এন্ডোপ্লাজমিক রেটিকুলাম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
1 নিউক্লিয়াস   2 নিউক্লিয়ার রন্ধ্র   3 অমসৃণ এন্ডোপ্লাজমিক রেটিকুলাম    4 মসৃণ এন্ডোপ্লাজমিক রেটিকুলাম    5 রাইবোসোম,অমসৃণ এন্ডোপ্লাজমিক রেটিকুলামে   6 আমিষ ,পরিবাহিত   7 পরিবাহিত ভেসিকল    8 গলগি বস্তু    9 সম্মুখ দিকে গলগি বস্তু    10 বিপরীত দিকে গলগি বস্তু    11 গলগি বস্তুর সিস্টারনি

এন্ডোপ্লাজমিক রেটিকুলাম কোষের সাইটোপ্লাজমে অবস্থিত একপ্রকার জালিকাকার অঙ্গাণু। এরা একক আবরণী ঝিল্লি দ্বারা বেষ্টিত অসংখ্য সূক্ষ সূক্ষ নালিকা এবং পরস্পর সংযোগ স্থাপন করে একটি জালকের সৃষ্টি করে। ১৯৪৫ সালে পর্টার (PORTER) যকৃত কোষে এন্ডোপ্লাজমিক রেটিকুলাম আবিষ্কার করেন।

এন্ডোপ্লাজমিক রেটিকুলাম শুধু মাত্র সুকেন্দ্রিক কোষে পাওয়া যায়।

অবস্থান[সম্পাদনা]

এরা সাইটোপ্লাজমে অবস্থান করে।

উত্পত্তি[সম্পাদনা]

সাইটোপ্লাজমীয় ঝিল্লি, নিউক্লীয় ঝিল্লি অথবা কোষঝিল্লি হতে এদের উৎপওি হয়।

আকার ও গঠন[সম্পাদনা]

গঠনগতভাবে এরা তিন প্রকার; যথা- (ক) সিস্টারনিঃ এরা দেখতে চেপ্টা,শাখাহীন ও লম্বা চৌবাচ্চার মতো। সাইটোপ্লাজমে পরস্পর সমান্তরালে বিন্যস্ত থাকে। এগুলো ৪০-৫০ মিলি মাইক্রন পুরু। এদের গায়ে অনেক সময় রাইবোসোম যুক্ত থাকে। (খ) ভেসিকলঃ এগুলো বরতুলাকার ফোস্কার মতো। ২৫-৫০ মিলি মাইক্রন ব্যাস যুক্ত। (গ) টিউবিউলঃ এগুলো নালিকার মতো,শাখানিত বা অশাখ। এদের ব্যাস ৩-১৯০ মিলি মাইক্রন।

কাজ[সম্পাদনা]

ক. সাইটোপ্লাজমকে ছোট ছোট অংশে ভাগ করা।

খ. প্রোটিন সংশ্লেষণে ভূমিকা পালন করে।

গ. মসৃণ এন্ডোপ্লাজমিক রেটিকুলাম স্নেহপদার্থ উত্পাদন করে।

ঘ. ক্যালসিয়াম, ও অন্যন্য আহিত কণাদের সঞ্চয় ও দরকারমত নিঃসরণ (যেমন পেশী সঞ্চালনে)।

ঙ. কিছু রেচনপদার্থের পরিশোধন.

চ. এটি প্রোটোপ্লাজমের কাঠামো হিসেবে কাজ করে ।

ছ. এটি লিপিড ও প্রোটিন এর অন্তঃবাহক হিসেবে কাজ করে।

জ. রাইবোসোম, গ্লাইঅক্সিসোমের ধারক হিসেবে কাজ করে।