (Gray, [1853])
  • Graphium aristeus paron (Godman & Salvin, 1879)
  • Graphium aristeus bifax (Rothschild, 1898)

ভারতে প্রাপ্ত কাটিবল্গার উপপ্রজাতি[সম্পাদনা]

ভারতে সাধারণত কাটিবল্গার যে উপপ্রজাতিটি দেখা যায় তা হল- Graphium aristeus anticrates (Doubleday, 1846) – Assam Chain Swordtail

বিস্তার[সম্পাদনা]

ভারত (পশ্চিমবঙ্গ, সিকিম, আসাম এবং মেঘালয়),[২], নেপাল, ভুটান, মায়ানমার, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপিন্স এর বিভিন্ন অঞ্চলে এদের পাওয়া যায়।

বর্ণনা[সম্পাদনা]

প্রজাপতির দেহাংশের পরিচয় বিষদ জানার জন্য প্রজাপতির দেহ এবং ডানার অংশের নির্দেশিকা দেখুন:-

স্ত্রী পুরুষ উভয় প্রকারই বুটিবল্গা (Spot Swordtail)এর সাথে ভীষন সাদৃশ্যযুক্ত; তবে বুটিবল্গা এর সামনের ডানার নিম্নপৃষ্ঠে সাবটার্মিনাল সাদা গোলাকৃতি ছোপের সারির পরিবর্তে কাটিবল্গার ওই একই জায়গায় ইষদ সবজে শিকল এর মতো সুসজ্জিত এবং রৈখিক অবস্থানযুক্ত চ্যাপ্টা ছোপের সারি বর্তমান।[৩]

ডানার উপরিতল : ডানার উপরিতল সাদা এবং ইষদ সবজে বর্নের চমপো৬য়া যুক্ত এবং কালো পটি ও বন্ধনীযুক্ত। সামনের ডানার সেল এ ৫টি কালো, মোটামুটি চওড়া লম্বা পটি অথবা বন্ধনী দেখা যায়; যাদের মধ্যে বাইরের দিকের ৩টি পটি সেল এর মধ্যেই সীমাবন্ধ এবং গোড়ার দিকের শেষ পটি দুটি সেল ছাড়িয়ে ডরসাম অবধি বিস্তৃত। উভয় ডানায় অ্যাপেক্স অথবা শীর্ষভাগ ও টার্মেন ও টর্নাস চওড়াভাবে কালো। সামনের ডানায় সাব-টার্মিনাল ইষদ সবজে সাদা চ্যাপ্টা ছোপের সারিটি (কালো শিরা দ্বারা খন্ডিত) কোস্টাল শিরার নীচ থেকে প্রায় টর্নাস পর্যন্ত বিস্তৃত। পিছনের ডানার সাব-টার্মিনাল দাগের সারিতে দাগগুলি বক্র ও অর্ধ চন্দ্রাকৃতি। সরু সাদা রেখায় আবৃত কালো লম্বা তরবারির ন্যায় লেজটি ২ নং শিরায় অবস্থান থেকে উৎক্ষিপ্ত হয়েছে। উভয় ডানায় বেস অথবা গোড়ার অংশ সাদা।[৩]

ডানার নিম্নতল : ডানার নিম্নতল মধ্যভাগে সাদা এবং চারিদিকে চওড়া বাদামী। দাগ-ছোপ এবং পটি উপরিতলেরই অনুরূপ। পিছনের ডানায় কালো বহিঃপ্রান্তরেখা ঘেরা লাল ডিসকাল ছোপ লক্ষ্য করা যায়। পিছনের ডানার টার্মেন ঢেউ খেলানো (wavy)।[৩]


শুঙ্গ কালো এবং শীর্ষে মুগুরের মতো আকৃতিযুক্ত (clubed)। মাথা, বক্ষ এবং উদর উপরিতলে কালো এবং নিম্নতলে ইষদ হলদেটে সাদা বর্নের হয়।[৩]

আচরণ[সম্পাদনা]

দুর্লভদর্শন এই প্রজাতি দ্রুত এবং শক্তিশালী উড়ানবিশিষ্ট। এরা ভিজে মাটি অথবা বালি, পাথরের ভিজে ছোপ, কাদায় বসে মাডপাডল এবং গাছের পাতায় রসপান করে থাকে। ফুলে বসে মধুপান করতে এদের কম দেখা যায়। এদের সাধারনত নিজ প্রজাতি অথবা ভিন্ন প্রজাতির সাথে দলবদ্ধ ভাবে মাড-পাডল করতে লক্ষ্য করা যায়। এই প্রজাতিকে ডানা মেলা এবং বন্ধ উভয় অবস্থাতেই রোদ পোহাতে দেখা যায়। জলে, পাতায়, মাটিতে এবং পাথুরে দেওয়ালে, বৃষ্টির পরে, নিচু উচ্চতাযুক্ত জঙ্গল পরিবেশে পাহাড়ী নদী অথবা ঝর্নার দহারে এদের প্রায়শই দেখা যায়। পশুর বিষ্ঠা মূলত হাতির বিষ্ঠাতে এদের অবস্থান করতে লক্ষ্য করা যায়। মাড-পাডল চলাকালীন এরা ডানা সম্পূর্ণ মেলে রোদ পোহায়। উপযুক্ত পরিবেশে মার্চ এবং এপ্রিল মাসে এদের দর্শন মেলে।[২]


তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. A Pictorial Guide Butterflies of Gorumara National Park (2013 সংস্করণ)। Department of Forests Government of West Bengal। পৃষ্ঠা ১১। 
  2. Kunte, Krushnamegh (২০১৩)। Butterflies of The Garo Hills। Dehradun: Samrakshan Trust, Titli Trust and Indian Foundation of Butterflies। পৃষ্ঠা ১৪১। 
  3. Wynter-Blyth, M.A. (1957) Butterflies of the Indian Region, pg .400.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]