অস্টিওপোরোসিস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

অস্টিওপোরোসিস বা অস্টিওপোরেসিস (ইংরেজি: Osteoporosis) হল ক্যালসিয়াম এর অভাব জনিত একটা রোগ।অস্থির বৃদ্ধির জন্য চাই ভিটামিন ও ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার। বয়স্ক পুরুষ ও মহিলাদের সাধারণত এ রোগটা হয়ে থাকে। যেসব বয়স্ক পুরুষ বহুদিন যাবত স্টেরয়েড ঔষুধ সেবন করেন তাদের এবং মহিলাদের মেনোপস হবার পর এই রোগ হবার সম্ভাবনা বেশি। তাছাড়া যারা অলস জীবন যাপন করে, পরিশ্রম কম করে তাদের এই রোগ হবার সম্ভাবনা থাকে। আর যারা অনেক দিন ধরে আর্থ্রাইটিসে ভুগে তাদের ও এই রোগ হবার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

অস্টিওপোরোসিস
OsteoCutout.png
অস্টিওপোরোসিস আক্রান্ত বৃদ্ধা্র মেরুদন্ডের কম্প্রেশন ফ্রাকচার পরবর্তী কার্ভড ব্যাক
উচ্চারণ
বিশেষায়িত ক্ষেত্ররিউমাটোলজি, অর্থোপেডিক্স
উপসর্গহাড় ভাঙ্গার ঝুঁকি বৃদ্ধি [৩]
জটিলতাদীর্ঘস্থায়ী ব্যথা[৩]
সূত্রপাতবৃদ্ধাবস্থা [৩]
ঝুঁকিসমূহমদ্যাসক্তি, অ্যানোরেক্সিয়া, হাইপারথাইরয়েডিজম, গ্যাসট্রোইন্টেস্টাইনাল ডিজিজ সমূহ, শল্যচিকিৎসা দ্বারা ডিম্বাশয় অপসারণ, কিডনীর অসুখ, ধূমপান, কিছু ওষুধের প্রভাব[৩]
রোগনির্ণয়বোন ডেনসিটি স্ক্যান[৪]
চিকিৎসাপুষ্টিকর খাদ্য, ব্যায়াম, ফল প্রিভেনশন, ধূমপান বন্ধ করা[৩]
ঔষুধবিসফসফোনেটসমূহ[৫][৬]
ব্যাপকতার হার১৫% (৫০ এর ঘরে), ৭০% (৮০ বছরের ওপরে)[৭]

অস্টিওপরোসিস এমন একটি রোগ যেখানে হাড় দুর্বল হয়ে যায় এবং হাড় ভাঙা র ঝুঁকি বেড়ে যায়। বয়ষ্ক মানুষদের মধ্যে হাড় ভাঙার সবচেয়ে সাধারণ কারণ এটি।[৩] যে হাড় সাধারণত বেশি ভাঙ্গে, তা হল মেরুদণ্ড এর মধ্যে কশেরুকার হাড়, হাতের হাড়, এবং কোমরের হাড়।[৮] হাড় না ভাঙা পর্যন্ত সাধারণত কোন উপসর্গ দেখা দেয় না। হাড় এতোটাই দুর্বল হয়ে যেতে পারে যে, সামান্য জোর দিলে বা এমনিই ভেঙ্গে যায়। হাড় ভাঙলে দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা হতে পারে এবং স্বাভাবিক কাজকর্ম করার ক্ষমতা কমে যেতে পারে।

স্বাভাবিক সর্বোচ্চ হাড়ের ভর এর তুলনায় কম ভর, এবং স্বাভাবিকের তুলনায় বেশী হাড়ের ক্ষয়ের কারণে অস্টিওপরোসিস হতে পারে। রজঃনিবৃত্তির পর ইস্ট্রোজেনের মাত্রা কমে যাবার জন্য হাড়ের ক্ষয় বৃদ্ধি পায়। নানা রকম অসুখ ও চিকিৎসা, যথা মদাসক্তি, ক্ষুধাহীনতা, থাইরয়েড গ্রন্থির অতি সক্রিয়তা, কিডনি রোগ, এবং অস্ত্রোপচার করে ডিম্বাশয় অপসারণ এর কারণেও অস্টিওপরোসিস হতে পারে। কিছু কিছু ওষুধ, যেমন, কিছু খিঁচুনি নিবারক ওষুধ, কর্কট রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত কিছু মিশ্র রাসায়নিক ওষুধ , পাকস্থলীর অম্ল নিবারক মিশ্র, অতিরিক্ত বিষন্নতা কাটানোর ওষুধ এবং নিজ শরীরের সুরক্ষা ব্যবস্থাকে আক্রমনকারী অস্বাভাবিক কিছু অসুখের ওষুধ হাড়ের ক্ষয়ের হার বৃদ্ধি করে। ধূমপান এবং খুব কম শারীরিক পরিশ্রমও ক্ষতির কারণ।তরুণ প্রাপ্তবয়স্কের হাড়ের ঘনত্ব ২.৫ মান বিচ্যুতি র নিচে হলে অস্টিওপরোসিস রোগ হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়। এটি সাধারণত মাপা হয় দ্বারা দ্বি-শক্তি রঞ্জন রশ্মি শোষণমিতি দ্বারা।[৪]

শৈশবে সঠিক খাদ্য গ্রহণ এবং যে ওষুধগুলি হাড়ের ক্ষয় বৃদ্ধি করে সেগুলি এড়িয়ে চলার চেষ্টাই অস্টিওপরোসিস প্রতিরোধের উপায়।যাদের অস্টিওপরোসিস আছে, তাদের হাড় ভাঙ্গা প্রতিরোধ করার জন্য যা চাই তা হল ভাল খাদ্য, ব্যায়াম, এবং পতন প্রতিরোধ। জীবনধারায় পরিবর্তন, যেমন ধূমপান বন্ধ করা এবং মদ্যপান না করা, সাহায্য করতে পারে.যাদের অস্টিওপরোসিসের কারণে আগে হাড় ভাঙেছে হাড়ের ক্ষয় রোধক ওষুধ তাদের জন্য উপকারী। যাদের অস্টিওপরোসিস আছে কিন্তু আগে হাড় ভাঙেনি, তাদের জন্য এগুলি কম কার্যকরী।[৫][৬][৯] অন্যান্য অনেক ওষুধ কার্যকরী হতে পারে.[১০]

