আলাপ:অর্থনীতি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

অর্থনীতি এবং অর্থশাস্ত্র[সম্পাদনা]

ইংরেজিতে Economy এবং Economics নামের দুটো আলাদা ধারণা আছে। Economy হচ্ছে অর্থনীতি, তথা কোন অর্থনৈতিক ব্যবস্থা। আর Economics হচ্ছে সামাজিক বিজ্ঞানের যে শাখায় Economy নিয়ে আলোচনা করা হয়। Economics-এর বাংলাও কেউ কেউ অর্থনীতি করে থাকেন, যেমন এই নিবন্ধের শিরোনামে করা হয়েছে। কিন্তু এটা দুটো ব্যাপারকে গুলিয়ে ফেলে। অনেক লেখক Economics-এর বাংলা প্রতিশব্দ হিসেবে অর্থনীতির পরিবর্তে অর্থশাস্ত্র ব্যবহার করেন। আমার মতেও অর্থশাস্ত্র ব্যবহার করাটাই বেশি সমীচীন। ইংরেজি উইকিপিডিয়াতে en:Economyen:Economics --- এই দুইটি আলাদা নিবন্ধে আলোচিত হয়েছে। একই ভাবে বাংলা উইকিপিডিয়াতেও এই দুইটি যথাক্রমে অর্থনীতি এবং অর্থশাস্ত্র এই দুইটি শিরোনামের নিবন্ধে আলোচিত হওয়া উচিত। --অর্ণব (আলাপ | অবদান) ০৮:৪৫, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ (UTC)


আভিধানিক ভাবে যাই হোক, ব্যবহারিক প্রয়োগে Economics = অর্থনীতি -- এটাই ব্যবহৃত হয়। উদাহরণ স্বরূপ বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের "অর্থনীতি বিভাগ" এর উদাহরণ দিচ্ছি। কোনো কলেজে বা বিশ্ববিদ্যালয়ে কি "অর্থশাস্ত্র" বিভাগ রয়েছে? --রাগিব (আলাপ | অবদান) ০৯:১৯, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ (UTC)

ব্যবহারিক প্রয়োগ আর academic বিশ্বকোষীয় প্রয়োগের মধ্যে পার্থক্য আছে। কলেজ/বিশ্ববিদ্যালয়ে "অর্থনীতি" বিভাগ আছে এটা ঠিক; এটা হয়ত বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভাগীয় নামকরণের একটি রীতি। কিন্তু বিজ্ঞানটির নাম হিসেবে পাঠ্যপুস্তকে "অর্থশাস্ত্র" ব্যবহৃত হয়। উদাহরণস্বরূপ, বাংলাদেশের উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের আনিসুর রহমানের লেখা অত্যন্ত জনপ্রিয় পাঠ্যপুস্তকের নাম "অর্থশাস্ত্র পরিচয়"। বইটা ১৯৭৭ সাল থেকে প্রকাশিত হয়ে আসছে। পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের গবেষক অনিন্দ্য ভুক্ত রচিত অভিধানটির নাম "অর্থশাস্ত্র অভিধান"। আবার বাংলাদেশ থেকে অর্থনীতি বিষয়ক একটি পূর্ণাঙ্গ অভিধান ২০০৬ সালে প্রথম প্রকাশিত হয় ("অর্থনীতি অভিধান"), যেখানে লেখক তাহমিলুর রহমান Economics-এর বাংলা পরিভাষা দিয়েছেন অর্থশাস্ত্র, সাথে এই যুক্তি দিয়েছেন যে (পৃ ২৮৭ থেকে): 'Economics' এবং 'Economy' শব্দ দুটি যেহেতু সম-অর্থ বহন করে না, সেহেতু শব্দ দুটির জন্য পৃথক পরিভাষা ব্যবহার করা হল।" --অর্ণব (আলাপ | অবদান) ১১:০৮, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ (UTC)

শব্দ দুটির systematic প্রয়োগ নিচের উদাহরণ থেকে আরও স্পষ্ট হবে। Economy of Bangladesh = বাংলাদেশের অর্থনীতি Economy of X = X-এর অর্থনীতি কিন্তু Economics = অর্থশাস্ত্র

