হাফসা সুলতান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হাফসা সুলতান
BustOfAyseHafsaSultan ManisaTurkey.jpg
তুরস্কের মানিসায় অবস্থিত আয়শে হাফসা সুলতানের আবক্ষ মূর্তি
উসমানীয় সাম্রাজ্যের ভালিদে সুলতান
রাজত্বকাল৩০শে সেপ্টেম্বর ১৫২০ – ১৯শে মার্চ ১৫৩৪
পূর্বসূরিগুলবাহার হাতুন
(ভালিদে হাতুন হিসেবে)
উত্তরসূরিনুরবানু সুলতান
জন্মআনু. ১৪৭৮[১]
মৃত্যুমার্চ ১৫৩৪ ( ৫৫–৫৬ বছর বয়সকালে)[২]
ইস্তাম্বুল, উসমানীয় সাম্রাজ্য
সমাধিইয়াভুজ সেলিম মসজিদ, ফাতিহ, ইস্তাম্বুল
দাম্পত্য সঙ্গীপ্রথম সেলিম
বংশধরপ্রথম সুলাইমান
হেতিজা সুলতান
ফাতমা সুলতান
পূর্ণ নাম
আয়শে হাফসা সুলতান
পিতাপ্রথম মেনলি গিরাই[৩](বিতর্কিত) বা আবদুল-মুইন[৪][৫] অথবা আব্দুলহাই[৫]

আয়েসা হাফসা সুলতান ছিলেন অটোমান সম্রাট সুলতান সুলাইমান প্রথম (দ্য ম্যাগনিফিকেন্ট) এর মা। তাঁর স্বামী ছিলেন সুলতান সেলিম প্রথম (দ্য স্ট্রং)। হাফসা সুলতান প্রথম 'ভালিডে সুলতান' শব্দটি চালু করেছিলেন। তিনি ভালিডে সুলতান কারণ তিনি তাঁর পুত্র সুলতান প্রথম সুলেইমানের এর মা ছিলেন। তিনি তাঁর ছেলের রাজত্বকালের অন্যতম প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব ছিলেন। রাজ পরিবারের সুলতানদের স্ত্রী ও কন্যার নাম শেষে হাফসা সুলতান 'সুলতান' উপাধি যুক্ত করেছিলেন এবং তিনিই এটিকে পরিচয় করিয়ে দেন। অটোমান সাম্রাজ্যের অনেক দিক বেগম সুলতানা অর্থাৎ হাফসা সুলতানের উপর নির্ভরশীল ছিল। তিনি ইতিহাসের ‘ভালিডে’ এবং সুলতানাদের নাম শেষে সম্মানসূচক উপাধি ‘সুলতান’ এর প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। তিনি সুলতান সেলিম প্রথমের প্রধান সুলতানাও ছিলেন। আর হাফসা সুলতানা দাসী হিসাবে নয়, 'সুলতানা' হিসাবে বিবাহিত হয়ে টোক্কাপি প্রাসাদে এসেছিলেন।

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

ঐতিহ্যগত দৃষ্টিভঙ্গি অনুসারে, হাফসা সুলতান  ১৪৬৬ থেকে ১৫১৫ খ্রিস্টাব্দের মধ্যকার অধিকাংশ সময় জুড়ে শাসন করা ক্রিমিয়ার তাতারদের খান প্রথম মেনলি গিরায়(১৪৪৫-১৫১৫) এর কন্যা হওয়ার মতবাদটি সপ্তদশ শতাব্দীর পশ্চিমা লেখকদের বিবরণ অবলম্বনে, উসমানীয় দলিলসংক্রান্ত প্রমাণের উপর ভিত্তি করে খ্রিস্টান ক্রীতদাস বংশীয় হওয়ার পক্ষে দাবি উত্থাপন করা হয়েছে।[৬][৭] যদিও হাফসা সুলতানের উৎপত্তি নিয়ে ব্রায়ান গ্লিন উইলিয়ামস সহ কতিপয় ঐতিহাসিকগণ এখনও ঐতিহ্যগত দৃষ্টিভঙ্গি অনুসরণ করেন।[৩] রেশাত কাসাবা, প্রথম সেলিম এবং হাফসা সুলতানের বিবাহের কথা উল্লেখ করে বলেন, ''উসমানীয় সুলতান এবং একটি পার্শ্ববর্তী মুসলিম রাজকীয় পরিবারের সদস্যের মধ্যকার শেষ বিবাহ''। তবে এসিন আদিল বলেন যে, কিছু ঐতিহাসিকগণ বলে থাকেন যে তিনি গিরাই এর কন্যা ছিলেন যখন অন্য ঐতিহাসিকগণ ''আয়শে'' নামক ক্রিমিয়ার রাজকন্যার কথা উল্লেখ করেন যে,  যিনি প্রথম সেলিমের আরেকজন স্ত্রী ছিলেন এবং সম্ভবত ''হাফসা''  ক্রীতদাস বংশীয় হতে পারেন।[৫] ইলিয়া জায়েদসেভ দাবি করেন যে, প্রথম মেনলি গিরায় এর কন্যা আয়শে প্রথমে কেফের গভর্নর শাহজাদা মেহমেতের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন এবং পরবর্তীতে  তিনি প্রথম সেলিমকে বিবাহ করেন;  ফলস্বরূপ, উসমানীয় রাজবংশে তার বিয়ে ছিল গিরাই এবং উসমানীয়দের মধ্যে হওয়া দুটি উল্লেখযোগ্য বিবাহের মধ্যে একটি (অন্য বিয়েটি ছিল প্রথম সাদাত গিরায় এর সাথে প্রথম সেলিমের কন্যার বিবাহ)।[৮] এলান ডব্লিউ. ফিশার, লেসলি পিয়ার্স এবং ফেরিদুন এমেসেনদের প্রত্যেকেই হাফসাকে ক্রীতদাস বংশীয় হিসেবে দেখেন, ক্রিমিয়ার খানের কন্যা হিসেবে নয়।[৯]

