অবকাঠামো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search

অবকাঠামো হল একটি দেশ, শহর, বা অন্য এলাকার[১] অর্থনীতিকে কার্যকর রাখার জন্য প্রয়োজনীয় পরিষেবা ও সুবিধা প্রদানকারী অপরিহার্য প্রতিষ্ঠান এবং ব্যবস্থা।[২] সাধারণত রাস্তা, সেতু, সুড়ঙ্গ, পানি সরবারহ, পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা, বিদ্যুৎ গ্রিড, টেলিযোগাযোগ (ইন্টারনেট অধিগমন ও ব্রডব্যান্ডের গতিসহ) এর প্রযুক্তিগত কাঠামোকে বোঝায় এবং সামাজিক বসবাসের অবস্থাকে সক্ষম, বজায় বা উন্নত করার জন্য প্রয়োজনীয় পণ্য এবং পরিষেবা প্রদানকারী আন্তঃসম্পর্কিত সিস্টেমের গাঠনিক উপাদানগুলিকে সংজ্ঞায়িত করা যেতে পারে।[৩]

অবকাঠামো শব্দটি দিয়ে "যে কোন কার্যক্রম বা ব্যবস্থার ভিত্তি" বুঝানো হয়ে থাকে।[৪][৫] ১৯৪০ সালে ন্যাটো গঠনের পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অর্জিত অর্থের পরিপ্রেক্ষিতে সামরিক ক্ষেত্রে ব্যবহার এবং ১৯৭০ এ শহুরে পরিকল্পকদের আধুনিক বেসামরিকবিদ্যায় গৃহীত হয়।[৬]

শ্রেণীবিভাগ[সম্পাদনা]

একটি ১৯৮৭ মার্কিন জাতীয় গবেষণা পরিষদ প্যানেল "গণপূর্ত অবকাঠামো" শব্দটিকে এভাবে উল্লেখ করেঃ

....স্থল ও জল উভয় কার্যকর পথে – মহাসড়ক, রাস্তা, সড়ক ও সেতু; গণ পরিবহন; বিমানবন্দর এবং নিয়মিত বিমানপথ; পানি সরবরাহ ও পানি সম্পদ; বর্জ্য ব্যবস্থাপনা; কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থা এবং নিষ্পত্তি; বৈদ্যুতিক বিদ্যুৎ উত্পাদন এবং বিতরন; টেলিযোগাযোগ; এবং বিপজ্জনক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা – এবং মিলিত ব্যবস্থা, এই ধরনের উপাদান অন্তর্ভুক্ত। অবকাঠামোর বিস্তৃতি শুধু এই গনপূর্ত প্রতিষ্ঠানই নয় এছাড়াও সামাজিক চাহিদার সাথে সম্পর্কযুক্ত এবং ভৌত বিশ্বকে সহজ করার জন্য পানীয় এবং অন্যান্য ব্যবহারের জল সরবরাহ, সমাজের বর্জ্যগুলির নিরাপদ নিষ্পত্তি, যেখানে প্রয়োজন সেখানে শক্তি সরবরাহ এবং সম্প্রদায়ের মধ্যে তথ্য সঞ্চালন এর পরিচালনা পদ্ধতি, ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি, এবং উন্নয়ন নীতিকে বোঝায়। [৭]

অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন সংস্থা (OECD) যোগাযোগকেও অবকাঠামোর অংশ হিসেবে শ্রেণিভুক্ত করেছে।[৮]

আমেরিকার নির্মাণ প্রকৌশলীদের সমিতি প্রতি ২-৪ বছরে একটি আমেরিকান "অবকাঠামো প্রতিবেদন পত্র" প্রকাশ করে।[৯] ২০১৭ সাল পর্যন্ত, তারা ১৬টি বিভাগ ক্রমান্বয়ে সাজিয়েছে, যথা বিমানচালনা, সেতু, বাঁধ, পানীয় জল, জ্বালানি, বিপজ্জনক বর্জ্য, অভ্যন্তরীণ জলপথ, নদীতীরের বাঁধ, পার্ক এবং বিনোদন, বন্দর, রেল, সড়ক, বিদ্যালয়, কঠিন বর্জ্য, পরিবহন এবং বর্জ্য জল।[৯]