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে অস্টিওপরোসিস আরো সার্বজনীন হয়ে দাঁড়ায়।৫০ বছর বয়সে প্রায় ১৫% শ্বেতাঙ্গ এবং ৮০ বছরের ওপরে ৭০% এই রোগে আক্রান্ত।[৭] পুরুষদের তুলনায় নারীদের মধ্যে এটা আরো সাধারণ। উন্নত বিশ্বে রোগ নির্ণয়ের পদ্ধতি উপর নির্ভর ক'রে, ২% থেকে ৮% পুরুষ এবং ৯%, ৩৮% নারী আক্রান্ত। উন্নয়নশীল বিশ্বে রোগের হার স্পষ্ট নয়।[১১] ২০১০ সালে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এর প্রায় ২২ মিলিয়ন নারী এবং ৫.৫ মিলিয়ন পুরুষের মধ্যে অস্টিওপরোসিস ছিল।[১২] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ২০১০ সালে প্রায় আট মিলিয়ন নারী এবং এক থেকে দুই মিলিয়ন পুরুষের অস্টিওপরোসিস ছিল।[১৩][১৪] সাদা এবং এশিয়ান মানুষেরা অধিক ঝুঁকিতে আছে।"অস্টিওপরোসিস" শব্দটি এসেছে "ঝাঁঝরা হাড়" এর গ্রিক শব্দ থেকে।[১৫]

কারণ[সম্পাদনা]

দেহে খনিজ লবণ বিশেষ করে ক্যালসিয়াম এর ঘাটতির কারনে এ রোগটি হয়।মহিলাদের মেনোপস হওয়ার পর অস্থির ঘনত্ব ও পুরুত্ব কমতে থাকে।

লক্ষণ ও উপসর্গ[সম্পাদনা]

  1. অস্থি ভংগুর হয়ে যায়,পুরুত্ব কমতে থাকে।
  2. পেশির শক্তি কমতে থাকে।
  3. পিঠের পিছনে ব্যথা অনুভব হয়।
  4. অস্থি তে ব্যাথা অনুভব হয়।
স্বাভাবিক দাঁড়ানোর ভঙ্গি এবং অস্টিওপরোসিস দেখানো হয়েছে


অস্টিওপরোসিসের নিজের কোন উপসর্গ নেই; এর প্রধান ক্ষতিকর দিক হল হাড় হাড় ভেঙ্গে যাবার ঝুঁকি বৃদ্ধি। যে পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবান মানুষের হাড় সাধারণত ভাঙবেনা সেখানে ভঙ্গুর হাড় ভেঙ্গে যেতে পারে, অতএব সেগুলি ভঙ্গুরতার জন্য অস্থিভঙ্গ হিসাবে গণ্য করা হয়।সাধারণত মেরুদন্ড, পাঁজর, নিতম্ব এবং কব্জি তে ভঙ্গুরতার অস্থিভঙ্গ ঘটে।

অস্থি ভঙ্গ[সম্পাদনা]

অস্টিওপরোসিসের সবচেয়ে বিপজ্জনক দিক হল অস্থি ভঙ্গ। বয়স্কদের মধ্যে দুর্বল করে দেওয়া তীব্র এবং দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা প্রায়ই অস্থি ভঙ্গের জন্য হতে পারে, এর থেকে আরও অক্ষমতা এবং তাড়াতাড়ি মৃত্যু হতে পারে।[১৬] হাড় ভাঙ্গা কোন লক্ষণহীনও হতে পারে। সবচেয়ে সাধারণ ভঙ্গুর অস্থি ভঙ্গ হয়, কব্জি, মেরুদণ্ড, কাঁধ ও নিতম্বে। আকস্মিক মেরুদণ্ডীয় পতন ("সংকোচন অস্থিভঙ্গ") এর উপসর্গ হল হঠাৎ পিছনে ব্যথা, প্রায়ই তীব্র ব্যথা নিয়ে (নার্ভ মূলের সংকোচনের কারণে প্রচন্ড ব্যথা), যা খুব কমই সুষুম্না কান্ডের সংকোচন বা সুষুম্না কান্ডের নীচে নার্ভ গুচ্ছের ক্ষতি র কারণে হয়।মেরুদন্ডের একাধিক হাড় ভেঙ্গে গিয়ে ঝুঁকে পড়া ভঙ্গি হয়, উচ্চতা কমে যায়, এবং দীর্ঘস্থায়ী ব্যথার সঙ্গে গতিশীলতা হ্রাস পায়।[১৭]

বড় হাড় ভাঙ্গা গতিশীলতার দ্রুত ক্ষতি করে এবং শল্যচিকিৎসার প্রয়োজন হতে পারে। বিশেষ করে নিতম্বে অস্থি ভঙ্গ হলে সাধারণভাবে শল্যচিকিৎসার প্রয়োজন, না হলে গভীর শিরায় রক্ত জমাট বাঁধা এবং ফুসফুসে রক্ত জমাট বাঁধার মত গুরুতর ঝুঁকি থেকে যায় এবং মৃত্যুর সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়।

অস্থি ভঙ্গ হলে কতটা ঝুঁকি আছে তা বিভিন্ন মানদন্ডের ওপর নির্ভর করে, যার মধ্যে আছে হাড়ের মজ্জার ঘনত্ব, বয়স, ধূমপানের অভ্যাস, মদ্যপানের অভ্যাস, ওজন, এবং লিঙ্গ। স্বীকৃত গণক হিসাবে ধরা হয় এফআরএক্স বা হাড় ভাঙার ঝুঁকি [১৮] এবং ডাব্বোকে।

