বার্লিন মসজিদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
উইলমার্সডর্ফার মসজিদ
বার্লিন মসজিদ
Berlin Ahmadiyya Mosque ext-int.png
মসজিদের বহিঃস্থ (বামে) এবং অভ্যন্তর (ডানে)
ধর্ম
অন্তর্ভুক্তিআহমদিয়া
অবস্থান
অবস্থানজার্মানি বার্লিন, জার্মানি
প্রশাসনইসলাম প্রচারের জন্য লাহোর আহমদিয়া আন্দোলন
ভৌগোলিক স্থানাঙ্ক৫২°২৯′১৫″ উত্তর ১৩°১৮′৪২″ পূর্ব / ৫২.৪৮৭৫° উত্তর ১৩.৩১১৬৬৭° পূর্ব / 52.4875; 13.311667স্থানাঙ্ক: ৫২°২৯′১৫″ উত্তর ১৩°১৮′৪২″ পূর্ব / ৫২.৪৮৭৫° উত্তর ১৩.৩১১৬৬৭° পূর্ব / 52.4875; 13.311667
স্থাপত্য
স্থপতিকে. এ. হারম্যান
স্থাপত্য শৈলীআধুনিক ইন্দো ইসলামিক
সম্পূর্ণ হয়১৯২৫
নির্দিষ্টকরণ
ধারণ ক্ষমতা৪০০
গম্বুজসমূহ
গম্বুজের উচ্চতা (বাহিরে)২৬ মিটার (৮৫ ফু)
গম্বুজের ব্যাস (বাহিরে)২৩ মিটার (৭৫ ফু)
মিনারসমূহ
মিনারের উচ্চতা২৭.৫ মিটার (৯০ ফু)
ওয়েবসাইট
berlin.ahmadiyya.org/

বার্লিন মসজিদ (জার্মান: Berliner Moschee, Wilmersdorfer Moschee, Ahmadiyya Moschee) জার্মানির বার্লিনের ব্রেইনের স্ট্রাসেতে অবস্থিত। এই মসজিদের নকশা করেছেন কে এ হারম্যান এবং ১৯২৩ হতে ১৯২৫ সালের মধ্যে এই মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে। বার্লিন মসজিদের ৯০ ফুট (২৭ মি) উচু দুটি মিনার দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে প্রচুর ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছিল। দুটি মিনার ১৯৯৯/২০০১ সালে পুনর্নির্মাণ করা হয়েছিল।

ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনের অনুষ্ঠান, ১৯২৩

১৯২৩ সালের আগস্ট মাসে ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করা হয়েছিল[১] এবং মসজিদটি ১৯২৫ সালের এপ্রিল মাসে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়েছিল।[২][৩]

এই মসজিদটি মুঘল স্থাপত্য শৈলীতে নির্মাণ করা হয়েছে, যা উক্ত সময়ের আকর্ষণীয় ভবনগুলো নকশা প্রতিফলিত করে। এর মধ্যে একটি নকশা হচ্ছে স্থপতি পিঁয়াজ গম্বুজে পেস্টেল রঙের ব্যবহার।[৪] এটি ভবনটি মুঘল সাম্রাজ্যের সমাধির সাথে অনেক মিল রয়েছে। শুধু তাই নয়, ভবনে দেখা প্রতিসাম্য তাজমহলের প্রতিচ্ছবিও প্রতিফলিত করে। মসজিদের পাশেই মসজিদের ধর্মীয় প্রধান ইমামের বাসস্থান। ইমামের বাসভবনটি হচ্ছে দুটি দোতলা একটি ভবন।[৫]

Moschee Wilmersdorf.jpg

লাহোর আহমদিয়া আন্দোলনের (আহমদিয়া আঞ্জুমান ইশাহাতে ইসলাম লাহোর) মালিকানাধীন মসজিদ।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯০০-এর দশকে মসজিদটি নির্মাণের পূর্বে জার্মানিতে ইসলামের যে ছোট প্রভাব ছিল তার কারণে, বার্লিন মসজিদটির পূর্বে বার্লিনের বাইরে নির্মিত একটি ছোট কাঠের কাঠামো নির্মিত হয়েছিল, যা ১৯২৩ সালে ধ্বংস করা হয়েছিল।[৬] এর খুব অল্প সময়ের পরে, লাহোর আহমদিয়া আন্দোলন করা হয়েছিল, যার ফলে জার্মানিতে একটি মসজিদ নির্মাণের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে রুশ সৈন্যদের আক্রমণের কারণে বার্লিন মসজিদের উঁচু মিনার ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। শুধু মিনারগুলিই ক্ষতিগ্রস্থ হয়নি, এর সাথে গম্বুজটিও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। ভবনটি পুনরুদ্ধারের জন্য বার্লিন স্মৃতিসৌধ বিভাগের তহবিল প্রাপ্তির পরে, মসজিদটি ১৯৫২ সালে পুনরায় চালু করা সম্ভব হয়েছিল।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Berlin im Jahr 1923
  2. Die Berliner Moschee und Mission der Ahmadiyya-Bewegung zur Verbreitung des Islam (Lahore), S. 12f.
  3. Die Berliner Moschee und Mission der Ahmadiyya-Bewegung zur Verbreitung des Islam (Lahore), S. 12f.
  4. Rizvi, Kishwar (২০১৫)। The transnational mosque : architecture and historical memory in the contemporary Middle Eastআইএসবিএন 978-1-4696-2495-2ওসিএলসি 923254240 
  5. "Reports of renovation work at the Berlin Mosque"www.muslim.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৯ 
  6. Jonker, Gerdien (নভেম্বর ২০০৫)। "The Mevlana Mosque in Berlin-Kreuzberg: An Unsolved Conflict": 1067–1081। আইএসএসএন 1369-183Xডিওআই:10.1080/13691830500282683 

আরও পড়া[সম্পাদনা]

  1. নাথ, আর। (রাম), 1933- (1982- <2005>)। মুঘল স্থাপত্যের ইতিহাস । নয়াদিল্লি: অভিনব। আইএসবিএন ০-৩৯১-০২৬৫০-X আইএসবিএন   0-391-02650-XOCLC   9944798।
  2. ধর্মীয় স্থাপত্য : নৃতাত্ত্বিক দৃষ্টিভঙ্গি । ভারকায়েক, ওসকার,। আমস্টারডাম: আমস্টারডাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস। 2013। আইএসবিএন ৯৭৮-৯০-৪৮৫-১৮৩৪-০ আইএসবিএন   978-90-485-1834-0OCLC   869720783।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]