কালনা সেতু

স্থানাঙ্ক: ২৩°১১′৩৮″ উত্তর ৮৯°৪১′২৮″ পূর্ব / ২৩.১৯৩৮১° উত্তর ৮৯.৬৯১১৭° পূর্ব / 23.19381; 89.69117
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কালনা সেতু
স্থানাঙ্ক২৩°১১′৩৮″ উত্তর ৮৯°৪১′২৮″ পূর্ব / ২৩.১৯৩৮১° উত্তর ৮৯.৬৯১১৭° পূর্ব / 23.19381; 89.69117
বহন করেযানবাহন,
অতিক্রম করেমধুমতি নদী
স্থানগোপালগঞ্জ জেলানড়াইল জেলা
রক্ষণাবেক্ষকবাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ
বৈশিষ্ট্য
উপাদানকংক্রিট স্টিল
মোট দৈর্ঘ্য৬৯০ মিটার (২,২৬০ ফুট)
প্রস্থ২৭.১০ মিটার (৮৮.৯ ফুট)[১]
ইতিহাস
নির্মাণ শেষ২০২২ (আনুমানিক)
চালুডিসেম্বর ২০২২ (আনুমানিক)
অবস্থান

কালনা সেতু বাংলাদেশের দক্ষিনাঞ্চলের গোপালগঞ্জ জেলানড়াইল জেলায় প্রবাহিত মধুমতি নদীতে নির্মাণাধীন একটি ৬ লেন বিশিষ্ট সেতু[২][৩] কাজ শুরু হয় :৫সেপ্টেম্বর ২০১৮ বাজেট :৯৫৯ কোটি ৮৫ লাখ টাকা

দৈর্ঘ্য[সম্পাদনা]

১৪টি পিলারের উপর নির্মাণাধীন সেতুটির দৈর্ঘ্য ৬৯০ মিটার ও প্রস্থ ২৭ দশমিক ১ মিটার। পদ্মা সেতুর চেয়েও ২ লেন বেশি নির্মাণাধীন সেতুর মাঝখানের ৪টি লেন দিয়ে সার্বক্ষণিক ভারী যানবাহন চলাচল করবে এবং সেতুর দুই পাশের দু’টি লেন দিয়ে রিকশা-ভ্যান-ইজিবাইক ও মোটরসাইকেলসহ নানান প্রকার যানবাহন চলাচল করবে।[৪]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৫ সালের ২৪ জানুয়ারি সেতুটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। আর ২০১৮ সালের ৩০ অক্টোবর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন।[৫] সেতুটির কাজ শেষ পর্যায়ে, ২০২২ সালের জুনে চালুর আশা করা হচ্ছে। [৬]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের সেতুর তালিকা

তথ্যসুত্র[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:সুত্র তালিকা

  1. কাজ শেষ পর্যায়ে, জুনে চালুর আশা, প্রথম আলো, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২২
  2. "দেশের প্রথম ৬ লেন সেতু হচ্ছে গোপালগঞ্জে"SAMAKAL (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৩-১৫ 
  3. "নড়াইলবাসীর স্বপ্নের কালনা সেতুর নির্মান কাজ এগিয়ে চলছে"www.rbtvnews.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৩-১৫ 
  4. "ছয় লেনের সেতু হচ্ছে কালনায়"m.mzamin.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৩-১৫ 
  5. মিসেল, কামাল আতাতুর্ক। "মধুমতিতে ৬ লেনের সেতু"DailyInqilabOnline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৩-১৫ 
  6. কাজ শেষ পর্যায়ে, জুলাইতে চালুর আশা করা হচ্ছে, প্রথম আলো, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২২