যখন অস্টিওপরোসিসের কারণে অস্থি ভঙ্গ হয় তখন অস্টিওপরোসিস প্রতিষ্ঠিত বলা হয়।[১৯] অস্টিওপরোসিসকে দুর্বলতার লক্ষণ বলেই ধরা হয়।

পড়ে যাওয়ার ঝুঁকি[সম্পাদনা]

বয়স বৃদ্ধির সঙ্গে পড়ে গেলে কব্জি, মেরুদন্ড, এবং নিতম্বের অস্থি ভঙ্গের ঝুঁকি বেড়ে যায়।যে কোন কারণেই, যেমন দুর্বল দৃষ্টিশক্তি (যেমন গ্লকোমা, বয়সজনিত কারণে দৃষ্টির স্বল্পতা), ভারসাম্যে অসুবিধা, চলাফেরায় অসুবিধা (যেমন পার্কিনসন্স বা হাত পা কাঁপা), ডিমেনশিয়া বা স্মৃতিভ্রংশ, এবং সার্কোপেনিয়া (কাঠামোর পেশীর বয়সজনিত ক্ষয়), পড়ে যাওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়।. হঠাৎ পায়ে জোর কমে যাওয়া (অস্থায়ী ভাবে হৃত দেহভঙ্গিমা, সজ্ঞান অথবা অজ্ঞানে) বিশেষভাবে পড়ে যাবার ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়; রক্তচাপের নিম্নতাহেতু সাময়িক সংজ্ঞাহীনতা অনেক কারণে হয় কিন্তু বিশেষভাবে ধরা যায় কার্ডিয়াক অ্যারিথমিয়াস বা অনিয়মিত হৃদস্পন্দন, ভ্যাসোভেগাল সিংকোপ বা স্নায়ু দৌর্বল্যে অজ্ঞান হয়ে যাওয়া , অর্থোস্ট্যাটিক হাইপোটেনশন (দাঁড়ালে অস্বাভাবিক ভাবে রক্তচাপ কমে যাওয়া) এবং সীজার বা মস্তিষ্কে স্নায়ুর অস্বাভাবিক কার্যকারিতা।বসবাসের জায়গা বাধাহীন করে এবং আলগা মাদুর জাতীয় জিনিষ সরিয়ে রাখলে পড়ে যাবার সম্ভাবনা অনেকটা কমে যায়।যারা আগে পড়ে গেছে এবং যাদের চলেনে ভারসাম্যের অভাব আছে তাদের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশী।[২০]

ঝুঁকির কারণগুলি[সম্পাদনা]

ভঙ্গুর হাড়ের কারণে অস্থি ভঙ্গের ঝুঁকির কারণগুলি অসংশোধনযোগ্য এবং সংশোধনযোগ্য এই দুই ভাগে ভেঙে ফেলা যায়।এ ছাড়াও, অস্টিওপরোসিস কিছু বিশেষ অসুখের একটি স্বীকৃত জটিলতা এবং অসুস্থতা। তাত্ত্বিকভাবে সংশোধনযোগ্য অসুখে ওষুধ ব্যবহার করা হয়, যদিওঅনেক সময়, ওষুধ ব্যবহারে অস্টিওপরোসিস বৃদ্ধির সম্ভাবনা আটকানো যায়না। ক্যাফিন এর মত উত্তেজক পানীয় অস্টিওপরোসিসের ঝুঁকি বাড়ায় না।[২১]

এই অসুখ পুরুষদের চেয়ে মহিলাদের মধ্যে বেশী দেখা যায়।

অসংশোধনযোগ্য[সম্পাদনা]

৩০ বছর বয়সে হাড়ের ঘনত্ব চূড়ান্ত হয়। মহিলাদের পুরুষদের থেকে তাড়াতাড়ি হাড়ের ভরের ক্ষয় হয়।[২২]
  • অস্টিওপরোসিসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঝুঁকির কারণ বয়সের বৃদ্ধি (পুরুষ এবং মহিলা উভয়ের মধ্যে) এবং মহিলাদের মেনোপজ বা অস্ত্রোপচার করে ডিম্বাশয় অপসারণের ফলে যৌন হরমোন ইস্ট্রোজেন এর অভাব দেখা দেয় যার ফলে হাড়ের খনিজ ঘনত্ব দ্রুত হ্রাস পায়, আবার পুরুষদের মধ্যে, টেসটোটেরন হরমোনের মাত্রা কমে গেলেও, কিছু প্রভাব পড়ে (কিন্তু তুলনায় কম)।[২৩][২৩]
  • জাতি: মানুষের সব জাতিগোষ্ঠীর মধ্যে অস্টিওপরোসিস দেখা যায়, তবে ইউরোপীয় বা এশিয়ান দের অস্টিওপরোসিসের প্রবণতা আছে।[২৪]
  • বংশগতি: যাদের অস্থি ভঙ্গ বা অস্টিওপরোসিসের পারিবারিক ইতিহাস আছে তাদের ঝুঁকি অনেক বেশী; উত্তরাধিকার পাওয়া থেকে অস্থি ভঙ্গ বা কম হাড়ের খনিজ ঘনত্ব অপেক্ষাকৃত বেশী দেখা যায়, যা ২৫% থেকে ৮০% হতে পারে। অন্তত ৩০ টি বংশগতির জিন অস্টিওপরোসিস হবার জন্য দায়ী।[২৫]
  • যাদের ইতিমধ্যে একবার অস্থি ভঙ্গ হয়েছে তাদের আবার অস্থি ভঙ্গ হবার সম্ভাবনা, সমবয়সী এবং সমলিঙ্গের অন্য একজনের তুলনায় অন্তত দ্বিগুণ।[২৬] তাড়াতাড়ি রজোনিবৃত্তি/ডিম্বাশয় বাদ যাওয়া আরেকটি পূর্ব নির্ধারিত কারণ।
  • কাঠামো: ছোট খাট গড়ন অস্টিওপরোসিস তৈরী হবার একটি অসংশোধনযোগ্য ঝুঁকিপূর্ণ কারণ ।[২৭]

