এরিক মার্ক্স

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এরিক মার্ক্স
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামওয়াল্ডমার ফ্রেডরিক এরিক মার্ক্স
জন্ম(১৮৯৫-০৭-০৪)৪ জুলাই ১৮৯৫
জোহানেসবার্গ, ট্রান্সভাল
মৃত্যু২ জুন ১৯৭৪(1974-06-02) (বয়স ৭৮)
ডারবান, নাটাল, দক্ষিণ আফ্রিকা
ব্যাটিংয়ের ধরনবামহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম-পেস
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৯৭)
৫ নভেম্বর ১৯২১ বনাম অস্ট্রেলিয়া
শেষ টেস্ট২৬ নভেম্বর ১৯২১ বনাম অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা
রানের সংখ্যা ১২৫ ৬৫৬
ব্যাটিং গড় ২০.৮৩ ৪১.০০
১০০/৫০ ০/০ ২/১
সর্বোচ্চ রান ৩৬ ২৪০
বল করেছে ২২৮ ৭৮০
উইকেট ১৩
বোলিং গড় ৩৬.০০ ৩০.৮৪
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৩/৮৫ ৩/৮৫
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/- ২/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৫ মে, ২০২০

ওয়াল্ডমার ফ্রেডরিক এরিক মার্ক্স (ইংরেজি: Eric Marx; জন্ম: ৪ জুলাই, ১৮৯৫ - মৃত্যু: ২ জুন, ১৯৭৪) ট্রান্সভালের জোহেন্সবার্গ এলাকায় জন্মগ্রহণকারী দক্ষিণ আফ্রিকান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯২১ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটে ট্রান্সভাল দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ বামহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে মিডিয়াম-পেস বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন এরিক মার্ক্স

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯২০-২১ মৌসুম থেকে ১৯২১-২২ মৌসুম পর্যন্ত এরিক মার্ক্সের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। হঠাৎ আলোর ঝলকানির ন্যায় তার আবির্ভাব ঘটেছিল। জোহেন্সবার্গে জন্মগ্রহণকারী এরিক মার্ক্স ইংল্যান্ডের ম্যালভার্ন কলেজে পড়াশুনো করেছেন।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট অভিষেকে ২৪০ রান তুলে ৭০ বছর বিশ্বরেকর্ডের মর্যাদাপ্রাপ্ত হন। ডিসেম্বর, ১৯২০ সালে ট্রান্সভালের সদস্যরূপে গ্রিকুয়াল্যান্ড ওয়েস্টের বিপক্ষে এ সংগ্রহ করেন।[১] ব্যাটিং উদ্বোধনে নেমে ৩৯ চার ও একটি ছক্কা সহযোগে মাত্র ২২৫ মিনিট খরচ করে এ রান তুলেন। ১৬ ডিসেম্বর প্রথম দিনে ট্রান্সভাল দল গ্রিকুয়াল্যান্ড ওয়েস্টকে ১৪১ রানে গুটিয়ে দেয়। এরপর ৪৫৯/৯ তুলে ইনিংস ঘোষণা করে। সব মিলিয়ে একদিনে ছয় বলে গড়া ১২১.৩ ওভারে ৫৯৮ রান উঠে ১৯ উইকেটের বিনিময়ে।[২] ঐ মৌসুমের কারি কাপ প্রতিযোগিতায় আরও একটি সেঞ্চুরি করেছিলেন।

পরের তিন খেলায় তিনি ব্যাটিং ও বোলিং - উভয় ক্ষেত্রেই উদ্বোধন করেছিলেন। অরেঞ্জ ফ্রি স্টেটের বিপক্ষে আরও একটি সেঞ্চুরি করেন তিনি। উদ্বোধনী দিনেই ১৬ উইকেটের পতন ঘটে ও ৬৪৫ রান সংগৃহীত হয়।[৩] ২৫.৪২ গড়ে ৭ উইকেট পান তিনি।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে তিনটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন এরিক মার্ক্স। সবগুলো টেস্টই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খেলেছিলেন তিনি। ৫ নভেম্বর, ১৯২১ তারিখে ডারবানে সফরকারী অস্ট্রেলিয়া দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ২৬ নভেম্বর, ১৯২১ তারিখে একই দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

১৯২১-২২ মৌসুমে অস্ট্রেলিয়া দল দক্ষিণ আফ্রিকা গমনে আসে। এ পর্যায়ে ট্রান্সভালের সদস্যরূপে সফররত দলের বিপক্ষে ৬৫ রান তুলেন ও দলের পক্ষে এ সংগ্রহটি সর্বোচ্চ ছিল। ছয় নম্বরে নেমে এ সংগ্রহ গড়েছিলেন। সিরিজের তিন টেস্টে অংশ নেন তিনি। মাঝারিসারিতে ব্যাটিংয়ে নামেন ও বোলিং উদ্বোধন করেন। তবে, কেবলমাত্র সাধারণমানের সফলতা পেয়েছিলন তিনি। জোহেন্সবার্গে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় টেস্টে সবচেয়ে ভালো খেলেন। ৩৬ ও ২৪ রানের পাশাপাশি তিন উইকেট পান।[৪]

অবসর[সম্পাদনা]

ডিসেম্বর, ১৯২১ সালে ট্রান্সভালের পক্ষে আরও একটি খেলায় অংশ নেন। তার প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট খেলোয়াড়ী জীবন মাত্র ১২ মাসের অধিক সময় চলমান ছিল। এরপর, ইস্ট র‍্যান্ড এলাকার খনিতে কাজের সন্ধানে চলে যান। কিন্তু, খনি ব্যবস্থাপক তাকে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে খেলার জন্য সময় প্রদানে অপারগতা প্রকাশ করেন।[৫]

২ জুন, ১৯৭৪ তারিখে ৭৮ বছর বয়সে নাটালের ডারবান এলাকায় এরিক মার্ক্সের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Wisden 1995, p. 1234.
  2. Transvaal v Griqualand West, 1920-21
  3. Transvaal v Orange Free State, 1920-21
  4. South Africa v Australia, Johannesburg 1921-22
  5. Denys Heesom, "Forgotten? W.F.E. Marx Rediscovered", Cricketer, November 1974, p. 33. Heesom, who met Marx, referred to him as Wally, not Eric.

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]