শয়তানের বাণী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

"শয়তানের বাণী" বা স্যাটানিক ভার্সেস নামে বহুল প্রচলিত শব্দগুলো দ্বারা সেই সমস্ত আয়াত বা বাক্যকে বোঝানো হয়, যা ইসলামের শেষ নবী মুহাম্মদ ভুল বশতঃ আল্লাহ কর্তৃক প্রেরিত আসমানী বাণী মনে করেছিলেন বলে দাবী করা হয়।[১] কথিত এই আয়াতগুলো আল-ওয়াকিদী,ইবনে সা'দ, ও ইবনে ইসহাক রচিত সীরাতে এবং আল-তাবারির তাফসীরে পাওয়া যায়।[২] "স্যাটানি ভার্সেস" অভিব্যক্তির প্রথম ব্যবহার ১৮৫৮সালে স্যার উইলিয়াম মুয়ার করেন। [৩]

বর্তমানে অনেক মুসলমান স্কলার ইজমা'র ভিত্তিতে এই ঘটনার ঐতিহাসিকতা অস্বীকার করেন। কেননা, উল্লেখ্য ঘটনাটি "মুহম্মদ কখনোই শয়তানের ধোঁকায় বোকা হননি" এরূপ মতবাদের বিরূদ্ধে যায়।[১][৪][৫] অবশ্য ধর্মনিরপেক্ষ পণ্ডিতরা, মুসলমান জীবনীরচয়িতারা নিজেদের নবী নিয়ে মিথ্যে কুৎসা রটাবেন না এই বিবেচনায় শয়তানের আয়াত প্রবর্তন ঘটনা স্বীকার করেন।[৬][৭]

সাধারন আখ্যান[সম্পাদনা]

এই ঘটনার একাধিক বর্ণনা একাধিক মাধ্যম থেকে এসেছে। প্রতিটি ঘটনা বর্ণনার মাঝে পার্থক্য থাকলে, এর সাধারন আখ্যান মূলতঃ একই বার্তা প্রদান করে। সবগুলো বর্ণনাই অবশ্য একজন বর্ণনাকারী মুহাম্মদ ইবনে কা'ব পর্যন্ত যায়। মুহাম্মদ ইবনে কা'ব ছিলেন মুহাম্মদের জীবনীলেখক ইবনে ইসহাকের দুই প্রজন্ম পরের বর্ণনাকারী।[২] ঘটনাটির বর্ণনাতে বলা হয় যে, মুহাম্মদ তার মক্কার প্রতিবেশী ও আত্মীয়স্বজনদের ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত করতে চেয়েছিলেন। এজন্যই তিনি, ফেরেশতা জিব্রাইল কর্তৃক নিয়ে আসা সুরা আন-নাজম এর তিনটি আয়াত [৮] পাঠ করেন।

আপনি কি ভেবেছেন লাতউজ্জা সম্পর্কে?
এবং তৃতীয় আরেকটি মানাত সম্পর্কে?
( কুরআন ৫৩, ১৯-২০)

শয়তান তাকে নিম্নলিখিত লাইনটি উচ্চারণ করতে প্ররোচিত করেছিল:

এরা হলেন উচ্চমানের gharāniq, যাদের মধ্যস্থতা আশা করা যায়। (আরবীতে تلك الغرانيق العلى وإن شفاعتهن لترتجى। )

লাত, উজ্জা এবং মানাত হচ্ছে মক্কাবাসী উপাসনা করত এরকম তিন দেবী। "Gharāniq" এর অর্থ নির্ণয় করা কঠিন কেননা এটি হলো hapax legomenon (অর্থাত শুধুমাত্র একবারই এই বাক্যে ব্যবহৃত হয়েছে)। অনেকের মতে এর অর্থ " সারস "। আরবিতে সাধারণত "সারস" পাখি ওখাতে এই শব্দ ব্যবহার হয়। যার একবাচক শব্দ ghirnīq, ghurnūq, ghirnawq ghurnayq। শব্দটি কাক, দাঁড়কাক ও ঈগল পাখিবিশেষের জন্যেও প্রচলিত।

মুসলিম সমাজে ব্যাখ্যা[সম্পাদনা]

আদি ইসলাম[সম্পাদনা]

শয়তানের বাণীর ঘটনাটি ইসলামের প্রথম দুই শতাব্দীতে তাফসীর ও সীরা-মাগহাজী সাহিত্যে বর্ণিত আছে[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

ইবনে তাইমিয়াহর মতে: "প্রাথমিক ইসলামী পণ্ডিতগণ (সালাফ) সম্মিলিতভাবে সারসের আয়াতগুলোতে কোরআনের সাথে সম্পৃক্ত হিসেবে মেনে নিতেন। পরবর্তী আগত আলেমদের (খালাফ) থেকে যারা প্রথম পণ্ডিতদের মতামত অনুসরণ করেছিল, তারা বলে যে এই ঐতিহ্যগুলোকে খাঁটি বর্ণনার সাথে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে এবং এগুলি অস্বীকার করা অসম্ভব এবং কোরআন নিজেই এর সাক্ষ্য দিচ্ছে। " [৯]