সংশোধনযোগ্য[সম্পাদনা]

  • অতিরিক্ত মদ্যপান: যদিও স্বল্প পরিমানে মদ্যপান সম্ভবত উপকারী (হাড়ের ঘনত্ব মদ্যপানের সাথে বেড়ে যায়), দীর্ঘদিন ধরে অতিরিক্ত মদ্যপান (প্রতিদিন তিন এককের বেশী মদ্যপান) হাড়ের ঘনত্ব বৃদ্ধিতে উপকারী হলেও সম্ভবত হাড় ভাঙ্গার ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়।[২৮][২৯]
  • ভিটামিন ডি এর অভাব:[৩০][৩১] সারা পৃথিবীতে বয়ষ্কদের মধ্যে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি খুব সাধারণ ব্যাপার। [৪] প্যারাথাইরয়েড হরমোন (পিটিএইচ) এর অধিক উৎপাদনে অল্প ভিটামিন ডি এর ঘাটতি হয়।[৪] পিটিএইচ হাড়ের রিসরপশন বাড়িয়ে দেয়, এতে হাড়ের ক্ষয় হয়। সিরাম ১,২৫-ডাইহাইড্রক্সিকোলক্যালসিফেরল এর মাত্রা এবং হাড়ের খনিজ ঘনত্বের মধ্যে সরাসরি একটি সম্পর্ক আছে, যেখানে পিটিএইচ ঋণাত্মকভাবে হাড়ের খনিজ ঘনত্বের সঙ্গে সংযুক্ত।[৪]
  • ধূমপান: অনেক গবেষণাতে দেখা গেছে ধূমপানের সঙ্গে হাড়ের স্বাস্থ্যক্ষয় সংযুক্ত, কিন্তু তা কিভাবে হয় সেটি পরিষ্কার নয়। মনে করা হয় ধূমপান করলে অস্টিওব্লাস্ট এর কার্যক্ষমতা কমে যায়, এবং সেটি অস্টিওপোরোসিসের জন্য একটি ঝুঁকির কারণ। [২৮][৩২] ধূমপান করলে এক্সোজেনাস ইস্ট্রোজেন হরমোনের ভেঙ্গে যাওয়া বৃদ্ধি পায়,ওজন কমে যায় এবং সময়ের পুর্বে রজোনিবৃত্তি হয়ে যায়, এই সব গুলি হাড়ের খনিজ ঘনত্ব কমার কারণ।[৪]
  • অপুষ্টি: হাড়ের স্বাস্থ্য ভাল রাখার জন্য পুষ্টির গুরুত্বপুর্ণ এবং জটিল ভূমিকা আছে। পরিচিত ঝুঁকির কারণগুলিতে আছে খাদ্যে ক্যালসিয়াম এবং/অথবা ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম, জিংক, বোরন, আয়রন, ফ্লোরাইড, কপার, ভিটামিন এ, কে, ই এবং সি (এবং ডি যেখানে সূর্যালোকের ঘাটতি ত্বকে যথেষ্ট ভিটামিন দিতে পারেনা) এর ঘাটতি। অতিরিক্ত সোডিয়াম একটি ঝুঁকির কারণ। রক্তে অম্লের বৃদ্ধি খাদ্য সম্পর্কিত হতে পারে, এবং এটি হাড়ের একটি জানা অ্যান্টাগনিস্ট[৩৩] কেউ কেউ দেখেছেন প্রোটিন কম খাওয়া কৈশোরে চূড়ান্ত হাড়ের ভর কম হবার সঙ্গে এবং বয়ষ্ক মানুষদের হাড়ের খনিজ ঘনত্ব কম হবার সঙ্গে সংযুক্ত।[৪] বিপরীতক্রমে, কেউ দেখেছেন কম প্রোটিন খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভাল, খাদ্যে অম্লতার কারণগুলির একটি হল প্রোটিন। ওমেগা-৬ থেকে ওমেগা-৩ পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাট এ ভারসাম্যহীনতা একটি পরিচিত ঝুঁকির কারণ।[৩৪]
  • বেশি পরিমানে খাদ্যে প্রোটিন যা পশু থেকে প্রাপ্ত বা আমিষ: গবেষণা করে খাদ্যে বেশী পরিমানে আমিষ প্রোটিন এবং মূত্রে ক্যালসিয়ামের পরিমান বৃদ্ধির একটি সম্পর্ক পাওয়া গেছে,[৩৫][৩৬][৩৭] এবং অস্থিভঙ্গ বৃদ্ধির সঙ্গে সংযুক্ত করা গেছে। [৩৮] যাহোক,হাড়ের ঘনত্বের সঙ্গে এই পর্যবেক্ষণের প্রাসঙ্গিকতা খুব একটা পরিষ্কার নয়,[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] যেহেতু খাদ্যে বেশী পরিমানে প্রোটিন খাদ্য থেকে ক্যালসিয়াম শোষণ বাড়াতে সাহায্য করে এবং সেটি হাড়ের ঘনত্ব বাড়ানোর সঙ্গে সংযুক্ত। [৩৯] প্রকৃতপক্ষে, সম্প্রতি এই নিয়ে বিতর্ক হয়েছে যে খাদ্যে প্রোটিনের পরিমান কম হলে হাড়ের স্বাস্থ্যও খারাপ হয়।[৪০] অস্টিওপোরোসিসের প্রতিরোধ এবং চিকিৎসায় খাদ্যে প্রোটিনের কি ভূমিকা তা বিচার করা হয়নি। ।[৪১]
  • কম ওজন/নিষ্ক্রিয়: শারীরিক পরিশ্রম হলে হাড়ের পুনর্গঠন হয়, তাই শারীরিকভাবে নিষ্ক্রিয় থাকলে উল্লেখযোগ্যভাবে হাড়ের ক্ষয় হতে পারে।[৪] কৈশোরে ভারত্তোলন ব্যায়াম করলে চূড়ান্ত হাড়ের ভর অর্জন করা যায়,[৪] এবং হাড়ের ক্ষমতা ও পেশীর ক্ষমতার মধ্যে উল্লেখযোগ্য সম্পর্ক নির্ধারণ করা গেছে।[৪২] যাদের ত্তজন বেশী তাদের মধ্যে অস্টিওপোরোসিস হবার ঘটনা খুব কম।[৪৩]
  • সহনশীলতা প্রশিক্ষণ: মহিলা সহনশীল ক্রীড়াবিদদের মধ্যে, প্রচুর প্রশিক্ষণ করান হলে হাড়ের ঘনত্ব কমে যেতে পারে এবং অস্টিওপোরোসিসের ঝুঁকি বেড়ে যায়।[৪৪] রজঃস্রাব চেপে রেখে তীব্র প্রশিক্ষণের প্রভাবে ঘটতে পারে ঋতুবন্ধ রোগ, এবং এটি মহিলা ক্রীড়াবিদ ট্রায়াডএর অন্তর্গত।[৪৫] যাহোক, পুরুষ ক্রীড়াবিদদের মধ্যে, অবস্থাটা একটু অস্বচ্ছ, যদিও কিছু গবেষণাতে অভিজাত পুরুষ সহনশীল ক্রীড়াবিদদের মধ্যে হাড়ের ঘনত্ব কম পাওয়া গেছে [৪৬] অন্যদের তার পরিবর্তে পায়ের হাড়ের ঘনত্ব বাড়তে দেখা গেছে।[৪৭][৪৮]
  • ভারি ধাতু সমূহ: ক্যাডমিয়াম এবং সীসার সাথে হাড়ের অসুখের গভীর সম্পর্ক প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। অল্প পরিমান ক্যাডমিয়ামের মুখোমুখি হলে উভয় লিঙ্গের মধ্যেই হাড়ের খনিজ ঘনত্বের ক্ষয়বৃদ্ধি হতে দেখা যায়, যা থেকে বিশেষত বয়ষ্ক ও মহিলাদের মধ্যে ব্যথা এবং অস্থিভঙ্গের ঝুঁকি বেড়ে যায়। অধিক পরিমান ক্যাডমিয়ামের সম্মুখীন হলে অস্টিওম্যালাশিয়া (হাড় নরম হয়ে যাওয়া) রোগ হয়।[৪৯]
  • নরম পানীয়: কিছু গবেষণা ইঙ্গিত করেছে কোমল পানীয়গুলি (যাদের অনেকগুলিতে ফসফরিক অ্যাসিড আছে) অস্টিওপোরোসিসের ঝুঁকি বাড়াতে পারে, বিশেষত নারীদের[৫০] অন্য অনেকে বলেছেন নরম পানীয় সরাসরি অস্টিওপোরোসিস ঘটানোর বদলে খাদ্য থেকে ক্যালসিয়াম-ধারণকারী পানীয় অংশ সরিয়ে দেয়।[৫১]
  • প্রোটন পাম্প ইনহিবিটির (যেমন ল্যানসোপ্রাজল, ইসোমিপ্রাজল, অথবা ওমিপ্রাজল) যেগুলি পাকস্থলীর অ্যাসিড কমায়, যদি দুই বা তার বেশী বছর ধরে নেওয়া হয়, পাকস্থলীতে ক্যালসিয়াম শোষণ কমে যাবার ফলে সেগুলিতে অস্থিভঙ্গের ঝুঁকি থাকে।[৫২]