অর্থাৎ অর্থশাস্ত্রের অন্তর্ভুক্ত বিষয়বস্তু হল অর্থনীতি। কেউ যদি বিষয়বস্তুর উপর ভিত্তি করে বলে তিনি অর্থনীতি পড়ছেন, তিনি কোন ভুল করবেন না। সমাজবিজ্ঞানের ছাত্র সমাজ নিয়ে পড়াশোনা করেন, তেমনি অর্থশাস্ত্রের ছাত্র অর্থনীতি নিয়ে পড়াশোনা করেন। কিন্তু একটা রেফারেন্স বিশ্বকোষে এই জ্ঞানের ক্ষেত্র এবং তাতে অন্তর্গত বিষয়বস্তুর মধ্যে দ্ব্যর্থতা-দূরকারী সীমারেখা থাকা প্রয়োজন। অর্থনীতির অনেক বইতেই এই অর্থশাস্ত্র/অর্থনীতি সীমারেখা টানা হয়েছে, যার কয়েকটা উদাহরণ উপরে দিয়েছি। --অর্ণব (আলাপ | অবদান) ১১:১৬, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ (UTC)

চাহিদা রেখা চিত্র[সম্পাদনা]

চাহিদা রেখা চিত্রটি একটু বড় হয়ে গেল,এটাকে একটু সাইজমত করে দেবেন :) জোগান রেখাটি তাই আর এখনি দিলাম না Falsegeek (আলাপ) ০৮:৫৪, ৪ জানুয়ারি ২০১১ (ইউটিসি)

বর্জিত অংশ সংরক্ষণ[সম্পাদনা]

কিছু অংশ নিবন্ধ থেকে কেটে এখানে সংরক্ষণ করা হলো। এগুলো micro concepts যা বর্তমান নিবন্ধের scope=-এর বাইরে বলে প্রতীয়মান হয়। এ রকম হাজার concepts রয়েছে যা ভিন্ন ভিন্নভাবে আলোচনা করাই সমীচীন। একটি নিবন্ধে এরকম হাজারটা concepts অন্তর্ভুক্ত করার সুযোগ নেই।

চাহিদা ও যোগান[সম্পাদনা]

চাহিদা বিধি

চাহিদা ও যোগান তত্ত্ব একটি কাঠামোগত যা দ্রব্যের দাম ও পরিমাণ নিয়ে আলোচনা করে এবং বাজার অর্থনীতিতে এর প্রতিক্রিয়া নিয়ে আলোচনা করে। সামষ্টিক অর্থনীতি তত্ত্বসমূহে একটি প্রতিযোগিতামুলক বাজারে দ্রব্যের দাম ও পরিমাণ নির্ণয়ে ইহা ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ইহা একটি বাজার গঠনে অন্য বাজারের কাঠামো ও তত্ত্বগত আচরণের উপর নির্ভর করে স্তম্ভের মত কাজ করে।

একটি দ্রব্যের বিদ্যমান বাজারে দ্রব্যের পরিমাণ নির্ভর করে তার চাহিদার উপর যেখানে সকল ক্রেতা দ্রব্যটির প্রতিটি একক মূল্যে ক্রয়ের জন্য প্রস্তুত থাকে। চাহিদা মূলতঃ একটি টেবিল বা একটি চিত্রের প্রতিফলন যা দ্রব্যের দাম ও পরিমাণের সাথে সম্পর্কযুক্ত (চিত্রটি লক্ষ করুন)। চাহিদা তত্ত্ব আলোচনা করে যে, ভোক্তা বিদ্যমান আয়, দাম, পছন্দ ইত্যাদিতে যৌক্তিকভাবে প্রতিটি দ্রব্যের বিভিন্ন পরিমাণ পছন্দ করবে। এক্ষেত্রে 'উপযোগ সর্বোচ্চকরণ প্রতিবন্ধক' শব্দটি ব্যবহৃত হয় (চাহিদার জন্য আয় একটি প্রতিবন্ধক)। এখানে 'উপযোগ' প্রতিটি ভোক্তার পছন্দের সাথে সম্পর্কযুক্ত। উপযোগ এবং আয় অণুসিদ্ধান্তমূলক বৈশিষ্ট্যের মডেলে দ্রব্যের দামের পরিবর্তনে চাহিদার পরিবর্তন নির্ণয়ে ব্যবহার করা হয়। চাহিদা তত্ত্বে বলা হয় যে, একটি বিদ্যমান বাজারে সাধারণত দাম ও চাহিদা বিপরীত সম্পর্কযুক্ত। অন্যভাবে বলা যায় যে, দ্রব্যের দাম বৃদ্ধি পেলে কম ভোক্তার ক্রয় ক্ষমতা ও ক্রয়ের ইচ্ছা থাকবে (অন্যান্য সব কিছু অপরিবর্তিত থেকে)। দ্রব্যের দাম বৃদ্ধি পেলে ক্রেতার ক্রয় ক্ষমতা হ্রাস পায় (আয় প্রভাব) এবং ভোক্তা কম মূল্যের পরিবর্তিত দ্রব্যের দিকে ঝুঁকবে (পরিবর্তক প্রভাব)। অন্যান্য উপাদানও চাহিদার উপর প্রভাব ফেলে; উদাহরণস্বরূপ বলা যায় যে, আয় বৃদ্ধি পেলে চাহিদা রেখা মূলবিন্দু থেকে দূরে সরবে।

