হেতিজা সুলতান (প্রথম সেলিমের কন্যা)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

হেতিজা সুলতান (উসমানীয় তুর্কি: خدیجه سلطان; Ḫadīce Sulṭān) ছিলেন একজন উসমানীয় শাহজাদী, প্রথম সেলিমহাফসা সুলতানের কন্যা। তিনি প্রথম সুলাইমানের বোন।

হেতিজা সুলতান
İstanbul - Yavuz Selim Camii - Mart 2013 - r3.JPG
ইস্তাম্বুলের ইয়াভুজ সুলতান সেলিম মসজিদের অভ্যন্তরে হেতিজা সুলতানের সমাধি অবস্থিত।
জন্মআনু. ১৪৯৫[১]
ইস্তাম্বুল, উসমানীয় সাম্রাজ্য
মৃত্যু১৫৪৩ এর পরে[১]
ইস্তাম্বুল, উসমানীয় সাম্রাজ্য
সমাধিইয়াভুজ সেলিম মসজিদ, ইস্তাম্বুল, উসমানীয় সাম্রাজ্য
দাম্পত্য সঙ্গীকাপুতান ইস্কান্দার পাশা
বংশধরহানিম সুলতান (মৃত্যু ১৫৮২)
রাজবংশঅটোমান
পিতাপ্রথম সেলিম
মাতাহাফসা সুলতান
ধর্মইসলাম

জীবন বৃত্তান্ত[সম্পাদনা]

হেতিজার জন্ম তারিখটি অজানা, তবে তার জন্ম ১৪৯৪ সালের আগেই হয়েছিল।[২] তিনি শাহজাদা সেলিমের (ভবিষ্যতের প্রথম সেলিম) এবং তাঁর পত্নী হাফসার মেয়ে ছিলেন। তিনি ১৫০৯ সালে দামাত(জামাতার ফার্সি প্রতিশব্দ) ইস্কান্দার পাশাকে বিয়ে করেছিলেন, তিনি ছিলেন অটোম্যান গভর্নর এবং পরে অ্যাডমিরাল যার ১৫১৫ সালে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়েছিলো।[২]

এটি দীর্ঘদিন ধরে বিশ্বাস করা হয়েছিল যে হেতিজা সুলতান পরবর্তীকালে উজিরে আজম পারগালি ইব্রাহিম পাশাকে বিয়ে করেছিলেন। যাইহোক, ইতিহাসবিদ এবরু তুরান দ্বারা পরিচালিত ২০০০ এর দশকের শেষের দিকে গবেষণায় প্রকাশিত হয়েছিল যে এই দাবিটি কোন প্রমাণের ভিত্তিতে নয় এবং বাস্তবে তাদের মধ্যে এইরকম কোনও বিবাহ কখনও হয়নি। ফলস্বরূপ,ঐতিহাসিকরা এখন সাধারণত একমত হন যে ইব্রাহিম হেতিজাকে নয়, অন্য এক মহিলা মুহসিন হাতুনকে বিয়ে করেছিলেন।[৩]

বিবাহ বিতর্ক[সম্পাদনা]

ইব্রাহিম পাশা ও হেতিজা সুলতানের বিবাহ চলমান বিতর্কের বিষয়। যদিও ঐতিহাসিকরা নিশ্চয়তা দিয়েছেন যে পাশা সুলেমানের এক বোনকে বিয়ে করেছিলেন, তবে এটি প্রমাণ করার মতো কোনও উৎস পাওয়া যায় নি। লিখিত সূত্রে ইব্রাহিম পাশার বিবাহ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া গেলেও তিনি কাকে বিয়ে করেন সে সম্পর্কে কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি। ইব্রাহিম পাশা ১৫২৪ সালের মে মাসে ঘোড়া চত্বরে একটি বিবাহ অনুষ্ঠানে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।[৪] বিবাহের সময় সেনাবাহিনীর উপস্থিতি বিশেষত সুলতানকে উল্লেখ করা হয়েছিল।[৫][৬]

হামারের মতো আধুনিক ইতিহাসবিদরা প্রায়শই ধরে নিয়েছিলেন যে, ইব্রাহিম পাশার বিয়েতে সুলতানের অংশগ্রহণ নির্দেশ করে যে ইব্রাহিম পাশার স্ত্রী কেবল সুলেমানের বোনদের একজনই হতে পারেন। তুর্কি ইতিহাসবিদ ইসমাইল হাক্কি উজুনারালি , অটোমান সাম্রাজ্যের গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন যা বিশ শতকের মাঝামাঝি সময়ে আরও সমর্থন লাভ করেছিল এবং তিনি বলেছিলেন যে ইব্রাহিম পাশা হেতিজা সুলতানকে বিয়ে করেছিলেন এবং তাঁর মর্যাদা বাড়িয়েছেন। পরবর্তীতে উজুনারালি একটি নিবন্ধ প্রকাশ করে স্বীকার করেছিলেন যে তিনি আগের উল্লেখকৃত বিষয়ে ভুল ছিলেন এবং ইব্রাহিম পাশার স্ত্রী কোনও অটোমান রাজকন্যা ছিলেন না।

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে[সম্পাদনা]

ডাবিংকৃত তুর্কি ধারাবাহিক সুলতান সুলেমানে হেতিজা চরিত্রে অভিনয় করেন তুর্কি-জার্মান অভিনেত্রী Selma Ergeç[৭]ধারাবাহিকে তার স্বামীর নাম ছিল ইব্রাহিম। তার দুই সন্তান ওসমান ও হুরিজিহান।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Sakaoğlu, Necdet (২০০৮)। Bu mülkün kadın sultanları: Vâlide sultanlar, hâtunlar, hasekiler, kadınefendiler, sultanefendiler। Oğlak Yayıncılık। পৃষ্ঠা 202। আইএসবিএন 978-9-753-29623-6 
  2. Peirce, Leslie (১৯৯৩)। The Imperial Harem: Women and Sovereignty in the Ottoman Empireবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। Oxford: Oxford University Press। পৃষ্ঠা 304n62আইএসবিএন 0-19-508677-5 
  3. Turan, Ebru (২০০৯)। "The Marriage of Ibrahim Pasha (ca. 1495-1536): The Rise of Sultan Süleyman's Favorite to the Grand Vizierate and the Politics of the Elites in the Early Sixteenth-Century Ottoman Empire"। Turcica41: 3–36। 
    • Şahin, Kaya (২০১৩)। Empire and Power in the reign of Süleyman: Narrating the Sixteenth-Century Ottoman World। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 51। আইএসবিএন 978-1-107-03442-6 
    • Peirce, Leslie (২০১৭)। Empress of the East: How a European Slave Girl Became Queen of the Ottoman Empire। Basic Books। পৃষ্ঠা 157। Muhsine, granddaughter of an illustrious statesman, is now largely accepted as Ibrahim's wife. 
  4. Turan। ২০০৯। 
  5. LaMartineHammer। ২০১১। 
  6. Celâlzâde 
  7. "'Hatice Sultan woman of love'"Hürriyet Daily News (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১১-০৩