শক্ত অবকাঠামো হল একটি আধুনিক শিল্পায়িত জাতির কার্যকারিতা জন্য প্রয়োজনীয় ভৌত নেটওয়ার্ক।[১০] নরম অবকাঠামো হল একটি দেশের অর্থনীতি, স্বাস্থ্য, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক মান বজায় রাখার জন্য প্রয়োজনীয় প্রতিষ্ঠান, যেমন অর্থনৈতিক ব্যবস্থা, শিক্ষা ব্যবস্থা, স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা, সরকার ব্যবস্থা এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থার পাশাপাশি জরুরি পরিষেবা।[৫][১১]

সংকটপূর্ণ অবকাঠামো হল উল্লেখযোগ্যভাবে ক্ষতিগ্রস্ত বা ধ্বংস হয়েছে, একটি সিস্টেম বা সংস্থার কাজে গুরুতর বাধা হতে পারে এমন অবকাঠামো। ঝড়, বন্যা, বা ভূমিকম্প এর জন্য একটি শহরে নির্দিষ্ট পরিবহন রুট ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে, যেমন একটি নদী উপর সেতু ক্ষতিগ্রস্থ হলে লোক সরানো এবং জরুরী পরিষেবাগুলো পরিচালনায় সমস্যা হবে, এগুলো সংকটপূর্ণ অবকাঠামো হিসেবে গণ্য করা হবে। একইভাবে, অন লাইন বুকিং ব্যবস্থা একটি এয়ারলাইনের জন্য সংকটপূর্ণ অবকাঠামো হতে পারে। অবকাঠামোর এই উপাদানগুলি প্রাকৃতিক দুর্যোগের পর পুনরুদ্ধার প্রচেষ্টাকে কেন্দ্রীভূত করে।

সম্পর্কিত ধারণা[সম্পাদনা]

অবকাঠামো  শব্দটি নিম্নলিখিত অধিক্রমণ বা সম্পর্কিত ধারণাগুলির সাথে বিভ্রান্তি তৈরি করতে পারে।

ভূমি উন্নয়ন কোন কোন প্রেক্ষাপটে অবকাঠামোতে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে, কিন্তু অবকাঠামো নিয়ে আলোচনার প্রেক্ষাপটে ছোট পরিসরের ব্যবস্থা বা কাজ, নির্দিষ্ট সীমানার মধ্যে সীমিত, মালিকানাধীন এবং জমি মালিক দ্বারা পরিচালিত হয় বলে অবকাঠামোতে অন্তর্ভুক্ত হবে না। উদাহরণস্বরূপ, একটি সেচ খাল একটি অঞ্চল বা জেলার পরিসেবা প্রদান করে বলে অবকাঠামোতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে কিন্তু স্বতন্ত্র ভূমিতে ব্যক্তিগত সেচ ব্যবস্থাগুলিকে ভূমি সংস্কার হিসেবে বিবেচনা করা হবে। পৌর পরিষেবা এবং জনহিতকর পরিষেবার সম্পর্কিত সেবা, অবকাঠামো নয়, ভূমি উন্নয়ন হিসেবে বিবেচনা করা হবে।[১২][১৩]

গণপূর্ত শব্দটিতে সরকারি মালিকানাধীন এবং পরিচালিত অবকাঠামোর পাশাপাশি সরকারী দালান যেমন স্কুল এবং আদালত অন্তর্ভুক্ত হবে। গণপূর্ত শব্দটি সাধারণত জনসাধারণের সেবা প্রদানের জন্য প্রয়োজনীয় জড়সম্পদকে বোঝায়। জনসেবা বলতে সরকারী সেবা ও অবকাঠামো উভয়কেই বোঝায়।

মালিকানা এবং অর্থায়ন[সম্পাদনা]

অবকাঠামো সরকার বা বেসরকারি কোম্পানি মালিকানা ও পরিচালনা করতে পারে, যেমন সরকারি সুবিধা বা রেল কোম্পানি। সাধারণত, অধিকাংশ রাস্তা, প্রধান বিমানবন্দর এবং অন্যান্য বন্দর, জল বন্টন ব্যবস্থা, এবং বর্জ্য নিষ্কাশন নেটওয়ার্ক সরকারী মালিকানাধীন হলেও অধিকাংশ শক্তি এবং টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্কগুলি বেসরকারী মালিকানাধীন থাকে। সরকারি মালিকানাধীন অবকাঠামোকে কর, টোল বা পরিমাপকৃত ব্যবহারের ফি থেকে অর্থ প্রদান করা যেতে পারে, বেসরকারী অবকাঠামোতে সাধারণত পরিমাপকৃত ব্যবহারের ফি প্রদান করা হয়। প্রধান বিনিয়োগ প্রকল্পগুলো সাধারণত দীর্ঘমেয়াদী চুক্তিপত্র দিয়ে অর্থায়ন করা হয়।