যোগান হচ্ছে দ্রব্যের দাম ও ঐ দামে বিক্রেতার কাছে থাকা দ্রব্যের পরিমাণের মধ্যে সম্পর্ক। যোগান মূলতঃ একটি টেবিল বা একটি চিত্রের প্রতিফলন যা দ্রব্যের দাম ও সরবরাহকৃত পরিমাণের সাথে সম্পর্কযুক্ত । উৎপাদক মূনাফা সর্বোচ্চকরণ অণুসিদ্ধান্ত গ্রহণ করে,যার অর্থ উৎপাদক সেই পরিমাণ দ্রব্য উৎপাদন করবে যা তার মূনাফা সর্বোচ্চ করবে। যোগান মূলতঃ দাম ও সরবরাহকৃত দ্রব্যের পরিমাণের অণুপাত (অন্যান্য সব কিছু অপরিবর্তিত থেকে)। অন্যভাবে বলা যায় যে, দ্রব্যটির সর্বোচ্চ দামে বিক্রয় করা যাবে, বেশির ভাগ উৎপাদক সেই পরিমাণ দ্রব্য সরবরাহ করে। দাম বৃদ্ধি দ্রব্যের মূনাফা বাড়িয়ে উৎপাদন বৃদ্ধি করবে। ভারসাম্যের কম দামে দ্রব্যের চাহিদার তুলনায় সরবরাহের পরিমাণ কম থাকবে। ইহা দাম বৃদ্ধি করবে। ভারসাম্যের বেশি দামে দ্রব্যের চাহিদার তুলনায় দ্রব্যের সরবরাহের পরিমাণ বেশি থাকবে। ইহা দাম কমাবে। চাহিদা ও যোগান মডেলে চাহিদা ও যোগান রেখায় নির্ধারিত হয়, দাম ও পরিমাণ স্থির হবে একটি দামে যেখানে দ্রব্যের চাহিদা ও যোগান সমান হবে। ইহা চিত্রে দুটি রেখার পরস্পর ছেদ বিন্দু, যাকে বাজার ভারসাম্য বলা হয়।

একটি দ্রব্যের বিদ্যমান পরিমাণ চাহিদা রেখায় দাম বিন্দুতে দাম নির্দেশিত হবে বা দ্রব্যের সেই পরিমাণে ভোক্তার প্রান্তিক উপযোগ নির্দেশিত হবে। ইহা দ্রব্যটির উল্লিখিত পরিমাণে কি পরিমাণ খরচ করতে প্রস্তুত আছে তা পরিমাপ করে। যোগান রেখায় দাম বিন্দু প্রান্তিক খরচ নির্ণয় করে অর্থাৎ সেই পরিমাণ দ্রব্য উৎপাদনে উৎপাদকের মোট ব্যয় বৃদ্ধি নির্ণয় করে। চাহিদা ও যোগান ভারসাম্য দাম নির্ধারণ করে। একটি পূর্ণ প্রতিযোগিতামূলক বাজারে চাহিদা ও যোগান ভারসাম্য অবস্থায় উৎপাদন খরচ ও দাম সমান করে।

চাহিদা ও যোগান উৎপাদনের উপাদানের মধ্যে আয়ের বণ্টন তত্ত্বে ব্যবহার করা হয়, যেখানে বাজার উপাদানের মাধ্যমে শ্রম ও বিনিয়োগকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। শ্রম বাজারের উদাহরণস্বরূপ বলা যায় যে, নিয়োগকৃত শ্রমিকের পরিমাণ ও শ্রমের দাম শ্রমের চাহিদা (উৎপাদকের ক্ষেত্রে) এবং শ্রমের সরবরাহ (শ্রমিকের ক্ষেত্রে) নির্ধারণ করবে।

