খাদিজা মসজিদ

স্থানাঙ্ক: ৫২°৩৪′২২″ উত্তর ১৩°২৫′৫১″ পূর্ব / ৫২.৫৭২৭৮° উত্তর ১৩.৪৩০৮৩° পূর্ব / 52.57278; 13.43083
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
খাদিজা মসজিদ
Khadija-Moschee, Berlin, Germany - 20110603.jpg
ধর্ম
অন্তর্ভুক্তিআহমদীয়া
অবস্থান
অবস্থানহাইনার্সডর্ফ, বার্লিন
 জার্মানি
ভৌগোলিক স্থানাঙ্ক৫২°৩৪′২২″ উত্তর ১৩°২৫′৫১″ পূর্ব / ৫২.৫৭২৭৮° উত্তর ১৩.৪৩০৮৩° পূর্ব / 52.57278; 13.43083
স্থাপত্য
স্থপতিমুবাশ্রা ইলিয়াস
ধরনমসজিদ
স্থাপত্য শৈলীআধুনিক
সম্পূর্ণ হয়২০০৮
নির্মাণ ব্যয়€ ১.৭ মিলিয়ন ইউরো
নির্দিষ্টকরণ
ধারণ ক্ষমতা২ x ২৫০
গম্বুজসমূহ
গম্বুজের উচ্চতা (বাহিরে)৪.৫ মিঃ
গম্বুজের ব্যাস (বাহিরে)৯ মিঃ
মিনারসমূহ
মিনারের উচ্চতা১৩ মিঃ
ওয়েবসাইট
http://khadija-moschee.de/

খাদিজা মসজিদ (জার্মান: Khadija-Moschee) জার্মানির বার্লিনের হাইনার্সডর্ফে অবস্থিত একটি মসজিদ। এটি আহমদিয়া মুসলিম সম্প্রদায়ের সম্পত্তি, এবং সাবেক পূর্ব জার্মানির প্রথম মসজিদ, যা ২০০৮ সালের ১৬ই অক্টোবর তারিখে উদ্বোধন করা হয়েছে। মসজিদে রয়েছে ৩৯ ফুট (১২ মি) উচ্চ মিনার এবং এখানে ৫০০ জন মুসল্লি একসাথে নামাজ আদায় করতে পারেন। মসজিদটি আহমদিয়া মহিলাদের দ্বারা সংগৃহীত তহবিল দ্বারা অর্থায়ন করা হয়েছিল এবং এর নকশাটি করেছিলেন স্থপতি মুবাশ্রা ইলিয়াস।[১]

লাহোর আহমদিয়া আন্দোলনের ফলে ১৯২৪ থেকে ১৯২৮ সালের মধ্যে বার্লিনে আরেকটি মসজিদ নির্মিত হয়েছিল।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

আহমদিয়া মুসলিম জামায়াত ততদিনে ১৯২০ সালে বার্লিনে ইউরোপে তাদের প্রথম মসজিদটি তৈরির চেষ্টা করেছিল।[২] দ্বিতীয় খলিফার ইচ্ছা অনুযায়ী সম্প্রদায়ের মহিলারা তাদের নিজস্ব সম্পদ থেকে মসজিদের জন্য সমস্ত তহবিল সংগ্রহ করেছিলেন। তবে জার্মানিতে আর্থিক সঙ্কটের কারণে পরিকল্পনাটি ছেড়ে দিতে হয়েছিল।[৩] পরিবর্তে, এই অর্থটি লন্ডনে ফজল মসজিদ নির্মাণের জন্য ব্যবহৃত হয়েছিল। জার্মানিতে মুসলিম সম্প্রদায়ের ১০০-মসজিদ-পরিকল্পনার আওতায় এই প্রকল্পটি পুনরুদ্ধার করা হয়েছিল এবং বার্লিনে একটি নতুন মসজিদ নির্মাণ করার পরিকল্পনা করা হয়েছিল। খাদিজা মসজিদটি বার্লিনের পূর্ব অংশের প্রথম মসজিদ।

নির্মাণ[সম্পাদনা]

২০০৭ সালের ২রা জানুয়ারি তারিখে ৫ম খলিফা মির্জা মাসরুর আহমদ দ্বারা এই মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়। মসজিদটি এক টুকরা জমিতে নির্মিত, যার আয়তন হচ্ছে ৪,৭৯০ বর্গমিটার। এটি নিয়ে দুটি গল্প প্রচলিত আছে। এখানে দু'টি প্রার্থনা কক্ষ রয়েছে, একটি ২৫০ জন মহিলা এবং আরেকটি ২৫০ জন পুরুষদের জন্য। মসজিদটির নকশা করেছিলেন সম্প্রদায়ের স্থপতি মুবাশ্রা ইলিয়াস।[৪] নির্মাণের তদারকি করেছিলেন স্থপতি সংস্থা পাকডেল। মসজিদের গম্বুজটি উচ্চতা ৪.৫ মিটার এবং ব্যাস ৯ মিটার। মসজিদের মিনারটি ১৩ মিটার উঁচু।[৫] মসজিদটি নির্মাণ, ইমামের আবাসনের জন্য একটি বিল্ডিং, "মসজিদের ভৃত্যদের" এবং অফিসগুলির জন্য মোট ব্যয় হয়েছিল প্রায় ১.৭ মিলিয়ন ডলার।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Careers “made in Germany” আর্কাইভইজে আর্কাইভকৃত ৪ আগস্ট ২০১২ তারিখে, Deutschland Online;(ইংরেজি)
  2. Bau einer Moschee in Berlin: Am Ende des Toleranzbereichs, FAZ vom 25. Juli 2007 (জার্মান ভাষায়)
  3. „The costs for the Mosque in Berlin will be financed with the Chanda (financial sacrifices) of the Ahmadi women. 50.000 Rupee will be used for this, which have been collected by the Ahmadi women in three months.“, Khalifat-ul Massih II. in the Khutba Juma on 2. February 1923(ইংরেজি)
  4. Zwischen Tradition und Karriere. Drei Moscheen hat Ilyas während ihres Architektur-Studiums an der TU Darmstadt (TUD) für die muslimische Ahmadiyya-Gemeinde entworfen: in Bremen, Offenbach und Berlin., Mainspitze am 29. Oktober 2007; 28jährige ist Moschee-Architektin Mubashra Ilyas, Berliner Morgenpost, 5 January 2007(ইংরেজি)
  5. Zahlen & Fakten Die Ahmadiyya und ihre Berliner Moschee, Der Tagesspiegel vom 14. Oktober 2008(ইংরেজি)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]