জীবনকাল[সম্পাদনা]

কুল্লিয়ে'টি(মসজিদ কেন্দ্রিক দালানের স্থাপনা) হাফসা সুলতানের আদেশে মানিসায় স্থাপিত হয়েছিল। এটি সংলগ্ন সুলতান মসজিদের অংশ।

হাফসা সুলতান, তাঁর ছেলে সুলেমানের(যিনি ১৫১৩ থেকে ১৫২০ সাল পর্যন্ত মানিসা এবং আশেপাশের অঞ্চলসমূহ শাসন করেছিলেন) সাথে পশ্চিম তুরস্কের মানিসা শহরে(শহরটি ভবিষ্যত ক্ষমতার জন্য উসমানীয় যুবরাজদের (শাহজাদা) শিক্ষানবিশির ঐতিহ্যবাহী আবাসস্থল হিসেবে গণ্য হতো) বসবাস করাকালীন মাসির উৎসব নামক স্থানীয় উৎসবের প্রবর্তন করেন যা আজও প্রচলিত। তিনি সুলতান মসজিদ নামক একটি মসজিদকে কেন্দ্র করে একটি বিশাল কমপ্লেক্স, একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়, একটি মহাবিদ্যালয় এবং একটি ধর্মশালা নির্মাণ করান।

তিনি হলেন উসমানীয় সাম্রাজ্যের প্রথম নারী যিনি তাঁর নামে হাতুন উপাধি বদলেসুলতান উপাধি ধারণ করেছিলেন। উপাধির এই ব্যবহার উসমানীয় ধারণাব্যবস্থাকে  পারিবারিক বিশেষাধিকারের সার্বভৌম শক্তি হিসাবে প্রতিবিম্বিত করে।[১০] ফলস্বরূপ, ''ভালিদে হাতুন''(ষষ্ঠদশ শতাব্দীর পূর্বে গদিনাসীন সুলতানের জীবিত মাতার ব্যবহৃত উপাধি) উপাধিকে ভালিদে সুলতান-এ রূপান্তর করে, যা হাফসা সুলতানকে প্রথম ভালিদে সুলতান-এ পরিণত করে। তাঁর শাসনকাল সুলতানের মায়ের পরিবর্তিত পদমর্যাদা এবং ক্ষমতায় তাঁর অংশীদারত্বের ইঙ্গিত দেয়।[১১] এছাড়া তিনি হারেমের প্রথম মহিলা ছিলেন যিনি সর্বপ্রথম নির্ধারিত কিরা(উসমানীয় রাজবংশের নারীদের প্রতিনিধি) রেখেছিলেন যার নাম ছিল স্ত্রোনগিলাহ।[১২]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

