অ্যালান টার্নার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অ্যালান টার্নার
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামঅ্যালান টার্নার
জন্ম (1950-07-23) ২৩ জুলাই ১৯৫০ (বয়স ৬৮)
ক্যাম্পারডাউন, সিডনি, নিউ সাউথ ওয়েলস, অস্ট্রেলিয়া
ব্যাটিংয়ের ধরনবামহাতি
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ২৭৩)
১০ জুলাই ১৯৭৫ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট২৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৭ বনাম নিউজিল্যান্ড
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ৩০)
৭ জুন ১৯৭৫ বনাম পাকিস্তান
শেষ ওডিআই২০ ডিসেম্বর ১৯৭৫ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৬৮-১৯৭৮নিউ সাউথ ওয়েলস
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ১৪ ১০৫ ২১
রানের সংখ্যা ৭৬৮ ২৪৭ ৫,৭৪৪ ৬২৪
ব্যাটিং গড় ২৯.৫৩ ৪১.১৬ ৩০.৮৮ ২৯.৭১
১০০/৫০ ১/৩ ১/০ ৭/৩১ ১/২
সর্বোচ্চ রান ১৩৬ ১০১ ১৫৬ ১০১
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১৫/– ৩/– ৮০/– ৪/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো, ১৬ এপ্রিল ২০১৪

অ্যালান টার্নার (ইংরেজি: Alan Turner; জন্ম: ২৩ জুলাই, ১৯৫০) নিউ সাউথ ওয়েলস প্রদেশের ক্যাম্পারডাউন এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। বামহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে অস্ট্রেলিয়া জাতীয় ক্রিকেট দলের হয়ে টেস্টএকদিনের আন্তর্জাতিকে খেলেছেন। ঘরোয়া ক্রিকেটে সফল হলেও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে তিনি নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারেননি।

জনপ্রিয় ক্রিকেট লেখক পিটার হ্যানলোন তাঁর সম্পর্কে মন্তব্য করেছেন যে, টার্নার ঐশ্বরিক প্রতিষ্ঠানের সাধারণ মানব ছিলেন[১]

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

ক্রিকেট খেলায় সম্পৃক্ত হবার পূর্বে তিনি ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো কোম্পানিতে কাজ করেন। ক্রিকেট খেলা থেকে অবসর নেয়ার পর অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটের শীর্ষস্থানীয় সম্প্রচারক সংস্থা বেনসন এন্ড হেজেস কোম্পানির ম্যানেজার ছিলেন। [২][৩]

১৯৬৮ থেকে ১৯৭৮ সালে অবসর গ্রহণের পূর্ব-পর্যন্ত নিউ সাউথ ওয়েলস ক্রিকেট দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলের ব্যাটিং উদ্বোধন করতে এসে সাড়ে সাত সহস্রাধিক রান সংগ্রহ করেন। ১৯৭৫ থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের হয়ে চৌদ্দটি টেস্ট ও ছয়টি একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশ নেন। শেফিল্ড শিল্ডে বেশ ভাল ক্রীড়ানৈপুণ্য প্রদর্শন করায় তিনি ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য মনোনীত হন। ১৯৭৫-৭৬ মৌসুমে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের বিপক্ষে তিনি তাঁর একমাত্র টেস্ট সেঞ্চুরিটি হাঁকিয়েছিলেন।[২]

ক্রিকেট বিশ্বকাপ, ১৯৭৫[সম্পাদনা]

১৯৭৫ সালের প্রথম ক্রিকেট বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের বিপক্ষে তিনি সেঞ্চুরি করেন। একদিনের আন্তর্জাতিকে এটিই ছিল কোন অস্ট্রেলীয় খেলোয়াড়ের প্রথম সেঞ্চুরি করার কীর্তিগাঁথা।[৩] এছাড়াও এ খেলাটি টার্নারের দ্বিতীয় একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ। তিনি ১১৩ বলে ১০১ রান করেছিলেন।[৪] আউট হবার পূর্বে তিনি সতীর্থ রিক ম্যাককস্কারের সাথে ১৭৮ রানের জুটি গড়েন। তাঁর এই ইনিংসে ৯টি চার ও একটি ছক্কার মার ছিল।[৩][৫]

চূড়ান্ত খেলা ২১ জুন, ১৯৭৫ তারিখ লর্ডসে অণুষ্ঠিত চূড়ান্ত খেলায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের ২৯২ রানের লক্ষ্যমাত্রায় তাঁর ৫৪ বলে ৪০ ও অস্ট্রেলীয় অধিনায়ক ইয়ান চ্যাপেলের ৯৩ বলে ৬২ রান সংগ্রহ করলেও ১৭ রানের ব্যবধানে পরাজয়ের ফলে প্রথম বিশ্বকাপের শিরোপা লাভ করা থেকে বঞ্চিত হয় অস্ট্রেলীয় দল।[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Atherton, Michael (ফেব্রুয়ারি ২০১২)। Bordiss, Andrew, সম্পাদক। "How the other half lives"। The Cricketer। The Cricketer Publishing Ltd। 9 (5): 84। আইএসএসএন 1740-9519 
  2. Williamson, Martin। "Player Profile: Alan Turner"ESPNcricinfo। ESPN। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জানুয়ারি ২০১২ 
  3. Daffey, Paul (২৪ মার্চ ২০০৭)। "Alan Turner's century, 1975 World Cup"The Age। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জানুয়ারি ২০১২ 
  4. "Statistics / Statsguru / A Turner / One-Day Internationals"CricInfo। ESPN। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জানুয়ারি ২০১২ 
  5. "Match Scorecard"CricInfo। ESPN। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জানুয়ারি ২০১২ 
  6. "The Prudential World Cup Final, 1975"Wisden Cricketers' AlmanackESPN। সংগ্রহের তারিখ ৯ জানুয়ারি ২০১২  Authors list-এ |প্রথমাংশ1= এর |শেষাংশ1= নেই (সাহায্য)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]


পূর্বসূরী
ইয়ান চ্যাপেল
ওডিআই ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়ার সর্বোচ্চ রানসংগ্রহকারী
১০১ ব শ্রীলঙ্কা, ওভাল, ১৯৭৫
উত্তরসূরী
গ্রেগ চ্যাপেল