সরকারি মালিকানাধীন এবং পরিচালিত অবকাঠামো, সরকারি খাতের সাথে সাথে বেসরকারি খাত বা সরকারি- বেসরকারি পার্টনারশিপে উন্নীত এবং পরিচালিত হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, যুক্তরাষ্ট্রে ২০০৮ সালের হিসাবে, অবকাঠামোতে জনসাধারণের ব্যয় ১৯৫০ থেকে জিডিপি'র ২.৩% এবং ৩.৬% এর মধ্যে।[১৪] অনেক আর্থিক প্রতিষ্ঠান অবকাঠামোগুলিতে বিনিয়োগ করছে।

ধরন[সম্পাদনা]

প্রকৌশল ও নির্মাণ[সম্পাদনা]

প্রকৌশলী গন সাধারণত বৃহৎ নেটওয়ার্কের আকারে নির্দিষ্ট সম্পত্তি বা কঠিন অবকাঠামো বর্ণনা করার জন্য "অবকাঠামো" শব্দটি ব্যবহার করে। অবকাঠামোর আরো সাধারণ সংজ্ঞার ক্ষেত্রে সাধারণত বেশীরভাগ কাঠামোর নেটওয়ার্ক দৃষ্টিভঙ্গি এবং সম্পত্তির হিসাবে নেটওয়ার্কে বিনিয়োগের সঞ্চিত মূল্যকে বোঝায় । ১৯৯৮ সালের সংজ্ঞা থেকে অবকাঠামো সম্পদের নেটওয়ার্ক হিসাবে সংজ্ঞায়িত "যেখানে সম্পূর্ণ সিস্টেমে অনির্দিষ্টকালের জন্য নির্দিষ্ট সেবা বজায় রাখার উদ্দেশ্যে এর উপাদানগুলির অব্যাহত প্রতিস্থাপন এবং পুনর্বিন্যাস করা হয়"[১৫]

অসামরিক প্রতিরক্ষা ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন[সম্পাদনা]

বেসামরিক প্রতিরক্ষা পরিকল্পক এবং উন্নয়নমূলক অর্থনীতিবিদরা সাধারণত সরকারী সেবার শক্ত ও নরম উভয় অবকাঠামোকেই বোঝান, যেমন বিদ্যালয়, হাসপাতাল, জরুরী সেবা যেমন পুলিশ, অগ্নি নির্বাপক এবং মৌলিক আর্থিক সেবা। সরকারী সংস্থার দীর্ঘমেয়াদী অবকাঠামো বিনিয়োগে, অবকাঠামো ভিত্তিক উন্নয়নের ধারণা, সরকারী বেসরকারী অংশীদারিত্বের সাথে কেন্দ্রীয় ও আঞ্চলিক পর্যায়ে, ইউরোপের মূল ভূখন্ড , ল্যাটিন আমেরিকা ও এশিয়ার ( উল্লেখযোগ্যভাবে সিঙ্গাপুর এবং চীন ) অর্থনীতিবিদদের মধ্যে জনপ্রিয় প্রমাণিত হয়েছে।

সামরিক[সম্পাদনা]

সামরিক অবকাঠামো হল সামরিক বাহিনীর সহায়তায় প্রয়োজনীয় ভবন এবং স্থায়ী স্থাপনা যেখানে তারা থাকে এবং তাদের অপারেশনে স্থাপন বা নিযুক্ত করা হয়। উদাহরণস্বরূপ, সেনানিবাস, সদর দফতর, বিমানবন্দর, যোগাযোগ সুবিধা, সামরিক সরঞ্জামের দোকান, বন্দর স্থাপন এবং রক্ষণাবেক্ষণ স্টেশন।[১৬]

সবুজ[সম্পাদনা]