চাহিদা ও যোগান পূর্ণ প্রতিযোগিতামূলক বাজারের আচরণ ব্যাখ্যা করে, কিন্তু বিভিন্ন প্রকার বাজারের কার্যক্রম বৃদ্ধির জন্য ইহার প্রয়োজনীয়তা আদর্শ হিসেবে কাজ করে। চাহিদা ও যোগান বাজার অর্থনীতিতে সামষ্টিক অর্থনীতির চলকসমূহ ব্যাখ্যাও করে, যেমন দ্রব্যের মোট পরিমাণ ও সাধারণ মূল্যস্তর।

মূল্য ও পরিমাণ[সম্পাদনা]

চাহিদা ও যোগান বিশ্লেষনে দাম (দ্রব্য বিনিময়ের হার) উৎপাদন ও ভোগের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে। দাম ও পরিমাণকে বাজার ব্যবস্থা উন্নয়নের জন্য সবচাইতে বেশী প্রতক্ষ পর্যবেক্ষণ চলক হিসেবে ব্যবহার করা হয়। যোগান, চাহিদা ও বাজার ভারসাম্য তত্ত্বভাবে দাম ও দ্রব্যের পরিমাণের সহিত সম্পর্কযুক্ত। কিন্তু দাম ও চাহিদা পরিবর্তনের পরিমাপে উপাদানের প্রভাব নির্ণয় করা হয় -- তাদের মাধ্যমে, দাম ও পরিমাণ—ফলিত ব্যষ্টিক অর্থনীতি ও সামষ্টিক অর্থনীতিতে আদর্শ চলক হিসেবে ব্যবহার করা হয়। অর্থনৈতিক তত্ত্বসমুহ বিদ্যমান পরিমাণে দাম কি হবে তা নির্ধারণ করে। বাস্তবিকপক্ষে, দাম ও পরিমাণের পরিবর্তনের ফলে যোগান ও চাহিদা কতটুকু পরিবর্তন হবে তা নির্ণয় করার চেষ্টা করা হয়।

চাহিদা ও যোগান তত্ত্ব ভারসাম্য নির্ণয় করে কিন্তু চাহিদা ও যোগানের পরিবর্তনে ভারসাম্য কি গতিতে পরিবর্তিত হয়ে তা নির্ধারিত হবে তা পারেনা। অনেক ক্ষেত্রে, 'দামের স্থিরতা' এর বিভিন্ন কাঠামো দামের চাইতে চাহিদা ও যোগানের পরিবর্তনে স্বল্পকালে দ্রব্যের পরিমাণ নির্ধারণে অগ্রণী ভুমিকা পালন করে। ইহা সামষ্টিক অর্থনীতিতে বাণিজ্য চক্র বিশ্লেষনে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। দাম স্থিরতার প্রভাব সমাধানে কখনও কখনও বিশ্লেষন করা হয় এবং দীর্ঘমেয়াদী ভারসাম্যের অনূসিদ্ধান্ত ইহা প্রতিবন্ধকতা হিসাবে ধরা হয়। উদাহরন হিসেবে বলা যায় যে,একটি বাজারের দাম স্থিরতা শ্রম বাজারের শ্রম হারকে অন্তর্ভুক্ত করে এবং পূর্নপ্রতিযোগিতা মূলক বাজার থেকে ঐ বাজারে সরবরাহ করে।

অর্থনীতির অন্যান্য ক্ষেত্রে সকল সামাজিক ব্যয় ও মুনাফা গননা করার জন্য বাজার বিশ্লেষন করা হয়। কখনও কখনও বাহ্যিকতা শব্দটি উৎপাদন ও ভোগ হতে সামাজিক ব্যয় ও মুনাফা সৃষ্টির ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয় যা বাজার মূল্য থেকে প্রতিফলিত হয়। উদাহরন হিসেবে বলা যায় যে, বায়ু দূষন ঋনাত্বক বাহ্যিকতা সৃষ্টি করে এবং শিক্ষা ধনাত্বক বাহ্যিকতা সৃষ্টি করে। দ্রব্য বিক্রিয়ে সরকারী কর এবং অন্যান্য প্রতিবন্ধক সমূহ ঋনাত্বক বাহ্যিকতা এবং ভূর্তকি ও অন্যান্য সূবিধা সমুহ দ্রব্য ক্রয়ের ক্ষেত্রে ধনাত্বক বাহ্যিকতা সৃষ্টি করে সঠিক দাম নির্ধারণের চেষ্টা করা হয়।

প্রান্তিকতা[সম্পাদনা]