চিকিৎসা সংযুক্ত ব্যাধি[সম্পাদনা]

শরীর ক্যালসিয়াম হেমাটোসিস নিয়ন্ত্রণ করে দুটি পথে; একটি চালু হবার জন্য সংকেত পায় যখন রক্তে ক্যালসিয়ামের মাত্রা স্বাভাবিকের থেকে নিচে নেমে যায় এবং অন্য রাস্তাটি চালু হবার জন্য সংকেত পায় যখন রক্তে ক্যালসিয়ামের মাত্রা স্বাভাবিকের থেকে বেশী হয়ে যায়।

অনেক অসুখ এবং ব্যাধি অস্টিওপোরোসিসের সঙ্গে সংযুক্ত।[৫৩] অনেকের জন্য, হাড়ের বিপাকের ওপর তাদের অন্তর্নিহিত প্রক্রিয়ার প্রভাব সোজাসুজি, আবার অন্যদের জন্য কারণ একাধিক বা অজানা।

চিকিৎসা[সম্পাদনা]

রোগ নির্ণয়[সম্পাদনা]

ঘনত্বমাপক যন্ত্রের সাহায্যে অস্থির খনিজ পদার্থের এই রোগটি নির্ণয় করা হয়।রোগের প্রাথমিক অবস্থায় তেমন কোনো উপসর্গ দেখা যায় না।হঠাত করেই সামান্য আঘাতে কোমরের বা অন্য কোনো হার ভেংগে যায়।

প্রতিকার[সম্পাদনা]

  1. পঞ্চাশোর্ধ পুরুষ ও মহিলাদের দৈনিক ১২০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম গ্রহন করা উচিত।
  2. ননী তোলা দুধ ও দুগ্ধযাত দ্রব্য গ্রহন করা।
  3. কমলার রস, সবুজ শাকসবজি, সয়া দ্রব্য ও ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া

প্রতিরোধ[সম্পাদনা]

  1. ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া।
  2. নিয়মিত ব্যায়াম করা।
  3. সুষম আশ যুক্ত খাবার গ্রহন করা।

আর এভাবেই এই খনিজ লবনের অভাব জনিত রোগটি প্রতিরোধ করা সম্ভব।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

