উইলি কুয়েইফ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
উইলি কুয়েইফ
Willie Quaife c1905.jpg
আনুমানিক ১৯০৫ সালে উইলি কুয়েইফ
ব্যক্তিগত তথ্য
জন্ম(১৮৭২-০৩-১৭)১৭ মার্চ ১৮৭২
নিউহ্যাভেন, পূর্ব সাসেক্স, ইংল্যান্ড
মৃত্যু১৩ অক্টোবর ১৯৫১(1951-10-13) (বয়স ৭৯)
এজবাস্টন, বার্মিংহাম, ইংল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনলেগ ব্রেক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৭১৯
রানের সংখ্যা ২২৮ ৩৬০১২
ব্যাটিং গড় ১৯.০০ ৩৫.৩৭
১০০/৫০ -/১ ৭২/১৬৩
সর্বোচ্চ রান ৬৮ ২৫৫*
বল করেছে ১৫ ৫২০৮০
উইকেট ৯৩১
বোলিং গড় ২৭.৩২
ইনিংসে ৫ উইকেট ৩২
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৭/৭৬
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৪/- ৩৫৪/১
উৎস: ক্রিকইনফো, ২৫ নভেম্বর ২০১৮

উইলিয়াম জর্জ উইলি কুয়েইফ (ইংরেজি: Willie Quaife; জন্ম: ১৭ মার্চ, ১৮৭২ - মৃত্যু: ১৩ অক্টোবর, ১৯৫১) পূর্ব সাসেক্সের নিউহ্যাভেন এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকা ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৮৯৯ থেকে ১৯০২ সময়কালে ইংল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে সাসেক্স ও ওয়ারউইকশায়ারের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ অল-রাউন্ডার হিসেবে খেলতেন। ডানহাতে ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি লেগ ব্রেক বোলিংয়ে দক্ষতা প্রদর্শন করেছেন উইলি কুয়েইফ

কাউন্টি ক্রিকেট[সম্পাদনা]

নির্ভরযোগ্য ও দৃঢ়প্রত্যয়ী ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তুলতেন। সাসেক্সের পক্ষে একটি খেলায় অংশগ্রহণ করেন। এরপর জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা ওয়াল্টার কুয়েইফের সাথে ১৮৯৪ সালে ওয়ারউইকশায়ারে চলে যান। অভিষেক খেলাতেই সেঞ্চুরি করেন তিনি। এর ৩৫ বছর পর ৫৬ বছর বয়সে ১৯২৮ সালে কাউন্টি দলটির পক্ষে সর্বশেষ খেলায় আরও একটি করেন। এ সময়কালে ছত্রিশ হাজারেরও অধিক রান তুলেন ও আরও ৭০টি সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি। লেগ ব্রেক বোলিং করে নয় শতাধিক উইকেট লাভ করেন। খেলোয়াড়ী জীবনের শুরুতে তার বোলিং সন্দেহজনক ছিল। ২৫ মৌসুমে সহস্রাধিক রান তুলেন। শীর্ষস্থানীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে ১৯১১ সালে প্রথমবারের মতো ওয়ারউইকশায়ারকে কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা বিজয়ে নেতৃত্ব দেন। সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে ৩৬,০১২ রান সংগ্রহ করেন। এরফলে সর্বকালের সেরা রান সংগ্রহকারীদের তালিকায় তিনি ৩৬তম স্থানে রয়েছেন।

ঘরোয়া ক্রিকেটে অসামান্য ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শনের স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯০২ সালে উইজডেন কর্তৃক অন্যতম বর্ষসেরা ক্রিকেটারের সম্মাননায় ভূষিত হন উইলি কুয়েইফ।[১]

টেস্ট ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে মাত্র সাত টেস্টে অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছেন উইলি কুয়েইফ। ১৮৯৯ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম দুই টেস্টে অংশ নেন। ২৯ জুন, ১৮৯৯ তারিখে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে উইলি কুয়েইফের। এরপর ১৯০১-০২ মৌসুমে আর্চি ম্যাকলারেনের নেতৃত্বে ইংরেজ দল অস্ট্রেলিয়া গমন করে। ঐ অ্যাশেজ সিরিজের পাঁচ টেস্টের সবকটিতে অংশগ্রহণ ছিল তার। তবে, এ সফরে খুব কমই সফলতা পেয়েছেন। কেবলমাত্র অ্যাডিলেডে অনুষ্ঠিত সিরিজের তৃতীয় টেস্টে ৬৮ ও ৪৪ রান করতে পেরেছিলেন।

ডব্লিউ. জি. গ্রেসের নেতৃত্বাধীন লন্ডন কাউন্টির পক্ষেও অংশ নিয়েছেন তিনি। ১৯১২-১৩ মৌসুমে দক্ষিণ আফ্রিকান ঘরোয়া ক্রিকেটে গ্রিকুয়াল্যান্ড ওয়েস্টের পক্ষে খেলেছেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে উইলি কুয়েইফকে ডব্লিউ. জি. কুয়েইফ নামে ডাকা হতো। ১৯৫২ সালে উইজডেন কর্তৃপক্ষ তার স্মরণীকায় উইলিয়াম জর্জ কুয়েইফ নামে উল্লেখ করে। মূলতঃ তার ভাইয়ের নাম থেকে পৃথক রাখতেই মধ্যনাম তুলে ধরা হয়।

উইলি কুয়েইফ স্বীয় সন্তান বার্নার্ড কুয়েইফের সাথে বাইশটি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় একযোগে অংশ নিয়েছেন। ১৯২২ সালে ডার্বিতে একবার ডার্বিশায়ারের বিপক্ষে বিলি বেস্টউইকরবার্ট বেস্টউইক পিতা-পুত্রের মুখোমুখি হয়েছিলেন। ঐ একই খেলায় স্মার্ট ভ্রাতৃদ্বয় - জ্যাক স্মার্টসিরিল স্মার্ট ওয়ারউইকশায়ারের পক্ষে খেলেছেন।

খেলোয়াড়ী জীবন থেকে অবসর গ্রহণের পর তিনি ক্রিকেট ব্যাট নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান গঠন করেন। ১৩ অক্টোবর, ১৯৫১ তারিখে ৭৯ বছর বয়সে বার্মিংহামের এজবাস্টনে উইলি কুয়েইফের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Wisden's Five Cricketers of the Year"ESPNcricinfoESPN। ২৩ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ এপ্রিল ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]