সবুজ অবকাঠামো (বা নীল-সবুজ অবকাঠামো) ভূমি ব্যবহার পরিকল্পনার সিদ্ধান্তে প্রাকৃতিক পরিবেশের গুরুত্ব তুলে ধরে।[১৭][১৮] বিশেষ করে প্রাকৃতিক বাস্তুতন্ত্র এর দেয়া "জীবন রক্ষাকারী" ক্রিয়াকলাপ উপর জোর দিয়ে টেকসই উন্নয়নের আন্তঃসংযোগের উপর জোর দেওয়া হয়। উদাহরণস্বরূপ পরিষ্কার পানি এবং সুস্থ মৃত্তিকার পাশাপাশি আরো নৃবিজ্ঞানমূলক কার্যক্রম যেমন বিনোদন এবং শহর ও শহরের মধ্যে এবং চারপাশে ছায়া ও আশ্রয় প্রদান। প্রাকৃতিক পদ্ধতি ব্যবহারের মাধ্যমে স্থানীয় পর্যায়ে ঝড়োপানি ব্যবস্থাপনা, প্রাকৃতিক সিস্টেমের নকল প্রকৌশলিত সিস্টেম, দূষিত পানির ব্যবস্থাপনায় এই ধারণা বর্ধিত করা যেতে পারে।[১৯][২০]

মার্কসবাদ[সম্পাদনা]

মার্কসবাদ এ, "অবকাঠামো" শব্দটি দ্বন্দ্ববাদ এর সমন্বয়ী যুগল ভিত্তি এবং উপরিকাঠামো এ "ভিত্তি" এর সমার্থক হিসাবে কখনও কখনও ব্যবহৃত হয়। যাইহোক, "অবকাঠামো" শব্দটির অ-মার্কসবাদী ব্যবহারের চেয়ে "ভিত্তি" এর মার্কসবাদী ধারণা বৃহত্তর এবং মার্কসবাদীরা কিছু নমনীয় অবকাঠামো, যেমন আইন, শাসন, প্রবিধান, এবং মান "ভিত্তি" এর বদলে উপরিকাঠামোর অংশ বিবেচনা করবে।[২১]

যোগাযোগ[সম্পাদনা]

যোগাযোগ অবকাঠামো হল যোগাযোগের আনুষ্ঠানিক ও আনুষ্ঠানিক চ্যানেল, রাজনীতি এবং সামাজিক নেটওয়ার্ক বা বিশেষ দলের সদস্যদের বিশ্বাস, তথ্য প্রযুক্তি, সফটওয়্যার উন্নতির সরঞ্জাম। অবকাঠামোর আরো অন্তর্নিহিত ধারণাগত ব্যবহার হল একটি শহর, একটি জাতি, একটি কর্পোরেশন, বা সাধারণ স্বার্থের মানুষের একটি সংগ্রহকে সেবাদানকারী সিস্টেম বা প্রতিষ্ঠানের জন্য সংগঠিত কাঠামো এবং সহায়তা। উদাহরণ হল আইটি অবকাঠামো, গবেষণা অবকাঠামো, সন্ত্রাসী অবকাঠামো, কর্মসংস্থান অবকাঠামো এবং পর্যটন অবকাঠামো।

উন্নয়নশীল বিশ্বে[সম্পাদনা]

ওভারসিজ ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউটের গবেষকদের মতে, অনেক উন্নয়নশীল দেশগুলির অবকাঠামোর অভাব অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোলস (এমডিজিএস) এর অর্জনের পথে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সীমাবদ্ধতাগুলির একটি। অবকাঠামোতে বিনিয়োগ এবং রক্ষণাবেক্ষণ খুব ব্যয়বহুল হতে পারে, বিশেষত আফ্রিকার গ্রামাঞ্চলে, গ্রামে এবং বিচ্ছিন্ন জনবহুল দেশগুলির মতো এলাকায়। ১৯৯০ এবং ২০০৫ এর মধ্যে দেখা গেছে যে আফ্রিকার উন্নত বিকাশের অর্ধেকের বেশি অবকাঠামো বিনিয়োগে অবদান রাখে এবং উন্নতি ও দারিদ্র্য মোকাবেলা করার জন্য বিনিয়োগ বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। অবকাঠামো বিনিয়োগ থেকে আয় খুবই গুরুত্বপূর্ণ, প্রায় ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ টেলিযোগাযোগ (আইসিটি) বিনিয়োগের জন্য, বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য চল্লিশ শতাংশের বেশি এবং রাস্তার জন্য আশি শতাংশ আয় হয়।[২২]