শ্রেণীবিন্যাস
বৈদেশিক সম্পদ

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Jones, Daniel (২০০৩) [1917], Peter Roach, James Hartmann and Jane Setter, সম্পাদকগণ, English Pronouncing Dictionary, Cambridge: Cambridge University Press, আইএসবিএন 978-3-12-539683-8 
  2. "Osteoporosis"মেরিয়াম ওয়েব মাস্টার ডিকশনারী 
  3. "Handout on Health: Osteoporosis"। আগস্ট ২০১৪। ১৮ মে ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মে ২০১৫ 
  4. WHO Scientific Group on the Prevention and Management of Osteoporosis (2000 : Geneva, Switzerland) (২০০৩)। Prevention and management of osteoporosis : report of a WHO scientific group (PDF)। পৃষ্ঠা 7, 31। আইএসবিএন 978-9241209212। ১৬ জুলাই ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা (PDF) 
  5. Wells GA, Cranney A, Peterson J, Boucher M, Shea B, Robinson V, Coyle D, Tugwell P (জানুয়ারি ২০০৮)। "Alendronate for the primary and secondary prevention of osteoporotic fractures in postmenopausal women"। The Cochrane Database of Systematic Reviews (1): CD001155। doi:10.1002/14651858.CD001155.pub2PMID 18253985 
  6. Wells G, Cranney A, Peterson J, Boucher M, Shea B, Robinson V, Coyle D, Tugwell P (জানুয়ারি ২০০৮)। "Risedronate for the primary and secondary prevention of osteoporotic fractures in postmenopausal women"। The Cochrane Database of Systematic Reviews (1): CD004523। doi:10.1002/14651858.CD004523.pub3PMID 18254053 
  7. "Chronic rheumatic conditions"World Health Organization। ২৭ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মে ২০১৫ 
  8. Golob AL, Laya MB (মে ২০১৫)। "Osteoporosis: screening, prevention, and management"। The Medical Clinics of North America99 (3): 587–606। doi:10.1016/j.mcna.2015.01.010PMID 25841602 
  9. Wells GA, Cranney A, Peterson J, Boucher M, Shea B, Robinson V, Coyle D, Tugwell P (জানুয়ারি ২০০৮)। "Etidronate for the primary and secondary prevention of osteoporotic fractures in postmenopausal women"। The Cochrane Database of Systematic Reviews (1): CD003376। doi:10.1002/14651858.CD003376.pub3PMID 18254018 
  10. Nelson, H. D; Haney, E. M; Chou, R; Dana, T; Fu, R; Bougatsos, C (২০১০)। "Screening for Osteoporosis: Systematic Review to Update the 2002 U.S. Preventive Services Task Force Recommendation [Internet]"। Agency for Healthcare Research and QualityPMID 20722176 
  11. Handa R, Ali Kalla A, Maalouf G (আগস্ট ২০০৮)। "Osteoporosis in developing countries"। Best Practice & Research. Clinical Rheumatology22 (4): 693–708। doi:10.1016/j.berh.2008.04.002PMID 18783745 
  12. Svedbom A, Hernlund E, Ivergård M, Compston J, Cooper C, Stenmark J, McCloskey EV, Jönsson B, Kanis JA (২০১৩)। "Osteoporosis in the European Union: a compendium of country-specific reports"Archives of Osteoporosis8 (1–2): 137। doi:10.1007/s11657-013-0137-0PMID 24113838পিএমসি 3880492অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  13. Wade SW, Strader C, Fitzpatrick LA, Anthony MS, O'Malley CD (২০১৪)। "Estimating prevalence of osteoporosis: examples from industrialized countries"। Archives of Osteoporosis9 (1): 182। doi:10.1007/s11657-014-0182-3PMID 24847682 
  14. Willson T, Nelson SD, Newbold J, Nelson RE, LaFleur J (২০১৫)। "The clinical epidemiology of male osteoporosis: a review of the recent literature"Clinical Epidemiology7: 65–76। doi:10.2147/CLEP.S40966PMID 25657593পিএমসি 4295898অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  15. King TL, Brucker MC (২০১১)। Pharmacology for women's health। Sudbury, Mass.: Jones and Bartlett Publishers। পৃষ্ঠা 1004। আইএসবিএন 9780763753290। ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  16. Old JL, Calvert M (২০০৪)। "Vertebral compression fractures in the elderly"American Family Physician69 (1): 111–16। PMID 14727827। ৫ আগস্ট ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মার্চ ২০১১ 
  17. Kim DH, Vaccaro AR (২০০৬)। "Osteoporotic compression fractures of the spine; current options and considerations for treatment"। The Spine Journal6 (5): 479–87। doi:10.1016/j.spinee.2006.04.013PMID 16934715 
  18. Susan Ott। "Fracture Risk Calculator"। ১৪ অক্টোবর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-১১-০৩ 
  19. WHO (১৯৯৪)। "Assessment of fracture risk and its application to screening for postmenopausal osteoporosis. Report of a WHO Study Group"। World Health Organization Technical Report Series843: 1–129। PMID 7941614 
  20. Ganz DA, Bao Y, Shekelle PG, Rubenstein LZ (২০০৭)। "Will my patient fall?"। JAMA297 (1): 77–86। doi:10.1001/jama.297.1.77PMID 17200478 
  21. Waugh EJ, Lam MA, Hawker GA, McGowan J, Papaioannou A, Cheung AM, Hodsman AB, Leslie WD, Siminoski K, Jamal SA (জানুয়ারি ২০০৯)। "Risk factors for low bone mass in healthy 40–60 year old women: a systematic review of the literature"Osteoporosis International : A Journal Established as Result of Cooperation Between the European Foundation for Osteoporosis and the National Osteoporosis Foundation of the USA20 (1): 1–21। doi:10.1007/s00198-008-0643-xPMID 18523710পিএমসি 5110317অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  22. "6.6 Exercise, Nutrition, Hormones, and Bone Tissue"। Anatomy & Physiology। Openstax CNX। ২০১৩। আইএসবিএন 978-1-938168-13-0। ১০ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  23. Sinnesael M, Claessens F, Boonen S, Vanderschueren D (২০১৩)। "Novel insights in the regulation and mechanism of androgen action on bone"। Current Opinion in Endocrinology, Diabetes and Obesity20 (3): 240–44। doi:10.1097/MED.0b013e32835f7d04PMID 23449008 