মুহাম্মদের সবচেয়ে প্রথম জীবনী, ইবনে ইসহাক (– ৭৬১-৭৬৭) হারিয়ে গেলেও তার সংগ্রহকৃত তথ্যাবলি মূলতঃ দুই উৎসে টিকে আছে। ইবনে হিশাম (৮৩৩) এবং আল-তাবারি (৯১৫)। শয়তানের বাণী প্রবর্তনের এই ঘটনাটি আল-তাবারিতে প্রকাশিত হয়েছে। তিনি ইবনে ইসহাক থেকে এই তথ্য সঙ্গিগ্রহ করেন। তবে ইবনে হিশামে এই ঘটনা লিপিবদ্ধ করা হয় না। অবশ্য তিনি স্বীকার করেন, এই ঘটনা "কিছু মানুষকে অস্বস্তিকর অবস্থায় ফেলতে পারে" বলেই এরূপ করা হয়েছে। [১০] মুহাম্মদের প্রথম দিককার জীবনী রচয়িতা ইবনে সাদআল-ওয়াকিদীও ঘটনাটি বর্ণনা করেছেন। [১১] উরি রুবিন, শাহাব আহমেদ এবং গিলিয়ামের মতো পণ্ডিতদের ধারণা ছিল যে এই প্রতিবেদনটি ইবনে ইসহাক থেকেই এসেছে। যদিও আলফোর্ড টি। ওয়েলশ এর ধারণা খব সম্ভবত ইবনে ইসহাকে এই রকম কিছুর বর্ণনা ছিলো না। [১২]

মধ্যযুগীয় সময়কাল[সম্পাদনা]

প্রকৃত সূত্রের উপস্থিতির অভাবে শয়তানের বাণীর ঘটনাটি কোন হাদীসে সংকলিত হয় নি। (যদিও ঘটনার সম্ভাব্য সংক্ষিপ্ত সংস্করণগুলো উপলব্ধ্য) এই শয়তানের বাণী সম্পর্কিত তথ্যসূত্র ও সমালোচনা সম্পর্কে প্রাথমিক ইতিহাসে প্রদর্শিত হয়েছে। [১৩][১৪][১৫] তাবারির তাফসীর ছাড়াও, মুকাতিলে তাফসীর, আব্দুর র-রাজ্জাক ও ইবনে কাসীর সেইসাথে আবু জাফরের নাসখে এই বাণী সম্পর্কে আলোচিত হয়েছে। ওয়াহিদির asbāb এমনকি মধ্য যুগের শেষের দিকে সুউতির সংকলন আল দুর আল মান্থুর ফিল তাফসীর বিল মাথুর এপ্রসঙ্গে উল্লেখযোগ্য।

ঐতিহাসিকতার বিতর্ক[সম্পাদনা]

উইলিয়াম ম্যুরের পর প্রাচ্যের বিশেষজ্ঞরা এই ঘটনার ঐতিহাসিকতা মেনে নিয়েছিলেন। [৭] যদিও কিছু প্রাচ্যের বিশেষজ্ঞ অবশ্য বিভিন্ন ভিত্তিতে এই বাণীগুলির ঐতিহাসিক সত্যতার বিরুদ্ধে প্রশ্ন করেছিলেন। [১৬]

উইলিয়াম মন্টগোমেরি ওয়াট এবং আলফ্রেড গিলোয়াম দাবি করেছেন যে মুসলমানরা তাদের নবীর ব্যাপারে ঋণাত্মক বার্তা ছড়ায় এমন এক গল্প বর্ণনা করছে যেহেতু, নিঃসন্দেহে ঘটনাটি সত্য ছিল: "মুহাম্মদ অবশ্যই কুরআনের অংশ হিসাবে প্রকাশ্যে শয়তানী আয়াত তেলাওয়াত করেছেন; এটি কল্পনাও করা যায় না কাহিনীটি মুসলমানরা বানিয়ে বানিয়ে বলছে, বা অমুসলিমরা এরকম কোনো মিথ্যে গল্প মুসলমানদের মাঝে ছড়িয়ে দিয়েছে।" [৬] ট্রুড এহলার্ট, ইসলামের এনসাইক্লোপিডিয়াতে ওয়াটের কারণকে অপর্যাপ্ত বলে উল্লেখ করেছেন "কাহিনীটির বর্তমান রূপে (আল-আবারা, আল-ওয়াইদা ও ইবনে সাদ বর্ণিত) বিভিন্ন কারণে ঐতিহাসিক হিসাবে গ্রহণযোগ্য হতে পারে না "। [১৭]