আঞ্চলিক পার্থক্য[সম্পাদনা]

গ্রাহক এবং কোম্পানি উভয়ের অবকাঠামোর জন্য চাহিদা বিনিয়োগের পরিমাণের চেয়ে অনেক বেশি।[২২] এশিয়াতে অবকাঠামো ব্যবস্থার সরবরাহের সাপেক্ষে প্রচুর সীমাবদ্ধতা রয়েছে। [২৩] এশিয়া-প্যাসিফিকের মধ্যে অবকাঠামো অর্থায়ন ফাঁক হল প্রায় ১৮০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার যেখানে বিনিয়োগ করা হয় প্রায় ৪৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং প্রতি বছর প্রয়োজন প্রায় ১৮০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।[২২]

লাতিন আমেরিকা তে ২০০৫ এ জিডিপির তিন শতাংশ (প্রায় ৭১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার) চাহিদা মেটানোর জন্য অবকাঠামোতে বিনিয়োগ করতে হবে, যেখানে, প্রায় ২৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের একটি অর্থায়ন ফাঁক রেখে শুধুমাত্র প্রায় দুই শতাংশ বিনিয়োগ করা হয়েছিল।[২২]

আফ্রিকায় ২০১৫ সালের মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোলে পৌঁছাতে পূর্বনির্ধারিত সাত শতাংশ বার্ষিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে জিডিপির প্রায় ১৫ শতাংশ অবকাঠামো বিনিয়োগ প্রয়োজন বা বছরে প্রায় ৯৩ বিলিয়ন ডলার । অস্থিতিশীল রাজ্যে জিডিপির ত্রিশ শতাংশের বেশি প্রয়োজন হবে।[২২]

অর্থায়ন উৎস[সম্পাদনা]

অর্থায়ন উৎসগুলি বিভিন্ন ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্যভাবে পরিবর্তিত হয়। কিছু খাত সরকারের খরচ দ্বারা প্রভাবিত হয়, কিছু বিদেশী উন্নয়ন সহায়তা (ওডিএ) দ্বারা আর বাকী গুলো বেসরকারী বিনিয়োগকারী দ্বারা।[২২]