  24. Melton LJ (২০০৩)। "Epidemiology worldwide"। Endocrinol. Metab. Clin. North Am.32 (1): v, 1–13। doi:10.1016/S0889-8529(02)00061-0PMID 12699289 
  25. Raisz L (২০০৫)। "Pathogenesis of osteoporosis: concepts, conflicts, and prospects"J Clin Invest115 (12): 3318–25। doi:10.1172/JCI27071PMID 16322775পিএমসি 1297264অবাধে প্রবেশযোগ্য। ২৪ আগস্ট ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  26. Ojo F, Al Snih S, Ray LA, Raji MA, Markides KS (২০০৭)। "History of fractures as predictor of subsequent hip and nonhip fractures among older Mexican Americans"Journal of the National Medical Association99 (4): 412–18। PMID 17444431পিএমসি 2569658অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  27. Brian K Alldredge; Koda-Kimble, Mary Anne; Young, Lloyd Y.; Wayne A Kradjan; B. Joseph Guglielmo (২০০৯)। Applied therapeutics: the clinical use of drugs। Philadelphia: Wolters Kluwer Health/Lippincott Williams & Wilkins। পৃষ্ঠা 101–03। আইএসবিএন 978-0-7817-6555-8 
  28. Poole KE, Compston JE (ডিসেম্বর ২০০৬)। "Osteoporosis and its management"BMJ333 (7581): 1251–56। doi:10.1136/bmj.39050.597350.47PMID 17170416পিএমসি 1702459অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  29. Berg KM, Kunins HV, Jackson JL, Nahvi S, Chaudhry A, Harris KA, Malik R, Arnsten JH (২০০৮)। "Association between alcohol consumption and both osteoporotic fracture and bone density"Am J Med121 (5): 406–18। doi:10.1016/j.amjmed.2007.12.012PMID 18456037পিএমসি 2692368অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  30. Nieves JW (২০০৫)। "Osteoporosis: the role of micronutrients"Am J Clin Nutr81 (5): 1232S–39S। doi:10.1093/ajcn/81.5.1232PMID 15883457। ২৪ এপ্রিল ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  31. Gielen E, Boonen S, Vanderschueren D, Sinnesael M, Verstuyf A, Claessens F, Milisen K, Verschueren S (২০১১)। "Calcium and vitamin d supplementation in men"Journal of Osteoporosis2011: 1–6। doi:10.4061/2011/875249PMID 21876835পিএমসি 3163142অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  32. Wong PK, Christie JJ, Wark JD (২০০৭)। "The effects of smoking on bone health"Clin. Sci.113 (5): 233–41। doi:10.1042/CS20060173PMID 17663660 
  33. Ilich JZ, Kerstetter JE (২০০০)। "Nutrition in Bone Health Revisited: A Story Beyond Calcium"Journal of the American College of Nutrition19 (6): 715–37। doi:10.1080/07315724.2000.10718070PMID 11194525। ৭ আগস্ট ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০০৯ 
  34. Weiss LA, Barrett-Connor E, von Mühlen D (২০০৫)। "Ratio of n−6 to n−3 fatty acids and bone mineral density in older adults: the Rancho Bernardo Study"Am J Clin Nutr81 (4): 934–38। doi:10.1093/ajcn/81.4.934PMID 15817874। ২৪ অক্টোবর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  35. Abelow BJ, Holford TR, Insogna KL (১৯৯২)। "Cross-cultural association between dietary animal protein and hip fracture: a hypothesis"। Calcified Tissue International50 (1): 14–18। CiteSeerX 10.1.1.674.9378অবাধে প্রবেশযোগ্যdoi:10.1007/BF00297291PMID 1739864 
  36. Hegsted M, Schuette SA, Zemel MB, Linkswiler HM (১৯৮১)। "Urinary calcium and calcium balance in young men as affected by level of protein and phosphorus intake"। The Journal of Nutrition111 (3): 553–62। doi:10.1093/jn/111.3.553PMID 7205408 
  37. Kerstetter JE, Allen LH (১৯৯০)। "Dietary protein increases urinary calcium" (PDF)Journal of Nutrition120 (1): 134–36। doi:10.1093/jn/120.1.134PMID 2406396 
  38. Feskanich D, Willett WC, Stampfer MJ, Colditz GA (১৯৯৬)। "Protein consumption and bone fractures in women"। Am. J. Epidemiol.143 (5): 472–79। doi:10.1093/oxfordjournals.aje.a008767PMID 8610662 
  39. Kerstetter JE, Kenny AM, Insogna KL (২০১১)। "Dietary protein and skeletal health: A review of recent human research"Current Opinion in Lipidology22 (1): 16–20। doi:10.1097/MOL.0b013e3283419441PMID 21102327পিএমসি 4659357অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  40. Bonjour JP (২০০৫)। "Dietary protein: An essential nutrient for bone health"। Journal of the American College of Nutrition24 (6 Suppl): 526S–36S। doi:10.1080/07315724.2005.10719501PMID 16373952 
  41. Kerstetter JE, O'Brien KO, Insogna KL (২০০৩)। "Dietary protein, calcium metabolism, and skeletal homeostasis revisited"। Am. J. Clin. Nutr.78 (3 Suppl): 584S–92S। doi:10.1093/ajcn/78.3.584SPMID 12936953 
  42. Schönau E, Werhahn E, Schiedermaier U, Mokow E, Schiessl H, Scheidhauer K, Michalk D (১৯৯৬)। "Influence of muscle strength on bone strength during childhood and adolescence"। Hormone Research45 (Suppl. 1): 63–66। doi:10.1159/000184834PMID 8805035 