হাফসা সুলতানের সমাধির প্রবেশদ্বার

হাফসা সুলতান ১৫৩৪ সালের মার্চ মাসে মৃত্যুবরণ করেন এবং ইস্তাম্বুলের ফাতিহ-এ অবস্থিত ইয়াভুজ সেলিম মসজিদের ক্বিবলা প্রাচীরের পেছনে একটি সমাধিস্তম্ভে তাঁর স্বামী সুলতান সেলিমের সন্নিকটে তাঁকে সমাধিস্থ করা হয়। সমাধিসৌধটি ১৮৮৪ সালের ভূমিকম্পে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলো। ১৯০০-এর দশকে সেটি পুনর্নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হলেও তা অসম্পূর্ণই থেকে যায় এবং তাঁর মাজার মূলত যেভাবে নির্মিত হয়েছিলো বর্তমানে তার চেয়ে অনেক অনাড়ম্বর দেখায়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Sakaoğlu, Necdet (২০০৮)। Bu mülkün kadın sultanları: Vâlide sultanlar, hâtunlar, hasekiler, kadınefendiler, sultanefendiler। Oğlak Yayıncılık। পৃষ্ঠা 199। আইএসবিএন 978-9-753-29623-6 
  2. পিয়ার্সে, লেসলি পি. (১৯৯৩)। The Imperial Harem: Women and Sovereignty in the Ottoman Empire। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 121আইএসবিএন 0-19-508677-5 
  3. Glyn Williams, Brian (২০০১)। The Crimean Tatars: The Diaspora Experience and the Forging of a Nation। Brill Publishers। পৃষ্ঠা 56। আইএসবিএন 0295801492Ottoman princes, such as the future Ottoman Sultans Selim I (who married Mengli Giray Khan's daughter, Hafsa Hatun... 
  4. Sakaoğlu, Necdet (২০০৮)। Bu mülkün kadın sultanları: Vâlide sultanlar, hâtunlar, hasekiler, kadınefendiler, sultanefendiler। Oğlak Yayıncılık। পৃষ্ঠা 148। আইএসবিএন 978-9-753-29623-6  (Her name is given as "Hafsa bint-i Abdü'l-Muin" in Kitâbeler by İ. H. Uzunçarşılı. This shows that she was of non-Turkish origin, and later converted to Islam.)
  5. Atıl, Esin (১৯৮৭), The Age of Sultan Süleyman the Magnificent, National Gallery of Art, পৃষ্ঠা 27, আইএসবিএন 0810918552, Some historians state that she was the daughter of Mengili Giray Han, the ruler of the Crimean Tatars. Others mention that Ayse, another wife of Selim I, was the Crimean princess and give as Hafsa's father a man named Abdulmumin or Abdulhay, and unknown person - suggesting that she was of slave origin. 
  6. Alan Fisher (১৯৯৩)। "The Life and Family of Suleyman I"। Süleymân The Second [i.e. the First] and his time। Isis Press। 
  7. Encyclopedia of Islam vol. IX (1997), s.v. Suleyman p.833
  8. Zaytsev, Ilya (২০০৬), "The Structure of the Giray Dynasty (15th-16th centuries): Matrimonial and Kinship Relations of the Crimean Khans", Kinship in the Altaic World: Proceedings of the 48th Permanent International Altaistic Conference, Moscow 10-15 July 2005, Otto Harrassowitz Verlag, পৃষ্ঠা 341, আইএসবিএন 3447054166, Only two instances concerning the Ottomans are noted. Ayshe (daughter of Mengli-Giray I) was married to şehzade and governor of Kefe Mehmed, and to his brother Selim I later on (917/1511). Sultan Selim's daughter was married to Saadet-Giray. 
    • Alan Fisher (১৯৯৩)। "The Life and Family of Süleymân I"। İnalcık, Halil; Cemal Kafadar। Süleymân The Second [i.e. the First] and His Time। Istanbul: Isis Press। পৃষ্ঠা 9। আইএসবিএন 975-428-052-5 
    • Emecen, Feridun (২০১০)। "Süleyman I"। İslâm Ansiklopedisi38। İslâm Araştırmaları Merkezi। পৃষ্ঠা 62–74। Information indicating that she was the daughter of the Crimean Khan or was related to the family of Dulkadıroğlu is incorrect. 
    • Peirce, Leslie (১৯৯৩)। The Imperial Harem: Women and Sovereignty in the Ottoman Empire। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 40আইএসবিএন 0-19-508677-5 
  9. Peirce, Leslie P. (১৯৯৩)। The Imperial Harem: Women and Sovereignty in the Ottoman Empire। Oxford University Press। আইএসবিএন 0-19-508677-5 
  10. Amy Singer (২০০২)। Constructing Ottoman beneficence: An imperial soup kitchen in Jerusalem। State University of New York Press। পৃষ্ঠা 90আইএসবিএন 0-7914-5351-0 
  11. Minna Rozen: A History of the Jewish Community in Istanbul, The Formative Years, 1453 – 1566 (2002).

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

উসমানীয় রাজপদবী
পূর্বসূরী
গুলবাহার হাতুন
(ভালিদে সুলতান হিসেবে)
ভালিদে সুলতান
৩০শে সেপ্টেম্বর ১৫২০ – ১৯শে মার্চ ১৫৩৪
উত্তরসূরী
নুরবানু সুলতান