প্রান্তিক অর্থনৈতিক তত্ত্বে আয় ও সম্পদকে প্রতিবন্ধক বিষয় ধরে ভোক্তা অধিক পছন্দ অবস্থানে পৌঁছতে চেষ্টা করে, তা নিয়ে বিশ্লেষন করা হয়। ইহা উৎপাদক তাদের নিজস্ব প্রতিবন্ধক ( ভালো পণ্যের চাহিদা, প্রযুক্তি এবং উপাদান মূল্য)কে বিষয় ধরে মূনাফা সর্বোচ্চ করতে চেষ্টা করে, তা নিয়েও আলোচনা করে। তাই একজন ভোক্তার একটি দ্রব্যের দামের বিপরীতে প্রান্তিক উপযোগ যখন শুন্য হয়, সেই বিন্দুতে ঐ ভোগপন্যের উৎপাদন বৃদ্ধি থেমে যায়। একই ভাবে একজন উৎপাদক প্রান্তিক আয় ও প্রান্তিক ব্যয় তুলনা করে, যাকে প্রান্তিক মূনাফা বলা হয়। যে বিন্দুতে প্রান্তিক মূনাফা শুন্য হয় সেখানে উৎপাদন বৃদ্ধি থেমে যায়। ভারসাম্যের দিকে গমন ও ভারসাম্যের মধ্যে পরিবর্তনের ফলে প্রান্তিক বিন্দুসমূহও পরিবর্তিত হয়, তা কখনও কম-বেশী হতে পারে আবার নাও হতে পারে।

যেকোন অর্থনৈতিক প্রক্রিয়ায় যেখানে দূস্প্রাপ্যতা বিদ্যমান সম্পর্কযুক্ত শর্তসমূহ ও বিবেচ্য বিষয়সমূহ সাধারণ ভাবেই প্রয়োগ করা হয়, তা বাজার নির্ভর হোক কিংবা না হোক। দূস্প্রাপ্যতা বলতে উৎপাদন যোগ্য বা বিনিময় যোগ্য দ্রব্যের পরিমাণ যা প্রয়োজনীয় উৎপাদনে প্রয়োজন কিংবা প্রত্যাশিত। উৎপাদনের ক্ষেত্রে এ ধরনের প্রতিবন্ধকতা এক ধরনের শর্তের ধরন যা বিদ্যমান নির্দিষ্ট সম্পদের করনে তৈরি হয়। এ ধরনের সম্পদ প্রতিবন্ধকতা গুলো উৎপাদন সম্ভাবনার তালিকা হিসেবে বর্ননা করা হয়। ভোক্তা বা অন্য প্রতিনিধির ক্ষেত্রে যদি সম্পদের পূর্ন ব্যবহার করা হয় উৎপাদন সম্ভাবনা ও দূস্প্রাপ্যতার ব্যবধান কমে আসবে, যেমন আয়ের ক্ষেত্রে বেকার সময়, সরকারী পণ্যের জন্য বেসরকারী পণ্য, ভবিষ্যৎ ভোগের জন্য বর্তমান ভোগ। প্রান্তিকতাবাদীরা বাণিজ্য-বন্ধ অবস্থাকে পরিমাপের ক্ষেত্রে সূযোগ ব্যয় এর কথা উল্লেখ করেছেন। এ ধরনের ব্যয়সমূহ বাজার অর্থনীতিতে দামের প্রতিপফলন ঘটায় এবং বাজার অর্থনীতিতে অর্থনৈতিক দক্ষতা বিশ্লেষনে বা বণ্টন ব্যবস্থা পূর্বনির্ধারিত করতে ব্যবহার করা হয়। একটি কেন্দ্রীয় পরিকল্পনা গ্রহনকারী অর্থনীতিতে তুলনামুলক ছায়া-মূল্য সম্পর্ক উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছতে সম্পদের ব্যবহারের দক্ষতা অবশ্যই পরিপূর্ন করতে হবে। এ ধরনের পরিস্থিতিতে প্রান্তিকতাবাদ বিভিন্ন পদ্ধতিতে হাতিয়ার হিসেবে শুধুমাত্র ভোক্তা বা বাজারের ক্ষেত্রেই ব্যবহার হয়না, এমনকি ভিন্ন অর্থনৈতিক প্রক্রিয়া এবং আয়ের বৃহৎ বণ্টন ব্যবস্থায় চলক সমূহের সাথে সম্পর্ক ও তাদের প্রভাব নির্নয়ের ক্ষেত্রেও ব্যবহৃত হয়।