  43. Shapses SA, Riedt CS (১ জুন ২০০৬)। "Bone, body weight, and weight reduction: what are the concerns?"J. Nutr.136 (6): 1453–56। doi:10.1093/jn/136.6.1453PMID 16702302পিএমসি 4016235অবাধে প্রবেশযোগ্য। ১০ মার্চ ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  44. Pollock N, Grogan C, Perry M, Pedlar C, Cooke K, Morrissey D, Dimitriou L (২০১০)। "Bone-mineral density and other features of the female athlete triad in elite endurance runners: A longitudinal and cross-sectional observational study"। International Journal of Sport Nutrition and Exercise Metabolism20 (5): 418–26। doi:10.1123/ijsnem.20.5.418PMID 20975110 
  45. Gibson JH, Mitchell A, Harries MG, Reeve J (২০০৪)। "Nutritional and exercise-related determinants of bone density in elite female runners"। Osteoporosis International15 (8): 611–18। doi:10.1007/s00198-004-1589-2PMID 15048548 
  46. Hetland ML, Haarbo J, Christiansen C (১৯৯৩)। "Low bone mass and high bone turnover in male long distance runners"। The Journal of Clinical Endocrinology and Metabolism77 (3): 770–75। doi:10.1210/jcem.77.3.8370698PMID 8370698 
  47. Brahm H, Ström H, Piehl-Aulin K, Mallmin H, Ljunghall S (১৯৯৭)। "Bone metabolism in endurance trained athletes: A comparison to population-based controls based on DXA, SXA, quantitative ultrasound, and biochemical markers"। Calcified Tissue International61 (6): 448–54। doi:10.1007/s002239900366PMID 9383270 
  48. MacKelvie KJ, Taunton JE, McKay HA, Khan KM (২০০০)। "Bone mineral density and serum testosterone in chronically trained, high mileage 40–55 year old male runners"British Journal of Sports Medicine34 (4): 273–78। doi:10.1136/bjsm.34.4.273PMID 10953900পিএমসি 1724199অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  49. Staessen JA, Roels HA, Emelianov D, Kuznetsova T, Thijs L, Vangronsveld J, Fagard R (১৯৯৯)। "Environmental exposure to cadmium, forearm bone density, and risk of fractures: prospective population study. Public Health and Environmental Exposure to Cadmium (PheeCad) Study Group"। Lancet353 (9159): 1140–44। doi:10.1016/S0140-6736(98)09356-8PMID 10209978 
  50. Tucker KL, Morita K, Qiao N, Hannan MT, Cupples LA, Kiel DP (২০০৬)। "Colas, but not other carbonated beverages, are associated with low bone mineral density in older women: The Framingham Osteoporosis Study"। Am. J. Clin. Nutr.84 (4): 936–42। doi:10.1093/ajcn/84.4.936PMID 17023723 
  51. American Academy of Pediatrics Committee on School Health (২০০৪)। "Soft drinks in schools"। Pediatrics113 (1 Pt 1): 152–54। doi:10.1542/peds.113.1.152PMID 14702469 
  52. Zhou B, Huang Y, Li H, Sun W, Liu J (জানুয়ারি ২০১৬)। "Proton-pump inhibitors and risk of fractures: an update meta-analysis"। Osteoporosis International27 (1): 339–47। doi:10.1007/s00198-015-3365-xPMID 26462494 
  53. Simonelli, C; ও অন্যান্য (জুলাই ২০০৬)। "ICSI Health Care Guideline: Diagnosis and Treatment of Osteoporosis, 5th edition"। Institute for Clinical Systems Improvement। ১৮ জুলাই ২০০৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৪-০৮ 
  54. Kohlmeier, Lynn Kohlmeier (১৯৯৮)। "Osteoporosis – Risk Factors, Screening, and Treatment"। Medscape Portals। ১৯ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৫-১১ 
  55. Ebeling PR (২০০৮)। "Clinical practice. Osteoporosis in men"। N Engl J Med358 (14): 1474–82। doi:10.1056/NEJMcp0707217PMID 18385499 
  56. Mirza F, Canalis E (সেপ্টে ২০১৫)। "Management of endocrine disease: Secondary osteoporosis: pathophysiology and management"Eur J Endocrinol (Review)। 173 (3): R131–51। doi:10.1530/EJE-15-0118PMID 25971649পিএমসি 4534332অবাধে প্রবেশযোগ্য। ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  57. Henwood MJ, Binkovitz L (২০০৯)। "Update on pediatric bone health"The Journal of the American Osteopathic Association109 (1): 5–12। PMID 19193819। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ এপ্রিল ২০১৩ 
  58. Beto JA (জানু ২০১৫)। "The role of calcium in human aging"Clin Nutr Res (Review)। 4 (1): 1–8। doi:10.7762/cnr.2015.4.1.1PMID 25713787পিএমসি 4337919অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  59. Mornet, PhD, Etienne; Nunes, MD, Mark E (২০ নভেম্বর ২০০৭)। GeneReviews: Hypophostasia। NCBI। ১৮ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  60. "Hypophosphatasia Case Studies: Dangers of Misdiagnosis"Hypophosphatasia.com। ৮ আগস্ট ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ আগস্ট ২০১৪ 
  61. Invernizzi M, Carda S, Viscontini GS, Cisari C (২০০৯)। "Osteoporosis in Parkinson's disease"। Parkinsonism & Related Disorders15 (5): 339–46। doi:10.1016/j.parkreldis.2009.02.009PMID 19346153 
  62. Celsi F, Pizzo P, Brini M, Leo S, Fotino C, Pinton P, Rizzuto R (২০০৯)। "Mitochondria, calcium and cell death: A deadly triad in neurodegeneration"Biochimica et Biophysica Acta (BBA) - Bioenergetics1787 (5): 335–44। doi:10.1016/j.bbabio.2009.02.021PMID 19268425পিএমসি 2696196অবাধে প্রবেশযোগ্য