সাহারা-নিম্ন আফ্রিকায়, সরকার ২৪.৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের এর মধ্যে প্রায় ৯.৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ করে। সরকারের প্রায় সব খরচ সেচে হয় । পরিবহন ও শক্তিতে মোট বিনিয়োগের সংখ্যাগরিষ্ট ব্যয় সরকারের। আইসিটি ও পানি সরবরাহ এবং স্বাস্থ্যব্যবস্থায়, বেসরকারী খাত সবচেয়ে বেশি ব্যয় করে। সামগ্রিকভাবে, বেসরকারি খাত ও অ-অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন সংস্থার সাহায্য সরকারি ব্যয়কে অতিক্রম করে। অধিকাংশ বিনিয়োগ আইসিটি অবকাঠামোতে করা স্বত্বেও শুধুমাত্র বেসরকারী খাতের খরচ রাষ্ট্রীয় মূলধন ব্যয়ের সমান। বহিরাগত অর্থায়ন ২০০০ এ (দশক) বৃদ্ধি পেয়েছে এবং আফ্রিকায় অবকাঠামোতে বিদেশী বিনিয়োগ ২০০২ সালের  ৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার থেকে ২০০৯ সালে  ২৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে বৃদ্ধি পেয়েছে।[২২] বিশেষ করে চীন, একটি গুরুত্বপূর্ণ বিনিয়োগকারী হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Define Infrastructure"ডিকশনারি.কম (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  2. O'Sullivan, Arthur; Sheffrin, Steven M. (২০০৩)। Economics: Principles in Action (ইংরেজি ভাষায়)। Upper Saddle River, New Jersey 07458: Pearson Prentice Hall। পৃষ্ঠা 474। আইএসবিএন 0-13-063085-3 
  3. Fulmer, Jeffrey (২০০৯)। "What in the world is infrastructure?"। PEI Infrastructure Investor (ইংরেজি ভাষায়) (July/August): 30–32। 
  4. Harper, Douglas। "Infrastructure"অনলাইন এটিমোলোজি ডিকশনারি (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  5. "Soft Infrastructure – Definition" (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১১-০৭-২৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  6. Lewis, Stephen। "The Ecology of Infrastructure and the Infrastructure of the Internet"hakpaksak (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  7. Infrastructure for the 21st Century, Washington, D.C.: National Academy Press, 1987.
  8. OECD Economic Infrastructure. Common Reporting Standard (CRS) Codes 2 pages, n.d.
  9. 2017 Infrastructure Report, 112pp, American Society of Civil Engineers, 2017
  10. The soft infrastructure of a market economy আর্কাইভ 2011-03-28 at the Wayback Machine. William A. Niskanen, 1991, Cato Journal, Vol.11, No.2, 233-238, Cato Institute
  11. "Infrastructure in India" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১১-০৭-০৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  12. "Land improvement"অনলাইন বিজনেস ডিকশনারি (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  13. "Land development"অনলাইন বিজনেস ডিকশনারি (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  14. The New York Times, "Money for Public Projects", November 19, 2008 (accessed January 26, 2009)
  15. Association of Local Government Engineers New Zealand: "Infrastructure Asset Management Manual", June 1998 - Edition 1.1
  16. D.O.D. Dictionary of Military and Associated Terms, 2001 (rev. 2005)
  17. "Green Infrastructure"The Conservation Fund, Arlington, VA. (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  18. Maryland Department of Natural Resources, Annapolis, MD. Maryland's Green Infrastructure Assessment: A Comprehensive Strategy for Land Conservation and Restoration. আর্কাইভ 2008-03-09 at the Wayback Machine. May 2003.
  19. U.S. Environmental Protection Agency (EPA), Washington, D.C., et al., Green Infrastructure Statement of Intent. 2007-04-19. আর্কাইভ May 12, 2009, at the Wayback Machine.
  20. EPA et al. "Managing Wet Weather with Green Infrastructure: Action Strategy 2008." January 2008. আর্কাইভ May 12, 2009, at the Wayback Machine.
  21. "Marx, Karl Heinrich (1818–1883)"anthrobase (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  22. Christian K.M. Kingombe 2011. Mapping the new infrastructure financing landscape. London: Overseas Development Institute
  23. Peter McCawley (2010), 'Infrastructure Policy in Developing countries', Asian-Pacific Economic Literature, 24(1), May. See also Asian-Pacific Economic Literature Policy Brief No 19, May 2010, on 'Infrastructure policy in developing countries in Asia'.

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]

  • Ascher, Kate; researched by Wendy Marech (২০০৭)। The works: anatomy of a city (ইংরেজি ভাষায়) (পুনর্মুদ্রিত সংস্করণ)। New York: Penguin Press। আইএসবিএন 978-0143112709 
  • Larry W. Beeferman, "Pension Fund Investment in Infrastructure: A Resource Paper", Capital Matter (Occasional Paper Series), No.3 December 2008
  • A. Eberhard, "Infrastructure Regulation in Developing Countries", PPIAF Working Paper No. 4 (2007) World Bank
  • M. Nicolas J. Firzli and Vincent Bazi, "Infrastructure Investments in an Age of Austerity : The Pension and Sovereign Funds Perspective", published jointly in Revue Analyse Financière, Q4 2011 issue, pp. 34–37 and USAK/JTW July 30, 2011 (online edition)
  • Hayes, Brian (২০০৫)। Infrastructure: the book of everything for the industrial landscape (ইংরেজি ভাষায়) (১ম সংস্করণ)। New York City: Norton। আইএসবিএন 978-0393329599 
  • Huler, Scott (২০১০)। On the grid: a plot of land, an average neighborhood, and the systems that make our world work (ইংরেজি ভাষায়)। Emmaus, Penn.: Rodale। আইএসবিএন 978-1-60529-647-0 
  • Georg Inderst, "Pension Fund Investment in Infrastructure", OECD Working Papers on Insurance and Private Pensions, No. 32 (2009)
  • Dalakoglou, Dimitris (২০১৭)। The Road: An Ethnography of (Im)mobility, space and cross-border infrastructures (ইংরেজি ভাষায়)। Manchester: Manchester University Press/ Oxford university Press। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]