ফ্রেড হলিডের মতে, এই ঘটনা ধর্মীয়ভাবে ক্ষতিকারক নয় বরং একটি সাবধানতার দীক্ষা দেয়। "এর মাধ্যমে ঈশ্বরকে অবজ্ঞা করা নয়, মানুষের মনুষ্যত্বকে চিহ্নিত করা যায়, "এবং এমনকি একজন নবীও শয়তান দ্বারা বিভ্রান্ত হতে পারে - যদিও শেষ পর্যন্ত এখানে শয়তান ব্যর্থ হয়েছে। [১৮]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

মন্তব্য[সম্পাদনা]

  1. Ahmed, Shahab (১৯৯৮)। "Ibn Taymiyyah and the Satanic Verses"। Maisonneuve & Larose: 67–124। জেস্টোর 1595926ডিওআই:10.2307/1595926 
  2. Ibn Ishaq, Muhammad (১৯৫৫)। Ibn Ishaq's Sirat Rasul Allah - The Life of Muhammad Translated by A. Guillaume.। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 165। আইএসবিএন 9780196360331। ২৬ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  3. John L. Esposito (২০০৩)। The Oxford dictionary of Islam। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 563। আইএসবিএন 978-0-19-512558-0। ১১ জুন ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. Shirazi, Naser Makarem (৪ নভেম্বর ২০১৩)। "180 Questions Enquiries About Islam Volume Two: Various issues"Al-Islam (ইংরেজি ভাষায়)। Compiled by Sayyid Husain Husaini। The Islamic Education Board of the World Federation of Khoja Shia Ithna-Asheri Muslim Communities। 43. What is the Myth of Gharaniq or ‘The Satanic Verses’?। ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  5. Saalih al-Munajjid, Muhammad (৩১ মে ২০০০)। "4135: "Satanic verses""Islam Question and Answer। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুলাই ২০১৮ 
  6. Watt, Muhammad at Mecca
  7. EoQ, Satanic Verses. For scholars that accept the historicity, see
  8. (Q.53)
  9. Ibn Taymiyyah। Majmu' al-Fatawa 
  10. Holland, Tom (২০১২)। In the Shadow of the Sword। Doubleday। পৃষ্ঠা 42। আইএসবিএন 9780385531368 
  11. Tabari's works are often filled with weak and fabricated narrations as he stated in his introduction to his tareekh that he had collected every account that he came across without considering any verification. Most of the later narrations of the 'satanic verses' incident stem from the works of Tabari.↵↵Rubin, Uri (১৪ আগস্ট ২০০৮), "Muḥammad", Dammen McAuliffe, Jane, Encyclopaedia of the Qurʾān, Georgetown University, Washington DC: Brill 
  12. Rubin, Uri (1997), The eye of the beholder: the life of Muḥammad as viewed by the early Muslims: a textual analysis, Princeton, NJ: Darwin Press (published 1995), p. 161, ISBN 0-87850-110-X
  13. ibn Isḥāq ibn Yasār, Muḥammad; Ibn Hishām, ʻAbd al-Malik, Sīrat Rasūl Allāh
  14. Ṭabarī, Ṭabarī, Tārīkh ar-Rusul wal-Mulūk 
  15. Ṭabarānī, Sulaymān ibn Aḥmad, al-Mu'jam al-Kabīr
  16. EoQ, Satanic Verses. For scholars that do not accept the historicity, see
  17. "Muḥammad." Encyclopaedia of Islam, Second Edition. Edited by: P. Bearman, Th. Bianquis, C.E. Bosworth, E. van Donzel, W.P. Heinrichs. Brill Online, 2014. Reference.
  18. Halliday, Fred, 100 Myths about the Middle East,

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • Fazlur Rahman (1994), Major Themes in the Qur'an, Biblioteca Islamica, ISBN 0-88297-051-8
  • John Burton (1970), "Those Are the High-Flying Cranes", Journal of Semitic Studies, 15 (2): 246–264, doi:10.1093/jss/15.2.246.
  • Uri Rubin (1995), The Eye of the Beholder: The Life of Muhammad as Viewed by the Early Muslims: A Textual Analysis, The Darwin Press, Inc., ISBN 0-87850-110-X
  • G. R. Hawting (1999), The Idea of Idolatry and the Emergence of Islam: From Polemic to History, Cambridge University Press, ISBN 0-521-65165-4
  • Nāsir al-Dīn al-Albānī (1952), Nasb al-majānīq li-nasfi qissat al-gharānīq (The Erection of Catapults for the Destruction of the Story of the Gharānīq)
  • Shahab Ahmed (2018), Before Orthodoxy: The Satanic Verses in early Islam, Harvard University Press, ISBN 978-0-674-04742-6

বহিঃসূত্র[সম্পাদনা]

মন্তব্যকারীদের[সম্পাদনা]